সর্বকালের ভয়ঙ্কর ১০ পিসি ভাইরাস :)

7
491

সর্বকালের ভয়ঙ্কর ১০ পিসি ভাইরাস :)ভাইরাসে আক্রান্ত হননি এমন ব্যবহারকারী খুঁজে পাওয়া মুস্কিল আমারতো মনে হয় সবাই আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে ভাইরাস আক্রমণের শিকার হলেও খুব একটা ক্ষয়ক্ষতির মধ্যে পড়তে হয় না কারন ব্যাপকভাবে এন্ট্রিভাইরাস ব্যবহার। কিন্তু এক সময় ভাইরাস আক্রমণের কারণে এক রাতেই হাজার হাজার,মিলিয়ন ডলারের ক্ষতি হয়ে যেত। সেই সময়ে প্রকাশিত কিছু ভাইরাস যা বিশ্বব্যাপী কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের এখনো ভাইরাস আক্রমণের ভয়াবহতার কথা মনে করে দেয়। সে সময়ের অনেক কম্পিউটার ব্যবহারকারী এখনো ভাইরাসগুলোর নাম শুনে কিংবা দিনটির কথা মনে হলে আঁতকে ওঠেন। স্মরণকালের সেসব ক্ষতিকারক স্মরণীয় ভাইরাসগুলোর স্মৃতি রোমন্থন করতেই এ আয়োজন। এ বিষয়ে আপনাদের স্মৃতি রোমন্থন করে দেখেনতো ;) সর্বকালের ভয়ঙ্কর ১০ পিসি ভাইরাস :)

ব্রেইন (১৯৮৬) : মানুষের সবকিছু যেমন চলে মস্তিষ্ক তেমনি কম্পিউটার ভাইরাসের যাত্রাও শুরু হয়েছে ব্রেইন নামক ভাইরাস থেকে। ১৯৮৬ সালে আবিষ্কৃত এ ব্রেইনই প্রথম কম্পিউটার ভাইরাস। এটি সরাসরি কম্পিউটারে কোনো ক্ষতিকর আক্রমণ পরিচালনা করে না। কিন্তু পিসিকে আক্রমণ করার উপযোগী করে গড়ে তোলে। কেননা এ ভাইরাস অন্যান্য ক্ষতিকারক সফটওয়্যারগুলোকে পিসিতে প্রবেশের উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করে দেয়। এটি মূলত অপারেটিং সিস্টেমের দুর্বল দিকগুলো অন্যদের কাছে উন্মুক্ত করে দেয়। ওই সময়ে কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের কাছে তাৎক্ষণিকভাবে তেমন আতঙ্কের কারণ না হলেও পরবর্তীকালে দ্রুত বাড়তে থাকে কম্পিউটার ভাইরাসের আনাগোনা। এতে লক্ষাধিক ভাইরাস তৈরিকারক নতুন নতুন ভাইরাস তৈরিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

মিশেল অ্যাঞ্জেলো (১৯৯১) : এমএস ডসভিত্তিক কম্পিউটারের জন্য সর্বকালের সবচেয়ে ক্ষতিকারক ভাইরাসটির নাম মিশেল অ্যাঞ্জেলো। এটি হার্ডড্রাইভের বুটসেক্টর এবং যে কোনো ফ্লপি বা পেনড্রাইভ পিসিতে ইনসার্ট করার সঙ্গে সঙ্গে আক্রমণ করবে। আর ভাইরাসটির সবচেয়ে বড় খারাপ দিক হচ্ছে এর কল্পনার চেয়েও দ্রুত ছড়ানোর ক্ষমতা। ১৯৯১ সালে প্রথম যখন ছড়ায় তখন প্রায় মাসখানেকের মতো নীরবে কাজ করার পর মার্চের ৬ তারিখে ভয়ঙ্কররূপে কার্যকর হয় এবং প্রায় ১০ লাখেরও বেশি কম্পিউটারে ডাটা ধ্বংস করে ফেলে। তাই পুরো কম্পিউটার ব্যবহারকারীরা এখনো এর নাম শুনলে আঁতকে উঠতে বাধ্য হন।

মেলিসা (১৯৯৯) : ম্যাসেজিং ব্যবস্থাকে পুরো ধ্বংস করার এক কার্যকরী ভাইরাসের নাম মেলিসা। ১৯৯৯ সালে যখন কম্পিউটার ব্যবহারকারীরা ইন্টারনেট ব্যবহারের দিকে যাচ্ছে তখন এ ভাইরাসের আগমন। এটি পুরো ই-মেইল সিস্টেমে একটি হযবরল অবস্থা তৈরি করে। যার ফলে নেটওয়ার্কে থাকা কম্পিউটারগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে একে অপরটির কাছে হাজারো মেসেজ পাঠাতে শুরু করে। এতে এক সময় পুরো নেটওয়ার্ক ব্যবস্থায় বন্ধ হয়ে যেতে বাধ্য হয়। এ ভাইরাসটির জনককে খুঁজে বের করা হয় এবং ২০ মাসের জেল দেয়া হয়।

আই লাভ ইউ (২০০০) : কম্পিউটার ইউজারদের একটি ফাইল খোলার জন্য প্ররোচিত করে কম্পিউটারে প্রবেশ করে। ভাইরাসটি প্রেমিক হৃদয়কে আকুল করে তার প্রেমিকার কাছে লাভ লেটার লিখতে উদ্বুদ্ধ করে। কিন্তু এটি প্রেমপত্র না হয়ে ফাইলটি ভিবিএস স্ক্রিপ্টে রূপান্তর হয়। যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে অন্যদের ই-মেইল পাঠাতে থাকে এবং অজস্র জরুরি ফাইল ডিলিট করে ফেলে। এটি বিশ্বের প্রায় ১০ শতাংশের বেশি কম্পিউটার আক্রমণ করেছিল। যেখানে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৫.৫ বিলিয়ন ডলার। এটাই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় ভাইরাস আক্রমণ।

কোড রেড (২০০১) : এটা হচ্ছে আকস্মিক ব্লেন্ডেড থ্রেট অ্যাটাক। কম্পিউটারে ওয়েবসার্ভিস চালু থাকা কম্পিউটারগুলো কোড রেড আক্রমণ করে। এ ভাইরাসটি কোনো ওয়েবসাইটে নিজেকে আশ্রয় করে আইপি অ্যাড্রেসের মাধ্যমে পিসিতে আক্রমণ শুরু করে।
নিমডা (২০০১) : কোড রেড অ্যাটাক সিস্টেম মেশিনের ভেতরে একাধিক ক্ষেত্র তৈরি করে (ই-মেইল, ওয়েবসাইট, নেটওয়ার্ক কানেকশন এবং অন্যান্য)। কিন্তু নিমডা আক্রমণ করে ওয়েবসার্ভার এবং ইউজার মেশিন উভয়কেই। এটা কম্পিউটারের ভেতরে খুবই কার্যকরভাবে নিজের পথ খুঁজে নেয়। মাত্র ২২ মিনিটের ভেতরে এটা ইন্টারনেটের সবচেয়ে ক্ষতিকারক বস্তুতে পরিণত হতে পারে।

ক্লেজ (২০০১) : ২০০১ সালের সবচেয়ে বড় ভাইরাস আক্রমণের নাম ক্লেজ। এটা এক ধরনের ই-মেইল ভাইরাস। ই-মেইলের �ফ্রম� অপশনে এটা নিজের কেরামতি দেখায় অনেকটা দার্শনিকভাবে যা ইউজারকে দ্বিধাগ্রস্ত করে ফেলে।

সরব্যামার (২০০৩) : এটি অনলাইনভিত্তিক একটি ভাইরাস। ২০০৩ সালে ভাইরাসটি মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যে প্রায় ৭৫ হাজার সিস্টেমকে আক্রমণ করে। এটি কোড রেড ভাইরাসের মতো ইন্টারনেটের গতিকে ধীর করে দেয় এবং একই সঙ্গে হাজার হাজার ওয়েবসাইট বন্ধ করে দেয়।

মাইডুম (২০০৪) : ই-মেইলের মাধ্যমে যে কয়টি ভাইরাস ছড়িয়েছে তার মধ্যে সবচেয়ে দ্রুত ক্ষতিসম্পাদন করেছে মাইডুম ভাইরাসটি। এটা কম্পিউটারকে আক্রমণ করে এবং একাধিক জাঙ্ক ই-মেইল প্রেরণ করে। এর সঙ্গে এটা এসসিও গ্রুপের ওয়েবসাইট আক্রমণ করেছিল। লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশনের মাধ্যমে কোড ব্যবহার করে খুবই অপরিচিত ১টি কোম্পানি পরিচিত কোম্পানির মধ্যে ঢুকে পড়ে।

স্টর্ম (২০০৭) : সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে ক্ষতিকারক ভাইরাসের নাম স্টর্ম। স্টর্ম ভাইরাস ই-মেইল স্প্যামের মাধ্যমে ফোক অ্যাটাচমেন্টের সঙ্গে ছড়ায়। ২০০৭ সালে ভাইরাসটি প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে জুম্বি বুটনেটের মাধ্যমে প্রায় ১০ মিলিয়ন কম্পিউটারকে আক্রমণ করে।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

7 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

2 − 1 =