অ্যাপ স্টোরে কে এগিয়ে আছে? গুগল প্লে নাকি অ্যাপল

0
306
অ্যাপ স্টোরে থাকা মোট অ্যাপের হিসাবে প্রথমবারের মতো অ্যাপলকে ছাড়িয়েছে গুগল প্লে। অ্যাপলের অ্যাপ স্টোরে গত বছরের শেষ নাগাদ ছিল ১২ লাখ ১০ হাজার অ্যাপ। আর গুগলের অ্যাপ স্টোর গুগল প্লেতে ছিল ১৪ লাখ ৩০ হাজার অ্যাপ। অ্যাপ র্যাংকিং ও বিশ্লেষণী প্রতিষ্ঠান অ্যাপফিগারসের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে আসে।

বিশ্লেষকদের মতে, সম্প্রতি সবচেয়ে অন্যতম আলোচিত ও দ্রুত প্রসার লাভ করা ব্যবসা হচ্ছে মোবাইল ডিভাইস খাত। আর মোবাইল ডিভাইসের প্রাণ বলা হয় বিভিন্ন ধরনের অ্যাপকে। এ কারণে সংশ্লিষ্ট খাতের প্রায় প্রতিটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিজস্ব অ্যাপ উন্নয়নে মনোনিবেশ করছে। ‘অ্যাপ স্টোরস গ্রোথ একসেলারেট ইন ২০১৪’ শীর্ষ প্রতিবেদন অনুযায়ী অ্যাপ সংখ্যার দিক দিয়ে শীর্ষ তিন প্রতিষ্ঠান হচ্ছে গুগল, অ্যাপল ও অ্যামাজন।

স্টোরে অ্যাপ স্টোরে কে এগিয়ে আছে? গুগল প্লে নাকি অ্যাপলমার্কিন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজন এ তালিকার তৃতীয় অবস্থানে থাকলেও গত বছর প্রতিষ্ঠানটির অ্যাপ স্টোরের প্রবৃদ্ধি ছিল ৯০ শতাংশ। প্রতিবেদনে আরো জানানো হয়, অ্যাপলের অ্যাপ ডেভেলপারদের তুলনায় গুগলের অ্যাপ ডেভেলপারদের সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে। ২০১৩ সালে অ্যাপ সংখ্যার দিক দিয়ে শীর্ষ প্রতিষ্ঠান ছিল অ্যাপল। এর পরই ছিল গুগলের অবস্থান। কিন্তু গত বছরই এসে প্রথমবারের মতো অ্যাপলকে পেছনে ফেলে শীর্ষস্থান দখলে নিতে সক্ষম হয়েছে শীর্ষ মার্কিন সার্চ ইঞ্জিনটি। অর্থাত্ গত বছর অ্যাপলের তুলনায় গুগল তাদের অ্যাপ স্টোরে অধিক অ্যাপ যুক্ত করতে সক্ষম হয়েছে।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, গুগলের মোবাইল ওএস অ্যান্ড্রয়েডের জনপ্রিয়তাই প্রতিষ্ঠানটিকে গুগল প্লেতে বেশি বেশি অ্যাপের সমাহার ঘটাতে উত্সাহিত করেছে। গত বছর শুধু গুগলে যতসংখ্যক ডেভেলপার যুক্ত হয়েছেন, তা অ্যাপল ও অ্যামাজনে যুক্ত হওয়া ডেভেলপারদের মোট সংখ্যার চেয়েও বেশি। বর্তমানে গুগলের রয়েছে প্রায় ৩ লাখ ৮৮ হাজার অ্যাপ ডেভেলপার। অ্যাপলের রয়েছে ২ লাখ ৮২ হাজার অ্যাপ ডেভেলপার। আর অ্যামাজনের রয়েছে ৪৮ হাজার ডেভেলপার।

প্রতিবেদনে আরো জানানো হয়, অন্যান্য অ্যাপ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলো গত বছর ব্যবসা-সংক্রান্ত অ্যাপই স্টোরে যুক্ত করেছে বেশি। গুগলের ক্ষেত্রে এ ঘটনা একেবারেই ভিন্ন। সার্চ ইঞ্জিনটি গত বছর গেমস-সংক্রান্ত অ্যাপের ওপরই বেশি মনোনিবেশ করেছে।

সম্প্রতি বাজারে এসেছে দক্ষিণ কোরীয় প্রতিষ্ঠান স্যামসাংয়ের নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম টিজেনচালিত প্রথম মোবাইল ডিভাইস। অনেক আগেই এ ডিভাইস বাজারে আসার কথা ছিল। কিন্তু স্যামসাং টিজেনের জন্য নিজস্ব অ্যাপ স্টোর তৈরিতেই এ দেরি করেছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়। গ্রাহকরা এখন টিজেনচালিত ডিভাইসের জন্য প্রয়োজনীয় সব অ্যাপ টিজেন অ্যাপ স্টোর থেকেই ব্যবহার করতে পারবেন। বাজার বিশ্লেষকদের মতে, প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানই সংশ্লিষ্ট সেবার জন্য নিজস্ব অ্যাপ স্টোর তৈরিকে প্রাধান্য দিচ্ছে। মোবাইল ডিভাইসের ব্যবসা প্রসারের পাশাপাশি অ্যাপভিত্তিক ব্যবসাও দিন দিন গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। এ কারণেই মোবাইল ডিভাইসের পাশাপাশি অ্যাপ নিয়েও প্রতিযোগিতায় নামছে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো।

পরিসংখ্যানের দিক থেকে এখন মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমের বাজারের শীর্ষে রয়েছে গুগলের তৈরি অ্যান্ড্রয়েড। এর পরই রয়েছে অ্যাপলের আইওএস অপারেটিং সিস্টেম। আর অ্যান্ড্রয়েডের ওপর পূর্ণ দখল নিতে সাম্প্রতি উদ্যোগী ভূমিকা পালন করছে গুগল।

উল্লেখ্য, এত দিন উন্মুক্ত মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েডকে কাজে লাগিয়ে সবচেয়ে বেশি ব্যবসা করেছে স্যামসাং। অ্যান্ড্রয়েডের কর্তৃত্ব বাড়াতেই অ্যাপ স্টোরে গত বছর উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অ্যাপ যুক্ত করে গুগল। এক্ষেত্রে অ্যাপলও অপারেটিং সিস্টেমের বাজারে নিজেদের দখল বাড়াতে অ্যাপের ওপরই প্রাধান্য দিচ্ছে বেশি। বাজার বিশ্লেষকদের মতে, ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে এ প্রতিযোগিতা আরো তীব্র হবে।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

three × four =