কমপ্যাক্ট (Point and Shoot) ও এস এল আর ডিজিটাল ক্যামেরার খুঁটিনাটি

0
236

কমপ্যাক্ট (Point and Shoot) ও এস এল আর ডিজিটাল ক্যামেরার খুঁটিনাটি

কমপ্যাক্ট (Point and Shoot) ও এস এল আর ডিজিটাল ক্যামেরার বিভিন্ন পার্টস ও বাটনের সাথে পরিচিতি – গুরুত্বপূর্ণ বাটন ও ফিচারসমূহের ফাংশন ও ব্যবহার – কমপ্যাক্ট ও এস এল আরের পার্থক্য – ক্যামেরার প্রয়োজনীয় ও অতিরিক্ত উপকরণ – গ্রাফিক্যাল প্রতীক – শুরুর আগে ক্যামেরা সেটিং – ‌ক্যামেরা ধরার কৌশল
ক্যামেরার সব ফাংশন/ফিচার সম্পর্কে জানুন এবং প্রতিটি বাটন/অপশনের অবস্থান ও ব্যবহার পদ্ধতি আগে থেকেই জেনে রাখুন যাতে সঠিক সময়ে সঠিক বাটনটি খুঁজে পেতে ও ব্যবহার করতে সমস্যা না হয়।মনে রাখবেন আপনার লেটেস্ট মডেলের ক্যামেরার প্রতিটি ফিচারের জন্য আপনাকে দাম দিতে হয়েছে।টিপিক্যাল কমপ্যাক্ট ডিজিটাল ক্যামেরার বেসিক পার্টস ও বাটন নিয়ে এখানে সংক্ষেপে আলাপ করলাম।বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও মডেলের মধ্যে সামান্য তারতম্য হলেও আশা করি এতে আপনার ক্যামেরাকে বুঝতে সুবিধা হবে।

Shutter button:পুরো চাপ দিয়ে ছবি শট ও অর্ধেক চাপ দিয়ে অটো মুডে এক্সপোজ সেটিং।
Control buttons: ক্যামেরার বিভিন্ন সেটিং এডজাস্ট করা।.
Shooting mode dial: বিভিন্ন সীন মুড ও এক্সপোজার এডজাস্ট নির্বাচন করা।
Microphone: মুভি ক্লিপ নেওয়ার সময় সাউন্ড রেকর্ড করা।.
Focus-assist light: ক্যামেরার ফোকাসকে সাহায্যকারী বাতি।
Electronic flash:বিল্ড ইন ইলেকট্রোনিক ফ্লাশ।
Optical viewfinder: ছবির কমপোজ ও ফ্রেম করার জন্য।
Zoom lens and control: ছবিকে কাছে ও দুরে করা।
Tripod socket: তেপায়ায় ক্যামেরা বসানোর জন্য।
Docking port: বিশেষভাবে নির্মিত বক্স যার উপরে ক্যামেরা বসিয়ে ফটো ট্রান্সপার, ব্যাটারী চার্জ করা হয়।
Power switch: ক্যামেরা অন-অফ করার মেইন সুইচ।
Indicator LEDs: ক্যামেরার বর্তমান স্ট্যাটাচ প্রদর্শন করে।
LCD (liquid crystal display) panel: এলসিডি মনিটর।
Display control/Menu button: মনিটর ও মেনুতে প্রদর্শিত তথ্য নিয়ন্ত্রন করা।
Picture review: সাম্প্রতিক তোলা ছবি প্রদর্শন করা।
Cursor pad: লিস্ট থেকে মেনু নির্বাচন করা।
Set/Execute button: ওকে বা এন্টার বাটন।
Memory card slot: মেমোরি কার্ড স্থাপনের খাঁজ।
USB port: USB cable সংযুক্তি।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

লেটেস্ট কমপ্যাক্ট ক্যামেরাতেও আংশিক ম্যানুয়েল এক্সপোজারের সুবিধা থাকে।
Program auto, aperture priority, shutter priority, and manual modes
Program mode (P)— ক্যামেরা নিজেই shutter speed এবং aperture সেট করবে।
Aperture priority mode (A)— আপনি সেটিং করবেন aperture, ক্যামেরা সেট করবে shutter speed।
Shutter priority mode (S)—আপনি সেটিং করবেন shutter speed, ক্যামেরা সেট করবে aperture।
Manual mode (M)— আপনি aperture এবং shutter speed দুটিই ম্যানুয়েলী সেটিং করবেন।
ম্যানুয়েলী সেটিংয়ের জন্য আপনার ক্যামেরার ইউজার গাইড দেখুন।

এসএলআর ও কমপ্যাক্ট ক্যামেরার পার্থক্য
এসএলআর ও কমপ্যাক্ট ক্যামেরার মূল পার্থক্য হচ্ছে এসএলআরে ১০০% ম্যানুয়েল এক্সপোজারের (Shutter Speeds, Apertures, ISO) সুবিধা।
এছাড়া এসএলআরে সবসময় অতিরিক্ত কমপোনেন্ট (জুম লেনস্‌, ফ্লাশলাইট, ফিল্টার ইত্যাদি) ব্যবহারের অপশন থাকে। প্রফেশনাল ফটোগ্রাফীতে অটো এক্সপোজার থেকে ম্যানুয়েল এক্সপোজারকে বেশি গুরুত্ব দেওয়ার কারণ জানতে হলে অটো এক্সপোজের সীমাবদ্ধতা বুঝতে হবে। অটোমুডে আমরা যখন ছবি তোলার জন্য কোন সাবজেক্টকে লেন্সের মাধ্যমে ফ্রেমে আবদ্ধ করে (ফোকাস) শার্টার রিলিজ বাটন অর্ধেক চাপ দিই, তখন ক্যামেরা প্রসেসর ঐ সাবজেক্টের আলো ও কিছু পারপার্শ্বিক তথ্য নিয়ে ক্যামেরাতে আগে থেকে দেওয়া প্রোগ্রামের মাধ্যমে হিসেব করে এক্সপোজার সেটিং করে দেয়। যখন শার্টার রিলিজ বাটন বাকী অর্ধেক অর্থাৎ পুরোটা চাপ দেই তখন এই সেটিংয়ের ভিত্তিতে ছবিটির শট নেয়। আধুনিক ক্যামেরা অটোমুডে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভালো ছবি নেয় তবে সমস্যা হয় জটিল কিছু অবস্থায়। যেমন নদীর পারে গাছের ছায়ায় দাঁড়ানো একটা লোকের ছবি নেব। লোকটার পিছনে নদীর পানি থেকে সুর্যের আলো প্রতিফলিত হচ্ছে। এখন অটো এক্সপোজে ক্যামেরা যদি নদীর পানিতে প্রতিফলিত সুর্যের আলোকে হিসেব করে এক্সপোজ সেটিং করে তবে লোকটির ছবি অন্ধকার হবে। ধরুন ফ্লাশ ব্যবহার করে তিনটি লোকের একাটি গ্রুপ ছবি নেব, যাদের একজনের পরণে সাদা, অন্যজনের কালো এবং আরেকজনের লাল সার্ট। এখানে আলো ও রংয়ের গড় হিসেব করে এক্সপোজ সেটিং হবে। তাই সবগুলো রং ভালো নাও আসতে পারে। এছাড়া ছবিতে হালকা লাল রংয়ের একটা আবরণ আসার সম্ভাবনা খুবই বেশি। এসব সমস্যাকে এড়ানোর জন্যই ম্যানুয়েল এক্সপোজারের গুরুত্ব। উল্লেখ্য, ম্যানুয়েলী এক্সপোজার সেটিংয়ের জন্য Shutter Speeds, Apertures, ISO এবং Flash সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে।

শুরুর আগে ক্যামেরা সেটিং
১। ক্যামেরার প্রয়োজনীয় সব উপকরণ সাথে আছে কিনা দেখুন।
২। ইউজার ম্যানুয়েল পড়ুন। (প্রিন্টেড +পিডিএফ)
২। সাথে দেওয়া সফটওয়্যার কমপিউটারে ইনস্টল করুন। প্রোগ্রাম ইনস্টল করার আগে ক্যামেরা কমপিউটারে সংযুক্ত করবেন না।
৩।ব্যাটারী (ক্যামেরাতে লোড করে) ফুলচার্জ করুন।
৪। ক্যামেরার পাওয়ার টার্ন অফ করে মেমোরি কার্ড ইনসার্ট করুন।
৫। স্ট্রেপ সংযুক্ত করুন।
৬। ক্যামেরার পাওয়ার টার্ন অন করে Language, Date, Time সেটিং করুন।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

মন্তব্য দিন আপনার