কলেজ ছাত্র শাওন আবিস্কার করেছেন সিকিউরিটি এ্যালার্ম মেশিন

0
297

নিজেদের গরু চুরির ঘটনায় বাবাকে ভেংগে পড়তে দেখে মন খারাপ হয়ে যায় শাওনের। ভবিষ্যতে আর যাতে গরু চুরি করে চোর পালাতে না পারে, তাই চোরকে সনাক্ত করতে কলেজ ছাত্র মাহাবুবুর রহমান শাওন আবিস্কার করেছেন সিকিউরিটি এ্যালার্ম মেশিন। বিভিন্ন যন্ত্রাংশের মাধ্যমে রেডিও কন্ট্রোলার সিষ্টেমে এই সিকিউরিটি এ্যালার্ম যন্ত্রটি তৈরী করা হয়েছে। যন্ত্রটির সাথে একটি মোবাইল ও সিম দেয়া আছে। ১৫০ মিটারের মধ্যে কেউ প্রবেশ করলে ওই এল্যার্ম যন্ত্রটি রিংটোনের মাধ্যমে শব্দ করবে এবং তাৎক্ষনি ভাবেই মোবাইলে কল চলে যাবে। এতে করে চোরকে আটক করা সক্ষম হবে। পরীক্ষা করে যন্ত্রটির কার্যকারিতার প্রমান পাওয়া গেছে।

ছাত্র শাওন আবিস্কার করেছেন সিকিউরিটি এ্যালার্ম মেশিন কলেজ ছাত্র শাওন আবিস্কার করেছেন সিকিউরিটি এ্যালার্ম মেশিন

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের মোয়াজ্জেমপুর গ্রামের নাসির উদ্দিনের ছেলে শাওন। নাসির উদ্দিন মোয়াজ্জেমপুর সালেহিয়া আলীম মাদ্রাসার অফিস সহকারী, মা মাকসুদা শিরিন একজন গৃহিনী আর একমাত্র ছোট ভাইটি দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্র। শাওনের পড়ার রুমটির সর্বত্র ছড়িয়ে আছে ইলেট্রিক্যাল তার আর যন্ত্রাংশ। দেখে যে কারো মনে হতে পারে এটি কোন ইলেট্রিক্যাল মিস্ত্রির দোকান। রুমের বাহিরে ঝুলানো রয়েছে-বিপদ জনক, দয়া করে কেউ রুমে প্রবেশ করবেননা।

বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহ আর নতুন কিছু আবিস্কারের নেশায় দিন রাত পড়ার রুমে, গবেষনায় ব্যস্ত সময় পার করছে শাওন। বিমান বা উড়জাহাজের প্রতি তার রয়েছে গভীর আগ্রহ। আর তাই এভিয়েশন ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার নেশা পেয়ে বসে তাকে কিন্তু শাওনের নিম্নমধ্যবিত্ত বাবার জন্য তা অত্যান্ত ব্যায়সাধ্য। শত প্রতিকূলতার মাঝেও শাওনের বাবা ছেলের স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে ভর্তি করেন উত্তরা ইউনাইটেড কলেজ অফ এভিয়েশন সাইন্স এন্ড ম্যানেজমেন্টে। শাওন ভর্তি হওয়ার পূর্বে জেনে ছিল এভিয়েশন ইঞ্জিনিয়ার বিষয় নিয়ে পাশ করলেই সাথে সাথে চাকুরী। আশা ছিল ভাল ফলাফল করে চাকুরী নিয়ে বাবা-মার কষ্টের দিনগুলোকে দূরে ঠেলে সুখ স্বপ্নে ভরিয়ে তুলবে কিন্তু চার মাস ক্লাস করার পরে জানতে পারে এ বিষয় নিয়ে পাশ করলেও এদেশ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে চাকুরী সোনার হরিণ। তাই দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্নের শুরুতেই ইতি টেনে, ভারাক্রান্ত মন নিয়ে চলে আসে আবার গ্রামের সেই ছোট্ট কুটিরে।

নতুন করে ভর্তি হওয়ার স্বপ্ন দেখছে ইলেট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয় নিয়ে পলিটেকনিক্যাল কলেজে। হয়ত এভিয়েশন ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন তার পুরন হয়নি, তাই বলে থেমে নেই শাওন। এখন ব্যস্ত সময় পার করছে বিমানের ইঞ্জিন আধুনিকায় আবিস্কার নিয়ে। আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, বিমানের ল্যান্ডিংয়ের জন্য অধিক জায়গার প্রয়োজন। বিমান শূন্যে স্থির হয়ে থাকতে পারেনা। তাই বিমান যাতে কম জায়গায় ল্যান্ডিং করতে পারে এবং শূন্যে স্থির হয়ে থাকতে পারে বর্তমানে এটা নিয়ে গবেষনা করছে। এই গবেষনায় দ্রুত সাফল্য আসবে এমন দৃঢ় আশাবাদ শাওনের।

 

শাওনের ক্ষুদ্র গবেষনা আর আবিষ্কার তাকে সাফল্যের দ্বারে একদিন পৌছে নিয়ে যাবে এমন আশা ও বিশ্বাস করছেন তার বাবা নাসির উদ্দিন। তিনি জানান, ছেলের গবেষনার জন্য অনেক সরঞ্জাম প্রয়োজন। শত কষ্ট হলেও তার জন্য ব্যয় করে যাচ্ছি। মাকসুদা শিরিন ছেলেকে সব সময় উৎসাহ আর সাহস দিয়ে যাচ্ছেন। যখনই সময় পাচ্ছেন তখনই ছেলেকে কাজে সহযোগিতা করছেন। ক্ষুদে বিজ্ঞানী শাওন সকলের সাহায্য সহোযোগিতা কামনা করছেন তার এ্যালার্ম মেশিন আবিস্কারের স্বীকৃতি ও যন্ত্রের সুবিধা উপভোগ করার জন্য। তার স্বপ্নকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশায় কামনা করছেন সকলের সহযোগিতা।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

মন্তব্য দিন আপনার