গেইমিং যখন পেশা

0
389
শুনতে অদ্ভুত হলেও শখের গেইমারদের অনেকেই এখন অনেকেই পেশা হিসেবে বেছে নিচ্ছেন ভিডিও গেইম খেলাকে। পছন্দের গেইম খেলেই কেউ কেউ আয় করছেন লাখ ডলার।

এমনই এক শখের গেইমার ছিলেন ক্যালিনোর্নিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটি ইন ফুলারটন-এর ছাত্র রবার্ট লি। বিশ্ববিদ্যালয়ে এক বছর পড়াশোনার পর পেশা হিসেবে গেইমিংকে বেছে নেন তিনি।

তার এ সিদ্ধান্তের কারণ ব্যাখ্যা করে লি বলেন, আমি চিন্তা করে দেখলাম স্কুল তো থাকছেই। তবে ভিডিও গেইম খেলে টাকা আয়ের সুযোগ বেশি দিন থাকবে না।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ম্যাশএবল এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, তিন বছরের ব্যবধানে লি এখন পেশাদার ‘লিগ অফ লিজেন্ডস’ গেইমার। গেইম খেলে যা আয় করেন তাতে অনায়াসে চলে যাচ্ছে তার জীবনযাপনের খরচ। গেইমিংয়ের জগতে তার পরিচিতি ‘রবার্টিএক্সলি’ নামে ।

লি-এর মতো ভিডিও গেইম খেলে ক্যারিয়ার গড়তে আগ্রহীদের সংখ্যা যে শুধু বাড়ছে তা নয়, বিভিন্ন ভিডিও গেইম টুর্নামেন্ট দেখতে আগ্রহী দর্শকের সংখ্যাও বাড়ছে দিন ‍দিন। ২০১৩ সালে লস অ্যাঞ্জেলসের স্টেপলস সেন্টারে আয়োজিত ‘লিগ অফ লিজেন্ডস’ টুর্নামন্টের ফাইনাল দেখেছেন বিশ্বব্যাপী তিন কোটি বিশ লাখ দর্শক। স্টেপলস সেন্টারের ১৮ হাজার টিকেট বিক্রি হয়ে গিয়েছিল দু’ঘন্টার মধ্যে।

প্রায় একই রকমের ঘটনা ঘটেছে সেপ্টেম্বরে আয়োজিত ‘ডোটা ২’ টুর্নামেন্টের ফাইনালে। দুই লাখ দর্শক দেখেছেন টুর্নামন্টের ফাইনাল। ফাইনালে ৫ সদস্যের বিজয়ী দল পুরস্কার হিসেবে পেয়েছিল পঞ্চাশ লাখ মার্কিন ডলার।

লিগ অফ লিজেন্ডস এবং ডোটা ২ গেইমদুটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান রায়ট এবং ভাল্ভের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো ‘মাল্টিপ্লেয়ার অনলাইন ব্যাটল এরিনা’ (মোবাস) ধারার গেইমের সাম্প্রতিক জনপ্রিয়তা পুঁজি করে মিলিয়ন ডলার আয় করছে বলে জানিয়েছে ম্যাশএবল ডটকম।

সারা পৃথিবীজুড়ে প্রায় প্রতিটি দেশেই রয়েছে ‘লিগ অফ লিজেন্ডস’ এবং ‘ডোটা টু’ গেইমগুলোর প্লেয়ার। রায়ট ও ভাল্ভের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেরাই আয়োজন করে থাকে বিভিন্ন টুর্নামেন্ট। টুর্নামেন্টগুলো সরাসরি সম্প্রচারও করে থাকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। নিজেদের অনলাইন চ্যানেলে ডোটা ২ টুর্নামেন্টের ফঅইনাল প্রচারের ব্যবস্থা করেছিল স্পোর্টস চ্যানেল ইএসপিএন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

6 − 1 =