মানুষের ব্রেনের কর্মক্ষমতা নিয়ে কিছু রহস্য

0
887

পেরুর মরুভূমির “নাজকা_লাইনস” এর রহস্য কি???

বিশাল বিশাল চিত্রকর্ম।একেকটা প্রায় ৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ চিত্রকর্ম দেখার জন্য অাপনাকে উঠতে হবে বিমানে।মানুষ,গুইসাপ,হার্মিংবার্ড,বানর অার মাছের মত বালির চিত্র অাঁকা অাছে।অনেকেই ধারনা করেন এগুলো অলৌকিক কিংবা ভিনগ্রহের কোন এলিয়েনের অাঁকা।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

মরুভূমির মানুষের ব্রেনের কর্মক্ষমতা নিয়ে কিছু রহস্য

স্কটল্যান্ডের ‘ ওভার_টাউন’ ব্রীজের রহস্য কী ?

প্রতি বছর শত শত কুকুর এখানে এসে আত্মহত্যা করছে।
তারা ব্রীজ থেকে নিচে ঝাঁপিয়ে পড়ছে… এই নিয়ে যথেষ্ট গবেষণা হয়েছে…
নিশ্চিত করে কেউ কিছু বলতে পারছে না…

কিছু জিনিস মানুষের বোঝার বাইরে।অাসলে কি তাই????

আমার চিন্তা মানুষের মস্তিষ্ক নিয়ে..যেখানে রয়েছে
১০,০০০ কোটি স্নায়ুকোষ বা নার্ভ সেল। আর এগুলো একটি আরেকটির সাথে সংযুক্ত রয়েছে তেমনি শত শত কোটি স্নায়ুতন্তু দিয়ে।যেটার মডেল সৃষ্টি করা হয়েছে কোটি কোটি বছর পূর্বে।

এরা চাইলে এই পৃথিবী ছিদ্র করে ছিদ্রের ফাঁক দিয়ে বের হয়ে অন্য পৃথিবীতে চলে যেতে পারে… এরা কষ্টকে কেমিস্ট্রির বোতলে ঢুকিয়ে ল্যাবে গিয়ে গবেষণা করতে পারে…
…..

এরা বিশাল সাইজের হাতি দিয়ে সার্কাস খেলে… অজগর সাপ হাতে নিয়া ঘুরে বেড়ায়….. মানুষের মত
দেখতে রোবট মানুষ বানায় !

যে রোবটের ভেতর ইমোশন থাকবে… ! কী আশ্চর্য !

প্রতিটা মানুষই একজন বিজ্ঞানী…আপনি চাইলেই
দেখবেন ক্ষুদ্র কিছু হলেও সৃষ্টি করতে পারবেন…

…..প্রতিটি মানুষ একজন লেখক…একজন গায়ক… একজন কবি… একজন নেতা…( দেখবেন কেউ কেউ
আছে যারা আপনার প্রতিটি কথা অক্ষরে অক্ষরে মানছে) … একজন সেবক একজন শিক্ষক একজন ডাক্তার … কিংবা একজন… একজন অপ্রতিষ্ঠিত মেধাবী…

অাপনি কি জানেন এর জন্য অাপনাকে কত % ব্রেন ব্যবহার করতে হয়????
অবাক করা তথ্য হল মাত্র ১০-১১%।তাহলে বাকি ৮৯-৯০% ব্রেন কি হয়???সাবকনসিয়াস মাইন্ড হিসেবে থেকে যায়।
এবং সেই অংশের ব্যবহার ছাড়াই মানুষ মারা যায়।

অাপনি যদি অাজ ঘরে বসেই সব করতে পারেন মাত্র ১০% ব্রেন ব্যবহার করে……

তাহলে একবার ভাবুন এটা যদি ১০০% ব্যবহার করা যেত তাহলে কি হত????
অাসলেই কি কিছু হত!!!!!!

– অাপনি যে কোন কিছু কন্ট্রোল করতে পারতেন
– অাপনি যেকোন মানুষকে কন্ট্রোল করতে পারতেন
– অাপনার গতি অার চিন্তার গতি হয়ে যেত সমান।এবং প্রায় অালোর কাছাকাছি।অার অালোর কাছাকাছি যে কোন গতিতেই বস্তুু অদৃশ্য হয়ে যায়।
– অাপনি ঘরে বসেই অামেরিকা ঘুরতে পারতেন
– অাপনি যে কোন ফ্রিকুয়েন্সি পড়তে পারতেন

সবচেয়ে বড় যে উপকারটি হত তা হল পৃথিবীতে কোন রহস্য থাকতো না।অাপনি যে কোন রহস্যের সমাধান করে ফেলতে পারতেন নিমিষেই।

তার চেয়ে বড় ও সর্বশেষ যে কাজটি হত তা হল,অাপনি প্রকৃতি কন্ট্রোল করতে পারতেন অার স্রষ্টাকে দেখতে পেতেন।

কিন্তুু পৃথিবীতে এটা সম্ভব নয়।এটা শুধুই মাত্র একটি হাইপোথিসিস।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

eighteen − nine =