ফোনের ব্যাটারী সেভ করার উপায়গুলি জানুন!

0
229
অ্যাপলের  নতুন আইওএস ১১ আপডেটের পর অনেকেই ব্যাটারি লাইফের আয়ু নিয়ে চিন্তায় পড়েন। সম্প্রতি পরিচালিত এক জরিপে,  প্রায় ৭০ শতাংশ অ্যাপল ব্যবহারকারী ব্যাটারি লাইফ নিয়ে অভিযোগ করেন।
ফোনের ব্যাটারী সেভ করার উপায়গুলি জানুন!

ফোনের ব্যাটারী সেভ করার উপায়গুলি জানুন!

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

১. ব্যাটারি খেকো অ্যাপ

কোন ফিচার বা অ্যাপটি আপনার ফোনের ব্যাটারি খেয়ে নিচ্ছে সেটাই আগে সনাক্ত করা দরকার। একারণে প্রথমেই চলে যান সেটিংসে। এরপর ব্যাটারি অপশনে গিয়ে নিজেই দেখে নিন কোন অ্যাপটি আপনার ফোনের ব্যাটারি লাইফ শুষে নিচ্ছে।

ফোনের চার্জ যখন ২০ শতাংশে গিয়ে ঠেকবে তখন লো পাওয়ার মোড অপশনটি ব্যবহার করুন। এটি ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপ রিফ্রেশ ও অটোমেটিক ডাউনলোড করা থেকে ফোনকে বিরত রাখে। লো পাওয়ার মোড অপশনটি চালু করতে সেটিংস থেকে ব্যাটারিতে যেতে হবে।

৩. অটো লক

স্ক্রিনে আলো জ্বলা মাত্রই আপনার ব্যাটারি থেকে চার্জ ক্ষয়ে যায়। তাই চার্জ বাঁচাতে দ্রুত ফোনটি লক করা প্রয়োজন। অটো লক অপশনটি চালু করতে সেটিংস থেকে ডিসপ্লে অ্যান্ড ব্রাইটনেসে গিয়ে অটো লক অপশনটিতে ক্লিক করুন।

৪. লোকেশন সার্ভিস

এমন কিছু অ্যাপ আছে যেগুলো ব্যবহার না করলেও সর্বক্ষণই সেগুলো ব্যবহারকারীর লোকেশন ট্র্যাক করে থাকে। এতে ব্যাটারি খরচের পরিমাণ বেড়ে যায়। লোকেশন ট্র্যাক অপশনটি বন্ধ করতে সেটিংসে গিয়ে প্রাইভেসিতে ক্লিক করে লোকেশন সার্ভিসে যেতে হবে। সেখানে গিয়ে প্রতিটি অ্যাপের ক্ষেত্রে ‘হোয়াইল ইউজিং’ অপশনটি চালু করতে হবে।

ফোনের ব্যাটারী সেভ করার উপায়গুলি জানুন!

৫. ই-মেইলের ‘পুশ’

দুটি উপায়ে ফোনে ই-মেইল চেক করা যায়। একটি হলো পুশ আরেকটি হলো ফেচ। পুশ অপশন চালু করা থাকলে যখনই কোনো ই-মেইল আসবে তাতক্ষিণকভাবে তা ডাউনলোড হয়ে যাবে। অপর দিকে, ফেচ প্রতি ১৫ মিনিট পর পর পরীক্ষা করবে কোনো ই-মেইল বার্তা এসেছে কিনা।

তাই ফেচ অপশনটি চালু থাকলে তা সব সময়ই ই-মেইলের খোঁজ করে না। এতে ব্যাটারির খরচ কম হয়। মোবাইলে ফেচ অপশনটি চালু করতে সেটিংসে থেকে অ্যাকাউন্ট অ্যান্ড পাসওয়ার্ডসে যেতে হবে। সেখানে গিয়ে প্রতিটি ইমেইল অ্যাকাউন্টের জন্য ফেচ নিউ ডাটা অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে।

৬. অটো ব্রাইটনেস

ব্যাটারি বাঁচাতে অটো ব্রাইটনেস অপশনটি সিলেক্ট করতে পারেন। এতে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ব্রাইটনেসের কারণে মোবাইলের চার্জ ক্ষয় হবে না। স্ক্রিনের ব্রাইটনেস কমাতে সেটিংসে গিয়ে জেনারেল অপশনে ক্লিক করতে হবে। এরপরে অ্যাক্সেসিবেলিটি থেকে ডিসপ্লে অ্যাকোমোডেশনে গিয়ে অটো ব্রাইটনেস অপশনটি চালু করে দিতে হবে।

৭. ওয়াইফাই

ডাটা খচর করলে শুধু ইন্টারনেটের বিলই বাড়ে না ব্যাটারির খরচও বাড়ে। কারণ নেটওয়ার্ক খুঁজে পেতে মোবাইল ডাটা প্রচুর ব্যাটারি খরচ করে ফেলে। তাই ওয়াইফাই চালু করেই ইন্টারনেট ব্যবহার করুন।

ফোনের ব্যাটারী সেভ করার উপায়গুলি জানুন!

৮. অটো রিফ্রেশ

অনেক অ্যাপ আছে যেগুলো প্রতিনিয়ত তাদের কনটেন্ট রিফ্রেশ ও আপডেট করে থাকে। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে সেটিংস থেকে জেনারেলে গিয়ে ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপ রিফ্রেশে ক্লিক করুন।

৯.  ফ্লাইট মোড

কোথাও নেটওয়ার্ক কভারেজ না থাকলে ফোনের ফ্লাইট মোড অপশনটি চালু করুন। এতে নেটওয়ার্ক খুঁজতে ফোন ব্যাটারি খরচ করবে না।

১০. কম্পিউটারে চার্জ

অনেকেই কম্পিউটারের মাধ্যমে ফোনে চার্জ দিয়ে থাকেন। কিন্তু কম্পিউটার বন্ধ করা অবস্থায় ফোন তাতে সংযুক্ত থাকলে ব্যাটারি লাইফ উল্টো ক্ষয় হয়ে যায়। তাই কম্পিউটার চালু করা অবস্থাতেই চার্জ দিন।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

eleven + 3 =