গিটার টিউটোরিয়াল – গীটার স্ট্রামিং / রিদম টিপস

0
661

অনেকেই আমাকে অনেকদিন যাবত ইমেইল করেছেন এবং ফোন করেছেন  গীটার রিদম এর সমস্যার ব্যাপারে। তাই আজ সে ব্যাপারে কিছু বলতে চাই। মুলত মিউজিক করতে হলে  গড গিফটেড কিছু ব্যাপার থাকতে হয়, যাদের আছে তাদের শেখাটাও সহজ ও তাড়াতাড়ি হয় আর যাদের নেই তাদের কে আয়ত্ব করে নিতে হয়। উদাহরণ স্বরুপ বলা যায়, অনেকেই চমৎকার গান করতে পারেন কিন্তু কখনও কারও কাছে গান শেখেননি ঠিক তেমনি অনেকেই চমৎকার তাল ধরে তা বুঝে গান করতে পারেন এমনকি টেবিল, বোতল, পাতিল, কলস এগুলোতে চমৎকার তাল তুলতে পারেন, এটা গড গিফটেড (God Gifted), আর যাদের এই গড গিফটেড ব্যাপারটা আছে, তাদের জন্য  গীটার রিদম বেশী সমস্যা হবার কথা না, আর যাদের এই গড গিফটেড ব্যাপারটা নেই তাদের বলছি…

যে কোনো কিছু ভালোমত শিখতে হলে সময় প্রয়োজন, সময় যত বেশী হবে শেখাটাও তত বেশী হবে, তাই গীটার রিদম ও হুট করে শেখা যায় এমন কোনো কথা নেই, এর জন্য প্রয়োজন অনেক অনেক প্র্যাক্টিস, যত প্র্যাক্টিস তত শেখা, কাজেই রিদম শিখতে হলে প্রয়োজন ধৈর্য। গানের প্রাণ হচ্ছে তাল, তাল ছাড়া গান হয় না, আর তালে একটু ভুল করা মানে বেতাল, অর্থাৎ গান আর গান থাকে না, তাহলে তাল যে কত গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।  রিদম বা তাল যাই বলি না কেন এই তালের উপরেই নির্ভর করে গান বা মিউজিক এর সার্থকতা। একটা গানকে ধরে রাখে তাল।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

এইবার আসা যাক টিপস এ, আপনারা খেয়াল করবেন গানের পেছনে তাল কে ধরে রাখার মুখ্য ভূমিকা পালন করে ড্রামস/ তবলা/ পারকিশান (তাল সম্পর্কিত বায্য যন্ত্র), যখন আপনি গীটারে কোনো গান বাজাতে যাবেন একটু খেয়াল করে ড্রামস এর তাল কে লক্ষ্য করে যদি গীটারে স্ট্রোক করেন তাহলে সেই গানের তাল বা রিদম আপনি বাজাতে পারবেন, কিন্তু তার আগে আপনাকে প্র্যাক্টিস করতে হবে। যেমন DU DU DU DU (D = Down stroke, U=Up stroke), এরকম আরওঅনেক রিদম প্র্যাক্টিস আছে, D-U-DD-U, D-D-UUDD। এবার আসা যাক আর কিছু টিপস এ, আপনারা রিদম প্র্যাক্টিস করার সময় মেট্রনাম (Metronome) ব্যাবহার করবেন (মেট্রনাম হল একটি নির্দিষ্ট সময় পরপর একটা করে শব্দ হবে এবং প্রতি শেসনে ৪ বার করে শব্দ হবে যেমন “টিক টিক টিক টিক” = ১ সেশন, আর এই মেট্রনাম এর শব্দের বেগ বাড়ানো বা কমানো যায়, যাকে বলে Tempo। মেট্রনাম এর সফটওয়্যার পাওয়া যায় বা ডিভাইস ও পাওয়া যায়। তাল মানেই হচ্ছে একটি নির্দিষ্ট সময় পর পর স্ট্রোক করা, সুতরাং মেট্রনাম দিয়ে প্র্যাক্টিস করলে দ্রুত রিদম শেখা যাবে। রিদম প্র্যাক্টিস করার সময় হাত সম্পূর্ণ রুপে flexible রাখতে হবে, কোনো জড়তা রাখা যাবে না। প্র্যাক্টিস এর সময় বাড়াতে হবে অর্থাৎ একটানা অনেক্ষণ সময় নিয়ে প্র্যাক্টিস করতে হবে। প্র্যাক্টিস এর সময় পিক ব্যাবহার করতে হবে, অন্যথায় পরবর্তিতে পিক ব্যবহার করতে গেলে সমস্যা হবে।

সর্বপরি শেষ কথা বলতে চাই, যে কোনো কিছু শেখার ব্যাপারে প্রয়োজন ধৈর্য  এবং প্রবল আগ্রহ আর প্র্যাক্টিস তো বটেই। একটু কষ্ট করুন, শিখে গেলে তো আর কষ্ট করতে হবে না, আর শেখার পরের আনন্দ আপনার সব কষ্টকে মুছে দেবে। সবার জন্য রইল শুভ কামনা…

২৪ ঘণ্টা Live অনলাইন রেডিও ”রেডিও কথা” , শুনতে হলে আপনাকে লগিন করতে হবে৷ http://www.radiokotha.com ওয়েবসাইট এ ।  আমাদের ফেইসবুক পেজ এ একটা লাইক দিলে খুব খুশি হব : http://www.facebook.com/radiokothabd

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

1 × three =