মাষ্টার অফ এস ই ও সিরিজ (দ্বিতীয়-খণ্ড) কিওয়ার্ড বিশ্লেষণ পদ্ধতি – তৃতীয় অধ্যায়

0
426

এখানে আমাদের যে কাজগুলো করতে হবেঃ

পে পার ক্লিক (পিপিসি) ক্যাম্পেইন পরিচালনা।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

পে পার ক্লিক বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে কিওয়ার্ড পরীক্ষা।

পে পার ক্লিক এর মাধ্যমে আপনার ব্র্যান্ড নির্মাণ করা।

নিম্ন ক্লিক রেইট এর কিওয়ার্ড ছাঁটাই।

কম খরচে অরগানিক রেঙ্কিং বৃদ্ধি।

 

 

পূর্বে প্রকাশিতঃ <a href=”http://tunerpage.com/archives/445381″ target=”_blank”>দ্বিতীয় অধ্যায়</a>

 

 

পে পার ক্লিক (পিপিসি) / Pay Per Click (PPC) বিজ্ঞাপন ক্রয় করা আপনার এস ই ও এর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হতে পারে। আমরা প্রথম খণ্ডেই পড়েছিলাম যে, সার্চ রেজাল্ট দুই প্রকার, অরগানিক এবং পেইড। অরগানিক রেজাল্ট আপাতদৃষ্টিতে বিনামূল্যে হয়ে থাকে। আর পেইড রেজাল্টে সাইট প্রদর্শনের জন্য সাইট এর এডমিন গুগোলকে টাকা দিয়ে থাকে। কোন একটি নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড এর উপর যখন কোন সাইট এর এডমিন পিপিসি এড ক্রয় কর, তখন তার সাইট পেইড রেজাল্টে (Sponsored Links) প্রদর্শন করে। এই ব্যাপারটি অনেকটা সহজেই লাফ দিয়ে উঠে যাওয়ার মত।

পেইড এড কেনার জন্য আপনাকে গুগোল এডওয়ার্ডসে যেতে হবে। এড কেনার পদ্ধতিটি আপনার এই বইয়ের প্রথম খণ্ডের পঞ্চম অধ্যায়ে দেখেছি। এখানে আপনার কাঙ্খিত কিওয়ার্ড/সার্চ কুয়েরিটি নির্বাচন করে একটি ক্যাম্পেইন প্লেস করুন এবং বিড করুন। এখানে গুগোল ট্র্যাক করবে আপনার এড গুলো কতবার ইউজার এর কাছে প্রদর্শন হচ্ছে, অর্থাৎ নাম্বার অফ ইম্প্রেশন। এবং কত বার ইউজার এডে ক্লিক করছে, অর্থাৎ নাম্বার অফ ক্লিক। এভাবে Click Through Rate (CTR) নির্বাচন করবে। সিটিআর এর সুত্র হচ্ছেঃ CTR = Click / Impression ।

 

অর্থাৎ ধরুন আপনার সাইট এর বিজ্ঞাপনটি ১০০০ জন এর কাছে প্রদর্শন করা হোল। তাদের মধ্যে ২৩৭ জন ক্লিক করে আপনার সাইটে ঢুকল। আপনার সাইটের,

 

Click = 237, Impression = 1000

CTR = 237/1000 = 0.237

 

 

আবার, আরেকটি সাইটের বিজ্ঞাপন ৩২৫ জনের কাছে প্রদর্শন করা হয়েছে তাদের মধ্যে ১১২ জন ক্লিক করে সাইটে প্রবেশ করেছে। তাহলে তার সাইটের,

 

Click = 112, Impression = 325

CTR = 112/325 = 0.344

 

 

অর্থাৎ, তার ইম্প্রেসন এবং ক্লিক দুইটিই আপনার থেকে কম হলেও ক্লিকের হার (CTR) আপনার সাইট থেকে বেশী। যদিও, পেইড এড এর ক্ষেত্রে যে বেশী টাকা বিড করবে তার এড উপরে প্রদর্শন করবে, কিন্তু এই ক্লিক রেইট বেশী হলে আপনার অরগানিক রেঙ্কিং বৃদ্ধি পাবে।

 

 

 

[যদিও, এখন পর্যন্ত ক্লিক রেইট বেশী হলে গুগোল অরগানিক রেংকিং বৃদ্ধি পাচ্ছে, কিন্তু আমার ব্যাক্তিগত ধারনা হোল, কোন এক সময় হয়তো গুগোল স্বার্থপর চিন্তা করে এই বিষয়টি না ও করতে পারে। অর্থাৎ আমি (কাজী নিশাত) গুগোল এর জায়গায় হলে যা করতাম। গুগোল চিন্তা করবে, পেইড এড সেবা গ্রহণকারীদের অরগানিক রেঙ্কিং বাড়ালে তারাতো আর পেইড বিজ্ঞাপন ক্রয় করবে না। তাই তাদের রেঙ্কিং না বাড়ালেই গুগোল আজীবন আয় করে যেতে পারবে। আমি আবারও বলছি, এটি সম্পূর্ণ আমার ব্যাক্তিগত মতামত। এর কোন তথ্যসুত্র নেই। এই মতামত এর কোন দায়ভারও আমি গ্রহন করবো না। আমি শুধুমাত্র আমার ধারনাটি আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম]

 

আমার ইচ্ছা আছে এই সিরিজটি (মাষ্টার অফ এস.ই.ও) শেষ হলে আরেকটি নতুন সিরিজ “মাষ্টার অফ এস.ই.এম” শুরু করা। সেটিতে শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং (SEM) নিয়ে বিশদ প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

 

এই অধ্যায়ে আমরা এস.ই.এম নিয়ে শিখছি শুধুমাত্র আমাদের এস.ই.ও এর কাজে সাপোর্ট পাওয়ার জন্য।

 

 

 

ü     পে পার ক্লিক (পিপিসি) ক্যাম্পেইন পরিচালনা

 

<img src=”http://1.bp.blogspot.com/-xVsqdIXoj6k/VRvAQvfF4aI/AAAAAAAABvA/zQzHU2SgXNI/s1600/Pay-Per-Click%2Bcopy.jpg” alt=”” />

 

 

আপনার সাইটের অরগানিক রেঙ্কিং এর কিওয়ার্ড বিশ্লেষণে জন্য পিপিসি যেভাবে সাহায্য করবেঃ

 

 

 

১। কোন কিওয়ার্ডটি আপনার সাইটে প্রচুর কোয়ালিটি ট্রাফিক নিয়ে আসছে (কোয়ালিটি ট্রাফিক এর গুরুত্ব নিয়ে আমরা প্রথম খণ্ডে আলোচনা করেছি) সেটি বাছাই করবে।

 

২। কোন কিওয়ার্ড থেকে আপনি কোন ট্রাফিক পাচ্ছেন না, সেটিও বাছাই করবে।

 

৩। কোন কোন কিওয়ার্ড থেকে আপনি কনভার্সন পাচ্ছেন, সেটি আপনাকে জানাবে, এতে করে আপনি অরগানিক এস ই ও তে সেই কিওয়ার্ড এর উপর বিশেষ জোর দিতে পারেন।

 

 

আপনি একদম সহজে বুঝতে পারেন এভাবে, এতদিন আমরা কিওয়ার্ড এনালাইসিস করেছি যে, কোন কোন কিওয়ার্ডে ইউজাররা বেশী সার্চ করে। হ্যাঁ, এটি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। তবে, ইউজাররা বেশী সার্চ করার অর্থ সবসময় এই দাড়ায় না যে, সেটি থেকে আপনিও বেশী ভিজিটর পাবেন। আপনি স্পেসিফিক ভাবে কোন কিওয়ার্ড এর উপর বেশী ভিজিটর পাবেন, সেটি আপনাকে নির্ণয় করে দেবে পিপিসি।

 

 

 

[তথ্যঃ সার্চ ইঞ্জিনের উপর বৈজ্ঞানিক গবেষণা কষ্টসাধ্য। কারণ আমরা প্রথম খণ্ডেই জেনেছি যে, সার্চ ইঞ্জিনের কার্যপ্রণালী গোপনীয় এবং তাদের এলগরিদম তারা কখনোই প্রকাশ করে না]

 

 

 

আপনি একই বিজ্ঞাপনটি কয়েকটি ভিন্ন ভিন্ন কিওয়ার্ড এর উপর প্লেস করে দেখতে পারেন যে, কোন কিওয়ার্ডটি আপনার জন্য বেশী কার্যকর।

 

 

আপনি পেইড এড কেনার মাধ্যমে গুগলে এডওয়ার্ড, ইয়াহু সার্চ মার্কেটিং, মাইক্রোসফট এডসেন্টার ইত্যাদির বিভিন্ন জরিপ ও এনালাইসিস টুল ব্যাবহার করতে পারবেন। এতে করে আপনি অরগানিক রেজাল্ট এর জন্যও আপনার সাইটের কন্টেন্টকে উন্নত করতে পারবেন।

 

 

 

 

একটি বিষয় সবসময় মনে রাখা দরকার। সেটি হচ্ছে, পিপিসি এডকে সবসময় মনিটরিং করতে হয়। এবং এড এর পারফর্মেন্স এর উপর ভিত্তি করে বিড এর রেইট বাড়াতে/কমাতে হয়। এছাড়াও, আপনাকে প্রতিনিয়ত কম পারফর্মেন্স এর কিওয়ার্ডগুলো বাদ দিয়ে নতুন নতুন (হাই ট্রাফিক) কিওয়ার্ড সংযুক্ত করতে হবে, এবং সেটিতে আপনার এড এর পারফর্মেন্স পরীক্ষা করতে হবে।

 

 

কোন কিওয়ার্ড এ আপনার খরচ কম হবে, কোনটিতে বেশী হবে। এবার আপনার কনভার্সন এর সাথে অনুপাত হিসাব করতে হবে। কোন কিওয়ার্ডটি আপনার কম টাকা খরচ করিয়ে বেশী মুনাফা দিচ্ছে, আর কোনটি বেশী টাকা খরচ করিয়ে কম মুনাফা দিচ্ছে। যেটি আপনাকে অল্প খরচে বেশী মুনাফা দিচ্ছে, সেই কিওয়ার্ডে আপনি বেশী বিনিয়োগ করলে আরও বেশী মুনাফা পাবেন। পাশাপাশি সেই কিওয়ার্ড দিয়ে আপনার অরগানিক এস.ই.ও চালিয়ে যাবেন।

আমরা আগেও মেনশন করেছি যে, পেইড এড কিনলে আপনি যে প্রিমিয়াম টুলগুলো ব্যাবহার করতে পারবেন, সেগুলোর সুবিধা আপনাকে পরিপূর্ণভাবে কাজে লাগিয়ে নিতে হবে।

 

 

 

 

তবে, মনে রাখবেন, পেইড কিওয়ার্ড আপনাকে যেভাবে ফলাফল/কনভার্সন দেবে, অরগানিক রেজাল্টে ঠিক ঠিক সেরকম না ও হতে পারে। তবে পেইড এড থেকে খুব ভালভাবে ক্লু পাওয়া যায়। তাছাড়া অরগানিক রেজাল্ট এর এফেক্ট আপনার সাইটে পড়ার আগ পর্যন্ত আপনার সাইট বেকার বসে নেই, ট্রাফিক পাচ্ছে আবার কনভার্সনও হচ্ছে।

 

 

 

ü     ব্র্যান্ড নির্মাণ করা

 

<img src=”http://2.bp.blogspot.com/-nrA6-Hi5yV0/VRvAiZz98yI/AAAAAAAABvI/_zhz_O6g-1w/s1600/effective-brand-strategy%2Bcopy.jpg” alt=”” />

 

আপনি যদি চান যে, আপনার কোম্পানির নাম সবাই (আপনার গ্রাহক সমাজ) একনামে চিনবে, আপনার পণ্যকেও সবাই চিনবে, সেটিকেই বলা হয় ব্রান্ড নির্মাণ/ব্র্যান্ডিং। DELL কোম্পানির নাম শুনলেই আপনার চোখের সামনে ভেসে উঠে একটি ল্যাপটপ এর ছবি। যখন আপনার কোম্পানির ব্র্যান্ডিং হয়ে যাবে, তখন আপনার কোম্পানির নামই একটি কিওয়ার্ড হয়ে যাবে। এখন যেমন, DELL লিখে অনেকেই সার্চ করে। এটি পুরাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার (যদি আপনার কোম্পানির নামটি ইউনিক হয়) কিওয়ার্ড। যারা এই কিওয়ার্ড ব্যাবহার করে সার্চ করবে তারা নির্দিষ্টভাবে আপনাকেই খুজছে, এবং তারা সরাসরি আপনার সাইটেই আসবে।

 

আপনার আপনার ব্র্যান্ডিং করতে পারেন পিপিসি এর মাধ্যমে। পেইড এড দিয়ে হলেও আপনার কোম্পানির নাম ক্লায়েন্ট সমাজে পরিচিত করে নিতে পারবেন। আর আপনার পণ্য/সেবা ভাল হলেতো মৌখিক বিজ্ঞাপনও আপনার ব্র্যান্ডিংকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। ধরুন, আপনি গ্রিনটেল নামে একটি কোম্পানি খুলেছেন, যেটিতে ইন্টারনেট মোডেম বিক্রয় করা হয়ে। এখন আপনি Internet Modem কিওয়ার্ড এর উপর পিপিসি এড কিনলেন। যখন, ইউজাররা Internet Modem লিখে সার্চ করলো, তখন পেইড এডে লেখা আসলো “গ্রিনটেল ইন্টারনেট মোডেম – হাইস্পীড ৩জি সেবা … ইত্যাদি ইত্যাদি” । এখন ভিজিটর (টার্গেটেড) রা জেনে গেলো যে, গ্রিনটেল নামে একটি কোম্পানি আছে, যেটি উচ্চ গতি সম্পন্ন ৩জি ইন্টারনেট সেবা প্রদান করে থাকে। এতে করে আপনি কাস্টমারও পেলেন, আবার আপনার ব্র্যান্ডিংও অনেকদূর এগিয়ে গেলো। শুধুমাত্র অরগানিক এস ই ও এর উপর নির্ভর করলে Internet Modem কিওয়ার্ড উপর প্রথম পেইজে যেতে আপনার অনেক অনেক সময় লাগতো এবং আপনার ব্র্যান্ডিং ও পিছিয়ে পড়তো। ধরুন, আপনি আর আপনার একজন কম্পিটিটর বন্ধু একসাথে এস ই ও শুরু করলো। ৬ মাস পরে তার সাইটে মাত্র ব্র্যান্ডিং শুরু হোল, আর আপনার সাইটের জন্য পিপিসিতে কিছু টাকা বিনিয়োগ করায় ততদিনে আপনার সাইটের ব্র্যান্ড অলরেডি স্থাপন করা হয়ে গেছে। সে যখন ব্যাবসা শুরু করছে, আপনি তখন পুরোদমে ব্যাবসা দাড় করিয়ে ফেলেছেন।

 

 

 

 

অরগানিক এস ই ও এর ক্ষেত্রে যদিও টাইটেলে কিওয়ার্ড অনেক গুরুত্ব পায়, কিন্তু পেইড এস ই ও তে আমি সবসময় পরামর্শ দেব আপনার কোম্পানির নামটিকে হাইলাইট করার জন্য। এমন অনেক বড় বড় কোম্পানি আছে, যাদের সাইট অরগানিক রেজাল্টেতো আসেই না, এমনকি তাদের কোম্পানির নাম লিখে সার্চ করলেও আসে না। এসব কোম্পানিকে অন্তত ওয়েব প্ল্যাটফর্মে অনুপস্থিত ব্রান্ড (Nonexistence Brand) বলা হয়।

 

<img src=”http://3.bp.blogspot.com/-u6qx5OhkihU/VRvA2a1T9gI/AAAAAAAABvQ/843L31KY9jk/s1600/brand-strategy%2Bcopy.jpg” alt=”” />

 

যখনই আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ব্র্যান্ডিং করতে যাচ্ছেন, তখন আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে আপনার হোম পেইজের টাইটেল ট্যাগ এ প্রথমেই আপনার ব্র্যান্ড নেম রয়েছে। যেমন, আমার সাইট পিডিএফ টিউটোরিয়াল জোন এর সাইটে টাইটেল ট্যাগঃ

 

 

 

<title> PDF Tutorial Zone – Download Free English And Bangla E-Book </title>

 

 

 

 

এখানে আমার ওয়েবসাইটের নামটি প্রথমে ব্যাবহার করা হয়েছে। যদিও আমার টাইটেল ট্যাগটি কিওয়ার্ড পূর্ণ একটি বাক্য দিয়ে সাজানো হয়েছে, তথাপি সাইট নেম প্রথমে রেখে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যাতে করে একজন ব্যাবহারকারীর মাথায় সাইট এর নামটি থাকে, এবং পরবর্তীতে সে কখনো অন্য কোন বিষয়ে সার্চ করেও এই সাইট দেখলে ক্লিক করবে, কারণ সে পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে জানে যে, এই সাইটটির সার্ভিস ভালো। এছাড়াও ব্রাউজার এর একটি ট্যাবে টাইটেল এর পূর্ণ অংশ অনেকসময় সাধারনভাবে প্রদর্শন করে না। ব্যাবহারকারীকে টাইটেল এর অংশটির উপর মাউস পয়েন্টার রেখে পূর্ণ টাইটেলটি দেখতে হয়, যা অনেকেই করে না। তাই টাইটেল এর প্রথম অংশে (যেটি সবাই দেখে) আপনার সাইটের নামটি থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

 

 

 

ü     নিম্ন ক্লিক রেইট এর কিওয়ার্ড বাছাই করাঃ

 

 

 

 

পিপিসি বিজ্ঞাপন খুব সহজেই আপনাকে পরীক্ষা করার সুযোগ দিচ্ছে যে, আপনার কোম্পানিটি কোন কিওয়ার্ড এর উপর মার্কেটে ভালো অবস্থানে আছে। বিজ্ঞাপনগুলো অবশ্যই মার্কেটিং কৌশল অনুযায়ী লেখা উচিত, এবং এর কিওয়ার্ডটি অবশ্যই অবশ্যই সাইটের বিষয়বস্তুর সাথে অনেক বেশী সম্পর্কযুক্ত হওয়া উচিত। আপনি সে কিওয়ার্ডগুলো নির্বাচন করতে পারবেন যেগুলো আপনাকে উচ্চ ট্রাফিক (যারা আপনার বিজ্ঞাপনে সবচেয়ে বেশী ক্লিক করছে) এবং উচ্চ কনভার্সন (যারা শুধু আপনার সাইটেই প্রবেশ করছে না, আপনার সেবাও গ্রহন করছে) দিচ্ছে। এর মাধ্যমে সহজেই আপনি আপনার লিস্ট থেকে কম ক্লিক-থ্রো-রেইট এবং কম কনভার্সন-রেইট সম্পন্ন কিওয়ার্ড গুলো ছেঁটে ফেলে দিতে পারবেন।

 

 

 

 

 

 

এত কষ্ট করে একটি কিওয়ার্ড এর উপর প্রথম পেইজে আসা অর্থহীন হয়ে যায়, যদি না আপনার সাইটে ভিজিটর ক্লিক করে প্রবেশ না করে। সিঙ্গেল কিওয়ার্ড (এক শব্দের সার্চ কুয়েরি) এর ক্ষেত্রে ট্রাফিক অনেক বেশী থাকে। তাই পিপিসি এর বিজ্ঞাপনের খরচও অনেক বেশী হয়। কিন্তু এটিতে তুলনামুলক ভাবে অনেক অনেক কম কনভার্সন হয়। যেমন, Car কিওয়ার্ডটির উপর আপনি অনেক বেশী ট্রাফিক পাবেন। কিন্তু, তাদের কেউ গাড়ির ছবি সংগ্রহ করতে সার্চ করেছে। কেউ আবার গাড়ির বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করতে, কেউ কেউ বা গাড়ির গেইম ডাউনলোড করতে। এরা কেউ আপনার সেবা গ্রহন করতে, অর্থাৎ গাড়ি/গাড়ির পার্টস কিনতে আসেনি। কিন্তু, Car Price কিওয়ার্ডটিতে Car কিওয়ার্ড থেকে অনেক কম ট্রাফিক জেনারেট করে। এটির পিপিসি বিজ্ঞাপনের ভ্যালুও কম হবে। কিন্তু কনভার্সন রেইট বেশী হবে। কারণ গাড়ির দাম যারা জানতে চায়, তাদের নিশ্চয় গাড়ি কেনার আগ্রহ আছে। আর আগে যদি একটি নির্দিষ্ট মডেলের গাড়ি সে শো-রুম এ দেখে আসে, তার থেকে কম দামে আপনার সাইটে পায়, তাহলে সে অর্ডার দিতে কার্পণ্য করবে না।

 

 

 

কিওয়ার্ড চর্চা করার জন্য আপনাকে শুধু পরীক্ষা পরীক্ষা আর পরীক্ষা করে যেতে হবে। আপনার বিষয়ের সাথে সংগতিপূর্ণ অনেকগুলো সার্চ কুয়েরিতে বিড করতে হবে। তাহলেই আপনি সবচেয়ে উচ্চ কনভার্সন রেইট এবং Best ROI পাবেন।

 

<img src=”http://1.bp.blogspot.com/-IPHI9tS0kdA/VRvBDtHBzII/AAAAAAAABvY/wy5Xhfo525w/s1600/ROI.jpg” alt=”” />

 

 

আপনার সাইটের জন্য সবচেয়ে ভালো কিওয়ার্ডটি বাছাই করতে গেলে আরো কয়েকটি বিষয় আপনার জানা দরকার। প্রয়োজন হলে কোথাও টুকেও রাখতে পারেন।

 

 

   পৃথিবীর সকল সার্চ কুয়েরির প্রায় ৫৮ শতাংশ (২০১০ এর জরিপ) হচ্ছে তিন শব্দযুক্ত

 

 

 

   সংক্ষিপ্ত কিওয়ার্ড (এক/দুই শব্দের) অধিকাংশ ক্ষেত্রে তথ্য সংগ্রহ করার জন্য ব্যাবহার করা হয়। এগুলোতে উচ্চ কনভার্সন পাওয়া যায় না।

 

 

 

   যখন ইউজার অনেক লম্বা সার্চ কুয়েরি দিয়ে সার্চ করে, তখন আরও বেশী নিশ্চিত হওয়া যায় যে তিনি কোন একটি পণ্য বা সেবা খুজছেন।

 

 

 

   ইউজাররা একদম সঠিক পণ্য/সেবা পাওয়ার জন্য লম্বা সার্চ কুয়েরি ব্যাবহার করে থাকে।

 

 

 

 

যখন, আপনি উচ্চ কনভার্সন কিওয়ার্ড বাছাই করছেন, তখন আপনাকে লম্বা লেজ (Long Tail) নীতি মাথায় রাখতে হবে। [আমরা এই বইয়ের প্রথম খণ্ডের পঞ্চম অধ্যায়ে লম্বা লেজ নীতি নিয়ে আলোচনা করেছিলাম]। যে, কিওয়ার্ড আইডিয়াটি অধিক লম্বা এবং নির্দিষ্ট, সেটি বেশী কাজের।

 

 

 

 

যে কারনে আপনি লম্বা লেজ নীতি অনুসরন করে কিওয়ার্ড বাছাই করবেনঃ

 

 

 

   এগুলোতে বিড করতে খরচ কম হবে, কারণ কম ওয়েবসাইটই এত স্পেসিফিক কিওয়ার্ড এ বিড করে।

 

 

 

   বাউন্স রেইট কম হবে। কারণ, ভিজিটর যা খুজছে, তা ই আপনার সাইটে পাবে।

 

 

 

   কম সার্চ মানে ক্লিকও কম, অর্থাৎ আপনার খরচও কম, কিন্তু সেল বেশী।

 

 

 

   পিপিসি আপনাকে ভিন্ন ভিন্ন অনেকগুলো সার্চ টার্ম এ বিড করার সুযোগ দিচ্ছে।

 

 

 

   পিপিসি এর ফলাফল আপনি আপনার অরগানিক এস ই ও তে কাজে লাগাতে পারবেন। কারণ এগুলো আপনার সাইটের জন্য বেশী এফেক্টিভ হবে, তথাপি কম্পিটিশন কম হবে।

 

 

 

   লং টেইল কিওয়ার্ড ভিজিটর এর আকর্ষণ বাড়ায়।

 

 

 

 

ধরুন আপনি উপরের সব কিছু বিবেচনা করে কিওয়ার্ড বাছাই করেছেন, কিন্তু তারপরও ভিজিটর পাচ্ছেন না। তার কারণ এগুলোও হতে পারেঃ

 

 

 

   আপনার বিজ্ঞাপনটি সুন্দরভাবে লেখা হয়নি

 

 

 

   সার্চ টার্ম এর সাথে আপনার বিজ্ঞাপন সম্পর্কযুক্ত না

 

 

 

   আপনি যাদেরকে টার্গেট করেছেন, তাদের আপনার সেবা প্রয়োজন নেই। [ক্লায়েন্ট টার্গেট নিয়ে আমরা প্রথম খণ্ড-প্রথম অধ্যায়ে আলোচনা করেছি]

 

 

 

 

এই পদ্ধতিগুলো অনুসরন করে যখনি আপনি সঠিক কিওয়ার্ড খুজে পেয়েছেন, তখনি আপনি মার্কেটিং এর “আলাদিনের প্রদীপ” পেয়ে গেছেন। এবার সুধু অরগানিক এস ই ও উন্নয়ন করবেন।

 

 

 

ü     কম খরচে অরগানিক রেঙ্কিং বৃদ্ধি

 

আপনার অরগানিক এস ই ও এবং পিপিসি ক্যাম্পেইন এর একটি ভালো কম্বিনেশন আপনাকে বেষ্ট রেজাল্ট এনে দিতে পারে। যেকোন একটি করার থেকে দুইটি একসাথে করা অনেক ভালো। আপনার যদি পর্যাপ্ত বাজেট থাকে, তাহলে দুইটি একসাথে চালাতে পারেন।

 

 

 

 

 

 

পিপিসি এর জন্য আপনি যে রিসার্চ করবেন, সেটি আপনার অরগানিক এস ই ও তে চরম সাপোর্ট দেবে। একটি রেজাল্ট পেইজের (SERP) দুই যায়গায় (অরগানিক রেজাল্ট এবং পেইড রেজাল্ট) যদি আপনার সাইট থাকে তাহলে আপনার ব্র্যান্ড ভ্যালু তথা ভিজিটরের এর কাছে আপনার সাইটের গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে। নিচের চিত্রে দেখানো হল, যখন caitlinricefit.com সাইটটি একসাথে, একটি নির্দিষ্ট কুয়েরির উপর অরগানিক এবং পেইড দুই যায়গায়ই অবস্থান করছে। ইউজার এই কোম্পানিকে একটি বড়সড় কোম্পানি হিসেবে বিবেচনা করবে। যদিও তারা দুইটিই দেখবে, কিন্তু অধিকাংশ ভিজিটর অরগানিক রেজাল্টটিতেই ক্লিক করবে [আমরা প্রথম খণ্ডে জেনেছি যে, অধিকাংশ ইউজার অরগানিক রেজাল্ট এ ক্লিক করে] তাই কম খরচে পেইড রেজাল্টটি আপনাকে সাপোর্ট দিবে। কারণ, পিপিসি বিজ্ঞাপনে এ ক্লিক না পড়লে আপনার ক্লিক এর খরচ হবে না, শুধু ইম্প্রেশন এর খরচ হবে। তাই, আপনার ক্যাম্পেইন এ ক্লিক-রেইট (CTR) তুলনামুলক কম দেখা গেলেও, আসলে কিন্তু ক্লিক (অরগানিক) বেশী হবে তথা ROI বেশী হবে।

<img src=”http://3.bp.blogspot.com/-iLSZo8SIyOY/VRvBV2EnovI/AAAAAAAABvg/3W8CA0Lz1Wo/s1600/Untitled4.jpg” />

 

 

ধরুন, আপনি শুধু পেইড রেজাল্ট এ CTR পাচ্ছেন 10% । এর কিছুদিন পর আপনার সাইট ওই কিওয়ার্ড (যেটি দিয়ে আপনি পিপিসি ক্যাম্পেইন করেছিলেন) এ প্রথম পেইজে চলে এসেছে। আর তাই আপনি পিপিসি ক্যাম্পেইন বন্ধ করে দিয়েছেন। এখন আপনি অরগানিক এ ক্লিক রেইট পাচ্ছেন 16% । তাহলে আপনার গড়ে CTR 13% । এখন আপনি যদি আবার পিপিসি ক্যাম্পেইন চালু করে দেন। তাহলে আপনার পিপিসি এর সাপোর্ট এর কারনে অরগানিক ক্লিক বেড়ে হয়ে যাবে ৩০%। আর পিপিসি এড এ ক্লিক কমে গিয়ে হয়ে যাবে ৮%। তাহলে আপনার গড়ে CTR বেড়ে গিয়ে দাঁড়াচ্ছে 19% । তাহলে দেখুন, আগের থেকে (যখন আপনি শুধু পিপিসি চালাতেন) আপনার গড়ে ক্লিকও অনেক বেড়ে গেছে। আবার পরের থেকে (যখন আপনি শুধু অরগানিক চালাতেন) ও ক্লিক বেড়ে গেছে। কিন্তু, খরচ আগের থেকে কমে গেছে (যেহেতু পিপিসি এড এ ক্লিক এর পরিমান কমে গেছে)।

 

<img src=”http://1.bp.blogspot.com/-qzxZu3UFI08/VRvBeEFQvYI/AAAAAAAABvo/rmL6b1ouLT4/s1600/Google-SEO-1%2Bcopy.jpg” alt=”” />

 

<img src=”http://1.bp.blogspot.com/-tcYKZZ6uukE/VRvBgTtu3_I/AAAAAAAABvw/2LOMK_rPooI/s1600/keyword_planner%2Bcopy.jpg” alt=”” />

 

লেখাটি পূর্বে প্রকাশিত <a href=”http://onlinezonebd.blogspot.com/2015/04/Master-Of-SEO2-Post3.html” target=”_blank”>আমার ব্লগে</a>

এই লেখাটি ইবুক আকারে ডাউনলোড করে নিন <a href=”http://tutorialzonepdf.blogspot.com/2014/07/master-of-seo-series-part2.html” target=”_blank”>এখানে</a>

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

13 − 12 =