পৃথিবীর সবচেয়ে বিপজ্জনক দশটি ভাইরাস

0
542

 

১. পৃথিবীর সবচেয়ে বিপজ্জনক ভাইরাসের নাম মারবুর্গ ভাইরাস৷ জার্মানির লান নদীর পাশের শহর মারবুর্গের নামে ভাইরাসটির নামকরণ হলেও এই শহরের সঙ্গে সেটির আসলে কোনো সম্পর্ক নেই৷ ‘হেমোরেজিক’ জ্বর সৃষ্টিকারী এই ভাইরাসের লক্ষণ অনেকটা এবোলার মতোই, তবে এতে আক্রান্তের মৃত্যুর আশঙ্কা ৯০ শতাংশ৷

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

২. এবোলা ভাইরাসের পাঁচটি ধরন রয়েছে৷ আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ এবং অঞ্চলের নামে এগুলোর নামকরণ করা হয়েছে: জাইরি, সুদান, তাই ফরেস্ট, বুন্ডিবিগিয়ো এবং রোস্টান৷ বর্তমানে গিনিয়া, সিয়েরা লিওন এবং লাইবেরিয়াসহ বিভিন্ন দেশে জাইরি ছড়াচ্ছে৷ আর এটিই এবোলার সবচেয়ে মারাত্মক সংস্করণ, যাতে মৃত্যুর শঙ্কা ৯০ শতাংশ৷ভাইরাসের কথা পৃথিবীর সবচেয়ে বিপজ্জনক দশটি ভাইরাস

৩. হেন্টাভাইরাস বলতে অনেক ধরনের ভাইরাসকে বোঝানো যায়৷ ধারণা করা হয় ১৯৫০ সালে কোরিয়া যুদ্ধের সময় হেন্টা নদীর তীরে অবস্থানকালে মার্কিন সেনারা এই ভাইরাসে আক্রান্ত হন৷ এতে আক্রান্তের লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে ফুসফুসে প্রদাহ, জ্বর এবং কিডনি অকেজো হয়ে যাওয়া৷

৪. বার্ড ফ্লু ভাইরাসের বিভিন্ন সংস্করণ নিয়মিতই আতঙ্ক তৈরি করছে৷ এটা যৌক্তিকও কেননা এই ভাইরাসে মৃত্যুর হার সত্তর শতাংশ৷ তবে এতে সংক্রমণ সহজ নয়৷ শুধুমাত্র হাস-মুরগির সংস্পর্শে গেলে এতে সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে৷ এশিয়াতে এই ভাইরাস সংক্রমণের হার বেশি৷ কারণ সে অঞ্চলের অনেক মানুষ মুরগির খুব কাছে বসবাস করেন৷

৫. নাইজেরিয়ার একজন সেবিকা প্রথম লাসা ভাইরাসে আক্রান্ত হন৷ ইঁদুর জাতীয় প্রাণীর মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়ায়৷ তবে ভাইরাসটি নির্দিষ্ট অঞ্চলে ছড়ায়৷ পশ্চিম আফ্রিকায় এই ভাইরাস ছড়ানোর প্রবনতা বেশি৷ বিজ্ঞানীরা ধারণা করছেন, সেখানকার ১৫ শতাংশ ইঁদুর লাসা ভাইরাস বহন করছে৷

৬. আর্জেন্টিনার ‘হেমোরেজিক’ জ্বরের সঙ্গে সম্পৃক্ত জুনিন ভাইরাস৷ সমস্যা হচ্ছে এটির লক্ষণ আরো অনেক রোগের লক্ষণের মতো হওয়ায় শুরুতেই এটি সনাক্ত করা সম্ভব হয় না৷

৭. ক্রিমিয়া-কংগো জ্বরের ভাইরাস ‘টিক’ পতঙ্গের মাধ্যমে ছড়ায়৷ এটির লক্ষণ অনেকটা এবোলা এবং মারবুর্গ ভাইরাসের মতোই৷

৮. বলিভিয়ার ‘হেমোরহেজিক’ জ্বরের সঙ্গে সম্পৃক্ত মাচুপো ভাইরাস৷ এটি ‘ব্লাক টাইপুস’ হিসেবেও পরিচিত৷ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে মাত্রাতিরিক্ত জ্বর হয়, সঙ্গে শুরু হয় মারাত্মক রক্তপাত৷ জুনিন ভাইরাসের মতো এটির বৃদ্ধি ঘটে৷ মানুষ থেকে মানুষের দেহে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটতে পারে৷

৯. ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলবর্তী বনভূমিতে প্রথম ‘কিয়াসানুর ফরেস্ট ভাইরাস’ বা কেএফডি আবিষ্কার করেন বিজ্ঞানীরা৷ সেটা ১৯৫৫ সালের কথা৷ এই ভাইরাস টিকের মাধ্যমে সংক্রমিত হয়৷ তবে ঠিক কারা এটা বহন করে তা নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি৷ ধারণা করা হয় ইঁদুর, পাখি এবং বন্য শুকর কেএফডি ভাইরাস বহন করে থাকতে পারে৷

১০. ডেঙ্গু জ্বর এক নিয়মিত হুমকি৷ তাই আপনি গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলে ছুটি কাটানোর পরিকল্পনা করলে, ডেঙ্গু সম্পর্কে আগে খোঁজ নিয়ে নিন৷ মশা বাহিত এই ভাইরাসে প্রতি বছর পর্যটনের জন্য বিখ্যাত থাইল্যান্ড এবং ভারতের মতো দেশে সবমিলিয়ে ৫০ থেকে ১০০ মিলিয়ন মানুষ আক্রান্ত হন৷ তবে পর্যটকদের চেয়ে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলের বাসিন্দাদের জন্য এই ভাইরাস বড় হুমকি৷

Advertisement -
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 + three =