ঢাকা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট) শিক্ষার্থীদের প্রথম রোবট..!!!!

0
442

বর্তমান বিশ্বে মানবজাতির কল্যাণে আবিষ্কার হচ্ছে অনেক প্রযুক্তি, প্রযুক্তিকে সামনে রেখে প্রতিযোগিতায় মেতে আছে মানুষ। ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) শিক্ষার্থীরা উদ্ভাবন করলেন কয়েকটি রোবট। এটা হল ডুয়েটের প্রথম রোবট উদ্ভাবন। এছাড়া তারা কিছু প্রজেক্ট তৈরি করেছেন।

1404498653. ঢাকা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট) শিক্ষার্থীদের প্রথম রোবট..!!!!

এর মধ্যে ‘মেজসলভিং রোবট’ ইঞ্জিনিয়ারিং স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইএসএবি) আয়োজনে ন্যাশনাল রোবটিক ফেস্টিভ্যালে-২০১৪ দ্বিতীয় স্থানলাভ করে। ৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পল্টনে ন্যাশনাল স্পোর্টস কাউন্সিলে এই প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। এটি এক সাথে রোবটের প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনী। বিশ্ববিদ্যালয়সহ, কলেজ ও স্কুলের ১৪০টি প্রতিনিধি দলের ৫০০ জন প্রতিযোগী এ প্রদর্শনীতে অংশ নেয়। ডুয়েট শিক্ষার্থীদের কল্যাণমুখী উদ্ভাবন নিয়ে এ আয়োজন।

মেজসলভিং রোবট: উদ্ভাবকদের দল নেতা জানান, বাংলাদেশে যে ধরনের রোবট তৈরি করা হয় এটি সেগুলো থেকে একটু আলাদা এবং বিশেষগুণ সম্পন্ন। বিশেষ করে রোবটটির গতির দিক বিবেচনা করলে এটি অতুলনীয়। ‘মেজসলভিং রোবট’ বেশির ভাগ ইন্ডাসট্রিয়াল সেক্টরে ব্যবহার করা হবে। রোবটটি নিজের বুদ্ধিমত্তা দিয়ে খুব দ্রুত অনেক জটিল পথের মধ্যে সহজ পথ খুঁজে নিয়ে কাজ করতে পারবে এবং সেই পুরনো পথেই ফিরে আসবে। বর্তমানে রোবটটি টানা দুই ঘণ্টা কাজ করতে পারে, সম্পূর্ণ তৈরি শেষে এটি টানা আট ঘণ্টা কাজ করতে পারবে বলে দাবি করেন তিনি।

এটি মাইক্রোকন্ট্রোলের সাহায্যে নিয়ন্ত্রিত হয়। প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা পেলে রোবটটির এই প্রযুক্তি দুর্যোগপূর্ণ অবস্থায় উদ্ধার কাজে এবং বাণিজ্যিকভাবে উত্পাদন করা গেলে শিল্প প্রতিষ্ঠানে উত্পাদন কাজে সহায়তা, গুগল ম্যাপ এর সহায়তায় ভ্রমণের ক্ষেত্রে বিভিন্ন বিকল্প পথ হতে কম দূরত্বের পথ খুঁজে বের করাসহ যানবাহনকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিচালনা করতে পারবে।

রোবটটির উদ্ভাবনী দলে ছিলেন ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী রুপায়ন হালদার, পলাশ চন্দ্র মন্ডল, মুসলিম উদ্দিন, রুপক কুমার সাহা, ও পরিতোষ কুমার। প্রদর্শনীতে দ্বিতীয় হওয়া রোবটটি পুরস্কার হিসেবে পেয়েছে ২৫ হাজার টাকা, জতীয় পতাকা ও ভারতের একটি ইভেন্টে অংশ গ্রহণের সুযোগ।

অবজেক্ট কিপিং রোবট: এটি দৈনন্দিন কাজে ব্যবহার উপযোগী রোবট। এটিও নিজ বুদ্ধিমত্তায় এক স্থান থেকে অন্য স্থানে কোন বস্তু নিতে পারবে। বিশেষ করে গার্মেন্টস সেক্টর, সমুদ্র বন্দর অথবা বিমানবন্দরে পণ্য বহন করে যথাস্থানে রাখতে পারে বলে জানান উদ্ভাবকরা। এটি শিল্প প্রতিষ্ঠানে উত্পাদন কাজকে ত্বরান্বিত করাসহ বিভিন্ন মালামাল বণ্টনের কাজে ব্যবহার করা যাবে।

প্রথমিকভাবে ৪ ঘণ্টা কাজ করতে সক্ষম রোবটি। তরুণ উদ্ভাবকরা জানান, পৃষ্ঠপোষকতা পেলে তারা এ রোবট পরিপূর্ণভাবে তৈরি করবেন। দলের দলনেতা মোঃ মিজানুর রহমান জানান, রোবট দুটিতে এখনও পরিপূর্ণ বৈশিষ্ট আসেনি। রোবটটির উন্নতকরণের কাজ এখনও চলছে এবং আমরা আশা করি শীঘ্রই কাজ শেষ হবে। রোবট দুটি মানব সাদৃশ্য নয়।

উদ্ভাবনী দলে ছিলেন ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী মোঃ মিজানুর রহমান, অসীম কুমার পাল, হাবিবুর রহমান, শরীফুল ইসলাম ও উত্তম কুমার। অবজেক্ট কিপিং রোবটটিকে প্রথম প্রদর্শন করা হয় ২৭ ফেব্রুয়ারি ডুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত ডুয়েট রোবট প্রদর্শনীতে-২০১৪। এটি মে মাসে চুয়েটে রোব-ম্যকাটিক এসোসিয়েশনের রোবট দৌড়ে তৃতীয় স্থান লাভ করে।

এ পর্যন্ত ‘অবজেক্ট কিপিং রোবট’ ও ‘মেজসলভিং রোবট’ তৈরিতে প্রায় ৭০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এর পুরোটাই যোগান দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ। টিম টাইমআউট নামের এই উদ্ভাবক দলের রোবট তৈরিতে তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল আবেদীন।

অটোমেটিক ইলেকট্রিক্যাল এনার্জি বিলিং সিস্টেম: বর্তমানে রিডিং মিটারের সাহায্যে বিদুত্ বিল তৈরি করা হয়। এতে করে সময় ব্যয় হয় এবং অনেক সময় ভুল হওয়ার সম্ভবনাও থাকে। অটোমেটিক ইলেকট্রিক্যাল এনার্জি বিলিং সিস্টেম সয়ংক্রিয়ভাবে কন্ট্রোল আফিসে কম্পিউটারে নির্দিষ্ট সময়ে নির্ভুলভাবে বিল তৈরি করবে। চাইলে গ্রাহক এসএমএস-এর মাধ্যমে চলতি মাসের বিল জানতে পারবে। এতে এক দিকে সময় ও খরচ কমবে অন্য দিকে ভুল হওয়ার সম্ভবনা থাকছে না। এ উদ্ভাবনী দলে ছিলেন ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী রুপায়ন হালদার, উত্তম কুমার ও পরিতোষ কুমার।

কম্পিউটারে শরীর চর্চা: একাকিত্ব থেকে শুরু করে অবসাদ দূর করা বা সময় কাটানোর সহজ উপায় এই প্রযুক্তি। কম্পিউটার গেমস তেমনি এক অসাধারণ উপায়। আমরা অনেকেই অবসর কাটাতে কম্পিউটার গেমস ব্যবহার করি এবং ক্রমান্বয়ে এর প্রতি নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়ি। ফলে অবসরে ব্যায়াম বা সাহিত্য চর্চা তা আর হয়ে উঠে না। যদি এমন হয় কম্পিউটার গেমস খেললেই হয়ে যাবে আপনার প্রাত্যহিক শরীরচর্চা। কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সমাপনী বর্ষের ছাত্র মাহমুদুল হাসান তৈরি করেছেন এমন এক কম্পিউটার গেমস। ভার্চুয়াল হিউম্যান রেইস নামের এই গেমস খেলতে উইন্ডোজ এক্সপি সার্পোট করে এমন একটি কম্পিউটার বা কোন লেটেস্ট মডেলের কম্পিউটার হলেই চলবে। এ উদ্ভাবনী দলে আরও ছিলেন সোলায়মান ও মীর।

ডুয়েট রোবোটিক্স ক্লাব: ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ডুয়েট রোবোটিক্স ক্লাব’ এর উদ্ধোধন করা হয়েছে। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি তড়িত্ ও ইলেকট্রনিক কৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মোঃ আনোয়ারুল আবেদীন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী ছাত্র কল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক মোঃ আবুল কাসেমসহ অন্যান্য শিক্ষকের উপস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মোঃ আলাউদ্দীন ক্লাবের উদ্বোধন করেন। ডুয়েট রোবোটিক্স ক্লাবের সভাপতি রুপায়ন হালদার ক্লাবটির বর্তমান কার্যক্রম সম্পর্কে বলেন “বর্তমানে আমরা ‘স্পিচ কন্ট্রোল রোবোট’, ‘রেসকিউ রোবোট’, ‘কোয়াডকপ্টার’ সহ আরো কিছু প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করছি। কিছুদিনের মধ্যেই আমরা ড্রোন নিয়ে কাজ শুরু করব এবং এর জন্য আমরা বিভিন্ন মহল থেকে সহযোগিতা আশা করছি।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতা বৃদ্ধি, রোবোটিক্স গবেষণায় অনুপ্রেরণা দানসহ বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক রোবট প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ বাড়ানোর জন্য এই ক্লাবটি গঠন করা হয়।

আমার টেকনোলজি ব্লগ ক্লিক

Advertisement -
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

one × 4 =