অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি মঙ্গলে গ্রহে মনুষ্য বসতি: মিশন ২০২৩!

1
568

বিজ্ঞানভিত্তিক কল্পকাহিনীগুলোতে তো হরহামেশাই মানুষ এক গ্রহ থেকে অন্য গ্রহে যাতায়াত করে, আবার স্টিভেন স্পিলবার্গের চলচ্চিত্রে নতুন গ্রহে মনুষ্য বসতি স্থাপন করার গল্প দেখে চোখ বড় বড় হয়ে যায় আমাদের সবারই। পৃথিবীর বাইরে আমাদের সৌরজগত এর অন্যান্য গ্রহ নিয়ে আমাদের আজন্ম আগ্রহ। এমন কেউ নেই যার জীবনের কিছুটা সময় আকাশের দিকে তাকিয়ে তারা দেখে কাটেনি। কল্পনার পাখা মেলে আমরা ওই অসীম শূন্যতার দিকে তাকিয়ে কতো জিনিস নিয়ে ভাবতে পছন্দ করি। চাঁদের বুকে মানুষের প্রথম পদচিহ্ন এঁকে দেয়ার পর থেকেই জল্পনাকল্পনার শুরু, আবার কবে যাচ্ছে মানুষ নতুন আরেকটি গ্রহে। সায়েন্স-ফিকশন এর পাতা থেকে উঠে এসে কবে সত্যি হচ্ছে অন্য গ্রহে মনুষ্য বসতি স্থাপনের চিন্তা। মানুষ কবে শুরু করবে আন্তঃগ্রহ সমাজ ব্যবস্থা কিংবা কবে আমরা এই ঘুরে আসি বলে টুক করে প্যারিস ঘোরার বদলে চলে যাবো মঙ্গলে!!

তবে মনে হচ্ছে অপেক্ষার দিন ফুরোলো। হ্যাঁ, এরকমই আভাস দিয়েছেন “মার্স-ওয়ান” এর হর্তাকর্তারা। অন্য গ্রহে মানুষ পাঠিয়েই ক্ষান্ত দিতে চাইছেন না তারা, সরাসরি প্রস্তাব করেছেন বসতি স্থাপনের!! নাম দেখে এতক্ষণে নিঃশ্চয়ই ধারণা হয়ে গেছে তাদের গন্তব্যস্থল সম্পর্কে। হ্যাঁ, আমাদের পৃথিবীর মানুষের সাধের “লাল গ্রহে” প্রথম মনুষ্য বসতি স্থাপনের বিশাল দক্ষযজ্ঞে হাত দিয়েছেন তারা। শুধু হাত দেয়া বললে ভুল হবে, গোপনে গোপনে অনেক দূর এগিয়েও গিয়েছেন। এবার মনে হয় মঙ্গল গ্রহে মানুষের পা পড়লো বলে!!

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

mars-one অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি মঙ্গলে গ্রহে মনুষ্য বসতি: মিশন ২০২৩!

[“মার্স-ওয়ান”]

কল্পবিজ্ঞানের এই স্বপ্নকে সত্যি করতে এগিয়ে এসেছেন ডাচ উদ্যোক্তা ল্যান্সডরপ। এই উচ্চাভিলাষী উদ্যোক্তার সাথে যোগ দিয়েছেন আরও কয়েকজন স্বপ্নবাজ মানুষ। যাদের নিয়ে “টিম মার্স-ওয়ান” । এরা প্রত্যেকেই স্ব স্ব ক্ষেত্রে সফল। এদের সাথে যোগ দিয়েছেন ১৯৯৯ সালের নোবেল বিজয়ী পদার্থবিদ প্রফেসর জেরার্ড। এরা সবাই মিলে হাতে নিয়েছেন ৬ বিলিয়ন ইউএস ডলার বাজেটের একটি আকাশছোঁয়া (মঙ্গলছোঁয়া !!) স্বপ্ন। তাদের লক্ষ্য ২০২৩ সালে মঙ্গলের লাল মাটিতে মানুষ পাঠানো।

তবে এর আগেও যে এধরনের প্রস্তাব করা হয়নি তা নয়। ২০০৮ সালে নাসার প্রকৌশলী ম্যাকলেন এরকমই একটি উদ্যোগের কথা জানান। তবে তিনি চেয়েছিলেন শুধু একজন মানুষকে মঙ্গলে পাঠাতে। তার এই মিশন নিয়ে অনেক আলোচনা হলেও পরবর্তিতে বিভিন্ন প্রতিকূলতার কথা চিন্তা করে এটি বাতিল করা হয়। ম্যাকলেনের এই অসম্পূর্ণ স্বপ্নকেই যেনো বাস্তবে রূপ দিতে নেমেছেন “মার্স-ওয়ান” এর সদস্যরা।

এরই মাঝে, ২০১১ সালে থেকে শুরু হওয়া এই গোপন প্রজেক্টে অনেকটা দূর অগ্রসর হয়েছেন তারা। যোগাযোগ করেছেন বেশ কয়েকটি বেসরকারী সংস্থার সাথে। তাদের সাথে ইতিমধ্যে চুক্তি হয়ে গেছে প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহের। তারা বলছেন, কোনো নতুন প্রযুক্তির প্রয়োজন পড়বেনা এই মিশনে। বর্তমানের প্রচলিত মহাকাশ অভিযানের বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করেই এই কাজ সম্পন্ন করতে বদ্ধপরিকর তাদের সংস্থা “মার্স-ওয়ান”। আর এই বিশাল বাজেটের কাজটির জন্য অর্থ যোগানের এক দারুন পদ্ধতিও হাতে আছে তাদের। এই মঙ্গল অভিযানের জন্য অভিযাত্রী বাছাই হতে শুরু করে শেষপর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়াটি “রিয়ালিটি শো” এর মাধ্যমে উপস্থাপন করবেন তারা। আর পুরো ১০ বছরের এই টিভিশো তে মঙ্গল অভিযানের শ্বাসরুদ্ধকর সব খুঁটিনাটি দর্শক ঘরে বসেই উপভোগ করতে পারবেন আর তার সাথে সাথে বিপণনস্বত্ব থেকে প্রজেক্টের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থও উঠে আসবে আরামসে। তাই বলতে গেলে পৃথিবীর সব থেকে উত্তেজনাকর টিভি রিয়ালিটি শো এর শুরু হলো বলে!! একই সাথে দুইটি পাহাড় সমান মিশন হাতে নিয়ে এরই মাঝে প্রচার মাধ্যমে বেশ সারা ফেলে দিয়েছে “মার্স-ওয়ান”। রিয়ালিটি শো এর দুনিয়াতে এবার বাকিদের অবস্থা দেখার বিষয় হয়ে দাড়াবে বৈকি।

mars_on_lander_580x343 অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি মঙ্গলে গ্রহে মনুষ্য বসতি: মিশন ২০২৩!

[অবতরন দৃশ্য]

তবে গ্রহ থেকে গ্রহান্তরে অভিযানের বিষয়টি কখনই সহজ ছিলোনা। এখনো নেই। বরং বেশ কিছু প্রতিকূলতার সম্মুখে দাড়িয়ে আছে এটি। এর মাঝে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ হলো, মনুষ্যবাহী মহাকাশযান কিভাবে মঙ্গলের হালকা ঘনত্বের বায়ুমন্ডলে প্রবেশ করবে এবং একই সাথে কি করে মাটিতে অবতরণ করবে, এই বিষয়ে কোনো সমাধান এখনো আলোর মুখ দেখেনি। নয়তো এতদিনে হয়তো আরও অনেকেই আগ্রহ দেখাতো এই বিষয়ে, তাই দেখা যাচ্ছে গোড়াতেই আটকে যাওয়ার অবস্থা। মহাকাশযান অবতরন নিয়ে এত ঝামেলার কারণগুলো একটু দেখা যাক।

মঙ্গলের বায়ুমন্ডলের ঘনত্ব আমাদের পৃথিবী থেকে অনেক কম। তাই কোনো মহাকাশযান পৃথিবীতে ফেরত আসার সময় যেমন করে বায়ুমন্ডলের ঘনত্বের কারণে স্বাভাবিকভাবেই তার গতিরোধ হয় এবং পরবর্তিতে প্যারাসুট এর সাহায্যে কিংবা রকেট প্রপালশন এর সাহায্যে মাটিতে নেমে আসে, সেরকম করে সম্ভব নয়। বরং তীব্র গতির এই মহাকাশযান যখন মঙ্গলে অবতরণ করতে যাবে তা অন্তত ১০ গুন বেশি গতিতে মাটিতে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা আছে। এই বিষয়টি নিয়ে ২০০৪ সালে নাসা কর্তৃক আয়োজিত সভাতে বেশ গুরুগম্ভীর আলোচনা হয়। কিন্তু প্রস্তাবিত সব কয়টি পদ্ধতিরই কোনোনা কোনো সমস্যা থেকে যায়।

যদি অবতরণের জন্য এয়ারব্যাগ ব্যবহার করা হয় যা কিনা মহাকাশযানটিকে একটি আপাত ভারসাম্যপূর্ণ এবং সংরক্ষিত অবস্থানে নামিয়ে আনবে তাতেও সমস্যা দেখা দেয়। প্রথমত মানুষ বহনকারী যানের ওজন অনেক বেশি হবে এবং এতটা ওজনের মহাকাশযান এরকম তীব্র গতিতে যখন অবতরন করবে, মঙ্গলের বায়ুমন্ডলের কম ঘনত্বের জন্য কোনো এয়ারব্যাগই এর পতন রোধ করতে সক্ষম হবেনা। এছাড়াও যখন মানুষকে বাসস্থান তৈরির উপযোগী সব কিছু বহন করে নিয়ে যেতে হবে তখন সেই মহাকাশযানের ওজন কোনভাবেই ১০ মেট্রিক টনের কম হবেনা যা এয়ারব্যাগ দিয়ে অবতরণের জন্য অকল্পনীয় একটি ওজন। পূর্বে যেসব মিশনে রোবট পাঠানো হয়েছিল তার মাঝেও প্রায় ৬০ ভাগ ব্যর্থ হয় শুধু মাত্র এই অবতরণজনিত সমস্যার জন্য।সেখানে মহাকাশযান কিংবা রোভারের ওজন ছিলো এর তুলনায় অনেক কম।

এছাড়াও প্যারাসুট ব্যবহার করার পদ্ধতি নিয়েও আলোচনা হয়। কিন্তু এখানেও সমস্যা, একে মঙ্গলের বায়ুমন্ডল যথেষ্ঠ কম ঘনত্বের। এর উপরে নামার সময় হঠাৎ বাতাসে জায়গা পরিবর্তন হয়ে যাওয়া অসম্ভব কিছু নয়। এতে অবতরণের জায়গা ছেড়ে অন্য জায়গায় নামলে পুরো যানটি আবার আসল জায়গায় নিয়ে যাওয়ার ঝামেলা। আর তাতে যা জ্বালানি খরচ হবে তা চন্দ্রাভিযানের কয়েকগুন বেশি। আর এই ভারী জ্বালানি পৃথিবী থেকে মঙ্গল পর্যন্ত বহন করে নিয়ে যাওয়া কোনো ভাবেই সমাধান হতে পারেনা। এছাড়াও এই বিশাল ওজনের যানটি মাটিতে অবতরণের আগে ঠিক কয়েক মিনিট সময় পাবে প্যারাসুট খোলার। তাতে যে পরিমান চাপ আসবে প্যারাসুটের উপর তাতে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা অনেক। এছাড়াও সঠিকভাবে যদি অবতরন করতে হয় তাহলে অন্তত ১০০ মিটার পরিধির সুপারসনিক প্যারাসুট প্রয়োজন, যা কিনা সঠিক ভাবে খুলে কাজে লাগতে লাগতে মাটিতে আছড়ে পড়বে অভিযাত্রীরা।

হিট শিল্ড এবং থ্রাস্টার ব্যবহার করে অবতরণের কথা চিন্তা করা হয়েছে। কিন্তু রকেট প্রপালশন একটি অতি বিপদজনক পদ্ধতি। এই অস্থিতিশীল পদ্ধতিতে নামার জন্য বিপুল পরিমানের জ্বালানি প্রয়োজন এবং তাও প্রচন্ড তাপ ও গতিতে নির্গত হবে মহাকাশযান থেকে। এই পদ্ধতিতে যেকোনো মুহুর্তে এরকম ভারী মহাকাশযানের দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা শতভাগ। এছাড়াও প্রপালশন এর জন্য যে পরিমান প্রচন্ড চাপ ও ঝাকুনি সৃষ্টি হবে তাতে যানটি নামার আগেই ধ্বংসপ্রাপ্ত হবার সম্ভাবনা শতকরা ৯৯ ভাগ। কিন্তু যদি প্যারাসুট, হিট শিল্ড এবং থ্রাস্টার ব্যবহার করা হয় তাহলে একটা সম্ভাবনা দেখা দেয়। কিন্তু আবার ওই প্যারাসুট ঠিকমত কার্যকর হওয়া নিয়ে সমস্যা এতে লাঘব হয়না।

পরবর্তিতে সুপারসনিক ডিএক্সিলারেটর কিংবা স্পেস এলেভেটর ব্যবহারের উপর জোর দেয়া হয়।কিন্তু স্পেস এলেভেটর এখনো একটি পরীক্ষাধীন প্রক্রিয়া। তাই এর কার্যকারিতা নিয়ে এখনো কিছু বলা সম্ভব হচ্ছেনা। তাই নাসার বিজ্ঞানীদের কাছে অন্তত এই অভিযান এখনো সুদূর ভবিষ্যত। এছাড়াও তাদের মাথাব্যথার আরেকটি কারণ হচ্ছে এর উচ্চ বাজেট। একটি প্রজেক্টেই ৬ বিলিয়ন ডলার দেয়ার মতো বাজেট নাসার কাছে নেই যখন এই প্রজেক্টের ফলাফল সম্পূর্ণ অনিঃশ্চিত।

কিন্তু তাই বলে থেমে নেই মার্স ওয়ানের সদস্যরা। তারা ইতোমধ্যে একটি রোড ম্যাপ দিয়ে দিয়েছেন। ২০১১ সালের মাঝেই তারা এই অভিযানের জন্য সকল প্রাথমিক প্রস্তুতি এবং ড্রয়িং চূড়ান্ত করেন। এরপরেই তারা বসেন পৃথিবীর বেসরকারী সব প্রতিষ্ঠানের সাথে যারা মহাকাশ অভিযানের জন্য উপাদান তৈরী ও সরবরাহ করতে প্রস্তুত। ২০১৪ সালে তাদের কাজ শুরু হবে যেসব উপাদান এই মিশনে পাঠানো হবে তাদের প্রস্তুতি নিয়ে। ২০১৬ সালে প্রথম সরবরাহ যানটি ২৫০০ কে.জি সামগ্রী নিয়ে মঙ্গলের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে এবং সব কিছু ঠিক থাক থাকলে পূর্বনির্ধারিত জায়গার আশেপাশেই অবতরণ করবে। ২০১৮ তে একটি রোবট পাঠানো হবে মঙ্গলের মাটিতে মানুষ অবতরণের জন্য গ্রহনযোগ্য একটি স্থান খুঁজে বের করার জন্য। এই কাজটি পৃথিবীর মানুষ সরাসরি সম্প্রচারের মাধ্যমে দেখতে পাবে ঘরে বসে। ২০২১ সালে মনুষ্য বসতি স্থাপনের উপযুক্ত সকল সামগ্রী নিয়ে কয়েকটি যান এবং রোভার মঙ্গলে অবতরণ করবে এবং অভিযাত্রীদের জন্য অপেক্ষা করবে তাদের জন্য নির্ধারিত অবতরনস্থলে। ২০২২ সালের মাঝামাঝি সময়ে অভিযাত্রীদের জন্য প্রয়োজনীয় সকল কিছুর প্রস্তুতি সম্পন্ন হবে। সবকিছু ঠিকঠাক ভাবে সম্পন্ন হলে ১৪ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ হতে যাচ্ছে মানুষের সভ্যতার ইতিহাসে একটি অবিস্মরণীয় দিন। এইদিনই মঙ্গলের উদ্দেশ্যে পৃথিবী ছেড়ে যাবে চার জন অভিযাত্রীর একটি দল। দীর্ঘ সাত মাসের যাত্রা শেষে ২০২৩ সালে প্রথম মঙ্গলের মাটিতে পা পড়বে পৃথিবীর মানুষের প্রথম দলটির। এরপর ২০২৫ সালে পাঠানো হবে দ্বিতীয় দল। আর হ্যাঁ, ২০১৩ সাল থেকে শুরু হতে যাচ্ছে এই রোমাঞ্চকর অভিযানের জন্য অভিযাত্রী বাছাই এর কাজ। প্রথম ৪০ জন অভিযাত্রী সারা পৃথিবী থেকে খুঁজে নেয়া হবে এরপর এদের নিয়ে শুরু হবে দীর্ঘ ১০ বছরের কার্যক্রম। এই ১০ বছরে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা উতরে পৃথিবীর কয়েক কোটি উত্সুক দর্শকের সামনে শেষ পর্যন্ত থাকবে ৪ জন অভিযাত্রী। যারা ইতিহাসে প্রথমবারের মতো পৃথিবীর বাইরে অন্য কোনো গ্রহে মনুষ্য বসতি স্থাপনের মতো একটি অসাধারণ মিশন সফল করতে যাত্রা করবে। এই মিশন সম্পর্কে সকল খুঁটিনাটি বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে এখানে।

mars-one1 অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি মঙ্গলে গ্রহে মনুষ্য বসতি: মিশন ২০২৩!

[মানুষের প্রথম মঙ্গল বসতি হবে কিছুটা এরকম]

এই মিশনে মহাকাশযান উৎক্ষেপনের জন্য মার্স ওয়ান ব্যবহার করছে স্পেস এক্স ফ্যালকন ৯ এবং অবতরণের জন্য ব্যবহার করছে স্পেস এক্স ড্রাগন। যদি অবতরণজনিত সব সমস্যা সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভবপর হয় তাহলে আর মাত্র ১১ বছর পরেই মঙ্গল জয় করতে যাচ্ছে মানুষ। হয়তো সেই দিনটি সচক্ষে দেখার জন্য আমরা অনেকেই বসে থাকবো টিভি সেটের সামনে।

20080111_sunsetmoonrise অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি মঙ্গলে গ্রহে মনুষ্য বসতি: মিশন ২০২৩!

[স্পেস এক্স ফ্যালকন ৯]

SpaceX_Dragon অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি মঙ্গলে গ্রহে মনুষ্য বসতি: মিশন ২০২৩!

[স্পেস এক্স ড্রাগন]

আসলেই কি তাহলে কল্পবিজ্ঞানের সেই বহুবার পড়া গল্পগুলো সত্যি হতে চলেছে অদূর ভবিষ্যতে? মানুষ কি তাহলে পৃথিবীর পরে তাদের দ্বিতীয় কলোনি স্থাপন করবে মঙ্গলে? একসময় কি মানুষ বেড়িয়ে আসার নাম করে ঘুরে বেড়াবে গ্রহ-গ্রহান্তরে? নাকি শুধুই আর একটি কর্পোরেট পলিসির বাস্তবায়ন দেখতে চলেছি আমরা? এই সকল প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য আপাতত অপেক্ষা করতে হচ্ছে ২০২৩ সাল পর্যন্ত!

তাহলে আর দেরি কি? অভিযাত্রী বাছাইয়ে নাম লেখানোর প্রস্তুতি শুরু করে দিক আগ্রহীরা। হয়তো আমাদের মাঝেই কেউ একজন প্রথমবারের মতো পা রাখবে মঙ্গলের লালচে রুক্ষ মাটিতে। তবে ব্যাগ গুছিয়ে দৌড় দেয়ার আগে আসল কথা বলতে ভুলেই গেছি, এই মিশনের আর একটি নাম হচ্ছে “ওয়ান ওয়ে ট্রিপ টু মার্স”। কারণ যারা পৃথিবী ছেড়ে মঙ্গলে যাচ্ছে তাদের কেউই আর পৃথিবী ফেরত আসছেনা। তাদেরকে থেকে যেতে হবে ওই দুরের লালচে গ্রহটাতে মানব সভ্যতার পতাকা হাতে নিয়ে!!

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

fourteen − 9 =