তবে দীপের রক্ত ঝড়বে আজ বুয়েটের সিড়িতে না সিরিন্জ বার করা রক্ত না কোপানির তাজা রক্ত- দীপের রক্ত!

0
560

তবু , আমি এখানেই রয়ে যাবো ,
দেখাবো চূড়ান্ত গোয়ারামি ,
সবার সব কথায় অবিশ্বাস রেখে
আমি শূকরের সাথে সহবাসের ফতোয়া অস্বীকার করি ।

 

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

 

dip তবে দীপের রক্ত ঝড়বে আজ বুয়েটের সিড়িতে না সিরিন্জ বার করা রক্ত না কোপানির তাজা রক্ত- দীপের রক্ত!

 

তোমাদের মাঝে যারা শুকর প্রেমিক ,
তারা স্ত্রী -কন্যাকে তাদের হাতে তুলে দাও গোপনে ,
চুমু খাও বরাহ ঠোটে ,
টিপে দাও জারজ শুওরের রসালো গাল ।

তবু , আমি এখানেই রয়ে যাবো ,
দেখাবো চূড়ান্ত গোয়ারামি ,
সবার সব কথায় অবিশ্বাস রেখে
আমি শূকরের সাথে সহবাসের ফতোয়া অস্বীকার করি ।

বহুদিন আগে ছাগু খোয়াড়ে এক নিকে লিখসিলাম

আমি গালিবাজ, কারো কোন সমস্যা? আমি গালি দিবো তাদের যারা আমার বাবার খুনীদের রাষ্ট্র ক্ষমতায় বসাতে চাই। আমি গালি দিবো, তাদের যারা পল্টনের রাজনীতিক মারামারি উসিলায় তিরিশ লাখ লোকের গনহত্যারা দাবী ভুলে যেতে চায়। আমি তার সাথে কোন যু্ক্তিতে যাবোনা যে ১৯৭১ এ সিভিল ওয়ার বলে। আমি তার সাথে কোন যুক্তিতে যাবোনা যে বলে, ১৯৭১ এ স্বাধিনতার সময়ে জামাতের বিরোধিতা একটি রাজনীতিক সিদ্বান্ত, এবং সে জন্য তাদের কোন শাস্তি হতে পারেনা, কেননা এটা রাজনীতিক ভাবে যাষ্টিফায়েড। কিসের তর্ক তার সাথে যে আমার ভাইয়ের লাশের উপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে যায়। আমার ভাইয়ের লাশের উপর দিয়ে গাড়ি চলবে আর আমি তাকিয়ে দেখবো, তা কি হয়, তাই আমি গুন্ডা।

তবে দীপের রক্ত ঝড়বে আজ বুয়েটের সিড়িতে না সিরিন্জ বার করা রক্ত না কোপানির তাজা রক্ত- দীপের রক্ত!

আমি গুন্ডা, আমি রবিনহুড। আমাকে ব্যান করা হয়েছে দেড় শত বার, ব্যান হবো হাজার বার, তবু আমি গুন্ডামি করবো। যেমন কুকুর তেমন মুগুর হওয়া উচিত। আপনার সুশীল থাকেন, ব্লগের একই পাতায় শুকুরের বিষ্টার সাথে আপনাদের জ্ঞান গর্ভ আলোচনা, সাহিত্য, আমি সেই বিষ্টা পরিষ্কার করব। আপনি আমাকে ইরিটেটিং গুন্ডা বলুন কোন আপত্তি নেই, আমি বরং জানব যে শুকুরের বিষ্টার সাথে মানুষের খাদ্যের পার্থক্য আপনি ভুলে গেছেন, আর আপনাকে মনে করিয়ে দিয়ে আমি উপকার করছি। আপনার কৃতজ্ঞতা আমার দরকার নেই, বরং আপনাকে যে আমি শুকুরের বিষ্ঠা থেকে পরিষ্কার করেছি সেই আমার আত্মপ্রসাদ।

আমার লাফালাফি এ ফেসবুক আর ব্লগেই সীমাবদ্ধ- কিন্তু আমি একটা ছেলেকে চিনি যে নিজের কাধে এ বিষ্ঠা পরিষ্কার করার দায়িত্ব নিয়েছে। হ্যা তার নাম বুয়েট শিক্ষার্থী আরিফ রায়হান দীপ- সে বুয়েটকে ছাগ বিতান বানানো প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে রুখে দাড়িয়েছিল- জামাতি শিক্ষকরা যখন ছাত্রদের কে ব্যবহার করে হালুয়া রুটির রাজনীতি করে বুয়েটকে অশান্ত করে তুলছে তখন দীপ রুখে দাড়িয়েছিল! দীপ উঠে দাড়িয় সোজা হয়ে বলেছিল আমি শুওরের সাথে সহবাস ফতোয়া অস্বীকার করি!

জামাতে অধ্যাপক স্নিগ্ধা আফসানা, মাহবুবুর রাজ্জাক এবং জাহান্গীর যখন বুয়েটের জামাতে ইসলামী ছাত্র শিবিরের নামে ষ্টাডি সার্কেল এবং বুক সার্কেলের মাধ্যমে শিবিরের রাজনীতি কায়েম করেছিল তখন দীপ রুখে দাড়িয়েছিল! দীপ ক্যাম্পাসে শিবিরের বিরুদ্ধে জনমত গঠন করেছিল- শিবিরকে পিটিয়ে দীপ ছাড়া করেছিল- দীপ আবারো সোজা হয়ে দাড়িয়ে বলেছিল আমি শুওরের সাথে সহবাসের ফতোয়া অস্বীকার করি!

জামাতি অধ্যাপকদের যখন বুয়েটে শাহবাগের গনজাগরন মন্চকে অস্বীকার করেছিল- যখন সারা বাংলাদেশ উতাল হয়েছিল জয় বাংলা শ্লোগানে কিন্ত পলাশী মোড়ের বুয়েট যখন সারা বাংলাকে অস্বীকার করেছিল মীর জাফরের মত তখন দীপ রুখে দাড়িয়েছিল-দীপ আবার বলেছিল আমি শুকরের সাথে সহবাসের ফতোয়া অস্বীকার করি!

হেফাজতে ইসলামীর তালিবানি এজেনডা যখন ঢাকার প্রতিটি মানুষ রুখে দাড়ানোর চেষ্টা করছে তখন বুয়েট প্রশাসন হেফাজতে ইসলামের লংমার্চকারীদের জন্য খিচুড়ি রান্নার ব্যবস্থা করেছিল তখন দীপ রুখে দাড়িয়েছিল! দীপ আবার বলেছিল আমি শুকরের সাথে সহবাসের ফতোয়া অস্বীকার করি! দীপের আন্দোলনের ফলে বুয়েট প্রশাসন তালিবানী হেফাজতে ইসলামীকে সাহায্য দানকারী ইমামকে বরখাস্ত করতে বাধ্য হয় আর তার কারনই দীপের উপরে নেমে আছে সীমারের ছুরি-

বিডি নিউজের বরাত দিয়ে জানা যায়

“বুয়েট ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আমিনুল হক পলাশ বলেন, “ইমাম বরখাস্ত হওয়ার পর থেকেই বুয়েট শিক্ষার্থীদের ফেইসবুক গ্রুপ ‘বুয়েটিয়ান’ এ কিছু শিক্ষার্থী দীপকে নিয়ে আজেবাজে লেখালেখি শুরু করে দেয়। দীপকে অপরিচিত মোবাইল নম্বর থেকে হত্যার হুমকিও দেয়া হয় বলে পলাশ অভিযোগ করেন। দীপের মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত করা হয়, যার একটি বাম চোখের ওপর পড়ায় তা হারানোর শঙ্কা দেখা দিয়েছে। পিঠে এমনভাবে কোপানো হয়েছে যে ৫০টির বেশি সেলাই দিতে হয়েছে বলে জানান চিকিৎসক।”

তবে দীপের রক্ত ঝড়বে আজ বুয়েটের সিড়িতে না সিরিন্জ বার করা রক্ত না কোপানির তাজা রক্ত- দীপের রক্ত!

দীপদের মারা যায়না- দীপরা অমর-দীপরা গুন্ডা, দীপরা রবিনহুড। দীপদের কোপানো হবে দেড় শত বার, হুমকি দেয়া হবো হাজার বার, তবু দীপরা গুন্ডামি করবো। যেমন কুকুর তেমন মুগুর হওয়া উচিত। আমরা সুশীল থাকবো, জীবনের একই পাতায় শুকুরের বিষ্টার সাথে আমাদের জীবন যাপন, জীবিকা, বেচে থাকা কিন্তু দীপরা সেই বিষ্টা পরিষ্কার করব। দীপদের ইরিটেটিং গুন্ডা বলুন কোন আপত্তি নেই, দীপরা বরং জানবে যে শুকুরের বিষ্টার সাথে মানুষের খাদ্যের পার্থক্য আমরা ভুলে গেছেন, আর আমাদের মনে করিয়ে দিয়ে দীপ উপকার করছে। আমাদের কৃতজ্ঞতা দীপদের দরকার নেই, বরং আমাদের যে দীপরা শুকুরের বিষ্ঠা থেকে পরিষ্কার করেছি সেই দীপদের আত্মপ্রসাদ।

দীপদের আত্মপ্রসাদ যে দীপরা সেই জাতির সন্তান যে ৩০৩ রাইফেল দিয়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনকে যুদ্ধে থামিয়েছে। দীপদের আত্মপ্রসাদ যে তাদের পুর্বপুরুষ ভাবেন নি কি করে অস্ত্র শস্ত্র সজ্জিত একটি পাক হানাদার বাহিনীকে থামাবে। আমরা সুশীল হবো, নিরাপত্তাহীনতায় ভুগবো জামাতের রাজনীতি ব্যান করলে কি হবে? কিন্তু দীপরা হবে গালিবাজ- হবে ডিষ্টার্বিং এলিমেনট- হবে ইরিটেটিং গুন্ডা, যুদ্ধটা তো কাউকে না কাউকে করতে হবে- আর দীপরা সেই যোদ্ধা। আমাদের কৃতজ্ঞতা দীপদের দরকার নেই, বরং আমাদের যে শুকুরের বিষ্ঠা থেকে পরিষ্কার করেছে সেই দীপদের আত্মপ্রসাদ

তবু ,
দীপরা আছে বর্শা হাতে নিদ্রাহীন,
বেচেঁ থাকতে এই ভূমে ,
প্রবেশাধিকার পাবে না ,
তোমাদের শূকরের পাল ।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

eighteen − fourteen =