ইন্টারনেটের ব্যান্ডউইথ, ক্যাবলিং এবং ইন্টারনেটের জন্মকথা (নেটওয়ার্কিং)

5
1313

আসা করি সবাই ভাল আছেন। আজকে আমি আলোচনা করব ইন্টারনেটের ব্যান্ডউইথ, ক্যাবলিং এবং ইন্টারনেটের জন্মকথা এবং নেটওয়ার্ক নিয়ে। ইন্টারনেট পরীক্ষামূলক শুরু হয়েছিল ১৯৬৯ সালের ২ সেপ্টেম্বর তারিখে। মাত্র ১৫-২০ জন লোকের সামনে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫ ফুট গ্রে ক্যাবলের সাহায্যে দুটি কম্পিউটারের মধ্যে নেটওয়ার্ক করেন ক্লাইনরক। আরপানেট নেটওয়ার্কের জন্ম সেই থেকেই, আরপানেট ইন্টারনেটের প্রথম পুরুষ বা পূর্ব পূরুষ।মূলে ছিল মার্কিন প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা বিভাগ (আরপা) এর নাম।

চিত্রে: আরপা’র নেটওয়ার্ক ডায়াগ্রাম

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একমাস পরেই Stanford Research Institute যুক্ত হয়ে যায় এই নেটে। সেই বছরের শেষের দিকে যুক্ত হয় UC Santa Barbara and the University of Utah ।

তার পরের দশকে যুক্ত হল TCP/IP, IP ডেভোলাপ হওয়ার পরে এক আরপা কে আরেকটার সাথে যুক্ত করাটা সহজ হয়ে গেল। আসলে ১৯৯৪ এর আগে ইন্টারনেট / আরপা’র ব্যবহার একাডেমিক কাজে ও গবেষনার কাজ পর্যন্ত ছিলো।

স্হিরচিত্রে: Tim Berners-Lee

Tim Berners-Lee এর হাতে 1989 সালে যুক্ত হলো World Wide Web or WWW। ViolaWWW হলো প্রথম জনপ্রিয় ব্রাউজার আরলি 1990 এ এটি ইন্টারনেট যুক্ত হয় Unix and the X Windowing System জন্য।

চিত্রে : মোসাইক ভারসন – ১ ব্রাউজার

University of Illinois কতৃক Mosaic ব্রাউজার 1993 সালে যুক্ত হয়, এটি ছিলো version 1.0, অনেক জনপ্রিয় হয় ব্রাউজারটি। তখনকার লিমিটেড ইউজিং (গবেষনায়) এ কথা বিবেচনা করে । তবে সেই Mosaic ব্রাউজার এর কম্পোনেন্টসগুলো এখন ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারে আছে।

১৫ ফুট গ্রে ক্যাবলের সেই নেটটি সারা বিশ্বে আলোড়ন তুলে ১৯৯৫-৯৬ সাল থেকে। বাংলাদেশে ও ইন্টারনেট ১৯৯৬ সালে থেকে চলে আসে । ১২-১৮ বছরে ইন্টারনেটের যে বিপ্লব বা রিভুলেশনের সাক্ষি আমরা হলাম আগামি ১০-১২ বছরে তা আমাদের কল্পনাকে ও ছাড়িয়ে যাবে। ইন্টারনেট -২ ভারসন আসবে ।দিনের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে নেটওয়ার্কিং ইকুপমেন্টসগুলোর গতি , ৭-৮ বছর আগে ১০ এমবিপিএস হাফ ডুপ্লেক্স গতির ল্যান যথেষ্ট ছিলো, সেই গতি এখন ১০০০এমবিপিএস ফুল ডুপ্লেক্স সর্বত্রই । বাংলাদেশে ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডাররা দক্ষ জনশক্তির মাধ্যমে নিরবিচ্ছিন্ন সার্ভিস দেওয়ার চেষ্টা করছে, এবং ব্যবহারকারীদের পর্যাপ্ত সাপোর্ট দিয়ে চলছে ।

চিত্রে: ইন্টারনেট ব্যবহারের গ্রাফ

ইন্টারনেট বা ইন্ট্রানেট নেটওয়ার্কে ক্যাবলিং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন বিষয়। সঠিক ক্যাবলিং না না হলে আপনি যতই উচ্চ ক্ষমতার ইকুপমেন্ট ইউজ করেন না কেনো , ব্যান্ডউইথ বা নেটওয়ার্কের পারফরম্যান্স পাবেন না। ছোট বা মাঝারি বা বড়মানের নেটওয়ার্ক তৈরির সময় অবশ্যই ক্যাবলিং ঠিক মতো করতে হবে। কারন আপনার নেটওয়ার্কের ব্যান্ডউইথই বলেন আর পারফরম্যান্সই বলেন সবকিছু ক্যাবলের উপর দিয়েই যাবে।

ইন্টারনেট বা ইন্ট্রানেট নেটওয়ার্কে যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে প্রধানত টুইস্টেড পেয়ার, কো-এক্সিয়াল, ফাইবার অপটিক ক্যাবল ইউজ করা হয়। এই লেখাটিতে টুইস্টেড পেয়ার নিয়ে আলোচনা করতেছি তাই কো-এক্সিয়াল, ফাইবার অপটিক ক্যাবলের কথা আজ বলব না।

উপরে টুইস্টেড পেয়ার ক্যাবলের ছবি। কতগুলো পরিবাহী তার মোড়ানো বা টুইস্টেড অবস্হায় আছে, তারের সংখ্যা ৪ জোড়া। রঙ একেকটার এক এক রকম। এই টুইস্টেড পেয়ার ক্যাবলই ইন্টারনেট বা ইন্ট্রানেট নেটওয়ার্কে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ক্যাবল।

টুইস্টেড পেয়ার আবার দুই ধরনের:

1: UTP Cable (Unshielded twisted pair)
2: STP Cable (shielded twisted pair)

ছবিতে দেখুন , উপরের তারটি কিছু একটা দিয়ে মোড়ানো, ওটাই shielded twisted pair, আর ছবিতে বলা নিচের তারটি Unshielded twisted pair।

আবরন ছাড়া জিনিস একই , তাহলে কোনটা ভালো ?
অবশ্যই shielded twisted pair। shielded twisted pair ক্যাবলে এলুমিনিয়ামের আবরন দেয়ার কারন আছে, এটা কিন্তু ক্যাবল শক্ত হওয়ার জন্য নয় । electromagnetic interference (EMI) বা যে কোন রেডিও interference থেকে বাঁচিয়ে ভিতরের ডাটা পরিবাহী ৮ টি তারকে নির্বিঘ্নে ডাটা পরিবহন সুবিধা করে দেয়ার জন্য । আর Unshielded twisted pair ক্যাবলে কোন আবরন থাকে না। তাই electromagnetic interference (EMI) বা যে কোন রেডিও interference বা ফ্রিকোয়েন্সি ভিতরের ডাটা পরিবাহী ৮ টি তারকে আক্রমন করতে পারে এবং নেটওয়ার্কের ব্যান্ডউইথ পরিবহনের মান কমিয়ে দিতে বা একেবারে বন্ধ করে দিতে পারে।

==========

ইথারনেট ক্যাবল সবগুলো সমান নয়। এর আছে বিভিন্ন প্রকারভেদ। EIA-568 নামক সংস্হা এর স্টেন্ডারাইজ করে।

নিচের ক্যাটাগরিগুলোর বর্ননা পড়লেই বুঝতে পারবেন আপনার কোন ক্যাবলের দরকার। catagory কে CAT বলা হয়।

Cat 3 : ১০ এমবিপিএস নেটওয়ার্কের জন্য এটি , সর্বোচ্চ ডাটা রেট ১৬ এমবিপিএস, এবং গতি ১৬ মেগাহার্জ।

Cat 4 : ১০ এমবিপিএস নেটওয়ার্কের জন্য এটি , সর্বোচ্চ ডাটা রেট ২০ এমবিপিএস, এবং গতি ২০ মেগাহার্জ.

Cat 5: ১০/১০০ এমবিপিএস নেটওয়ার্কের জন্য এটি , সর্বোচ্চ ডাটা রেট ১০০ এমবিপিএস, এবং গতি ১০০ মেগাহার্জ ।

Cat 5E: গতি ১৫০ মেগাহার্জ ,এনহ্যান্সড catagory ৫ ক্যাবল, সর্বোচ্চ ডাটা ট্রান্সফার ১০০০ এমবিপিএস , 10/100/1000Mb নেটওয়ার্কের জন্য।

Cat 6; ষ্পিড ২০০ মেগাহার্জ, সর্বোচ্চ ডাটা ট্রান্সফার ১০০০ এমবিপিএস , 10/100/1000Mb নেটওয়ার্কের জন্য।

Cat 7 : এটাকে ক্লাস এফ ও বলা হয়, পুরোপুরি shielded twisted pair, গতি ৬০০ মেগাহার্জ ।10/100/1000Mb নেটওয়ার্কের জন্য।

===========================================
উপরে বর্নিত ক্যাবল গুলো EIA-568 নামক সংস্হা এর স্টেন্ডারাইজ করে।
কিন্তু চায়না’রা যেমন ইচ্ছে তেমন ভাবে কম দামে ক্যাবল প্রস্তুত করে , এমনকি সেমি-কনড্রাকটার মেটাল ও ইউজ করে। তাই EIA-568 নামক সংস্হা এর স্টেন্ডারাইজ যেসব ক্যাবলে মানা হয় না তাদের জন্য এইগুলো কাজ করবে না।
============================================

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

5 মন্তব্য

  1. এইটা কিন্তু অনেক আগেই জানার দরকার ছিল কিন্তু জানতে পারিনাই :প আপনি শেষমেষ জানালেন ভাই :দ অনেক অনেক ধন্যবাদ আপনাকে

  2. এত সুন্দর একটা খবর আগে দেন নাই কেন ? খুব ভাল ভাষাই এন্ড পিকচার গুলা , মট মিলায়ে দারুন , ধন্যবাদ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

three × three =