বিজ্ঞান ও একজন বিজ্ঞানী

0
410

আমাদের সৌরজগতের মধ্যেই ছোট্ট ছোট্ট অনেক গ্রহ (জ্যোতির্বিজ্ঞানের ভাষায় মাইনর প্ল্যানেট) আছে যারা সূর্যকে মাঝখানে রেখে আবর্তন করে থাকে। এই সব মাইনর প্ল্যানেট গ্রহ, উপগ্রহের মতো নয়। তবে এদের যথেষ্ট পরিমাণ ভর আছে, যে কারণে এরা হাইড্রোস্ট্যাটিক সাম্যাবস্থা নিজ অভিকর্ষজ শক্তি বলে বজায় রাখতে পারে।

সেরেস এমনই একটি মাইনর গ্রহ। বামন গ্রহও বলা হয়। বৃহস্পতি ও মঙ্গল গ্রহের মাঝে গ্রহাণুবলয়ে এর অবস্থান। এই গ্রহাণুবলয়ে সবচেয়ে বড় বস্তুটিই সেরেস। গ্রহাণুবলয়ের নাকি প্রায় এক-তৃতীয়াংশ ভর দখল করে রেখেছে সে। বামন এই গ্রহটা পাথর আর বরফের তৈরি।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

সেরেস আবিষ্কার করেছিলেন ইতালির এক বিজ্ঞানী গিউসেপ্পি পিয়াজ্জি। ইতালির তুরিন শহরে ইতালীয় পদার্থবিদ, গিওভান বাতিসতা বেক্কারিয়ার কাছে শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন। ১৭৬৮-১৭৭০ সালে তিনি রোমে ছিলেন ফ্রান্সিসো জেকুইয়ারের কাছ থেকে গণিত শাস্ত্রে জ্ঞান অর্জনের উদ্দেশ্যে।
ও একজন বিজ্ঞানী 2 বিজ্ঞান ও একজন বিজ্ঞানী
পেশাজীবন

১৭৭০ সালে ইউনিভার্সিটি অব মাল্টাতে গণিতের অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন পিয়াজ্জি। ১৭৭৯ সালের পূর্ব পর্যন্ত তিনি কলেজিও দি নোভেলিতে দর্শন ও গণিতের প্রভাষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। কিছুকাল রোমে কাটানোর পর ১৭৮১ সালে তিনি পালির্মোতে চলে যান এবং ইউনিভার্সিটি অব পালির্মোতে গণিতের প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন।

১৭৮৭ সালের ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত তিনি একই পদে ছিলেন। পাশাপাশি তিনি জ্যোর্তিবিজ্ঞানের অধ্যাপক হয়ে যান পিয়াজ্জি। এ সময় তিনি ২ বছর প্যারিস ও লন্ডনে থাকার সুযোগ পান জ্যোতির্শাস্ত্রের উপর ব্যবহারিক শিক্ষালাভের জন্য। এ সুযোগে তিনি আবার এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রপাতি পেয়ে যান যা পালির্মো অভজারভেটরির (যার স্থাপনার দায়িত্ব ন্যস্ত ছিল তারই উপর) জন্য তিনি সংগ্রহ করেন।

১৭৮৭ সাল থেকে ১৭৮৯ সালে বিদেশে থাকাকালীন পিয়াজ্জি তৎকালীন সময়ের বিখ্যাত সব ফরাসী ও ইংরেজ জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের সাথে পরিচিত হয়ে ওঠেন। তারা সবাই মিলে একটা দলও গঠন করে ফেলেন। দল গঠনের এই বুদ্ধিটি দিয়েছিলেন ১৮ শতকের অন্যতম এক যন্ত্রশিল্পী, জিস রামসডেনের। পালির্মো অবজারভেটরি প্রতিষ্ঠার এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে এই দলটি ভূমিকা পালন করেছিল। ১৭৯০ সালের ১ জুলাই এই প্রতিষ্ঠানটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্ভোধন করা হয়েছিল।

ও একজন বিজ্ঞানী বিজ্ঞান ও একজন বিজ্ঞানী

নক্ষত্রসূচি

৭৬৪৬টি তারা, যাদের সম্বন্ধে পূর্ব ধারণা ছিল না, সেগুলোকে নিয়ে তিনি পালির্মো ক্যাটালগ সাজান, সেই ক্যাটালগকে আরও তথ্যবহুল করে তুলেন। যেটায় গার্নেট তারা, অরিজিনাল রোটানেভ ও সোয়ালোচিন অন্তর্ভুক্ত ছিল। ১৭৮৯ সালের দিকে পিয়াজ্জি তার ক্যাটালগ সাজানোর এ কাজ আরম্ভ করেন। সেই সঙ্গে আকাশকে একটি নির্দিষ্ট পন্থায় দেখার পদ্ধতি আবিষ্কার করেন। ১৮০৩ সালে ক্যাটালগটির প্রথম প্রকাশ হয়, কিন্তু তখনও তা সম্পূর্ণ হয়নি।

সেরেস আবিষ্কার

১৮০১ সালের ১লা জানুয়ারিতে পিয়াজ্জি “স্টেলার স্টার” নামক এক বস্তু আবিষ্কার করেন যা কিনা তারাদের পিছন দিককার অঞ্চলে গতিশীল থাকে। প্রথম দেখাতে তিনি এটাকে এক স্থির তারা বলে মনে করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তিতে তিনি ভালো করে লক্ষ্য করার পর বুঝতে পারলেন—এটি গতিশীল। আর তাই এটাকে তিনি গ্রহ বলে ধরে নিয়েছিলেন।

সূর্যের আলোর কারণে পিয়াজ্জি এই বস্তুকে বেশি সময় ধরে দেখতে পেতেন না। যে কারণে এর কক্ষপথ নির্ধারণ করা কঠিন হয়ে পড়েছিল।

তবে গণিতবিদ কার্ল ফেডরিক গাউসের আবিষ্কৃত কক্ষপথ হিসাব করার নতুন পদ্ধতিটি বস্তুটিকে নির্ধারণ করার ক্ষেত্রে জ্যোর্তিবিজ্ঞানীদের নতুন সুযোগ এনে দেয়। তারা দেখতে পেলেন, পিয়াজ্জির ধারণাই সঠিক। নতুন বস্তুটা ছোট্ট এক গ্রহের মতোই। যা আজকে সিরেস নামে পরিচিত।

সম্মান

পিয়াজ্জির সম্মানে জন্মস্থান পন্টিতে তার এক প্রতিমূর্তি নির্মাণ করা হয়, ১৮৭১ সালে। তার নামে ১৯২৩ সালে ১০০০তম গ্রহাণুর নাম ‘১০০০ পিয়াজিয়া’ রাখা হয়েছিল। পিয়াজ্জির নামেই চাঁদের একটি গর্তের নাম রাখা হয় পিয়াজ্জি।
ও একজন বিজ্ঞানী 3 বিজ্ঞান ও একজন বিজ্ঞানী
একনজর

জন্ম : ১৬ জুলাই, ১৭৪৬; ভাল্টিনিয়ার পন্টি।

মৃত্যু : ২২ জুলাই, ১৮২৬

জাতীয়তা : ইতালীয়

পুরস্কার : লালান্ডে প্রাইজ (১৮০৩)

ক্ষেত্র : জ্যোতির্বিজ্ঞান

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

মন্তব্য দিন আপনার