১০ শতাংশের কম সুদে ঋণ পাবেন ৫৫ হাজার bangladeshi ফ্রিল্যান্সার

0
363

আগামি ৫ বছরে দেশে ৫৫ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরি করবে সরকার। আর কাজের সুবিধার জন্য তাদেরকে সিঙ্গেল ডিজিট (৯ শতাংশ বা তারচেয়ে কম) সুদে ঋণ দেওয়া হবে। এছাড়া ফ্রিল্যান্সারদের আয়কে কর মুক্ত করা হতে পারে।

শনিবার ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ আশ্বাস দিয়েছেন। রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে তথ্য প্রযুক্তি খাতে বাজেট শীর্ষক সংলাপে এ কথা জানান তিনি। বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি, বেসিস ও ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডরস এসোসিয়েন (আইএসপিএবি) এ সংলাপের আয়োজন করে।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, সারাবিশ্বে মোট জনসংখ্যার ৫০ শতাংশ ইন্টারনেট ব্যবহার করলেও বাংলাদেশে এ সংখ্যা মাত্র ২৪ শতাংশ। তবে আগামি ৫ বছরে বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা হবে ৭৫ শতাংশ। এজন্য এ খাতের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠানকে বিশেষ সুবিধা প্রদান করা হবে।

Budget-Songlap ১০ শতাংশের কম সুদে ঋণ পাবেন ৫৫ হাজার bangladeshi ফ্রিল্যান্সার

পলক বলেন, শেখ হাসিনার ভিশন- ২০২১ বাস্তবায়নের সাথে তাল মিলিয়ে এ দেশের আইটি প্রতিষ্ঠানগুলো কাজ করে যাচ্ছে যার ফলে ভিশন- ২০২১ বাস্তবায়ন করা আরও অনেক সহজ হবে। আগামি ৫ বছরে ৫৫ হাজার ফ্রিল্যান্সারকে ১০ শতাংশের কম সুদে ব্যাংক ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করবে সরকার। তাছাড়া তাদের আয়কে করের আওতামুক্ত রাখার জন্য অর্থমন্ত্রীর কাছে সুপারিশ করা হবে। আর তা হলে আগামি ৫ বছরে দেশ আইটি খাত অনেক এগিয়ে যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

আগামি বাজেটে তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে ৩ হাজার ৭’শ কোটি টাকার বরাদ্দ রাখার ঘোষণা দিয়ে পলক বলেন, পাঁচ বছর আগে এ খাতে বরাদ্দ ছিল মাত্র দু’শ কোটি টাকা। এ খাতে বর্তমানে ৫০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হচ্ছে। আগামি ৫ বছরে ১০ লাখ লোকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে।

সংলাপে আগামি বাজেটে তথ্য প্রযুক্তি খাতের জন্য ৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের দাবি জানান বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি মাহফুজুর রহমান। এ সময় তিনি বাংলাদেশে রূপকল্প- ২০২১ বাস্তবায়নে তথ্য প্রযুক্তি খাতের আয়কে এ সময়ের মধ্যে করমুক্ত রাখার দাবি জানান।

এ সময় তিনি আরও বলেন, কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে পোশাক শিল্পের বাড়ি ভাড়ার ওপর ৯ শতাংশ মূসক প্রত্যাহার করা হয়েছে। অথচ উদিয়মান কর্মসংস্থানের খাত হওয়া সত্ত্বেও আইসিটি খাতে এ বাড়ি ভাড়ার মূসক প্রত্যাহার করা হয়নি। এ খাতে নতুন উদ্যেক্তাদের উৎসাহি করতে এ খাতেও মূসক প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি।

সংলাপে বেসিস সভাপতি শামীম আহসান বলেন, দেশে বিভিন্ন খাতে কর মওকুফের ব্যবস্থা রয়েছে। অথচ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অন্যতম মাধ্যম ইন্টারনেট সেবার ওপর ১৫ শতাংশ মূসক নিচ্ছে সরকার। এর ফলে ছাত্ররা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারছে না। প্রয়োজন থাকার পরও বেশি টাকা ব্যয় হওয়ার কারণে ইন্টারসেবা নিচ্ছে না অনেক গ্রাহক। তাই তথ্য প্রযুক্তি খাতকে এগিযে নিতে ইন্টারনেট সেবার ওপর ১৫ শতাংশ মূসক প্রত্যাহার করা একান্ত জরুরি।

আইএসপিএবির সভাপতি আক্তারুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ ব্রন্ড ব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহার করে। কিন্তু ব্যান্ডউইথ কমার সাথে সাথে এর ওপর সরকারের মূসক না কমার কারণে কম খরচে নেট সংযোগ দেওয়া যাচ্ছে না।

অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, এনবিআর চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের বিভিন্ন উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

6 + nine =