প্রয়োজন নাই বিট কয়েন এড্রেস মুখস্ত রাখার! এবার বিট কয়েন এড্রেসকে খুব সহজেই ইউজার নাম হিসাবে রুপান্তর করুন ও শেয়ার করুন!!

By | 07/07/2015

আপনাদেরকে দেখাব কিভাবে খুব সহজেই বিট কয়েন এড্রেসকে অপর জনের নিকট শেয়ার কিংবা লেনদেন করবেন। তাছাড়া টিউটোরিয়ালে থাকছে বিটকয়েন এড্রেসকে কিভাবে ইউজার নেইম হিসাবে শো এবং শেয়ার করবেন।

বিট কয়েন এড্রেস কি?

বিট কয়েন এড্রেস সম্পর্কে নতুন করে কিছু বলার নাই। কেননা, এই সম্পর্কে টিটিতে বেশ কয়েকটি টিউন আছে। তাছাড়া ২ পর্বে এই বিষয়ে টিউন করেছিলাম এখানে। মূলত যারা বিভিন্ন বিট কয়েন সাইটে আয় করতে গিয়ে এলোমেলো সংখ্যা/বর্ণ মিশ্রিত যে ৩৬ ক্যারেক্টারের লিংক ব্যবহার করছেন সেটিই হলো বিট কয়েন এড্রেস। এই এড্রেসটা কয়েন বেইজ সাইট হতে রেজি: করলে পাওয়া যায়। কয়েনবেইজ সাইটের ঠিকানাই হল বিটকয়েন আয়ের কিংবা লেনদেনের লিগ্যাল ঠিকানা। আপনি যে কোন বিট কয়েন সাইট হতে আয় করুন না কেন সেখানে যদি কয়েন বেইজ একাউন্টের লিংক যুক্ত থাকে তাহলে সকল উপার্জিত বিট কয়েন উক্ত এড্রেস অনুযায়ী কয়েন বেইজ সাইটে জমা হবে। তরপর ঐখান হইতে যে কোন জায়গাতে আপনি বিট কয়েন ট্রান্সজেকশন করতে পারবেন।

কিভাবে বিট কয়েন এড্রেস ঠিকানাকে ইউজার নেইম হিসাবে ব্যবহারের গুরুত্ব?

বিভিন্ন কাজের প্রয়োজনে আমাদেরকে বিট কয়েন এড্রেস শেয়ার করতে হয় যেমন ফান্ড সংযুক্ত করতে, বিট কয়েন অন্য কোথাও প্রেরন করতে কিংবা কোন পেমেন্ট গেটওয়েতে ইত্যাদি। এই ক্ষেত্রে দেখা যায় আমাদেরকে ৩৪ ডিজিটের ঠিকানাটা ভালভাবে কপি করে নিতে হয় কিংবা শেয়ার করতে হয় যা অনেকটা বিড়ম্বনার শিকার। কারন, কোন বিট কয়েন এড্রেস ঠিকানাতে লেনদেনে করতে গিয়ে সেই ঠিকানাটি কোন একটি ডিজিটের পরিবর্তন হয়ে যায় তাহলে কিন্তু সব হযবরল হয়ে যাবে যেমন: হয়ত পেমেন্ট অন্য ঠিকানাতে চলে যাবে, কিংবা আপনার একাউন্ট হতে বিট কয়েন আয় মাইনাস হয়ে যাবে। তাই আপনি যেখানে লেনদেন করতে যাচ্ছেন কিংবা করবেন ক্লায়েন্টের ঠিকানাটা কনফার্ম করে নিবেন সেইসাথে আপনার ঠিকানাটাও কনফার্ম করে দিতে হবে।

তবে কয়েন বেইজ সাইট এতসব বিড়ম্বনা দূর করার জন্য আপনাকে ইউজার নেইম ব্যবহারের সুযোগ দিচ্ছে। উদাহরণ: আপনি যদি ফেসবুকের ইউজার নেইম কারোর সাথে শেয়ার করেন তাহলে এই রকম লিখে থাকেন যেমন http://www.blogger.com/abdullahinfolab

অর্থাত স্লাশ চিহৃর পরে (/) কোন নাম লিখা। ঠিক তেমনি আপনি কয়েন বেইজ সাইটে একই ব্যবহার করতে পারবেন। উদাহরন:http://www.coinbase.com/ferrywala। তার মানে হলো: কয়েনবেইজ সাইটের ঠিকানটা টাইপ করে স্লাশের পরে অাপনার ইউজার নেইম টাইপ করা। আশা করি ব্যাপারটা ক্লিয়ার করতে পেরেছি। মূলত ইউজার নেইম ব্যবহারের ও জানার সুবিধাটা হল আপনি যার সাথে বিট কয়েন লেনদেন করবেন তার কাছ হতে এরুপ ইউজার নেইম জেনে নিবেন এবং আপনারটিও এরুপ জানাবেন। কোন ভিজিটর আপনার ইউজার নাম দিয়ে প্রবেশ করলে সহজেই আপনার বিট কয়েন এড্রেসটি জানতে পারবে।

কিভাবে ইউজার নেইম তৈরি করবেন?

কয়েন বেইজ সাইটে এমনিতেই প্রতিনিয়ত এড্রেস তৈরি হতে থাকে। এখানের যে কোন এড্রেসকে ট্রান্সজেকশন হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন।তবে কথা হল সঠিকভাবে ঠিকানাটি হতে হবে।

১। ইউজার নেইম তৈরি করতে হলে প্রথমে অাপনার কয়েন বেইজ সাইটে লগইন করে প্রবেশ করুন এখানে

২। একাউন্ট অপশনের সেটিংস অংশে প্রবেশ করুন

৩। My Profile অংশে সবার নিচে Payment Page অপশনে যান

৪। Username/Referral : পচ্ছন্দ অনুযায়ী একটি ইউজার নেইম দিন।

Location : বাংলাদেশ লিখুন।

Caption : Bitcoin payment

পরিশেষে Save অপশনে ক্লিক করলে View your payment page at coinbase নামে আপনার ইউজার নেইম দেখতে পাবেন। প্রিভিউ দেখতে ক্লিক করুন এখানে

জ্ঞাতব্য বিষয়

ইউজার নেইম সবোর্চ্চ ৫ বার পরিবর্তন করা যাবে। এর বেশী হলে টার্ম পলিসি ভঙ্গ হবে। ফলে কয়েন বেইজ কর্তৃপক্ষ আপনার একাউন্ট ডিলেট কিংবা বিট কয়েন আয় কর্তন করতে পারে। তাই ভেবে চিন্তে ইউজার নাম ব্যবহার করাটাই শ্রেয়। টিউনটি ধৈয্য সহকারে দেখার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ। এবং টিউন সম্পর্কিত কোন সমস্যা থাকলে টিউমেন্ট করতে পারেন।

পূর্বে প্রকাশিত হয় এখানে

আমার ব্লগ

Best Free Bitcoin Earning 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *