শূন্যে ভালোবাসা ১ (সায়েন্স ফিকশন)

3
674

চ্যাট করতে করতে আনন্দে উল্লসিত হয়ে উঠল তানাফ। আজ ১২ মে ২১২১, তানাফের জন্মদিন। তানাফ থাকে প্রথম বিশ্বের বাংলাদেশের ডিকে শহরে। প্রথম বিশ্বের দেশ বলতে কয়েকটি দেশকে বুঝায়। এর মধ্যে একটির নাম বাংলাদেশ। ২০৫৭ সালে তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধ দরুন বড় বড় রাষ্ট্র যেমন আমেরিকা, ইউরোপ, ভারত, চীন ও রাশিয়ায় ভয়াবহ বিপর্যয় নেমে আসে। কয়েকটি দেশ বাদে প্রায় সব দেশ এ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। পারমানবিক বোমার আক্রমনে প্রায় সকল দেশের অর্থনীতি, রাজনীতি, তথ্য ও প্রযুক্তিগত বিপর্যয় নেমে আসে। বেঁচে থাকে বাংলাদেশ আর কিছু দেশ। পরবর্তীতে বাংলাদেশের তরুন বিজ্ঞানীদের প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ গত ৬০ বছরে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করে প্রথম বিশ্বের দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। প্রথম বিশ্বের সবার একটি আইডি আছে। সেই আইডি হল একটি চশমা। সাধারণত বাসা ছাড়া সবসময় সবাই এই চশমা ব্যবহার করে। আবার চশমার মাধ্যমে সবাই মোবাইল বা ইন্টারনেট এর কাজগুলোও করে থাকে।

11 শূন্যে ভালোবাসা ১ (সায়েন্স ফিকশন)

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting


রিন বাসায় সারাদিন থাকতে থাকতে বিরক্ত। তাই ইদানিং সে অনলাইনে চ্যাট করে। রিন থাকে মঙ্গল গ্রহে। ২০৫৭ সালে পৃথিবীতে যুদ্ধ শুরু হয় তখন রোবট সম্প্রদায়ের সবাই নিজেদের বাঁচিয়ে রাখার তাগিদে পৃথিবী ছেড়ে মঙ্গলে চলে আসে। রিন তাদেরই একজন। এখন মঙ্গলে তাদের নিজস্ব দেশ, শহর সব আছে। পৃথিবীর তেল সম্পদ শেষ হবার ফলে সেই সময় এমন প্রযুক্তির রোবট তৈরি করে যাতে তারা মানুষের মত খাবার থেকে শক্তি সংগ্রহ করতে পারে। তাই মঙ্গলে আসার সাথে সাথে রোবট সম্প্রদায় এখানে খাবার উৎপাদন শুরু করে। তারাও মানুষের মত খাবার খায়।

রিনের সাথে তানাফের পরিচয় অনলাইনে। আজকে রিন তাকে দেখা করার জন্য বলেছে। আজকাল রোবট সম্প্রদায়ের সাথে মানুষের সম্পর্ক নতুন কিছু নয়। তবে তারা কেউ কারো গ্রহে যাবার অনুমতি পায়না। মহাশূন্যে একটা রেস্তোরা আছে সেখানে তারা দেখা করে, গল্প করে আবার যে যার গ্রহে ফিরে যায়। রিনও তানাফের সাথে সেখানে দেখা করবে।

৩.
এর আগে কখনও তানাফ মহাশূন্যে রেস্তোরায় যায়নি। তাই একটু ভয়, রিনের সাথে দেখা করার উত্তেজনা কাজ করছে। ম্যানগো ৭৭৫৪ চড়ে সে মহাশূন্যে রওনা হল। মাত্র কয়েক ঘণ্টায় সে মহাশূন্যে পৌছুলো। রিনকে চিনতে তার কষ্ট হলনা। কারন এর আগে ইন্টারনেটে সে অনেক ছবি দেখেছে। মায়াবী চোখে রিন তার দিকে তাকিয়ে আছে, দেখতে সম্পূর্ণ মানুষের মত হাত পা, কান সব আছে। কে বলবে এই মেয়েটি একটি রোবট? তুমি তানাফ, কনকনে শব্দে রিন তানাফকে জিজ্ঞাসা করল।

হ্যাঁ রিন, আমি তানাফ।
অভিনন্দন তোমাকে আমার সাথে দেখা করার জন্য।
তোমাকেও অভিনন্দন
আমার সাথে প্রেম করতে চাও
হ্যাঁ।
আমাকে প্রস্তাব দাও।
আচ্ছা আগে আমরা কিছু খাই, তারপর।
কারো সাথে প্রেম করার আগে অপরিচিত কারো সাথে খাওয়া আমাদের নিষেধ।
আচ্ছা আমি তোমাকে প্রেম প্রস্তাব দিলাম।
প্রস্তাব গ্রহণ হল।
বল কি খাবে।
সুস্কা খাবো

সুস্কা খেতে খেতে তাদের অনেকক্ষণ কথা হল, গল্প করল। বিদায়ের বেলায় হটাৎ হোঁচট খেয়ে রিন পড়ে গেলো। পড়ে যাবার সাথে সাথে রিনের ঠোঁট বেয়ে রক্ত পড়তে শুরু করল। তানাফ তাড়াতাড়ি টিস্যু দিয়ে রক্ত মুছে দিল।


বাংলাদেশের বিজ্ঞানী মহলে খুব তোলপাড় চলছে। রিন নামে একটি রোবটের শরীর হতে রক্ত বের হয়েছে। তাই পৃথিবীতে রিনের আসার অধিকার না থাকলেও তাকে পরীক্ষার জন্য নিয়ে আসা হয়েছে। রিনকে অনেক পরীক্ষার পর বিজ্ঞানীরা এই সিদ্ধান্ত নেন রিন কোন রোবট নয়।

(চলবে)

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

3 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

seven + four =