তিন চাকার সাইকেল

0
298

পর্তুগালের একদল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ভিন্ন ধরণের ট্রাইসাইকেল তৈরি করেছেন। এই ট্রাইসাইকেলটি বিদ্যুৎ চালিত। দেখতেও আকর্ষণীয়। সাইকেলটিতে ধাতব পদার্থের পাশাপাশি কাঠ ব্যবহার করা হয়েছে।

সাইকেলটির উদ্ভাবকরা এটির নাম দিয়েছে ‘উইকলা’। সাইকেলটি মালামাল পরিবহণের উপযোগী করে তৈরি করা হয়েছে। এজন্য রিকসার মত পেছনের দুই চাকার বিন্যাস করা হয়েছে। পেছনের দুই চাকার মাঝে চৌকো একটি কাঠের ঝুঁড়ি বসানো হয়েছে।

Advertisement
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

সাইকেলটির হাতলটি কাঠের তৈরি। কাঠের লম্বা হ্যান্ডেলের সঙ্গে গ্রিপ যুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া সাইকেলের ফ্রেমের দুপাশে কাঠের বোর্ড বসানো হয়েছে। কাঠ এবং ধাতব পদার্থের সংমিশ্রণে সাইকেলটি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

চাকার সাইকেল তিন চাকার সাইকেল

ট্রাইসাইকেলটির সামনের চাকার হাবের সঙ্গে মোটর সংযুক্ত করা হয়েছে। সাইকেলটিতে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি রয়েছে। এই ব্যাটারি থেকে মোটর তার প্রয়োজনীয় শক্তি সংগ্রহ করে।

সাইকেলটি সেমি অটোমেটিক। গতির সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজন মাফিক মোটর চালু হয়। এতে করে চালকের কষ্ট খানিকটা লাঘব হয়।

সাইকেলটির সামনের চাকার যন্ত্রাংশ থ্রিডি প্রিন্টারে তৈরি। শিক্ষার্থীরা এগুলো ডিজিটাল ফেবরিকেশন ল্যাবে তৈরি করেছে।

এই প্রকল্পের সাহায্যকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ইরমান্নো অ্যাপারো। যিনি ইন্টারন্যাশনাল পলিটেকনিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করছেন। তিনি জানান, যখন ইলেকট্রিক অ্যাসিস্ট মোডে সাইকেলটি চালানো হয়, তখন চালক ব্রেকে হাত রাখা মাত্রই মোটরটি ব্ন্ধ হয়ে যায়।

পুরাতন মডেলের সাইকেলের সঙ্গে মিল রেখে আধুনিক প্রযুক্তিতে সাইকেলটি তৈরি করা হয়েছে। শহর এবং গ্রামীণ জনপদের  বাসিন্দাদের  জন্য এই সাইকেলটা দারুণ কাজে দেবে।
তিন চাকার এই সাইকেলটি অনেকটাই শক্ত পোক্ত। গতি নিয়ন্ত্রণের জন্য এতে ডিস্ক ব্রেক সংযোজন করা হয়েছে। সাইকেলটির ওজন ৩৮ কেজি। সাইকেলটির দাম ধরা হয়েছে ২৫০০ থেকে ৩০০০ উইরো।

Advertisement -
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

fourteen − 12 =