আপনার হৃদয় অজান্তে বলে উঠবে যে, এই কিতাব…এই কুরআন… কোন মানুষের বাণী নয় বরং ইহা রহমান, রহিম, এই দুনিয়ার মালিকের বাণী। চ্যালেঞ্জ…

12
1712

মূল বর্ণনায় যাওয়ার আগে কিছু কথা বলে নেই, আমি বাংলা, আরবি ভাল ভাবে টাইপ করেতে পারি না তারপরও অনেক কষ্ট করে টাইপ করেছি। হয় তো আমার অনেক কষ্টে করা এই পোস্টি অনেকেই সম্পূর্ণ পড়বেন না, এতে আমার কোন দুঃখ নেই কিন্তু অনুগ্রহ করে like, comment, প্রিয়তে এবং আপনার বন্ধু কে জানাতে ভুল করবেন না। কারণ এই পোস্টি ১-২ দিনের মধ্যেই হারিয়ে যাবে। আর আপনি যদি like, comment, প্রিয়তে এবং বন্ধু কে জানান তাহলে এই পোস্টি আবার পুনরায় হট টিউনে ফিরে আসবে, আবার অনেক পাঠকের পড়ার সুযোগ হবে। আর সত্যি যদি আপনি কষ্ট করে সম্পূর্ণ পোস্টি পড়েন, আর যদি ভাল লাগে অবশ্যই আমাকে জানাবেন my Facebook ID here. কোথাও কোন ভুল থাকলে আমাকে জানাবেন। আল্লাহ সবাই কে বুঝার তাওফিক দান করুক আমীন।

আল কুরআন এবং ১৯ এর প্রকৌশল

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

বিজ্ঞান, গণিত, কম্পিউটার এর সাক্ষ্য দ্বারা আল কুরআন আল্লাহর বাণী হওয়ার প্রমান দেয়া হয়েছে।এছাড়াও আল কুরআনের সাথে ১৯ এর প্রকৌশল বড়ই সৌন্দর্যের সাথে উপস্থাপন করা হয়েছে।

আপনার হৃদয় অজান্তে বলে উঠবে যে, এই কিতাব…এই কুরআন… কোন মানুষের বাণী নয় বরং ইহা রহমান, রহিম, এই দুনিয়ার মালিকের বাণী। চ্যালেঞ্জ…

     আল-কুরআন : ইতিহাস সাক্ষী যে, যখন কোন  পয়গম্বর এসে আল্লাহ পাকের বাণী দুনিয়াবাসীকে দেন তখন তারা সর্বদাই তাঁদের নিকট এ বাণীর সত্যতার জন্য প্রমান দাবী করেছে। এরূপে যখন আখেরী পয়গাম্বর হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা (সাঃ) এলেন এবং হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) আল্লাহর একত্ববাদ এবং স্বীয় রিসালাত এর ঘোষণা দেন তখন লোকেরা ঐ ভাবে প্রমান চাওয়া আরম্ভ করল যেমন ভাবে আগেকার লোকেরা করেছিল। তাদের দাবি আল-কুরআনে এভাবে বর্ণনা করা হয়েছে-

`এবং কফেররা বলল –  কেন তাঁর ওপর তাঁর রবের পক্ষ থেকে নিদর্শন নাযিল হয় না ?’ (আনকাবুত:৫০)

এসকল লোকেরা রাসূল (সাঃ)- এর নিকট বলল যে,, আপনি আসমান পর্যন্ত সিঁড়ি লাগান এবং আমাদের সামনে এর উপরে আরোহন করে আল্লাহ তায়ালার নিদর্শন নিয়ে আসুন তখন আমরা ঈমান আনব। এ সময় আল্লাহ রাব্বুল আলামীন রাসূল (সাঃ)-কে নির্দেশ দিলেন-

`আপনি বলে দিন যে, নিদর্শন তো আল্লাহর কাছেই, আমি তো শুধুমাত্র একজন ভয় প্রদর্শনকারী মাত্র।’ (আনকাবুত:৫০)

আল কুরআন কাফিরদের প্রকৃতির বাইরে নিদর্শন দাবির প্রেক্ষিতে জবাব দিয়েছেন।”

`ঐ লোকদের জন্য এই নিদর্শন কি যথেষ্ঠ নয় যে, আমরা আপনার ওপর কিতাব নাযিল করি যা তাদের সামনে পাঠ করা হয়, নিশ্চয়ই এর মধ্যে রহমত, উপদেশ রয়েছে ঈমানদার সম্প্রদায়ের জন্য।’ (আনকাবুত:৫১)

আল্লাহর বাণী: পবিত্র আল কুরআন স্বয়ং আল্লাহর বাণী হওয়ার ব্যাপারে দুটি প্রমান উপস্থাপন করা হল :-

১. রাসূল (সাঃ) প্রচলিত নিয়মানুযায়ী নিরক্ষর ছিলেন। রাসূল (সাঃ) পৃথিবীর কারো কাছে থেকে পড়া শিখেন নি। কোথাও কোন বিদ্যালয়ে শিক্ষাগ্রহণ করেন নি। ( এটা ঐতিহাসিক সত্য ) এজন্য এ মহান কিতাব রাসূল (সাঃ)-এর তৈরী করা সম্ভবই নয়। এভাবে আল কুরআন সাক্ষ্য প্রদান করে।

`আপনি তো  এর পূর্বে কিতাব পড়েন নি, আর আপনি আপনার ডান হাত দ্বারা লিখেনও নি, অথচ বাতিলপন্থীরা সন্দেহ পোষণ করে।’ (আনকাবুত:৪৮)

যদি রাসূল (সাঃ) প্রচলিত ধারায় লেখা-পড়া জানতেন, তা হলে এ রকম সন্দেহের কোন অবকাশ থাকত যে, নবী পাক (সাঃ) ইহুদী খৃষ্টানদের কিতাব পড়ে সুন্দর করে মিষ্টি ভাষায় কুরআন রচনা করেছেন। অথচ আল কুরআন এবং ইতিহাস এ ধরনের সন্দেহের কোন অবকাশ রাখে নি।

২. আল কুরআন স্বয়ং এ কথার প্রমান যে, ইহা আল্লাহর কালাম। ইহা কাফিরদের চ্যালেঞ্জ করে যে, তোমরা পূর্ণ কুরআন মাজীদ, কিংবা কমপক্ষে এর একটি সূরা তৈরী করে নিয়ে আস। যদি একটি সূরা না পার তাহলে আল কুরআনের অনুরূপ একটি আয়াত বানিয়ে নিয়ে আস। কিন্তু তোমরা সারা পৃথিবীর লোক মিলেও আল কুরআনের মত করে একটি আয়াতও বানাতে পারবে না। কেননা ইহা আল্লাহর কালাম এবং তোমার স্রষ্টার মত কালাম আনতে পারবে না। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ঘোষণা করেছেন-

`এবং যদি তোমরা ( হে কাফিরগণ ) সন্দেহের মধ্যে নিপতিত থাক, আমি আমার বান্দার ওপর যা নাযিল করেছি সে ব্যাপারে, তাহলে তোমরা অনুরূপ একটি সূরা নিয়ে আস এবং তোমাদের সাহায্যকারীদের ডাক, আল্লাহকে ছাড়া, যদি তোমরা সত্যবাদী হও। যদি তোমরা না পার এবং তোমরা অবশ্যই তা পারবে না, তাহলে তোমরা ভয় কর সে আগুন কে যার লাকড়ি হবে মানুষ এবং পাথর, তা তৈরী করা হয়েছে কাফিরদের ( কুরআন  অস্বীকারকারীদের ) জন্য।’ (বাকারা:২৩-২৮)

আধুনিক বিজ্ঞানের সাক্ষ্য : বর্তমান দুনিয়ায় প্রায় ১৫০ কোটিরও বেশি মুসলমান আছে এবং প্রত্যেক মুসলমানের

বিশ্বাস এই যে, আল কুরআন, ফুরকানে হামীদ ঐশী কিতাব এবং এক স্থায়ী মুজিযা। পন্ডিত দুনিয়ার কয়েকজন বড় বড় অমুসলিম পন্ডিত ব্যক্তিও এর এর মুজিযার স্বীকৃতি দিয়েছেন।

পাদ্রী বাসভার্থ স্মীথ বলেন: `নিঃসন্দেহে পবিত্র আল কুরআনে হাকীম বর্ণনা, বীরত্ব ও সত্যবাদীতার এক মুজিযা।’

অন্য এইকজন ইংরেজ এ, জে, বেরী লিখেন: আল `কুরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে আমার স্বর মাধুর্যের আনন্দ এবং হৃদয়ের কম্পন শ্রবণ করিয়ে দেয়।

কিন্তু সাধারণ শিক্ষিত অমুসলিম অথবা নাস্তিক বৈজ্ঞানিকগণ একথা বলে যে, আমি আরবি ভাষা সম্পর্কে কিছুই জানি না। এ জন্য আমি আল কুরআন ভাষার বড়ত্ব এবং শিক্ষার আন্দাজ করতে পারি না। যেহেতু আমরা এগুলো বুঝি না তাহলে আমরা কিভাবে বুঝব যে, আল কুরআন  হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর ওপর নাযিল হয়েছে এবং তা একটি মুজিযা ? এ ধরনের পন্ডিত বিজ্ঞানীদের নিকট পৃথিবী সৃষ্টির ব্যাপারে যদি প্রশ্ন করি তাহলে উত্তর পাওয়া যাবে যে, বিলিয়ন বিলিয়ন বছর আগে এ সৃষ্টিকুল বস্তুর একটি বিশাল পিন্ড ছিল এবং বস্তুর একটি প্রকান্ড টুকরা ছিল , অত: পর এই বিশাল খন্ডের মধ্যে মহা বিস্ফোরণ ঘটলো তখন বস্তুর বড় বড় অংশ চুটে খালি স্থানের সকল কক্ষ পথে ছুটাছুটি লাগল। এই বিস্ফোরণের ফলে আমাদের শৃঙ্খলায় সূর্য এবং গ্রহ ও নক্ষত্রগুলোও অস্তিত্বে আসে এবং সকল  গ্রহ-নক্ষত্র আপনাপন পথে ঘুরতে থাকে।

অত: পর আমরা এ সকল বৈজ্ঞানিকদের নিকট জানতে চাই আপনাদের এ বিষয়ে জ্ঞান কবে হলো? তখন তারা উত্তর দেয় যে, পঞ্চাশ বছর আগে এ কথার আবিস্কার হয়েছে। এরপর আরো প্রশ্ন জিজ্ঞেস করি যে, সাড়ে চৌদ্দশত বছর আগে বালুময় আরবের এক ব্যক্তি এ জ্ঞান ছিল। তাহলে জবাব আসবে কখনো নয়। তখন আমি তাকে বললাম আরবের এই নবী যিনি চৌদ্দশত ত্রিশ বছর আগে এ ব্যাপারে আল কুরআন এই আয়াত পাঠ করে শুনিয়েছিলেন:

`কাফেররা কি দেখে নাই যে, আসমানসমূহ ও যমীন ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিল, অত: পর আমিই তাদের আলাদা করেছি।’ (আম্বিয়া:৩০)

আপনার হৃদয় অজান্তে বলে উঠবে যে, এই কিতাব…এই কুরআন… কোন মানুষের বাণী নয় বরং ইহা রহমান, রহিম, এই দুনিয়ার মালিকের বাণী। চ্যালেঞ্জ…

এবং এ আয়াত ও কুরআন মাজীদে  রয়েছে,  যাকে এই নবী তিলাওয়াত করেছিলেন-

`তিনিই সেই সত্তা যিনি রাত-দিন ও চন্দ্র-সূর্য সৃষ্টি করেছেন পপ্রত্যেকে ( নিজ নিজ ) কক্ষপথে ঘুরছে।’ (আম্বিয়া:৩৩)

অত: পর কিছু জীববিজ্ঞানী (Biologist) এর নিকট প্রশ্ন করি এ পৃথিবীতে জীবন সর্বপ্রথম কোন স্থান থেকে অস্তিত্বে আসে? জবাব আসবে কোটি কোটি বছর আগে সামুদ্রিক বস্তুর মধ্যে জীবনের অস্তিত্ব আরম্ব হয় যা থেকে অ্যামিবা (Zoologist) সৃষ্টি হয় এবং পানি থেকে সকল অ্যামিবা থেকে সকল প্রাণীর সৃষ্টি হয়। অর্থাৎ জীবনের শুরু পানি থেকে, ব্যাখ্যা দানের পর জীববিদ্যার অভিজ্ঞরা এও বলবে যে, এই সত্যের জ্ঞান আধুনিক যুগে হয়েছে এবং আমি এর থেকে যদি জিজ্ঞেস করি যে, যদি এ কথার জ্ঞান আরবের মরুভূমি অধিবাসী ব্যক্তি যদি আজ থেকে চৌদ্দশত ত্রিশ বছর পূর্বে পেয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই সে না বোধক উত্তর দেবে। আবার বলা হলো  আল্লাহ  তায়ালা এককথায় প্রকাশ তো আজ থেকে চৌদ্দশত বছর পূর্বে  করেছিলেন। যদি সে না মানে তাহলে তাকে আল কুরআনে এ আয়াত শুনাও `এবং আমি পানি থেকে সকল জীবিত জিনিস সৃষ্টি করেছি, সে কি বিশ্বাস করে না?’ (আম্বিয়া:৩০)

এভাবে উদ্ভিদ বিদ্যার (Biologist প্রাণী বিদ্যার (Zoologist) প্রকৃতি বিদ্যার (Physicists) বিজ্ঞানীদের প্রশ্ন করুন যে, প্রাণী বস্তুর সৃষ্টি প্রাকৃতিক পদ্ধতি কি? সকলে এই জবাবই প্রদান করবে যে আধুনিক যুগে প্রমানিত হয়েছে যে মানুষ এবং পানির সৃষ্টি পদ্ধতি এমনকি গাছপালা সৃষ্টিও  জোড়ায় জোড়ায় হয়েছে অর্থাৎ নারী-পুরুষ থেকে হয়ে থাকে।অথচ এ সত্যের প্রকাশ আমাদের নবী রাসূল (সাঃ) বহু বছর আগে করিছিলেন যার জ্ঞান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন অহীর মাধ্যমে নবী রাসূল (সাঃ) কে দিয়েছিলেন। চিন্তা করুন আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আল কুরআনে ইরশাদ করেন-

`পবিত্র সেই সত্তা যিনি সকলকে জোড়ায় জোড়ায় সৃষ্টি করেছেন, যা ভূমি উৎপন্ন করে। আর যা তোমাদের মধ্যে থেকে, আর যা সম্পর্কে তোমরা কিছু জান না।  (ইয়াসীন:৩৬)

উল্লিখিত দৃষ্টান্তগুলো থেকে বুঝা গেল যে, বিজ্ঞানের প্রত্যেকটি আবিষ্কার থেকে আল কুরআনে মুজিযাগুলোর প্রমান মিলে যায়, এ হলো ঐ  সকল নিদর্শন যা মহান আল্লাহ জ্ঞানবানদের জন্য স্থায়ী কিতাব আল কুরআনে ঘোষণা করেছেন।৩০ নং সূরার ২২ নং আয়াতে-

`নিশ্চয়ই এর মধ্যে পৃথিবীবাসীর জন্য নিদর্শন রয়েছে।’

গণিত এক কম্পিউটারের সাক্ষ্য

কম্পিউটার বলে যে, ৬২৬০০০০০০০০০০০০০০০০০০০০০০০০০ জন মানুষ মিলেও আল কুরআনের মত  বড় কিতাব লিখতে সক্ষম  হবে না।

পিছনে বর্ণিত আল কুরআন, মুজিযাগুলো বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধের লোকদের জন্য ছিল অথচ আজ যখন কম্পিউটার উদ্ভাবন করা হয়েছে এবং বিজ্ঞান ও গণিতে বিপ্লব সাধিত হয়েছে। আমাদের দেখতে হবে যে কম্পিউটার আধুনিক যুগের জন্যও কি আল কুরআনে মুজিযা আছে?

`মুজিযা’ শব্দের শাব্দিক অর্থ  `ঐ কাজ যা মানুষের ক্ষমতা ও আওতার বাইরে।।’ আশার কথা হলো এই যে, এই যুগের বিজ্ঞানী, নাস্তিক এবং সর্বদা এক রকম এবং অপরবর্তনীয় এবং কম্পিউটার ধারাবাহিক নিয়মে সত্যগুলো বর্ণনা করে। এ যুগে আল কুরআন কে সম্পূর্ণরূপে কম্পিউরাইজড করা হয়েছে।

গণিতের দৃষ্টিভঙ্গিতে আল কুরআনের মুজিযা বুঝার জন্য আরবি ভাষা জানা জরুরী নয়। শুধু এতটুকুই যথেষ্ট যে, মানুষ এ মজিযাকে দেখার জন্য চোখ রাখবে এবং এক থাকে ঊনিশ পর্যন্ত গণনা করতে জানবে।আল কুরআনে ধারা অহী নাযিলের ধারাবাহিকবতায় নয় বরং বর্ণনা অনুযায়ী করা হয়েছে। রাসূল (সাঃ) স্বয়ং হায়াতে তাইয়েবায় এ ধারা বর্ণনা করেছেন। আল কুরআনের আয়াত প্রয়োজন অনুসারে নাজিল হতে থাকে।প্রথম ওহী হেরা গুহায় রমজানের ২৬ তারিখ (দিবাগত রাতে) আসে যখন হজরত জিব্রাইল (আ) সূরা আলাক এর প্রথম ৫ আয়াত নিয়ে অগমন  করেছিলেন। আল কুরআনে ইহা ৯৭ নম্বর সূরা। রাসূল (সাঃ)-এ অস্বাভাবিক ঘটনার পরে পেরেশান হয়ে ঘরে আসেন এবং উমম্মুল মুমিনীন হজরত খাদিজাতুল কুবরা (রা)-কে সব খুলে বললেন। তিনি রাসূল (সাঃ) কে সান্ত্বনা প্রদান করলেন।

অত: পর হজরত রাসূল (সাঃ) আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের একত্ববাদ, তার রিসালাত এবং পরকালের উপর ঈমান আনার জন্য দাওয়াত শুরু করেন, যা মক্কার কাফিরদের নিকট গৃহীত হলো না। প্রতুত্তরে মক্কার কাফিরগন প্রচার করতে লাগল যে মুহাম্মাদ (সা:) দিওয়ানা ও পাগল (নাউজুবিল্লাহ), মক্কার কাফিরদের এ প্রপাগান্ডার মধ্যে সূরা “আল কলম” নাজিল হয়। আল কুরআনে ইহা ৬৮নং সূরা। এতে একথার জবাব দেয়া হয়েছে যে, তিনি পাগল এবং সাথে সাথে রাসূল (সাঃ)-কে উসওয়াতুন হাসানা (উত্তম আদর্শ) এবং মর্যাদাশালী বলে উল্লেখ করা হয়েছে ।

তৃতীয় ওহী সূরা মুজামমিল এর কয়েকটি প্রাথমিক আয়াতের আকারে এসেছে। ইহা ৭৩ নং সূরা যার আখেরী আয়াত হলো-৭৩ নং সূরা- ৫ নং আয়াত।

আমি শীঘ্রই আপনার উপর ভারী কালাম নাজিল করব ।

রাসূল (সাঃ) ইসলামের দাওয়াত বিধি মোতাবেক জারি রাখেন। মানুষেরা ধীরে ধীরে ঐ দাওয়াতের দিকে ঝুকতে থাকে এবং বুঝতে থাকে যে, আল কুরআন কোনো পাগলের প্রলাপ হতে পারেনা এবং এত সুমহান রবের মহান বাণী। কেননা এরূপ স্পষ্ট ও বাগ্মী বাণী কোনো পাগলের হতে পারেনা । যখন মানুষেরা রাসূল (সাঃ)  এবং কুরআনের সত্যতা স্বীকার করে নিতে শুরু করল এরপর এরপর মক্কার কাফিরগন ইহা বলাবলি করতে লাগলো যে, মুহাম্মাদ জাদুকর এবং আল কুরআন মুহাম্মদের কালাম, আল্লাহর বাণী নয়। এ সময় চতুর্থ ওহী  আসে যা আল কুরআন মজীদের ৭৪নং সূরা  মুদ্দাছির এর প্রাথমিক ৩০ আয়াত হিসেবে নাজিল হয়।

হজরত জিব্রাইল (আ ) হুজুর  (সাঃ)-কে এই সূরার প্রাথমিক ২৯ আয়াত দিয়ে ৩০ তম আয়াতের দিকে মনোযোগ দেন যা হলো ৭৪ নং সূরা মুদ্দাছির, ৩০ নং আয়াত- তাঁর উপরে রয়েছে উনিশ ।২০তম এবং ২৫তম আয়াতে মক্কার কাফিরদের যে মিথ্যা প্রচারণা উল্লেখ করা হয়েছে যাতে বলা হয়েছে যে, রাসূল (সাঃ) যে বর্ণনা করেন তা জাদু এবং এই যে, আল কুরআন নবী করীম (সাঃ)-এর নিজের বাণী- …..এবং ২৬তম আয়াতে মক্কার কাফিরদের এর কর্মের উপর আল্লাহ তায়ালা নিজের রাগ ও গোসস্বার প্রকাশ ঘটিয়েছেন এবং বলেছেন যে, আপনার উপর এরূপ অভিযোগ কারীদের অতি সত্ত্বর জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে ।

২৮নং এবং ২৯ নং আয়াতে জাহান্নামের অবস্থা বর্ণনা করা হয়েছে যে, এর মধ্যে মানুষের রং হবে কালো ….. এবং এরপরে ৩০নং আয়াতে বর্ণনা করা হয়েছে। ৭৪ নং সূরা  ৩০ নং আয়াত “এরপর ঊনিশ ” ।

জিব্রাইল (আ ) যেখানে সূরা  মুদ্দাছির এর ৩০তম আয়াত পর্যন্ত থেমে গেলেন এবং এরপর তৎক্ষণাৎ সূরা ইকরা (আলাক ) এর বাকি ১৪ আয়াত রাসূল (সাঃ)- কে প্রদান করলেন।

এ প্রশ্ন উঠেছে যে, এমন কেন হলো? পবিত্র আল কুরআনে এ আয়াত “এরপর ১৯” এর উদ্দেশ্য কি? এবং এ বিষয়টাই কি? মুফাস্সিরিনগন এ আয়াতের বিভিন্ন অর্থ উল্লেখ করেছেন। কেউ কেউ বলেছেন জাহান্নামের উল্লেখের পর এর আয়াত এসেছে। এজন্য এর উদ্দেশ্য ঐ ১৯ ফেরেশতা যারা জাহান্নামের পাহারাদার। কেউ বলেন, ইহা ইসলামের ১৯টি মৌলিক ভিত্তি, কিন্তু সবাই লিখেছেন যে মূল বিষয়টি আল্লাহই জানেন। এরূপ মনে হয় যে, আল্লাহ পাকের ইচ্ছা এ সমস্যার সমাধান বিংশ শতাব্দীর কম্পিউটারের যুগের জন্য অবশিষ্ট রাখা হয়েছে। যেমন উপরে বর্ণনা করা হয়েছে যে, জিব্রাইল (আ ) প্রাথমিক ওহী সূরা আলাক (ইকরা) এর (যার প্রথম ৫ আয়াত প্রথম ওহীতে নাজিল হয়েছিল) বাকী ১৪ আয়াত নবী করীম  (সা:) কে প্রদান করেন। এভাবে সূরা আলাক (ইকরা) এর ১৯ আয়াত পূর্ণ হয়ে গেল। অর্থাৎ সূরা মুদ্দাছির-এর “এরপর  ঊনিশ” বলার পর তৎক্ষণাৎ ঊনিশ আয়াতের সূরা আলাক সম্পুর্ন হয়ে গেল ।

     ১৯ এর প্রকৌশল: মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ঘোষণা : “এরপর ঊনিশ” ৭৪ নং সূরা মুদ্দাছির এর ৩০ নং আয়াত।

(১৯ সংখ্যা বর্ণনার আগে কিছু কথা বলে নেই, আমি বলছি না যে ১৯ তাই বলে বিশেষ একটা সংখ্যা। এই ১৯ সংখ্যার  উপর কুরআন নির্ভরশীল নয়। কিন্তু ১৯ প্রকৌশল কুরআনে আছে তবে এটার কারণ মহান আল্লাহ তালাই ভালো জানেন )

আপনার হৃদয় অজান্তে বলে উঠবে যে, এই কিতাব…এই কুরআন… কোন মানুষের বাণী নয় বরং ইহা রহমান, রহিম, এই দুনিয়ার মালিকের বাণী। চ্যালেঞ্জ…

 

এই ১৯ এর প্রকৌশল এর কিছু ব্যাখ্যার দিকে নজর দিলে হতভম্ব হয়ে যাবার  মত কথাবার্তা সামনে আসবে।যার দরুণ মানব মস্তিষ্ক কিংকর্তব্যবিমুড়তার মধ্যে ডুবে যায় এবং হৃদয় অজান্তে বলে উঠে যে, এই কিতাব…এই কুরআন কোন মানুষের বাণী নয় বরং ইহা রহমান, রহিম, এই দুনিয়ার মালিকের বাণী। কিছু ব্যাখ্যা পেশ করা হলো –

১. সূরা আলাক এর ১ম ৫ আয়াতে ১৯টি শব্দ এবং ঐ ঊনিশ  শব্দের মধ্যে ৭৬টি অক্ষর যা ১৯ দ্বারা পুরোপুরি ভাগ হয়ে যায়। ৭৬÷১৯ = ৪

গুনের উদাহরণ ১৯ × ৪ = ৭৬ ।

 ২.আল-কুরআন মাজীদ-এ ১১৪টি সূরা আছে, এ সংখ্যা ১৯ দ্বারা পূর্ণভাবে ভাগ করা যায় ।

ভাগের উদাহরণ ১১৪ ÷ ১৯ = ৬

গুনের উদাহরণ ১৯ × ৬ = ১১৪

৩. আল কুরআনে  সূরাগুলো উল্টোদিক থেকে অর্থাৎ ১১৪ নং সূরা  নাস, ১১৩ নং সূরা  ফালাক, ১১২ নং সূরা  ইখলাস, এভাবে গুনে আসলে ১৯ নং সূরা  অর্থাৎ  ৯৬নং সুরাটি পড়ে  সূরা আলাক ।

      ৪. একথা কি পরিমাণ গুরত্ব রাখে যে, পবিত্র আল কুরআনে শুরু দ্বারা, যার মধ্যে ১৯টি অক্ষর রয়েছে । এর মধ্যে ৪টি শব্দ:

এ আয়াতের প্রতিটি শব্দ যতবার আল কুরআনে এসেছে তা ১৯ দ্বারা বিভক্ত ।

প্রথম শব্দ আল কুরআনে ১৯ বার এসেছে। দ্বিতীয় আল কুরআনে ২৬৯৮ বার এসেছে। যা ১৯ দ্বারা পুরোপুরি বিভাজ্য:

ভাগের উদাহরণ ২৬৯৮ ÷ ১৯ = ১৪২

গুনের উদাহরণ ১৯ × ১৪২ = ২৬৯৮

তৃতীয় শব্দ الر حمن ৫৭ বার এসেছে যা ১৯ দ্বারা পূর্ণভাবে বিভাজ্য। ভাগের উদাহরণ ৫৭ ÷ ১৯ = ৩ গুনের উদাহরণ  ১৯ ×৩=৫৭ চতুর্থ শব্দ الر حمن একশত চৌদ্দ বার এসেছে, যা ১৯ দ্বারা পুরোপুরি বিভাজ্য ।

ভাগের উদাহরণ ১১৪ ÷ ১৯ = ৬

গুনের উদাহরণ ১৯ × ৬ = ১১৪

চিন্তা করুন চার শব্দের সংখ্যাই ১৯ দ্বারা পুরোপুরি বিভাজ্য। এ ধরনের হওয়া কোনো সাধারণ বিষয় নয় ।

 ৫. আয়াত সূরা এসেছে। একবার শুরুতে এবং দিতীয়বার ভিতরে । …. এ জন্য সূরা  তাওবার শুরুতে নেই, অন্যথায় এর সংখ্যা ১১৫ হয়ে যেত এবং ১১৫ সংখ্যা ১৯ দ্বারা নি: শেষে বিভাজ্য হত না (আল কুরআনে সমগ্র সূরার সংখ্যা ১১৪ এবং সূরা তাওবাহ ছাড়া সকল সূরার প্রথমে আছে ।

৬. আল কুরআনে ২৯টি সূরার  শুরু হরফ দ্বারা হয়েছে অর্থাৎ হরুফে মুকাত্তায়াত দ্বারা হয়েছে। আরবি ভাষার ২৮ হরফের ১৪টি বর্ণ বিভিন্ন জোড়ের   মাধ্যমে এ সূরা গুলোর শুরুতে অবস্থান নিয়েছে। এ হরফগুলো নিম্নে দেয়া হলো : ১.الف  ২.ح    ৩.ر  ৪.س  ৫.ص  ৬.ط  ৭. ع  ৮. ق  ৯. ك  ১০. ل  ১১. م  ১২. ن  ১৩. ه  ১৪. ى

এ ১৪ হরফ দ্বারা যে ১৪ সেট হরুফে মুকাত্তায়াত তৈরী হয় তা নিম্নরুফ :

১.  এক অক্ষর বিশিষ্ট : ১.ص  ২. ق  কাফ  ৩. ن  সেট

২. দুই অক্ষর বিশিষ্ট : ১. طٰهٰ  ২.تٰس  ৩.ও طس  ৪. حم  ৪ সেট

৩.  তিন অক্ষর বিশিষ্ট : ১.الم  ২. الر  ৩. طسم  ৪. عسق ৪  সেট

৪.  চার  অক্ষর বিশিষ্ট : ১.المر  ২.المص  ২ সেট

৫.  পাঁচ  অক্ষর বিশিষ্ট : ১.كهيعص  ১ সেট

উল্লিখিত চিত্রের উপর এবার চিন্তা করুন, বুঝা যায় যে, হরুফে মুকাত্তায়াত যা ২৯ সূরার প্রথমে ব্যবহৃত হয়েছে, এগুলোর সংখ্যা ১৪টি এবং তাদের সেট সংখ্যা   ১৪টি, এখন ১৪ হরফ + ১৪ সেট + ২৯ সূরা = ৫৭ সর্বমোট সংখ্যা ৫৭ ও ১৯ দ্বারা নিঃশেষে বিভাজ্য ।

ভাগের উদাহরণ : ৫৭ ÷ ১৯ = ৩

গুনের উদাহরণ : ১৯ × ৩ = ৫৭

যোগের উদাহরণ : ১৯ + ১৯ + ১৯ = ৫৭

 ৭. হরফে মুকাত্তায়াত এর মধ্যে ق নিন। এই হরফ ق দুই সূরার প্রথমে এসেছে, অর্থাৎ সূরা `কাফ’ এবং সূরা শুরা حمعسق এর আকারে। এগুলোর প্রতিটি সূরায় ق হরফটি ৫৭ বার এসেছে, যা ১৯ দ্বারা নিঃশেষে বিভাজ্য ।

ভাগের উদাহরণ : ৫৭ ÷ ১৯ = ৩

গুনের উদাহরণ :  ১৯ × ৩ = ৫৭

সূরা `কাফ’  ق হরফটি ৫৭বার এসেছে এবং حم عصق সূরার মধ্যেও হরফটি ৫৭ বার এসেছে, যদিও শেষোক্ত সুরাটি অনেক দীর্ঘ । 

     উভয় সূরার মধ্যে ق এর সমষ্টি ১১৪ এবং আল কুরআন সূরা সংখ্যাও ১১৪টি। অর্থাৎ আল কুরআনে ১১৪টি সূরা রয়েছে এবং ق হরফ যা কুরআন মাজীদের প্রথম অক্ষর এবং তার নামের প্রতিনিধিত্ব করে উহাও ১১৪বার এসেছে । এভাবে এ কথা বলা বৈধ হবে যে, পবিত্র আল কুরআনের ঐশী আকারের হিসাবের ব্যবস্থা ১১৪ সূরার উপর হয়েছে ।

     ৮. আল কুরআন মাজীদে অতীতকালের গোত্রগুলোকে قوم শব্দ দ্বারা বর্ণনা করা হয়েছে। যেমন : অথচ সূরা `কাফ` এর ১৩নং আয়াতে আল কুরআনে বর্ণনা করেন وعاد وفرعون واخوان لوط এখনে اخوان لوط বলার কারণ, হজরত লূত (আ) এর কওম এর উল্লেখ আল কুরআনে قوم শব্দ দাড়ায় সাধারনত উল্লেখ করা হয়েছে । অথচ শুধুমাত্র এ আয়াতে قوم শব্দের পরিবর্তে اخوان বিশেষভাবে কেন ব্যবহার হলো?

এর কারণ এই যে, যদি এখানে قوم শব্দটি ব্যবহার করা হত তাহলে একটি ق বেড়ে যেত এবং এই সূরায় ق হরফের ব্যবহার ৫৭ এর পরিবর্তে ৫৮ হয়ে যেত  তাহলে ১৯ দ্বারা নিঃশেষে  ভাগ করা যেত না। এভাবে পবিত্র আল কুরআনের হিসাবের নিয়মের ব্যতিক্রম হয়ে যেত ।

 ৯. সূরা  আল কলম এর শুরুতে ن হরফ এসেছে এ সূরায় ن হরফটি ১৩৩ বার এসেছে। যা ১৯ দিয়ে নিঃশেষে  বিভাজ্য।

ভাগের উদাহরণ : ১৩৩ ÷ ১৯ = ৭

      গুনের উদাহরণ : ১৯ × ৭ = ১৩৩

     ১০. অক্ষর ص টি আল কুরআনে তিন সূরার  প্রথমে এসেছে। সূরা  আল আরাফে  المص ? এর আকৃতিতে, 

     সূরা মারিয়ামে كهيعص ? এর আকৃতিতে,

     সূরা  হূদে ص ? এর আকৃতিতে এই সূরার মধ্যে ব্যবহৃত ص এর সংখ্যা ১৫২ যাকে ১৯ দ্বারা নিঃশেষে  ভাগ করা যায় ।

     ভাগের উদাহরণ : ১৫২ ÷ ১৯ = ৮

     গুনের উদাহরণ : ১৯ × ৮ = ১৫২

     ১১ . সূরা আল আরাফের ৬৯তম আয়াতে একটি শব্দ بسطة এসেছে। আরবি এ শব্দ س দিয়ে লেখা  যায় কিন্তু যখন এ আয়াত নাজিল হয় তখন এ নির্দেশও ছিল যে শব্দকে ص দিয়ে লেখা যাবে । এর কারণ কি ছিল? 

     কারণ এই ছিল যে, যদি এই শব্দ س দ্বারা লেখা হয় এ অবস্থায় একটি ص কম হয়ে যায় এবং উল্লিখিত সূরাগুলোতে ص হরফের পুরনো সংখ্যা ১৫২ এর পরিবর্তে ১৫১ হয়ে যায় যা ১৯ দ্বারা নিঃশেষে  বিভাজ্য হবে না এবং কুরআনে কারীমের হিসাবি নিয়ম সঠিক হবে না ।

     ১২ . যে সকল সূরার প্রারম্ভে এক হরফের  হরফে মুকাত্তায়াত দ্বারা হয়। এ সূরা গুলোর মধ্যে প্রতিটি হরফ পৃথক পৃথক জমা করা যায়, তাহলে এর সমষ্টি ১৯ দ্বারা নিঃশেষে ভাগ হবে। শুধু তাই নয় বরং এ হরফগুলোর স্ব স্ব সংখ্যা যদি একত্র করা হয় তাহলেও সামগ্রিক সংখ্যা ১৯ দ্বারা নিঃশেষে  ভাগ হবে।

     (ক) সূরা طه ? এর মধ্যে দু হরফ  ط  এবং ه আছে। এ সূরায়  ط  অক্ষরটি ২৮বার এবং ه ৩১৪ বার এসেছে এবং উভয়ের সমষ্টি ৩৪২ যা ১৯ দ্বারা নিঃশেষে বিভাজ্য ।

     ভাগের উদাহরণ : ৩৪২  ÷ ১৯ = ১৮

     গুনের উদাহরণ : ১৯ × ১৮ = ৩৪২

     (খ) সূরা ইয়াসিনে ي আছে ২৩৭ বার এবং س আছে ৪৮ বার এবং উভয়ের সমষ্টি ২৮৫ যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য ।

     ভাগের উদাহরণ : ২৮৫ ÷ ১৯ = ১৫

     গুনের উদাহরন : ১৯ × ১৫ = ২৮৫

    আরো একটি বিস্ময়কর হাকীকত 

    ১.আল কুরআনে ২৯ সূরার শুরুতে যে হুরুফে মুকাত্তায়াত আছে এবং এ সূরাগুলো যতবার এ সূরাগুলোতে এসেছে এদের যোগফল ১৯ দ্বারা নিঃশেষে বিভাজ্য। বিস্তারিত নিম্নে উল্লেখা করা হলো :

 সূরা 

          হরফ 

      সংখ্যা 

 বাকারা 

           الم      

 ১৯৯১বার 

আলে ইমরান 

           الم

  ৫৭১৪বার

 আন কাবুত 

          الم

১৬৮৫বার

 রূম 

          الم

১২৫৯বার

 লুকমান 

         الم

৮২৩ বার

 রা 

  المر(এখানেر বাদদিয়ে) 

১৩৬৪বার

 আরাফ 

المص (এখানেص বাদ ) 

 ৫২৬০বার

যোগফল : ২৬৬৭৬ বার 

এ সমগ্র সংখ্যাটি ১৯ দ্বারা নিঃশেষে বিভাজ্য ।

ভাগের উদাহরণ : ২৬৬৭৬ ÷ ১৯ = ১৪০৪

গুনের উদাহরণ : ১৯ × ১৪০৪ = ২৬৬৭৬

২ . হরুফে মুকাত্তায়াত  الم নিম্নোক্ত সূরাসমূহের এসেছে। এ সূরাগুলোর মধ্যে এ অক্ষরগুলোর সংখ্যার যোগফল নিম্নে দেয়া হলো এবং সুরা رعد  এর ر এর হিসাব এর টোপালের সঙ্গে যোগ করা হলো –


 সূরা 

          হরফ 

      সংখ্যা 

 ইউনুস 

           الر      

 ২৫২২ বার 

 হুদ  

           الر

 ২৫১৪ বার

 ইউসুফ 

          الر

 ২৪০৫ বার

 ইবরাহীম 

          الر

১২০৬ বার

 হিজর 

          الر

 ৯২৫ বার

 রা 

          المر (শুধু  ر ) 

  ১৩৫ বার

যোগফল : ৯৭০৯


এই  ৯৭০৯ সংখ্যা দ্বারা নিঃশেষে  বিভাজ্য ।

ভাগের উদাহরণ :   ৯৭০৯  ÷ ১৯ = ৫১১

গুনের উদাহরণ : ১৯ × ৫৫১ =  ৯৭০৯

৩ .  নিম্নলিখিত সূরাগুলোতে حم  হরফ প্রথমে এসেছে । এদের সংখ্যা = ০৭ বিশ্লেষণ করা হলো :

 সূরা 

          হরফ 

      সংখ্যা 

 বাকারা 

      حم       

১৯৯১বার 

আলে ইমরান 

           حم

৫৭১৪ বার

 আন কাবুত 

          حم

১৬৮৫বার

 রূম 

          حم

১২৫৯বার

 লুকমান 

          حم

৮২৩ বার

 রা 

           حم  

১৩৬৪বার

 আরাফ 

حم عسق শুধু حওم 

৫২৬০বার

মোট সংখ্যা =২১৬৬


২১৬৬ সংখ্যাটি ১৯ দ্বারা নিঃশেষে  বিভাজ্য ।

ভাগের উদাহরণ : ২১৬৬ ÷ ১৯ = ১১৪

গুনের উদাহরণ : ১৯ × ১১৪ = ২১৬৬

৪. সূরা `শূনার ‘ মধ্যে পাঁচ হরূফ حم عسق  রয়েছে।

এ পাঁচ হরফ ق ، س ، ع ، م ، ح এ সূরার মধ্যে সর্বমোট ৫৭০ বার রয়েছে।

যা ১৯ দ্বারা নিঃশেষে বিভাজ্য

ভাগের উদাহরণ : ৫৭০ ÷ ১৯ = ৩০

গুনের উদাহরণ : ১৯ × ৩০ = ৫৭০

৫. নিম্নলিখিত সূরাগুলোর মধ্যে ط  এর س হরফ এসেছে। এর মোট সংখ্যার ওপরে চিন্তা করি 

 সূরা 

          হরফ 

      সংখ্যা 

 নামল  

     طس 

  ১২০ বার 

 শুয়ারা 

     طسم (বাদ দিয়ে م)

  ১২৬ বার

 কাসাস 

     طسم (বাদ দিয়ে م)

  ১১৯ বার

 ত্বহা 

     طه (বাদ দিয়ে ه)

   ২৭ বার

 হিজর 

     يس (বাদ দিয়ে ى)

   ৪৮ বার

 শূরা

 حم عسق (বাদ দিয়ে س)

    ৫৩ বার

মোট সংখ্যা =৪৯৪

৪৯৪ সংখ্যাট ১৯ দ্বারা নিঃশেষে  বিভাজ্য ।

ভাগের উদাহরণ :  ৪৯৪ ÷ ১৯ = ২৬

গুনের উদাহরণ : ১৯ × ২৬ = ৪৯৪

আল কুরআনে এত এত নিদর্শন থাকার পরেও কেন আমরা আল কুরআন থেকে দূরে  চলে যাচ্ছি?

যদি ভাল লাগে অবশ্যই আমাকে জানাবেন my Facebook ID here. কোথাও কোন ভুল থাকলেও  আমাকে জানাবেন। আল্লাহ সবাই কে বুঝার তাওফিক দান করুক আমীন।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

12 মন্তব্য

  1. কুরানের আর অনেক নিদর্শন আছে আমি পেস্ট করলাম

    ১.কোরানে সুরা আল ফযরের ৭ নাম্বার আয়াতে ইরাম নামক এক গোত্রের কথা বলা আছে কিন্তু ইরাম এর নাম ইতিহাসের কোথাও পাওয়া জায় না>
    ১৯৭৩ সালে সিরিয়ায় এরলুস নামক নামে একটি পুরন শহর খনন করার সময় ৪ হাযার বছর আগের একটি ইরাম নামের সভ্যতা আবিষ্কৃত হয়

    ২.আল কুরানে আবু লাহাব কে নবি স এর দুস্মন বলা হয়েছে। তিনি ইসলাম গ্রহন করবেন না তাও বলা হয়েছে ।তার নামে একটা সুরাও আছে সুরা আবু লাহাব। সে যদি ইসলাম গ্রহন করত তাহলে কুরান ভুল প্রমানিত হত। লাহাবের কি দরকার আছিল নবির স এর সাথে যুদ্ধ করা? আর নবি স যদি কুরান লিখত তাহলে এই আয়াত লেখার সাহস পেত না। কারন আয়াত নাযিল হওার ১০ বছর পর্যন্ত লাহাব বেছে ছিল

    ৩।
    কুরান সরিফে সুরা আর রুম এ পারস্য দের ধ্বংসের ভবিতসতবানি করা হয়েছে কিন্তু তখন মানুসের চিন্তা করা কঠিন ছিল যে রুমকদের হাতে আবার পারস্য রা ধন্স হবে। কিন্তু এই কাহিনি ঘটতে মাত্র ৭ বছর সময় লেগেছে
    ৪. কুরানে দুনিয়া এর বিপরত শব্দ আখেরাত। কুরানে দুনিয়ার কথা বলেছেন ১১৫ বার আখেরাতের কথাও বলেছেন ১১৫ বার।
    ৫. ইমান এর বিপরিতসব্দ কুফর । কুরানে ২৫ বার করে শব্দ দুটি সমান সংখ্যক ভাবে এসেছে
    ৬.মালাকুল বা মালায়েকে অর্থাৎ ফেরেস্তা বা ফেরেস্তারা সব্দতি এসেছে ৮৮ বার একই ভাবে সয়তান বা সয়তানি শব্দয়ই এসেছে ৮৮ বার
    ৭. সুরা আরাফ এর বলা আছে জারা আমার আয়াতকে অস্বীকার করে তাদের উদাহরন হচ্চে কুকুরের মত। বিস্বময়ে হতবাক হয়ে জেতে হয় জখন আমরা দেখি জারা আমার আয়াত অস্বীকার করে” এই কথাটি কুরানে ৫ বার বার এসেছে ।যেহেতু তাদের উদাহরন দেওয়া হয়েছে কুকুরের মত তাই আল কালব সন্দটাও ৫ বার এসেছে। সুবাহানাল্লাহ
    আর অনেক আছে যা লেইখা সারা পারলাম না। সবার এটা চিন্তা করা উছিত যে নবি স ছিল নিরক্ষর সে কিভাবে এটা লিখবে। সুধু নবি স না কেওই এই কুরান রচনা করতে পারবে না। আল্লাহ কুরানে চেলেঞ্জ করেছেন কে আছ যে কুরানের এক টা সুরা লিখবে?
    আল্লাহই ভাল জানেন কুরানে আর কত অলইকিকতা আছে। তিনি সাধে চেলেঞ্জ করেন নাই

  2. ১৯ এর থিওরি দেখিয়েছেন চমৎকার ভাবে। ধন্যবাদ ।
    তবে বিভিন্ন জায়গা খুজে কিছু অসামাঞ্জাস রয়েই গেল আমার মনে।
    জানি একটা প্যুক্তি ব্লগ। ধর্ম আলোচনার স্থান এতা নয় । আপনি যখন পোস্ট করেই ফেলেছেন
    মনের ভিতর থাকা প্রশ্ন গুলর উত্তত না হয় পেয়েই যাই ।

    কোরআনকে যথার্থতা প্রদানঃ

    আজকের মোটামুটি যে গোটা দুনিয়ায় মোটামুটি একই ধরণের আদর্শ কোরআন পাওয়া যায় তা ১৯২৪ সালে মিশরের কায়রোতে ছাপানো এবং পরবর্তীতে সৌদি বাদশা ফাহাদের ছাপানো। কিন্তু বর্তমান প্রচলিত কোরআন এবং প্রাপ্ত প্রাচীণতম Tashkent কোরআনের মধ্যে বিভিন্ন জায়গার অমিলগুলো ধরে ধরে তিনি দেখিয়ে দেন (11), একই ভাবে দেখান Hafs এর কোরআন এবং Warsh এর কোরআনের মধ্যকার অমিল (12); সেখান থেকেই তিনি তার সিদ্ধান্ত জানান যে, দুনিয়াজুড়ে সমস্ত কোরআন-ই একই বলে যে দাবী করা হয় তা সত্য নয় এবং আমরা বর্তমানে যে কোরআন পাই তা আল্লাহ প্রদত্ত মূল কোরআন নয়, বরং তা বিভিন্ন সময়ে পরিবর্তিত হওয়া কোরআন। সুতরাং প্রকৃত কোরআন পাওয়া সম্ভব একমাত্র ১৯ থিউরি দিয়েই, যেটি আল্লাহ ৭৪:৩০ এ এরশাদ করেছেন।

    আর যেহেতু এসব কোরআনের বিভিন্ন কপিতে মনুষ্যকৃত ভুল থেকে গিয়েছে এবং প্রকৃত কোরআন পাওয়া সম্ভব সেই ১৯ দিয়েই, সুতরাং তিনি আসল কোরআনের সন্ধানে নেমে পড়েন।

    সেখানে ধরে ধরে বিভিন্ন শব্দের শেষে, মাঝে শুরুতে অক্ষর দেয়া, আয়াত বাড়ানো-কমানো প্রভৃতি কাজ সমূহ করেন- যার ভিত্তি ছিল ১৯ থিউরি।

    একটি উদাহরণ দেই। প্রচলিত সমস্ত কোরআনেই আমরা জানি সর্বমোট আয়াত সংখ্যা ৬২৩৬ টি, যাকে ১৯ দ্বারা ভাগ করলে পাওয়া যায় ৩২৮.২১০৫২৬৩১….. কিন্তু রাশাদ খলীফার হিসাবে আমরা অন্য একটি সংখ্যা পাই, সেটি হলো ৬৩৪৬ যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য। তার হিসাবে দুধরণের আয়াতকে নিয়েছেন, নাম্বারড আয়াত ও আননাম্বারড আয়াত (সুরার শুরুর বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম). এই আননাম্বারড আয়াতের সংখ্যা ১১২ টি এবং নাম্বারড আয়াত ৬২৩৪ টি। এভাবে ১৯ থিউরি অনুযায়ী কোরআনের প্রকৃত উদ্ধার করেছেন, এবং সেটা করতে গিয়ে প্রচলিত কোরআনের তুলনায় নাম্বারড আয়াতের সংখ্যা ২টি কমিয়ে দেয়া হয়েছে। সেই দুটি আয়াত কমানো হয়েছে সুরা আত-তাওবাহ থেকে (১২৮ ও ১২৯ নং আয়াত দুটি বাদ দেয়া হয়েছে). এ দুটি আয়াত দেয়ার ক্ষেত্রেও মূল যুক্তি সেই ১৯ থিউরি এবং একটি বুখারী হাদীসের সমর্থন যেখানে বলা হয়েছে,
    Narrated Zaid bin Thabit:
    Abu Bakr sent for me and said, “You used to write the Divine Revelations for Allah’s Apostle : So you should search for (the Qur’an and collect) it.” I started searching for the Qur’an till I found the last two Verses of Surat At-Tauba with Abi Khuzaima Al-Ansari and I could not find these Verses with anybody other than him. (Volume 6, Book 61, Number 511). (13)
    পুরা কোরআনের মোট আয়াত সংখ্যার বিষয়টি তো আছেই, সেই সাথে তিনি দেখিয়ে দেন যে, সুরা তাওবার ১ম ১২৭ টি আয়াতে আল্লাহ শব্দটি এসেছে মোট ১২৭৩ বার যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য, কিন্তু ১২৮ ও ১২৯ নং আয়াত যুক্ত করলে- আল্লাহ শব্দটি যতবার এসেছে সেই সংখ্যাটি ১৯ দ্বারা বিভাজ্য হয় না। অতএব প্রমাণ হলো যে, ১২৮ ও ১২৯ নং আয়াত দুটি ভুল আয়াত! (14)

    মুসলিম ওলামায়ে বিশ্ব যখন খলীফার এই তত্ত্বকে এবং দাবীকে অস্বীকার করতে চাইলেন, তখনো তিনি কোরআনের সুরা আশ-শুরা এর ২৪ নং আয়াতের মাধ্যমে দেখিয়ে দিলেন যে, তাঁর এই উদ্ভাবনকে অনেকে মিথ্যা বলতে পারে সেটা অনেক আগেই কোরআনে জানান দেয়া হয়েছে এবং তিনি আসলে মিথ্যা নন।
    ৪২:২৪: অথবা তারা কি বলে,- “সে আল্লাহ সম্পর্কে এক মিথ্যা উদ্ভাবন করেছে?” কিন্তু আল্লাহ যদি চাইতেন তবে তোমার হৃদয়ে তিনি মোহর মেরে দিতেন। বস্তুত আল্লাহ মিথ্যাকে মুছে ফেলেন এবং সত্যকে সত্য প্রতিপন্ন করবেন তার বাণী দ্বারা। নিসন্দেহে তাদের অন্তরে যা রয়েছে তা সম্পর্কে তিনি সম্যক জ্ঞাতা”।
    এই আয়াতটিতে যে সে মানে রাশাদ খলীফা সেটির ব্যাখ্যাও কিন্তু ১৯ তত্ত্ব থেকেই পাওয়া যায় (রাশাদ খলীফার gematrical value (১২৩০) এর সাথে এই আয়াত নাম্বার (২৪) যোগ করলে পাওয়া যায় ১২৫৪ যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য, সুতরাং প্রমানিত হলো যে এখানে “সে” মানে “রাশাদ খলীফা”)- এবং রাশাদ খলীফা কর্তৃক অনুবাদে “সে” এর পাশে ব্রাকেটে রাশাদ খলীফার নাম আমরা পাই।
    [42:24] Are they saying, “He (Rashad) has fabricated lies about GOD!”? If GOD willed, He could have sealed your mind, but GOD erases the falsehood and affirms the truth with His words. He is fully aware of the innermost thoughts. (15)

    প্রশ্নঃ
    ১. কোনটি ঠিক?
    ২. রাশাদ খলীফা যদি বেঠিক হন, তবে তার প্রচারিত থিউরি দিয়ে দুর্বল মুসলমানদের ইমান শক্ত-পোক্ত করার চেষ্টা কেমন?

    • ভাই কি নাস্তিক? নাকি সিয়া মুসলিম? আল কুরানের অরজিনাল কপি এখনও আছে। আপনে চাইলে দেখতে পারেন। আর ১৯ এর মিল সুধু তাই না আর অনেক মিল আছে দেখেন

      ১.কোরানে সুরা আল ফযরের ৭ নাম্বার আয়াতে ইরাম নামক এক গোত্রের কথা বলা আছে কিন্তু ইরাম এর নাম ইতিহাসের কোথাও পাওয়া জায় না>
      ১৯৭৩ সালে সিরিয়ায় এরলুস নামক নামে একটি পুরন শহর খনন করার সময় ৪ হাযার বছর আগের একটি ইরাম নামের সভ্যতা আবিষ্কৃত হয়

      ২.আল কুরানে আবু লাহাব কে নবি স এর দুস্মন বলা হয়েছে। তিনি ইসলাম গ্রহন করবেন না তাও বলা হয়েছে ।তার নামে একটা সুরাও আছে সুরা আবু লাহাব। সে যদি ইসলাম গ্রহন করত তাহলে কুরান ভুল প্রমানিত হত। লাহাবের কি দরকার আছিল নবির স এর সাথে যুদ্ধ করা? আর নবি স যদি কুরান লিখত তাহলে এই আয়াত লেখার সাহস পেত না। কারন আয়াত নাযিল হওার ১০ বছর পর্যন্ত লাহাব বেছে ছিল

      ৩।
      কুরান সরিফে সুরা আর রুম এ পারস্য দের ধ্বংসের ভবিতসতবানি করা হয়েছে কিন্তু তখন মানুসের চিন্তা করা কঠিন ছিল যে রুমকদের হাতে আবার পারস্য রা ধন্স হবে। কিন্তু এই কাহিনি ঘটতে মাত্র ৭ বছর সময় লেগেছে
      ৪.কুরানে দুনিয়া এর বিপরত শব্দ আখেরাত। কুরানে দুনিয়ার কথা বলেছেন ১১৫ বার আখেরাতের কথাও বলেছেন ১১৫ বার।
      ৫. ইমান এর বিপরিতসব্দ কুফর. কুরানে ২৫ বার করে শব্দ দুটি সমান সংখ্যক ভাবে এসেছে
      ৬.মালাকুল বা মালায়েকে অর্থাৎ ফেরেস্তা বা ফেরেস্তারা সব্দতি এসেছে ৮৮ বার একই ভাবে সয়তান বা সয়তানি শব্দয়ই এসেছে ৮৮ বার
      ৭. সুরা আরাফ এর বলা আছে জারা আমার আয়াতকে অস্বীকার করে তাদের উদাহরন হচ্চে কুকুরের মত। বিস্বময়ে হতবাক হয়ে জেতে হয় জখন আমরা দেখি জারা আমার আয়াত অস্বীকার করে” এই কথাটি কুরানে ৫ বার বার এসেছে ।যেহেতু তাদের উদাহরন দেওয়া হয়েছে কুকুরের মত তাই আল কালব সন্দটাও ৫ বার এসেছে। সুবাহানাল্লাহ
      আর অনেক আছে যা লেইখা সারা পারলাম না। সবার এটা চিন্তা করা উছিত যে নবি স ছিল নিরক্ষর সে কিভাবে এটা লিখবে। সুধু নবি স না কেওই এই কুরান রচনা করতে পারবে না। আল্লাহ কুরানে চেলেঞ্জ করেছেন কে আছ যে কুরানের এক টা সুরা লিখবে?
      আল্লাহই ভাল জানেন কুরানে আর কত অলইকিকতা আছে। তিনি সাধে চেলেঞ্জ করেন নাই

    • আর একটা কথা কুরান নাযিল হওার পর এমন কোন সময় ছিল না যে তখন কোন হাফিয ছিল না। সব সময় কুরানের হাফিয ছিল আর এখন কুরানের অরজিনাল কপি আছে। আর আল্লাহ কুরানেই বলেছেন এর কোন পরিবর্তন কেও করতে পারবে না। সুতরাং সিয়া মতবাদ বাদ দেন

      • আমি কি বলছি আপনি স্ভবত বুঝেন্নাই ।
        আমি ইসলাম কে অস্বীকার করছি না। ১৯ এর থেওরি নিয়ে আমার মাঝে প্রশ্ন আছে । ১৯ এর থিওরি বাদেও যে কুরআন কে প্রমান করা স্ম্ভব। আনার কিছু কথায় কষ্ট পেলাম । খারাপ কিছু বললে ক্ষমা করবেন । আর আমি আমার স্বাধীন মতামত জানিয়েছি মাত্র। ধন্যবাদ ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

15 − four =