হতাশ একজন ভবঘুরে বেকার থেকে সফল একজন ফ্রীল্যান্সার হওয়ার ঘটনা। সফলতা অত সোজা নয়।

6
506

হ্যাঁ গল্পটা আমারই। প্রতিজ্ঞা করেছিলাম যেদিন সফল হব সেদিনই এইটা শেয়ার করবো। একদিন এই গল্প লেখার মত সাহস ছিলনা আমার কিন্তু স্বপ্ন ছিল। আসলে এইটাকে গল্প বলা ভুল হবে, এটাতো বাস্তব। এটার প্রত্যেকটি ঘটনা বাস্তব এবং আমার নিজের জীবনেরই একটা অংশ। তো যাই হোক এবার শুরু করা যাক।

(আপনারা যারা এই টিউনটি পড়ছেন তারা জেনে রাখুন এটা আমার নিজের ইতিহাস না। আমি আমার নিজের ফ্রীল্যান্সার হওয়ার ঘটনা আগেই বলেছি, এটা আমার এক টিউনার ভাইয়ের ঘটনা। শুধুমাত্র আপনাদের অনুপ্রেরণা দেয়ার জন্যই এটা শেয়ার করলাম।)
শুরুর কথাঃ
আমার শুরুটা হয়েছিল ভুল পথে। প্রথম আমার ব্যাক্তিগত কম্পিউটার কিনি ২০০৯ এর সেপ্টেম্বরে। তার আগে শুধু পত্রিকায় পড়তাম অনলাইনে কাজ করে নাকি টাকা পাওয়া যায়। ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ ছিল। তাই ভাবলাম আমিও অনলাইনে কাজ করব আর টাকা কামাবো।
২০১১ সালের নভেম্বর। কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট সম্পর্কে ভাল ধারনা ছিল না। তারপরেও বিশাল একটা সুযোগ পেলাম টাকা ইনকাম করার। আর তা হল ক্লিক করে টাকা আয় করার। বহু কষ্টে ৫০,০০০ টাকা যোগার করে নেমে পরলাম ক্লিক মারতে। মনে মনে ভাবলাম আমারে আর ঠেকাই কে? খালি টাকা আর টাকা। বাবা মার অমতে আমার প্রেমিকাকে বিয়েও করে ফেললাম।
কিন্তু আমার ভুল ভাঙতে সময় লাগেনি। ৩-৪ মাস পরে ক্লিক কোম্পানি উধাও। নেমে এলাম বাস্তবের জমিনে।
হতাশাঃ
শুরু হল জীবন সংগ্রাম। জীবনটা দুর্বিষহ হয়ে উঠল। আগে কোচিং করাতাম। বিয়ের পর সেটা বন্ধ করে দিয়েছিলাম। পালিয়ে বিয়ে করেছিলাম বলে লোকলজ্জার ভয়ে সেটা আর ব্যক্তিগতভাবে চালু করতে পারিনি। কয়েকটা বড় ভাইয়ের সাথে পরিচয় হয়েছিল ক্লিক বাহিনীতে যোগ দেওয়ার পর। তারা শুধু বলত ভাই কাজ দিব তোমাকে। এভাবে কেটে গেল ৩-৪ মাস। কিন্তু কাজ আর পেলাম না। প্রচন্ড টাকার অভাব দেখা দিল। সেই দিন গুলো বর্ণনা করার ভাষা আমার নাই। শুধু একটা উদাহরন দেয় তাহলে বুঝতে পারবেন। আমার স্ত্রী কলেজে পড়ে। একদিন ১০ টা মাত্র টাকার জন্য আমার স্ত্রী কলেজে যেতে পারেনি।
সংগ্রামঃ
লোকলজ্জার ভয় ফেলে আমার এক ছোট ভাইয়ের কোচিং এ আবার পড়ানো শুরু করলাম। এত হতাশার মাঝেও আমি কিন্তু হাল ছারিনি। একদিন এক ভাইয়ের কাছে থেকে টেক-ইনফো বিডি নামের একটা ওয়েব সাইটের কথা শুনলাম। সেখান থেকে পেলাম টেকটিউনসের সন্ধান। এখানে এসে আমার উপলব্ধি হল যে আমি একজন মূর্খ। আমি আসলে কিছুই জানি না। তারপর বিভিন্ন ব্লগ পড়ে, গুগলে খুঁজে অনেক কিছু শিখতে লাগলাম। কিন্তু শিখতে গেলে তো মডেমে টাকা তুলতে হবে। সেই টাকা যোগাড় করাও আমার কাছে ছিলো কষ্টসাধ্য। এরপর ক্যাপচা২ক্যাশ নামক একটা ওয়েব সাইটে ক্যাপচা এন্ট্রির কাজ শুরু করলাম। ১০০০ ক্যাপচার জন্য $১। কিন্তু আসলে তারা ২০০০ ক্যাপচা এন্ট্রি করলে $১ দিত যা করতে আমার প্রায় ৬-৭ ঘণ্টা সময় লাগত। ও হ্যাঁ এর মধ্যে ওডেস্কে একটা অ্যাকাউন্টও করেছিলাম। কিন্তু প্রোফাইলটা ছিল হ-য-ব-র-ল। পরে টেকটিউনসে বিভিন্ন লেখা পড়ে আমার প্রোফাইলটাকে মোটামোটি একটা লুক দিলাম। শুরু করলাম বিড আর বিড। এক সময় বিড করতে করতে যখন আমার পীঠ বাঁকা হয়ে যাওয়ার উপক্রম হল তখন আশা ছেড়ে দিয়ে ভাবলাম ব্লগিং শুরু করব। অন্তত বিড করার ঝামেলা নাই।
ঠিক তখনি আমার পরিচিত এক ছোট ভাই(ওডেস্কে আমার সিনিয়র) একটা মারাত্মক সাজেশন দিল। ও আমাকে বলেছিল ভাই জীবনে যাই করেন, সেইটা প্রফেশনাল ভাবে করেন। ব্যাস! এই একটা কথায় আমাকে বদলে দিল। এরপর শুধু একটা কথায় মাথায় রেখেছি। ফ্রিল্যান্সিংই হবে আমার ক্যারিয়ার। যে করেই হোক আমি একদিন সফল হবই ইনশাল্লাহ।
সফলতার শুরু যেখানেঃ
আমি আমার প্রোফাইলটা আরেকটু ঘষামাজা করে আবার নতুন টেকনিকে বিড করা শুরু করলাম। আল্লাহর রহমতে এক সপ্তাহের মধ্যেই আমার প্রথম কাজটা পেয়ে গেলাম।
কাজটা হল eBay Australia এর প্রোডাক্ট অ্যানালাইসিস এবং রিসার্চ করা। প্রথম ২ দিন কাজটা বুঝতে পারিনি। তাছাড়া প্রথম কাজ বলে আমি একটু উত্তেজিতও ছিলাম। কিন্তু আমার ভাগ্য ভাল ছিল। কারন আমার বায়ার অসাধারন ভাল ছিল। সে আমাকে কাজের সব কিছুই ২-৩ বার ভাল করে বুঝিয়ে দিল। এবং আমি কাজটা করতে সমর্থ হলাম। সে ৪ জনকে হায়ার করেছিল। তার মধ্যে আমিই সবচাইতে বেশী কাজ করি। কাজটা ছিল $১/ঘণ্টা। আমি ৭০ ঘন্টা কাজ করেছিলাম। বায়ার আমার কাজে খুশি হয়ে আমাকে ৫ * ফিডব্যাক দিল এবং খুব ভাল একটা কমেন্ট করল।
এবার ভাবলাম আরতো চিন্তা নাই। আমার আর কাজের অভাব হবেনা। কিন্তু না অভিজ্ঞতা কম বলে পরবর্তী ২ মাসে আর কাজ পেলাম না ওডেস্কে। এদিকে fiverr.com একটা অ্যাকাউন্ট করে কয়েক দিনের মধ্যে ১০ টা কাজ পেলাম। এরপর ওডেস্কে আবার শুরু করলাম তুমুল প্রফেশনালভাবে। এইবার শুধু কাজ করা নয়, কাজ পাওয়ার এবং কাজ ধরে রাখারও কিছু টেকনিক শিখলাম।
বর্তমানঃ
এখন আল্লাহর রহমতে কাজ সব সময় থাকে। আমি মুলত ওয়েব রিসার্চ এবং ডাটা এন্ট্রির কাজ করি। মাঝে মাঝে কাজের চাপ খুব বেড়ে যায়। মাসে ২০০ ঘন্টার বেশি কাজ করিনা। কারন আমার একটা ব্লগ আছে। ওইটাতে একটু সময় দেই। কোন এস,ই,ও না করেও শুধুমাত্র কনটেন্টের জোরে সেদিনের সেই মূর্খ লোকটার ব্লগ এখন গুগলের প্রথম পাতায় ২য় অবস্থানে আছে কয়েকটা কিওয়ার্ডের জন্য।
আল্লাহর কাছে লাখো শুকরিয়া। আর আপনারা আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন।
উপসংহারঃ
আমি কোন প্রতিষ্ঠান বা বড় ভাইয়ের থেকে ট্রেনিং নিয়ে কাজ শিখিনি। যা শিখেছি তা সবই ইন্টারনেট থেকে। টেকটিউনসেরও বড় অবদান আছে এতে। ধন্যবাদ টেকটিউনস পরিবারের সকল ব্লগারদের যারা বিনা স্বার্থে মানুষের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে। বিশেষ ধন্যবাদ জানাই আমার ছোট ভাই মাহবুব আর ফিহাদকে যারা আমার বিপদে সাহায্য করেছে।
পরিশেষে একটা কথায় বলবো পরিশ্রম করুন সফলতা আসবেই। কারন আল্লাহ কেবল পরিশ্রমী ব্যাক্তিদেরই ভাগ্য পরিবর্তন করে।
উপরের এই ঘটনাটি একটি প্রযুক্তি বিষয়ক ব্লগ থেকে নেয়া।
এভাবে প্রত্যেকটা মানুষের বড় হওয়ার পেছনে থাকে এক একটা করুন আর কষ্টসাধ্য কাহিনী। কষ্ট ছাড়া কেউই বড় হতে পারে না। বড় হওয়ার জন্য দরকার কঠিন সাধনা এবং মনোবল।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

আমার একটা ব্লগ আছে, এটা মূলত ফ্রীল্যান্সিং সম্পর্কিত। এখানে আমি চেস্টা করি কিভাবে লোকদের কাছে আরও সহজে এবং স্বল্প খরচে কিভাবে ফ্রীল্যান্সিং এর দিকে এগিয়ে নেয়া যায়। অনেক চেস্টা করছি এটাকে আরও ডেভলপ করার। সবাই দোয়া করবেন। একটু সময় থাকলে ঘুরে আসবেন। আমার ব্লগ।
সবাই ভাল থাকবেন আর কেউ হতাশ হবেন না এই প্রত্যাশায় শেষ করলাম আজকের টিউন।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

6 মন্তব্য

  1. আরেকটা কথা ভুলে গিয়েছিলাম। লেখার শিরনামে “ভবঘুরে” শব্দটা ব্যবহার করেছেন। আমাকে ভবঘুরে বলার অধিকার আপনাকে কে দিয়েছে? আপনি জ্ঞানহীন হলে উত্তর দেওয়ার দরকার নাই। কারন জ্ঞানহিনের কাছে ভালো কোন উত্তর আশা করাটা অন্যায়।

  2. ভাই আমার লেখাটা পুরাটাই কপি পেস্ট মারলেন। উপরোক্ত ঘটনাটা এবং লেখাটা কিন্তু আমার। আমি লেখাটি 8 April, 2013 on 10:42 pm এ টেকটিউনসে লিখি।এইটা দেখেন http://www.techtunes.com.bd/freelancing/tune-id/199863 । ৫-৬ ঘন্টা লেগেছিল লিখতে। আর আপনি কপি পেস্ট করার আগে আমার ছোট একটা অনুমতি নেওয়ারও প্রয়োজন মনে করলেন না। খুব ভালতো আমার লেখা কপি পেস্ট করে আপনি দেখি অনেকের প্রিয় টিউনার হয়ে গেছেন। আপনি মূল লেখাটির সোর্স এবং মুল লেখকের নাম উল্লেখ করেন নি। শুধু লিখছেন “এই ঘটনাটি একটি প্রযুক্তি বিষয়ক ব্লগ থেকে নেয়া।”

    আমার লেখা দিয়েতো নিজের ব্লগের অ্যাডভারটাইজটা ঠিকি মারছেন।আপনিতো অনেক বড় ব্লগার হয়ে গেলেন। আপনার উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম। আশাকরি উত্তর দিবেন।

  3. eBay Australia এর প্রোডাক্ট অ্যানালাইসিস এবং রিসার্চ।
    আমাকে একটু বলবেন প্রোডাক্ট অ্যানালাইসিস এবং রিসার্চ বলতে কি বোঝানো হয়েছে। জানালে উপকৃত হতাম

  4. দারুন পোস্ট হয়েছে এটি, লিখা গুলো আরো সাজিয়ে গুছিয়ে ডিজাইন করে পোস্ট করুন তাহলে সবার প্রিয় ব্লগার হতে পারবেন। ধন্যবাদ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

8 − 5 =