টেকনোলোজি আর বিশ্বয়ে ভরপুর ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৪!

0
386

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ফুটবল। আর এই ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসর ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ। প্রতি ৪ বছর অন্তর এই আসর নিয়মিত বসছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। শুধুমাত্র দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধর কারণে ১৯৪২ এবং ১৯৪৬ এই ২টি বিশ্বকাপের আসর বসেনি। প্রত্যেক আসরেই কে হবে চ্যাম্পিয়ন- এই নিয়ে ফুটবল প্রেমীদের মধ্যে থাকে টানটান উত্তেজনা। শুধু আমেরিকা, ইউরোপ কিংবা আফ্রিকা নয় বরং ফুটবল বিশ্বকাপের উত্তেজনা সারা বিশ্বের সাথে সাথে ছড়িয়ে যায় আমাদের দেশেও। এবারের ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৪ অনুষ্ঠিত হবে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

আমার এই টিউনটিতে (“টেকনোলোজি আর বিশ্বয়ে ভরপুর ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৪! “) আমি ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৪ ভিবিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করার চেস্টা করব। প্রথমত এবারের “ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৪”-এ যে সকল টেকনোলোজির ছুঁয়া থাকছে তা নিয়ে। এই যেমন ভ্যানিশিং স্প্রে, গোল-লাইন প্রজুক্তি এবং দ্বিতীয় ধাপে আলোচনা করব যে সকল মাঠ এবং শহরে এবারের ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৪ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবং অংশ গ্রহনকারী দলের তালিকা র‍্যাংক ইত্যাদি। তৃতীয় ধাপে আলোচনা করব সাপোর্টার, ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা এবং খেলাসমূহের সময়সূচি এবং অন্নান্য! চতুর্থ ধাপে আলোচনা করব পুরুস্কার এবং বিশ্বকাপের ইতিহাস নিয়ে। এবং সব শেষের পর্বে আলোচনা করব এবারের বিশ্বকাপের মূল আকর্শন এবং কোন প্লেয়ারদের উপর থাকবে সবার নজর! তাহলে আর দেরি না করে আসুন শুরু করা যাক টেকনোলোজি দিয়েই।

.

  • গোল-লাইন প্রযুক্তিঃ

এবারের বিশ্বকাপেই প্রথমবারের মত গোল-লাইন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। বিগত ফুটবল বিশ্বকাপে এই গোল-লাইন প্রযুক্তির অভাব ইংল্যান্ড ফুটবল প্রেমীরা খুব ভাল মত অনুভব করেছিল। কারন জার্মানি ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার খেলায় রেফারির ভুল সিদ্ধান্তে ইংল্যান্ডের একটি গোল বাতিল হয়ে যায়। অথচ ঐ ম্যাচে ইংল্যান্ডের বল জার্মানের গোল-লাইন অতিক্রম করে কিন্ত ব্যাপারটা খুব দ্রুত এবং অস্পষ্ট হবার কারনে রেফারির ভুল সিদ্ধান্ত দেয় এবং এই ঘটনার পর ফিফা প্রেসিডেন্ট সেপ ব্লাটারও গোল-লাইন প্রযুক্তি ব্যবহারের পক্ষে মত দেয় (ভিডিও দেখেনিন রেফারির সেই ঐতিহাসিক ভুল সিদ্ধান্ত!)। তবে এর আগে ২০১২ ক্লাব বিশ্বকাপ, ২০১৩ ক্লাব বিশ্বকাপ এবং ২০১৩ কনফেডারেশন্স কাপে এই গোল লাইন প্রজুক্তি ব্যাবহার হয়। তবে এবারই প্রথমবারের মত কোন বিশ্বকাপ আসরে গোল-লাইন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে।

 

এই গোল লাইন প্রজুক্তি (বা Goal-line technology) এক ধরনের বিশেষ লেন্স এবং সফটওয়ারের মাধ্যমে তৈরি। এই গোল লাইন প্রজুক্তি আম্পায়ার কে বল গোলকির দাগ অতিক্রমের সাথে সাথেই অবগত করতে সক্ষম। ফলে ভুল হবার আর কোন সুযোগ থাকছে না এবার! (গোল লাইন প্রজুক্তির উপর ফিফার ভিডিও)

 

  • ভ্যানিশিং স্প্রেঃ

গোল লাইন প্রজুক্তির মত এবারের বিশ্বকাপেই প্রথমবারের মত স্প্রে ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয় ফিফা। এটি এক প্রকার পানি দিয়ে তৈরি এক ধরণের স্প্রে যা ব্যবহারের এক মিনিটের মধ্যেই অদৃশ্য হয়ে যায়। খেলা চলাকালে প্রতিপক্ষ দলের জন্য ১০ গজের লাইন চিহ্নিত করতে এটি ব্যবহৃত হবে। এছাড়া, ফ্রি-কিকের স্থান চিহ্নিত করতেও রেফারিরা এটি ব্যবহার করবেন। ফলে উক্ত স্থান সমুহ সাধারন দর্শক এবং প্লেয়ারদের দৃষ্টির বাইরেই থাকবে।

আজ এটুকুই, আশা করি খুব দ্রুতই আবার দেখা হবে পরবর্তি ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৪-এর পরবর্তি টিউনে। পরবর্তি টিউনে আলোচনা করব এবারের বিশ্বকাপের টেকনোলোজি নির্ভর ১২টি মাঠ এবং শহর সাথে থাকছে অংশ গ্রহনকারী দলের তালিকা র‍্যাংক সহ ইত্যাদি। আশা করি সে পর্যন্ত সকলেই ভাল থাকবেন এবং এবারের বিশ্বকাপে কাকে সাপোর্ট করছেন জানাতে ভুলবেন না! ধন্যবাদ সকলকে!

• আমার পার্সনাল সাইটঃ www.mehed3.blogspot.com/ | Muhammad Mehedi Menafa

• ফেসবুকে আমিঃ www.facebook.com/mehedidamenafa | Mehedi Menafa

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

seven − six =