সমাজে জনপ্রিয় মানুষ হতে চান তাহলে অবশ্যই দেখুন আপনার আপনার জীবনে যে ১৪টি অভ্যাসের প্রয়োজন

By | 30/06/2015
আপনার জীবনে ১৪ অভ্যাসের কারণে জনপ্রিয় মানুষ হয়ে উঠবেন। আর এ থেকেই আপনার ব্যক্তিত্ব গড়ে ওঠে পরিবেশের মধ্য দিয়ে। পারিবারিক ও সামাজিক জীবন এবং পেশাজীবনের নানা পরিবেশ-পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে বেড়ে ওঠে ব্যক্তিত্ব।

তবে অনেকেই নানা চর্চার মধ্য দিয়ে তার ব্যক্তিত্বকে আকর্ষণীয় করে তোলেন। ‘থিঙ্ক অ্যান্ড গ্রো রিচ’ বইয়ের লেখক নাপোলিয়ন হিল পছন্দনীয় ব্যক্তিত্ব গড়ে তুলতে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। দারুণ পছন্দনীয় মানুষের নানা অভ্যাসের মধ্য দিয়ে আসে সফলতা। তাই জেনে নিন এসব মানুষের

 
১৪টি খুবই আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্বেও বৈশিষ্ট্য

১. মানুষের মধ্যে মানুষের যোগাযোগের সবচেয়ে উত্তম মাধ্যম আলাপচারিতা। তারা সব মানুষের সঙ্গে গোছালো ও বন্ধুত্বসুলভ কণ্ঠে কথা বলেন।

 
২. এ ধরনের মানুষ ইতিবাচক মনোভাব গড়ে তোলে এবং তা প্রদর্শন করে অন্যদের উপলব্ধির জন্য। সবকিছুতে অন্যের দোষ ধরাটা খুব সহজ কাজ। কিন্তু সব ক্ষেত্রে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী মানুষকে সফলতা দেখায়।

৩. ইতিবাচক বা নেতিবাচক যেকোনো বিষয়ে অতিরিক্ত কিছুই ভালো নয়। এতে অন্যদের বিরক্তির উদ্রেক ঘটে। তবে একেবারে নিশ্চুপ থাকাটাও ভালো নয়। আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্বের মানুষরা মাঝামাঝি থাকেন।

 
৪. আলাপচারিতার সময় কেউ যা বলছেন তাতে মনযোগ দেন এসব মানুষ। ফলে বক্তা এদের প্রতি দারুণ খুশি থাকেন।
 
৫. তারা একেবারে ভিন্ন ধারার চিন্তা-ভাবনা থেকে কিছুটা দূরে থেকে সাধারণ মানুষের সঙ্গে থাকেন। এতে ক্যারিয়ারের উন্নতি সাধন হয়।

৬. এরা ধৈর্যশীল। ধৈর্যহীনদের মাঝখানে তাদের যথাযোগ্য আচরণ ও বক্তব্য সুবিধা ও খ্যাতি বয়ে আনে।

 
৭. তারা মানুষকে হাসি দিয়ে অভ্যর্থনা জানান। অন্যরা তাদের প্রতি আকর্ষণ বোধ করেন।
 
৮. তারা বোঝেন যে তাদের সব চিন্তাধারা প্রকাশের প্রয়োজন নেই। সেইসঙ্গে তারা বোঝেন যে অন্যের ভাবনাকে যুক্তি দিয়ে ভুল প্রমাণিত করাও ভালো বুদ্ধি নয়।

৯. তারা কোনো কাজে গড়িমসি করেন না। এতে মনে হয় কোনো কাজ বা সিদ্ধান্ত নিতে দোটানা বোধ করছেন।

 
১০. তারা প্রতিদিন অন্তত একটি করে ভালো কাজ করেন বা করার চেষ্টা করেন এবং এর বিনিময়ে কোনো কিছু প্রত্যাশা করেন না।
 
১১. এ সকল মানুষ অন্যের কাছে প্রিয় হয়ে ওঠার চেষ্টা করেন না। বরং তাদের ব্যক্তিত্বের এসব বৈশিষ্ট্য অন্যদের মুগ্ধ করে।

১২. যে কোনো মানুষের সঙ্গে কথা বলার সময় তারা অন্যের কাছ থেকে শিক্ষা নেওয়ার চেষ্টা করেন।

 
১৩. তারা মানুষের প্রশংসা করেন সত্যিকার মানসিকতা থেকে। এতে কোনো ভান থাকে না।
 
১৪. তারা ব্যর্থতায় হতাশা ডুবে না গিয়ে তা থেকে শিক্ষা নেওয়ার চেষ্টা করেন। যেকোনো ধরনের প্রাপ্তিতে তারা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ও তৃপ্ত থাকার চেষ্টা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *