উইন্ডোজ ৭-এর কিছু সুবিধা ।

20
1019
উইন্ডোজ ৭-এর কিছু সুবিধা ।

অপু (অপেক্ষায় আছি.......)

মৃত মানুষের গন্ধে ভারি হয়ে গেছে বাংলার বাতাস, এখানে দম নেয়াটাই এখন কষ্ট । মনে হয় এই মৃতের মিছিলে চলে যাব । আর কত মৃত্যু হলে আপনারা এই গন্ধ অনুভব করবেন । আর কত মৃত্যুর মিছিল চাই আপনাদের ?????????
APU(Understand the feeling of time............)


//////////////////////একটি রোমাঞ্চকর জীবন/////////////////////
উইন্ডোজ ৭-এর কিছু সুবিধা ।

বিসমিল্লাহির রহমানীর রাহীম

আসসালামু আলাইকুম ।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting




কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে উইন্ডোজ সেভেনবেশ জনপ্রিয়উইন্ডোজের আগের অপারেটিং সিস্টেমের সঙ্গে এর কিছুটা পার্থক্য আছেএসব পার্থক্য বুঝতে না পেরে অনেকেই এর হালনাগাদ সুবিধাগুলো উপভোগ করতে পারছে না ।তাই এ ধরনের কিছু বিশেষ সুবিধার কথা আজকে জানাচ্ছি ।


স্ক্রিনশটে স্নিপিং টুল


কম্পিউটার ডেস্কটপের স্ক্রিনশট নেওয়ার জন্য এত দিন থার্ড পার্টি বিভিন্ন স্ক্রিনশট সফটওয়্যারই ছিল ভরসাতবে উইন্ডোজ সেভেনে ডিফল্টভাবে একটি স্ক্রিনশট ফিচার যুক্ত করা হয়েছেস্নিপিং টুলটি খুঁজে পেতে Start থেকে Search-এ গিয়ে Snipping Tool লিখে Enter চাপুনস্নিপিং টুল হাজির হবেNew Button-এ ক্লিক করে টুলটি ব্যবহার করা যাবে

হিডেন ড্রাইভ দেখতে হলে

উইন্ডোজ এঙ্পির সঙ্গে উইন্ডোজ সেভেনের এ ক্ষেত্রে কিছুটা পার্থক্য আছেযেমন, উইন্ডোজ এঙ্পিতে ডিফল্টভাবে খালি ড্রাইভ দেখা গেলেও উইন্ডোজ সেভেন খালি ড্রাইভ Hide করে রাখেঅর্থাৎ আপনার কম্পিউটারের কোনো খালি ড্রাইভ উইন্ডোজ সেভেনে দেখা যাবে নাHidden এসব ড্রাইভ দেখার জন্য প্রথমে Folder Option-এ গিয়ে View-তে যানএবার সেখান থেকে Hide empty drives in the computer folder-এ টিক চিহ্ন তুলে দিয়ে OK করুন

ব্যাটারির লাইফ বৃদ্ধি

ল্যাপটপ ও নেটবুকে যাঁরা উইন্ডোজ সেভেন ব্যবহার করেন, তাঁদের জন্য ব্যাটারি লাইফনামে বিশেষ এ ফিচার রেখেছে মাইক্রোসফটবাইরে কোথাও কাজে বের হলে এবং বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপ প্রয়োজন হলে এ ফিচার ব্যবহার করে দেখতে পারেনএ জন্য Start-এ গিয়ে টাইপ করুন Power Optionsএরপর পাওয়ার অপশনগুলোর মধ্যে গিয়ে Change Plan Settings লেখা বাটনটিতে ক্লিক করুনএরপর ক্লিক করুন Change Advanced Settingsএরপর যে উইন্ডোটি ওপেন হবে, সেখান থেকে নিজের মতো করে পাওয়ার সেভিংস সেট করে নিন

উইন্ডো মিনিমাইজ

অনেকেই একসঙ্গে একাধিক উইন্ডো ওপেন করে কাজ করতে অভ্যস্তঅনেক প্রোগ্রাম চালানো আছে এবং সবই মিনিমাইজ করতে হবে, এমন ক্ষেত্রে একটি একটি করে উইন্ডো মিনিমাইজ করতে গেলে সময় নষ্ট হবেএকত্রে সব মিনিমাইজ করার জন্য উইন্ডোজ কি চেপে ধরে হোম বাটনটি চাপলেই আপনার কাঙ্ক্ষিত উইন্ডোটি ছাড়া সব উইন্ডো মিনিমাইজ হয়ে যাবেআবার একই পদ্ধতি অনুসরণ করে উইন্ডোগুলো ফিরিয়ে আনা যাবে

অপ্রয়োজনীয় ফিচার বন্ধ করা

উইন্ডোজ এঙ্পি বা ভিসতার তুলনায় উইন্ডোজ সেভেনে অনেক বেশি সুবিধা যুক্ত করা হয়েছেএসব ফিচারের সব সবার দরকার নেইএসব অপ্রয়োজনীয় ফিচার বন্ধ করে দিলে অপারেটিং সিস্টেম অনেক হালকা হবেএ জন্য Start মেন্যু থেকে Control Panel-এ ক্লিক করুনএরপর Programmes ক্লিক করলে নতুন একটি উইন্ডো আসবেসেখানে Turn Windows features on or off-এ ক্লিক করুনএরপর যে প্রোগ্রামগুলো অপ্রয়োজনীয়, সেখান থেকে টিক চিহ্ন তুলে দিয়ে ঙশ করুনকম্পিউটার রিস্টার্ট করুনফিচারগুলো বন্ধ হয়ে যাবেএকইভাবে টিক চিহ্ন দিয়ে ঙশ করলে ফিচারগুলো চালু হয়ে যাবে

টাস্কবার থাম্বনেইল গতি বাড়ানো

উইন্ডোজ সেভেনে কাজ করার সময় টাস্কবারে কাজের থাম্বনেইল বা ছোট ইমেজ দেখা যায়অনেক কাজ একসঙ্গে করার সময় শুধু টাস্কবারে মাউস নিয়ে ওই কাজের প্রিভিউ দেখে নেওয়া যায়তবে এই থাম্বনেইল প্রিভিউ কিছুটা ধীরগতিরএ জন্য প্রিভিউ দেখতে ব্যবহারকারীর অতিরিক্ত সময় নষ্ট হয়চাইলে থাম্বনেইলের গতি বাড়িয়েও নেওয়া যায়এ জন্য Start মেন্যু থেকে regedit লিখে Registry Editor-এ যেতে হবেএরপর সেখান থেকে HKEY_CURRENT_USERControl PanelMouse-এ গিয়ে Mouse HoverTime-এ ডাবল ক্লিক করতে হবেসেখানে এর ভ্যালু ৪০০ দেওয়া রয়েছেঅর্থাৎ টাস্কবারে মাউস নেওয়ার ৪০০ মিলি সেকেন্ড পর এটা কাজ করেআরো দ্রুত কাজ করানোর জন্য এ সময়টি কমিয়ে আনতে হবেএখানে ভ্যালু ১০০ দিয়ে Ok করুনআগের চেয়ে অনেক দ্রুত টাস্কবারের থাম্বনেইল প্রিভিউ দেখা যাবে

পাসওয়ার্ড দিয়ে ফোল্ডার রাখা

উইন্ডোজ এঙ্পিতে সরাসরি কোনো ফোল্ডারকে পাসওয়ার্ড দিয়ে রাখার ডিফল্ট সুবিধা নেইতবে সেভেনে এই সুবিধা আছেগোপন ফাইলকে প্রাইভেট ফোল্ডার হিসেবে সংরক্ষণের সুবিধাও এতে রয়েছেপ্রাইভেট ফোল্ডার তৈরির জন্য প্রথমে মাউসের রাইট বাটন ক্লিক করুনএখানেই প্রাইভেট ফোল্ডার তৈরি করার উপায় পাবেন

মাউস ছাড়া টাস্কবার অ্যাপ্লিকেশন

উইন্ডোজ সেভেনে সব কাজ টাস্কবারে মিনিমাইজ হয়ে থাকেএ ক্ষেত্রে টাস্কবার থেকে নির্দিষ্ট উইন্ডোটি খোলার জন্য সাধারণত মাউস ব্যবহার করা হয়আরো দ্রুত কাজ করার জন্য এ ক্ষেত্রে আমরা কিবোর্ডের সাহায্যেই যেকোনো টাস্কবার অ্যাপ্লিকেশন চালু করতে পারিএ জন্য কিবোর্ড থেকে উইন্ডোজ কি চেপে ধরে টাস্কবারের অ্যাপ্লিকেশনটির নাম্বার চাপুনটাস্কবারের বাম দিক থেকে প্রথমে যে অ্যাপ্লিকেশনটি চালু রয়েছে, সেটি একএরপর থেকে ২-৩ ধরে যে অ্যাপ্লিকেশনটি চালু করতে চান, সেটার নম্বর চাপতে হবে

দ্রুত টাস্ক ম্যানেজার খোলা

এঙ্পির মতো উইন্ডোজ সেভেনে ctrl+alt+del চাপলে টাস্ক ম্যানেজার Open হয় নাএকটি মেন্যু আসে এবং সেখান থেকে টাস্ক ম্যানেজার খুলতে হয়তবে দ্রুত টাস্ক ম্যানেজার খোলার জন্য Crtl+Shift+Esc শর্টকাট ব্যবহার করা যেতে পারে

ফন্ট সাইজ বাড়িয়ে নেওয়া

মনিটরের সাইজ অনুসারে একেকজনের একেক রকম ফন্ট সাইজ প্রয়োজন হতে পারেফন্ট সাইজ পরিবর্তন করার জন্য স্টার্ট বাটনে ক্লিক করে font টাইপ করে Make text and other screen items larger or smaller-এ যেতে হবেসেখানে নতুন একটি ডায়ালগ বঙ্ েস্মলার, মিডিয়াম এবং লার্জ নামে তিনটি অপশন পাওয়া যাবেপ্রয়োজন অনুযায়ী সেখান থেকে যেকোনোটি বেছে নিলেই হলোএরপর কম্পিউটার লগ-অফ করে লগ-ইন করলে ফন্টের পরিবর্তন দেখা যাবে

শর্টকাটে নতুন ফোল্ডার তৈরি

মাউসের রাইট বাটন চেপে কম্পিউটারে যেকোনো নতুন ফোল্ডার তৈরি করা যায়তবে উইন্ডোজ সেভেন অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীরা শর্টকাটে এক চাপেই যেকোনো ফোল্ডার তৈরি করতে পারেনএ জন্য যে ড্রাইভ বা ফোল্ডারের মধ্যে নতুন একটি ফোল্ডার তৈরি করতে চান, সেখানে যেতে হবেএরপর সেখানে কিবোর্ড থেকে Ctrl+Shift+N চাপলেই নতুন একটি ফোল্ডার তৈরি হবেফোল্ডারটির নতুন একটি নাম দিয়ে Enter চাপলেই এটা খুলে যাবে এবং এতে ইচ্ছামতো ফাইল রাখা যাবে

কমান্ড প্রম্পট বঙ্

সংক্ষেপে কাজ করার জন্য কমান্ড প্রম্পট বেশ উপকারীতবে উইন্ডোজ সেভেনে রানে গিয়ে বারবার কমান্ড প্রম্পট খোলাটা ঝামেলার কাজএ ক্ষেত্রে শর্টকাটেই কমান্ড প্রম্পট বঙ্ খোলা যায়এ জন্য শিফট কি চেপে ধরে যেকোনো ফোল্ডারের ওপর রাইট ক্লিক করলে ‘Open command windows here’ লেখা আসবেএতে ক্লিক করে কমান্ড প্রম্পট খোলা যাবে

দ্রুত ডেস্কটপ দেখুন

কম্পিউটারে অনেক কাজ একসঙ্গে করার সময় ব্যবহারকারীকে ডেস্কটপে ফেরত আসতে হয়তবে ম্যানুয়ালি সব উইন্ডো মিনিমাইজ করে ডেস্কটপে ফেরত আসাটা খুবই ঝামেলারউইন্ডোজ সেভেনে একবারে সব উইন্ডো মিনিমাইজ করে ডেস্কটপে ফেরত আসার জন্য উইন্ডোজ কি চেপে ধরে স্পেস বারে চাপ দিলেই ডেস্কটপ চলে আসবেএরপর বাটনগুলো ছেড়ে দিলে কম্পিউটার আবার আগের উইন্ডোতে ফিরে যাবে

মনিটরের রং সমন্বয়


কম্পিউটারের মনিটর কখনো কম, আবার কখনো অতিরিক্ত রং প্রদর্শন করে। উইন্ডোজ সেভেনের একটি টুলস ব্যবহার করে এ সমস্যার সমাধান করা যায়। এ ক্ষেত্রে উইন্ডোজের স্টার্ট বাটনে ক্লিক করে সার্চ eccw.exe টাইপ করে Enter বাটন চাপুন। এরপর নতুন যে উইন্ডো আসবে সেখান থেকে Next বাটন চেপে পরবর্তী নির্দেশনাগুলো অনুসরণ করুন। এর সাহায্যে Gamma, Brightness, Contrast, Color সমন্বয় করে নেওয়া যাবে।

হার্ডডিস্ক রক্ষণাবেক্ষণ
হার্ডডিস্ক রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বিভিন্ন ধরনের টুল ব্যবহার হয়ে থাকে। যেমন_ অ্যাক্রোনিস, প্যারাগন। তবে এগুলো উইন্ডোজে আলাদা করে ইনস্টল করে নিতে হয়। ঝামেলা এড়ানোর জন্য উইন্ডোজ সেভেনে ডিফল্টভাবেই একটি ‘ডিস্ক পার্টিশন ম্যানেজার’ অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে। উইন্ডোজ সেভেনে এর নাম Disk Part। এর সাহায্যে সহজেই প্রাইমারি, এঙ্টেন্ডেড, লজিক্যাল পার্টিশনসহ রেইড সিস্টেমকে বিভিন্নভাবে সাজানো যায়। উইন্ডোজের লোকাল হার্ডডিস্ক থেকে ভার্চুয়াল হার্ডড্রাইভের সুবিধা পাওয়ার জন্য Start থেকে সার্চ hard disk টাইপ করে Create and format hard disk partitions-এ ক্লিক করুন। এখানে Action মেন্যু থেকে Create VHD (Virtual Hard Disk)-এ ক্লিক করে ভার্চুয়াল হার্ডডিস্ক তৈরির পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করে ভার্চুয়াল হার্ডডিস্ক তৈরি করা যাবে। Disk Part-এর ফিচারগুলো ও এর কমান্ড লাইনের ব্যবহার সম্পর্কে বিস্তারিত মাইক্রোসফটের http://support.microsoft.com/kb/300415 এই লিংক থেকে পাওয়া যাবে।

কম্পিউটারের সমস্যা
কম্পিউটারের বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সমাধান দেওয়ার জন্য উইন্ডোজ সেভেনে দুটি শক্তিশালী টুল রয়েছে, যা ব্যবহার করে অপারেটিং সিস্টেমের ক্ষতিগ্রস্ত অ্যাপ্লিকেশন চিহ্নিত করা ও সমাধান বের করা সম্ভব। উইন্ডোজ ৭-এ Error মেসেজের সঙ্গে সমস্যার বর্ণনাসহ একটি পপআপ উইন্ডোতে দেখাবে। এই পপআপে ক্লিক করলে Action Center স্বয়ংক্রিয়ভাবে এর সমস্যা খুঁজে বের করে তা সমাধানের চেষ্টা চালাবে। Action Center সমস্যার সমাধান করতে সক্ষম না হলে রেকর্ডার অন্যভাবে সাহায্য করার চেষ্টা করবে। এর জন্য আপনাকে স্টার্ট মেন্যুর সার্চ psr টাইপ করে enter চাপলে একটি নতুন উইন্ডো হাজির হবে। এই উইন্ডো থেকে Start বাটনে ক্লিক করে সমস্যাটি আবার বের করার চেষ্টা করুন। সমস্যাটি রেকর্ড হওয়ার পর Stop বাটনে ক্লিক করতে হবে। সাহায্যের প্রশ্ন চিহ্নিত আইকন সেটিংস মেন্যু থেকে বের করতে পারবেন। এখানে ফাইলটির এঙ্টেনশন হচ্ছে MHT কিন্তু তা জিপ ফরম্যাটে সেভ করা থাকবে। ফাইলটি বের করে Send to recipient -এ সাহায্যে সফটওয়্যার প্রোভাইডারের কাছে পাঠিয়ে সমস্যার সমাধান বের করে নেওয়া যাবে।

মাল্টিমিডিয়া (ভিডিও, ইমেজ, মিউজিক)
উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে মিডিয়া সেন্টারে অডিও, ভিডিও, ইমেজকে সিডি বা ডিভিডিতে বার্ন বা ISO ফাইল করার জন্য Magix বা Nero টুল ব্যবহার করতে হয়। উইন্ডোজ সেভেনে স্ট্রিম মিডিয়া সেন্টারের সুবিধা পাওয়া যায়। অ্যাডভান্সড মিডিয়া শেয়ারিংয়ের সাহায্যে উইন্ডোজ মিডিয়ার অডিও, ভিডিও কনটেন্টগুলো বিভিন্ন ধরনের বর্ধিত ডিভাইসের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারে এবং তা রিমোটের সাহায্যে দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করার সুবিধা দেয়।

নিরাপত্তা
ইমেজভিত্তিক ব্যাকআপ টুলের সাহায্যে উইন্ডোজ সেভেন সম্পূর্ণ সিস্টেম হার্ডডিস্কের ক্লোন তৈরি করে রাখতে পারেন। এ সুবিধা পেতে Start -> All programs-> Maintenance-> Backup and Restore-এ ক্লিক করতে হবে। এখানে Create->System Image-এ ক্লিক করে Destination File-এর লোকেশন External Hard disk-এর লোকেশনকে দেখিয়ে দিতে হবে। এরপর Start backup-এ ক্লিক করলে ফাইলগুলো ব্যাকআপ নেওয়া শুরু হবে।

নেটওয়ার্ক
নতুন কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের কাছে ‘কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং’ কঠিন মনে হতে পারে। উইন্ডোজ সেভেনের সাহায্যে খুব সহজেই নেটওয়ার্কিং করতে পারবেন এবং পুরনো অপারেটিং সিস্টেমের কম্পিউটার থেকে WLAN-এর সাহায্যে উইন্ডোজ সেভেনের সঙ্গে সহজেই যুক্ত হতে পারেন।
উইন্ডোজ সেভেনের নেটওয়ার্ক সমস্যা সমাধানের জন্য ঘNetwork and Sharing Center থেকে ট্রাবলশুটারের সাহায্য নিতে পারেন। এই সুবিধা পাওয়ার জন্য নেটওয়ার্কের নোটিফিকেশন আইকনের ওপর মাউসের ডান বাটন ক্লিক করে Troubleshoot Problems-এ ক্লিক করলে নতুন উইন্ডোর মাধ্যমে নেটওয়ার্কের সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করবে। সাধারণত এখান থেকেই উইন্ডোজ সেভেনের নেটওয়ার্ক-সংক্রান্ত সমস্যা সমাধান হয়ে যায়।

Courtesy – Kalerkantho

Written by Al-Amin Kobir & Ripon Rayhan

span style=”font-family: Vrinda” lang=”BN”

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

20 মন্তব্য

  1. এক কথায় ক্লাস টিউন,প্রিয়তে নিয়ে নিলাম।
    আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ এত সুন্দর একটি টিউন উপহার দেয়ার জন্য।

  2. জেনে রাখলাম। ভাল লাগার পাশাপাশি হিংসাও হচ্ছে।

    • কেন ভাই হিংসা হচ্ছে ,আসলে আমি অনেক কিছু জানি যা আপনি জানেন না আবার আপনি অনেক কিছু জানেন তা আমি জানি না ।এটাই তো স্বাভাবিক ।আপনি যা জানেন তা আমাদের জানাবেন, আমি যা জানি তা আপনাদের জানাবো এর জন্যই তো এই ব্লগ ।

      • এত কিছু জানি না । আমার কম্পিউটার নাই তাই

  3. ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য । অনেক কিছু জানলাম আপনার পোস্ট থেকে । বিশেষ করে উইন্ডোজ সেভেন এর ডিফল্ট snipping tool দেখে অনেক বিস্মিত ও চমৎকৃত হয়েছি । আপনার টিউনটি পরে খুব ভাল লাগলো । আশা করি আপনার কাছ থেকে আরও অনেক কিছু জানতে পারব ।

  4. আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া ।
    উইন্ডোজ ৭ আসলেই দারুণ ।এর আরো অনেক সুবিধা আছে যা হয়তো আমি জানি না । আপনি যা জানেন উইন্ডোজ ৭ সম্পর্কে তাও আমাদের সাথে শেয়ার করেন ।

  5. অনেক নতুন জিনিস জানলাম… আমি 2 বছর ধরে উইন্ডোজ 7 ব্যবহার করি.. কিন্তু এই পোস্টে দেওয়া অনেক কিছুই জানতাম না.. ধন্যবাদ অপু ভাই…..

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

19 − 5 =