অবশেষে দাম কমছে ইন্টারনেটের

0
389

দীর্ঘ ৯ বছর আন্দোলনের পর দাম কমছে মোবাইল ইন্টারনেটের। বাংলাদেশের ৩টি টেলিকম কোম্পানি বাংলালিংক, রবি ও এয়ারটেল ২৫ শতাংশ দাম কমানোর প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশনের কাছে। তথ্যপ্রযুক্তি আন্দোলনের দীর্ঘ আন্দলনের প্রেক্ষিতে দাম কমাতে যাচ্ছে বিটিআরসি ও মোবাইল অপারেটর কোম্পানিগুলো। এই তিন কোম্পানি দাম কমানোর প্রস্তাব করলেও বাংলাদেশের প্রথম ইন্টারনেট সেবাদাতা গ্রামীণফোন, নগরীতে বেশি ব্যবহৃত সিটিসেল জুম এখনও নিশ্চুপ। বাংলাদেশে বর্তমানে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের সংযোগ সব জায়গায় না থাকায় মোবাইল ইন্টারনেট বেশি ব্যবহার করা হয়। কিন্তু এর মুল্য অনেক বেশি। কোম্পানিগুলো আনলিমিটেড দেয়ার নামকরে দিয়েছে শুধু ৩ জিবি ব্যবহারের সুযোগ দিয়ে আসছে।

সংবাদ মাধ্যমকে রবির এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মাহমুদুর রহমান বলেছেন, “ইন্টারনেট মূল্য কমানোর মাধ্যমে এর ব্যবহার সুবিধা আরও বাড়ানো এবং সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে নিয়ে আসাই আমাদের উদ্দেশ্য। নতুন মূল্য নির্ধারণের ফলে আরও অনেক নতুন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সামনে তথ্যপ্রযুক্তির জগৎ উন্মুক্ত হবে বলে আশা করেন।” এদিকে ইন্টারনেটের চার্জ কমানোর বিষয় নিয়ে গত সপ্তাহে ৬ মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর সঙ্গে বৈঠক করেছে টেলিকম খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। বিটিআরসির চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোসের সঙ্গে বৃহস্পতিবার মোবাইল অপারেটর কোম্পানিগুলো এক বৈঠকে ইন্টারনেট প্যাকেজের মূল্য কমানোর বিষয়টির একটি সমাধান এনেছে।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি সূত্রে জানা গেছে, কয়েকদিনের মধ্যেই ইন্টারনেট প্যাকেজের সর্বোচ্চ মূল্য নির্ধারণ করে একটি নির্দেশনা জারি করা হবে। মোবাইল অপারেটরগুলো আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে বিটিআরসির কাছে একটি চূড়ান্ত প্রস্তাবনা প্রকাশ করবে। ইন্টারনেট প্যাকেজের মূল্য নেমে কততে আসবে তা না জানা গেলেও বর্তমান মূল্যের প্রায় অর্ধেকে আসবে বলে জানা যায়।

মোবাইল অপারেটররা জানিয়েছেন, তাদের নির্ধারিত ইন্টারনেট বিলের ব্যান্ডউইথের খরচ ৪ শতাংশ। বাকিটা তাদের মেইনটেনেন্স এবং অবকাঠামোতে ব্যয় হয়। তারা আরও বলেন, “লজিক দিয়ে সিদ্ধান্তে আসতে হবে, আবেগ দিয়ে ফলাফল আসবে না। দু’পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।”

প্রকৃতপক্ষে গ্রাহক পর্যায়ে ইন্টারনেটের মূল্যহার বিটিআরসি কর্তৃক প্রতি মেগাবাইট ১০ পয়সা এবং প্রতি গিগাবাইট ১০ টাকা হারে এবং সর্বনিন্ম গতি ৫১২ কিলোবাইট ঘোষণা ও বাস্তবায়নের দাবিতে আন্দোলন শুরু হয়। চাপের মুখে বিটিআরসির সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল গোলাম মাওলা ভুইয়া গত ৫ জুন তথ্যপ্রযুক্তি আন্দোলনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠকে জানান, গ্রাহক পর্যায়ে ইন্টারনেট সার্ভিসের দাম নির্ধারণ কস্ট মডিউল ছাড়া সম্ভব নয়।

কোম্পানি সুত্র জানায়, তিন অপারেটরের নতুন দর অনুযায়ী জুলাইয়ের প্রথম দিন থেকে পি-১ প্যাকেজের ক্ষেত্রে গ্রাহকদের প্রতি কিলোবাইট ইন্টারনেটের মূল্য দুই পয়সার স্থলে সর্বোচ্চ দেড় পয়সা প্রতি মেগাবাইটের ২০ টাকার স্থলে ১৫ টাকা দিতে হবে। এ ছাড়া রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকের থ্রিজি গ্রাহকরা প্রতি কিলোবাইট দশমিক এক পয়সা ও প্রতি মেগাবাইট এক টাকা, টেলিটকের টু-জি গ্রাহকরা প্রতি কিলোবাইট দশমিক দুই পয়সা ও প্রতি মেগাবাইট দুই টাকা এবং সিটিসেল গ্রাহকরা প্রতি কিলোবাইট ২ পয়সা ও প্রতি মেগাবাইট ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন ২০ টাকায়। রবি গ্রাহকদের জন্য সম্প্রতি ৫ মেগাবাইট ছয় টাকা, ২০ মেগাবাইট ২০ টাকা এবং ৪০০ মেগাবাইট ৫০ টাকায় দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

মন্তব্য দিন আপনার