ফেসবুকের ১০০ কোটির বাজির ঘোড়া

7
390

সম্প্রতি ছবি তোলা কিংবা শেয়ার করার জন্য আইফোন, আইপ্যাড ও আইপড টাচের অন্যতম জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন ‘ইনস্টাগ্রাম’ কিনে নিয়েছে সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ফেসবুক। এই অ্যাপ্লিকেশনটি কিনতে এক বিলিয়ন ডলার খরচ করেছেন ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ।
প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা প্রশ্ন তুলেছেন, মাত্র ১৩ জন কর্মী; কোনো আয় নেই, অথচ বোকার মতো জাকারবার্গ মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টাগ্রাম কেনো কিনলেন? তবে কি তিনি কম্পিউটার যুগের শেষ আর মোবাইল যুগের শুরুর বিষয়টি আঁচ করেই এগোচ্ছেন? উত্তরটি অবফেসবুকের ১০০ কোটির বাজির ঘোড়াবে তাঁর প্রতিষ্ঠান। ইনস্টাগ্রামের ক্ষেত্রে মোবাইলে তোলা ছবিকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে। তবে এ অ্যাপ্লিকেশনটি শিগগিরই ফেসবুকের সঙ্গে যুক্ত না করার ইঙ্গিতও দিয়েছেন তিনি। ইনস্টাগ্রাম অ্যাপ্লিকেশনটিকে আলাদা অ্যাপ্লিকেশন হিসেবে রেখে অ্যাপ্লিকেশনটির আরও উন্নয়ন করতে চান তিনি।
ফেসবুক তবে কি তাঁর বর্তমান অবস্থান ও অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা নিয়ে ভয় পেয়েছিল? এর উত্তর খুঁজতে ফিরে যেতে হবে ২০০৪ সালে, যখন জাকারবার্গ সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট তৈরিতে কাজ শুরু করেছিলেন। সে সময় তাঁর দৃষ্টিভঙ্গি ছিল সম্পূর্ণ আলাদা। সে সময় কম্পিউটিং এর বিষয়টি ছিল পুরোটাই কম্পিউটার-কেন্দ্রিক। ইন্টারনেটের অর্থ ছিল কেবল ওয়েবসাইট। এর কয়েক বছর পর আসে আইফোন ও অ্যান্ড্রয়েড প্ল্যাটফর্ম। বর্তমানে পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে, যেকোনো মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের প্রচারণার জন্যও তৈরি হচ্ছে ওয়েবসাইট। বর্তমানে সারা বিশ্বে স্মার্টফোন ব্যবহারকারী সংখ্যা বেড়ে গেছে। ব্যবহারকারীর হিসেবে শিগগিরই কম্পিউটারকে ছাড়িয়ে যাবে স্মার্টফোন। বিশ্লেষকেরা জানিয়েছেন, পরবর্তী দশকের মধ্যে সব মোবাইল ফোনই হয়তো স্মার্টফোন হয়ে যাবে এবং ৬০০ কোটি মানুষের আয়ত্তের মধ্যে চলে আসবে ইন্টারনেট সুবিধা।
এ প্রসঙ্গে হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ক্লেটন ক্রিস্টেনসেন জানিয়েছেন, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের ক্ষেত্রে ফেসবুকের ব্যর্থতার বিষয়টি পুরোনো বা নতুন ক্ষেত্র বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে উদ্ভাবকের দোদুল্যমান মানসিকতারই একটি উদাহরণ। নতুন প্রযুক্তি বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে বিখ্যাত কোম্পানিগুলোর এই ইতস্তত করার কারণ হিসেবে ক্লেটন তাঁর ব্যাখ্যায় বলেছেন, পুরোনো প্রযুক্তি নিয়ে কোম্পানিগুলো এতটাই ব্যস্ত থাকে যে; ভবিষ্যতের প্রযুক্তির বিষয়টি ধরতে পারে না। জাকারবার্গ সে পথে হাঁটতে চাননি, তাই লুফে নিয়েছেন ইনস্টাগ্রামের মতো মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনকে। তবে একটি অ্যাপ্লিকেশনের জন্য এক বিলিয়ন ডলার খরচ বেশি মনে হতে পারে। কিন্তু ফেসবুক যে পাবলিক কোম্পানি হিসেবে আর্থিক মূল্যে ১০০ বিলিয়ন ডলারের কোম্পানিতে পরিণত হচ্ছে সে তুলনায় এ ব্যয় যত্সামান্যই বলা চলে।
উল্লেখ্য, ২০১০ সালে আইওএস অপারেটিং সিস্টেমের অ্যাপ্লিকেশন হিসেবে চালু হয়েছিল ইনস্টাগ্রাম।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

7 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

10 − four =