কম্পিউটার সমাচার, ( গ্রাফিক্স কার্ড ) পর্ব-৩

37
1529

আরে ভাই, খবর কি আপনাদের? আছেন কেমন? আমার ধারাবাহিক টিউনে স্বাগতম। তবে একটা কথা না বললেই না, অনির্বাচিত টিউনার, রাসেল১৩, dice ভাইদের সহযোগিতা ও উৎসাহের কারনে আজ আমি এই ধারাবাহিক টিউন করতে পারছি। আজব ভাই এর টিউন আমার ভালো লাগে। আর অনির্বাচিত টিউনার ভাই এর কথা বললাম না, কারন “বস” দের নিয়ে বলা লাগে না। আপনারা মনে কইরেন না আপনাদের পাম্প দিতেসি, আমার মনে যা আসলো তা বলে দিলাম। এইবার কাজের কথাতে আসি।

আজকে আমার আলোচনার বিষয় গ্রাফিক্স কার্ড। আজকে আমি চেষ্টা করবো যে গ্রাফিক্স কার্ড নিয়ে আপনাদের যে সকল ভুল ধারনা আছে তা শুধরে দিতে। গ্রাফিক্স কার্ড একটি জটিল বিষয় অনেকের কাছে। সত্যি বলতে কি বেপারটা আসলে একটু জটিলই। তবে চিন্তা করিয়েন না, আমি আছি না। সব সহজ করে দিব। খালি একটু মন দিয়ে পোস্ট টা পড়বেন। ( যদি আপনার জানার আগ্রহ থাকে )

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

*** গ্রাফিক্স কার্ড ***

গ্রাফিক্স কার্ড কে ভিডিও কার্ড, ডিসপ্লে কার্ড, এক্সসেলারেটর কার্ড নামেও ডাকা হয়। গ্রাফিক্স কার্ড নিয়ে কম-বেশি সকলেই ঝামেলায় পড়েন। কোনটা ছেড়ে কোনটা নিবো তা নিয়ে মহা ঝামেলা। ATi বর্তমানে ( AMD Radeon) না NVidia নিবো তা নিয়ে মাথা পুরা নষ্ট। আগে আমি আপনাদের গ্রাফিক্স কার্ড এর বিস্তারিত আলোচনা করি, তারপর ATi ও NVidia এর সকল ফিচার নিয়ে আলোচনা করবো। ভালো গ্রাফিক্স কার্ড চিনতে হলে প্রথমে আপনাকে নিচের বিষয়গুলো সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা থাকতে হবে

@ চিপসেট
@ ক্লক স্পিড
@ অনবোর্ড মেমোরি
@ মেমোরি ব্যান্ডউইথ
@ ডিসপ্লে আউটপুট
@ ফিল রেট
@ রেনডারিং
@ পিক্সেল শ্রেডার

আমি যতটুকু সম্ভব আপনারদের কাছে বিস্তারিত বলব

+++ চিপসেট +++

চিপসেট মুলত ২ বা ততোধিক চিপ এর সমষ্টি যা কমপিউটারের সাথে গ্রাফিক্স কার্ড এর বিভিন্ন যন্ত্রাংশের ও মেমরির মাঝে তথ্য আদান প্রদানের মাধ্যমে তার কাজ সম্পাদন করে থাকে। চিপসেট তৈরিকারক কোম্পানিগুলো প্রতিনিয়ত নতুন নতুন চিপ তৈরি করছে যার ক্ষমতা পূর্বের চিপ থেকে অনেক বেশি হয়। এই চিপ সিলিকন সেমিকনডাকটর ও ট্রানজিসটর এর সমন্নয়ে গঠিত। গ্রাফিক্স কার্ড এর জন্য চিপ এর বাজারে দুটি কোম্পানি রাজত্ব করে আসছে। একটি হল ATi technologies ltd. যা  AMD (Advance Micro Device) কিনে নেয়। অপরটি হল গ্রাফিক্স সম্রাট NVidia।গ্রাফিক্স কার্ড এর চিপ এর ফ্যান এর নিচে থাকে ঠিক প্রসেসসর যেমন থাকে।

+++ ক্লক স্পিড +++

প্রসেসর এর মত গ্রাফিক্স কার্ড এর ও রয়েছে জিপিইউ যা গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট নামে পরিচিত যা ক্লক স্পিড দ্বারা মেগাহার্টজ এককে মাপা হয়। সহজ কথায়, জিপিইউ প্রতি চক্রে(সেকেন্ডে নয়) কতগুলো পিক্সেল প্রসেস করতে পারে তার পরিমাণকে বোঝায়। তাই ক্লক স্পিড যত বেশি হবে, গ্রাফিক্স কার্ড এর ক্ষমতা তত বেশি হবে। অনেকে মনে করেন যে মডেল আপডেট হলেই গ্রাফিক্স কার্ড এর জিপিইউ/ক্লক স্পিড বেশি হবে। একটা উদাহারন দেই। ৫৮০০ মডেলের গ্রাফিক্স কার্ড থেকে যে ৬০০০ মডেলের গ্রাফিক্স কার্ড এর গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট বেশি হবে তার নিশ্চয়তা নেই। যেমন ৬৬৫০ মডেল থেকে ৫৮৫০ এর গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট এর ক্ষমতা বেশি।

কম্পিউটার সমাচার, ( গ্রাফিক্স কার্ড ) পর্ব-৩

+++ অনবোর্ড মেমোরি +++

গ্রাফিক্স অপারেশনের সময় কিছু মেমরির প্রয়োজন হয় যা Built-in ভাবে গ্রাফিক্স কার্ডে দেয়া থাকে। একেই অনবোর্ড মেমোরি বলে। আমাদের অনেকের মাঝে একটা ভুল ধারনা আছে যে অনবোর্ড মেমোরি যত বেশি হবে, গ্রাফিক্স কার্ড এর ক্ষমতা তত ভালো হবে। আসলে অনবোর্ড মেমোরির উপর গ্রাফিক্স কার্ড এর ক্ষমতা নিরভর করে না। এ ক্ষমতা নির্ভর করে চিপসেট ও জিপিইউ এর উপর। তাই এ মেমরির পরিমান কম হলে যদি গেম খেলার সময় আরও মেমরির দরকার হয় তাহলে গ্রাফিক্স কার্ড তা RAM থেকে শেয়ার করে। তাই অনবোর্ড মেমোরি ৫১২ থাকলেই যথেষ্ট। যেমন 2GB 6550 থেকে 1GB 5850 এর ক্ষমতা বেশি কেননা 1GB 5850 ক্লক স্পিড 2GB 6550 থেকে বেশি।

+++ মেমোরি ব্যান্ডউইথ +++

জিপিইউ এর সাথে অনবোর্ড মেমোরির যোগাযোগ করার গতির পরিমাণকে মেমোরি ব্যান্ডউইথ বলে। নিচের ছকে লক্ষ করুন

Memory Type

Clock Rate

Bandwidth

DDR

166-950GHz

1.2-30.4GB/s

DDR2

533-1000GHz

8.5-16GB/s

GDDR3

700-1800GHz

5.6-54.4GB/s

GDDR5

3000-3800GHz

130-230GB/s

আপনি যত বেশি Clock Rate/ Bandwidth সম্পন্ন গ্রাফিক্স কার্ড কিনবেন, তার ক্ষমতাও ততো বেশি হবে।

+++ ডিসপ্লে আউটপুট +++

মনিটরের সাথে গ্রাফিক্স কার্ড যে বিভিন্ন পোর্ট দ্বারা যুক্ত হয় তা সাধারনত ডিসপ্লে আউটপুট নামে পরিচিত। এটি মুলত তিনটি পোর্ট দ্বারা যুক্ত হতে পারে।

  • * VGA
  • * DVI
  • * HDMI

VGA অনেক আগের পোর্ট যা ডিজিটাল সিগনাল কে অ্যানালগে রুপান্তর করে তা আবার ডিজিটাল হিসাবে প্রদর্শন করে। এর ফলে ছবির সঠিক মান থাকে না। DVI হচ্ছে ডিজিটাল ভিডিও ইন্টারফেস যা ডিজিটাল সিগনাল কে ডিজিটাল হিসাবেই প্রদর্শন করে। এর ফলে ছবির সঠিক মান অক্ষুণ্ণ থাকে। আর HDMI (High Defination Multimedia Interface) হচ্ছে বর্তমানের সবচেয়ে আধুনিক পোর্ট যা একই সাথে অডিও ও ভিডিও কে কোনরুপ পরিবর্তন না করেই প্রদর্শন করতে পারে। এখনকার প্রায় সকল গ্রাফিক্স কার্ডে তিনটি পোর্টই থাকে।

+++ ফিল রেট +++

পিক্সেল দিয়ে মনিটরের পর্দা ভরাট করার গতির হারকে ফিল রেট বলে। সাধারন গ্রাফিক্স কার্ড গুলতে ফিল রেট মাপা হয় মিলিয়ন পিক্সেল পার সেকেন্ড হিসাবে। কিন্তু উচ্চগতির শক্তিশালী গ্রাফিক্স কার্ড এর ফিল রেট সর্বচো ১৫ বিলিয়ন পিক্সেল পার সেকেন্ড !!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!! তাই পিক্সেল রেট বেশি এমন গ্রাফিক্স কার্ড কিনবেন।

+++ রেনডারিং +++

গেম তৈরিকারক কোম্পানিগুলো তাদের গেম ইঞ্জিন দ্বারা গেমে এমন কিছু ত্রিমাতরিক ফিচার যেমন অ্যান্টি-অ্যালাইসিং, বাম্প-ম্যাপিং, অ্যানাইসত্রপিক, পিক্সেল শ্রেডার, ব্যাবহার করে যাতে গেমের পরিবেশ কে নিখুঁত ও বাস্তব করে তোলা যায়। আর এই প্রত্যেকটি ফিচার কিছু নির্দিষ্ট সংখ্যক রেনডারিং ইফেক্ট সমর্থন করে। আপনার গ্রাফিক্স কার্ড বেশি সংখ্যক 3D রেনডারিং ইফেক্ট সমর্থন করবে, আপনার গেমের গ্রাফিক্স এর পরিবেশ ততো নিখুঁত হবে ও আপনি নিত্যনতুন সব গেম খেলতে পারবেন। ইন্টারনেট এ খুজলেই আপনি যে কোন গ্রাফিক্স কার্ড এর 3D রেনডারিং ইফেক্ট এর সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।
কম্পিউটার সমাচার, ( গ্রাফিক্স কার্ড ) পর্ব-৩

+++ পিক্সেল শ্রেডার +++

যদি আপনার নিত্যনতুন সব গেম খেলার সখ থাকে তাহলে পিক্সেল শ্রেডার আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পিক্সেল শ্রেডার হচ্ছে গ্রাফিক্স প্রসেসসিং ইউনিট এর এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ যার সাহায্যে গেম এর মাঝে প্রতিটি পিক্সেলে, বাস্তবতা ও উপযুক্ত ইফেক্ট ফুটিয়ে তুলে গেমকে প্রানবন্ত করে তুলে। নতুন গেমগুলয়ে আজকাল অনেক উচ্চ ক্ষমতার গ্রাফিক্স ইঞ্জিন ব্যাবহার করা হয়। তাই এইসব গেমের ক্ষেত্রে পিক্সেল শ্রেডার এর কাজ হল লাইটিং ইফেক্ট, সারফেস ইফেক্ট, কালার, টেএক্সার, শেপ কে সঠিকভাবে জেনারেট করে গেমের মাঝে সত্যিকারের বাস্তব অনুভূতি ফুটিয়ে তোলা যা আপনার গেম খেলার মজা কে দ্বিগুণ করে তুলবে। পিক্সেল শ্রেডার মোটামুটি নতুন প্রযুক্তি। তাই যাদের গ্রাফিক্স কার্ড একটু পুরনো তারা এই ফিচার টি পাবেন না। নিত্যনতুন গেম খেলার জন্য কমপক্ষে পিক্সেল শ্রেডার ৩.০ সাপোর্টেড গ্রাফিক্স কার্ড লাগবে। আপনার গ্রাফিক্স কার্ড এর সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আপনি CPU-Z নামক একটি সফট ব্যবহার করতে পারেন যা আপনি এখান থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

*** কিছু কথা ***

আজকাল মোটামুটি কমদামে ভাল গ্রাফিক্স কার্ড পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু এরা আলাদা পাওয়ার সাপ্লাই এর প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে। যদি গ্রাফিক্স কার্ড যে পরিমান পাওয়ার সাপ্লাই চায়, আপনারটা তার থেকে কম হয়, তাহলে আপনাকে অবশ্যই পাওয়ার সাপ্লাই পরিবর্তন করতে হবে। এটি কিন্তু খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারন যদি আপনার পাওয়ার সাপ্লাই এর ক্ষমতা প্রয়োজনের তুলনাতে কম হয় তখন আপনি গ্রাফিক্স কার্ড এর সম্পূর্ণ শক্তিকে কাজে লাগাতে পারবেন না। তাছাড়া আপনার গ্রাফিক্স কার্ড নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই যদি ভালমানের গ্রাফিক্স কার্ড কিনেন তাহলে অবশ্যই পাওয়ার সাপ্লাই এর কথা মাথায় রাখবেন। আপনার গ্রাফিক্স কার্ড এর জন্য কততুকু ক্ষমতার পাওয়ার সাপ্লাই প্রয়োজন তা এর প্যাকেটের গায়ে লেখা আছে।

গ্রাফিক্স কার্ড একটি বিশাল ইতিহাস যা একটি পোস্টে শেষ করা কঠিন। আমি আজকে যা নিয়ে আলোচনা করলাম তা মূলত একটি ভালমানের গ্রাফিক্স কার্ড এর মুল ভিত্তি যা মোটামুটি সকল কোম্পানির গ্রাফিক্স কার্ডে থাকে। তাহলে ATi / NVidia আলাদা কেন এরুপ একটি প্রশ্ন আসে যার উত্তর আপনাদেরকে আমি পরবর্তী পোস্টে দেবার চেষ্টা করব। তবে এইটুকু বলে রাখি যে ATi / NVidia এর সকল ফিচার প্রায় একই যা ভিন্ন নামে ব্যাবহার হচ্ছে। যেমন ATi technologies ltd. এর ক্রসফায়ার NVidia তে SLI নামে পরিচিত। কিন্তু এদের কাজ ও কার্যক্ষমতা হুবুহু এক। তবে কমদামে ATi technologies ltd. যা  AMD (Advance Micro Device এর অধীনে) ভালমানের গ্রাফিক্স কার্ড দেবার কারনে ও নিত্যনতুন সব উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন চিপসেট এর কারনে বর্তমান বাজারে ATi technologies ltd. এর দখল, NVidia এর থেকে বেশি।

শুভ ………………………. ( আপনার মনমত শব্দ বসিয়ে নিন )

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

37 মন্তব্য

  1. আমার পিসির কনফিগারেশন হলঃ ইন্টেল ডুয়াল কোর প্রসেসর, ১ জিবি রাম, মাদারবোর্ড DG41CN , এখন আমি ১০ হাজার বাজেটের মধ্যে একটি গ্রাফিক্স কার্ড কিনতে চাই। কোনটা এই বাজেটের মধ্যে সবচেয়ে ভালো হবে? আর র‍্যাম পরিবর্তন করার প্রয়োজন আছে কি? অনুগ্রহ করে জানাবেন।

  2. Murkho manush aj onek janlam .Tobe avro diye likhle ja hoy kicu vul roye geche . Softwaretar nam ‘CPU-z’ na ‘GPU-z’ . Ar pixel shader er sathe barti rofola roye gece fole ‘pixel shrader’ hoye geche . Amake vul bujben na . Apni amar ceye onek gyani . Tobe tune e vul thakle ta sobaike vibranto korte pare .

    Jai hok , apnake onek dhonnobad . Ar ‘bangrejir’ jonno dhukitto :)

  3. আমার বাজেট ৯০০০ টাকা. মনিটর lg ২১.৫ ইনচ. কোন গ্রাফিক্স কার্ড নিলে ভালো হবে ??? আসুস ৬৭৭০ hd 1 গব ddr5 কি নিলে সব game খেলতে পারব highest resulation এ? ram 4gb নিব না 8gb ? প্রসেসসর core i5 ৩.১০ ghz . প্লজ জানাবেন.

    • আমি সিলেট থাকার কারনে উত্তর দিতে দেরি হওয়াতে আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

      ৬৭৭০ সত্যি অসাধারন একটি গ্রাফিক্স কার্ড। তবে বাজার ঘুরলে বর্তমানে এই দামে আরও ভালো বা আরও সামনের সিরিজের গ্রাফিক্স কার্ড পেতে পারেন। ৫৮৫০ টা দেখতে পারেন যদি এটা নাগালের মধ্যে থাকে। আর XFX/আসুস/গিগাবাইট নেয়ার চেষ্টা করবেন।সাফিএর পরিহার করাই উত্তম।

    • র‍্যাম যত বেশি নেয়া যায় ততই ভালো, তবে পরিমানের দিকে লক্ষ না করে গতির দিকে লক্ষ দিন। আপনি ৮গিগা নিলে সেটা ১৩৩৩ বাস এর হবে। আপনি তাই ১৬০০ বাস এর র‍্যাম নেয়ার চেষ্টা করুন। পরিমান থেকে বাস স্পিড এর দিকে নজর দেন বেশি। আর আপনার র‍্যাম ৪ গিগা বা তার বেশি হলে আপনাকে ৬৪ বিট এর উইন্ডোজ ব্যাবহার করতে হবে। নাহলে আপনি ৮ গিগা লাগালেও ৩.২০-৩.৭৫ এর বেশি র‍্যাম কাজ করবে না।

  4. এই ঈদ এর পরে আমি একটা গ্রাফিক্স কার্ড কিনবো, কোনটা বর্তমানে বাজারের সবচেয়ে ভাল কার্ড?

  5. আচ্ছা ভাই, এক গিগাবাইট Nvidia Geforce কার্ডের দাম কতো টাকা?

    • ভাই, আপনার বাজেট বললে ভাল হবে। নইলে তো বলতে কষ্ট হবে। আপনি গেমার হলে amd রেডন নিলে ভাল সাপোর্ট পাবেন। আর যদি গ্রাফিক্স এর কাজ করেন তাহলে Nvidia গেফর্চে। আর বেশি ভাল গ্রাফিক্স কার্ড নিলে পাওয়ার সাপ্লাই নিতেই হবে। তাই একটু বিস্তারিত বলুন।

  6. ।ফান্ডামেন্টাল এর একটি বই কিনেছিলাম , আপনি এমন পোস্ট করবেন জানলে কেন তাম না । শুভকামনা রইল ।

  7. মিয়া, শিখবার চাইন তাও ঘার ধইরা শিখান আমারে। জাউজ্ঞা, জট্টিল হইসে। কামের পুষ্ট। জদিও এর বেশিরভাগই আগেই জানতাম। পরেরবার ইউ এস বি ক্যাবল নিয়া লেইখেন। নাইলে সাটা পোরট। :D :D :D :D

    • আপনার কথামতো কিছুদিনের মধ্যেই USB নিয়ে লিখব ইনশাল্লাহ।

  8. জটিল হইছে !!!!!!!
    আমি বরাবর এই সব বিষয়ে কাচা ।তাই আমি শুধু টিউন পড়ি ,কমেন্ট করি এবং কিছু শেখার চেস্টা করি ।
    ধন্যবাদ আপনাকে ।

  9. ভাই এবারও ফাটিয়ে দিলেন । চরম হইছে । ধন্যবাদ অনেক কিছু জানলাম আপনার এই ধারাবাহিক টিউন থেকে । আশা করি আরও জানব । :D

  10. “আর অনির্বাচিত টিউনার ভাই এর কথা বললাম না, কারন “বস” দের নিয়ে বলা লাগে না। ”

    আমি বস???????? হা হা হা হা হা। যত সব বাজে কথা বার্তা। যাই হোক পোষ্ট “ডিজিটাল টিউনার” কে বলে ঠিক করে দিয়েছি কিছুটা। পোষ্ট সাজাতে সমস্যা হলে আমাকে বা ফেইসবুকের ডিজিটাল টিউনারকে বলবেন। আর পোষ্ট এডিট করার জন্য আমি ক্ষমা চাচ্ছি। মাফ করে দিবেন

    • ছি ছি ভাই, কি যে বলেন না, আপনারা পোস্ট টা ঠিক করে দেয়াতে আমার ঈজত বাঁচল, আমি নতুন তাই কিভাবে গুরত্তপূর্ণ লাইনগুল কালার করা, এইসব ব্যাপারগুলা আমি জানি না। আপনারা যদি একটু কষ্ট করে সাহায্য করেন তাহলে শিখতে সুবিধা হবে। কোন টিউটোরিয়াল এর লিঙ্ক দিলে উপকার হবে। আপনার সাথে কিভাবে যোগাযোগ করবো? ফেসবুকে আমি HyBrid Tanvir ( facebook.com/GeneratedTanvir )

  11. দারুণ লিখেছেন। তবে আরু সুন্দর করে সাজিয়ে লিখুন। ধন্যবাদ…………….

  12. দারুণ লিখেছেন। তবে আরু সুন্দর করে সাজিয়ে লিখুন। ধন্যবাদ…

  13. ভাই এ্কট সমালচনা করে যাই কিছু মনে নিয়েন না
    আপনার লেখা যে ভাল এতে কোন সন্ধেহ নেই । তবে টিউন এর ভেতরে না পড়ে বাইরে থেকে দেখলে টিউনটা সুন্দর লাগে না । কথায় আছে আগে দর্শনদারি পরে গুন বিচারি । দর্শনদারির ক্ষেত্রে আপনার টিউনটা কে আর সুন্দর করলে এটা সুপার টিউন হবে । যেমন প্রত্যেক প্যারার নাম গুলা বড় করে দেওয়া । উপযুক্ত ও সুন্দর ছবি দেয়া । লিঙ্কে জাতে ঠিক থাকে সে দিকে খেয়াল রাখা মানে টিপি থেকেই যাতে সরাসরি লিঙ্ক এ ঢুকা যায় । আপনি ‘মেমোরি ব্যান্ডউইথ’ এই প্যারায় ছবি বেবহার করলে ভাল হত । তারপর গুরত্তপূর্ণ লাইনগুল কালার করা।
    সরবপরি আপনার টিউনটা সুন্দর করে সাজিয়ে তুললে দেখতে অনেক ভাল লাগেবে । এ্নিতে খারাপ লাগতেসেনা তবে টিউনটা কে আরো অনেক সুন্দর করে তুলা যাবে ।
    ধন্যবাদ

    • আপনারা সমালোচনা না করলে শিখবো কোথা থেকে? আমি নতুন তাই কিভাবে গুরত্তপূর্ণ লাইনগুল কালার করা, প্রত্যেক প্যারার নাম গুলা বড় করে দেওয়া, প্রত্যেক প্যারার নাম গুলা বড় করে দেওয়া, এইসব ব্যাপারগুলা আমি জানি না। তবে যদি কোন টিউটোরিয়াল এর লিঙ্ক থাকে তাহলে তা দিলে উপকার হবে।

    • লিঙ্কে জাতে ঠিক থাকে সে দিকে খেয়াল রাখা মানে টিপি থেকেই যাতে সরাসরি লিঙ্ক এ ঢুকা যায়

      এটা কিভাবে করবো/বুঝতে পারব??

    • ভাই ৫০০০ টাকার মধ্যে সবছে ভাল গ্রাফিক্স কার্ড গুলা কি কি
      যা দ্বারা সব গেম চলবে
      কি কি লাগবে
      একটু বলেন

      • ATi Radeon HD5450, 5550,5670 ও Nvidia GTX200, 210, 220 এ আপনি সব গেম খেলতে পারবেন, এই কার্ডগুলার ক্লক স্পিড ৫০০-৬০০ মেগাহার্টজ ও পিক্সেল শ্রেডার ৫.০ যা সব নতুন গেম চালাতে পারবে। আর এইগুলার জন্য পাওয়ার সাপ্লাই লাগবে না। দাম ৪০০০-৫৫০০ টাকা এর মধ্যে। এইবার নিশ্চিন্তে খেলেন সব গেম, হি হি হি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

twenty + 1 =