৯৫ ভাগ তরুণই ভুল চিকিত্সার শিকার !!!

4
1256
৯৫ ভাগ তরুণই ভুল চিকিত্সার শিকার !!!

বান্দা_ ইখতিয়!র

আসসালামু আলাইকুম। স্বাগতম আপনাকে। কেমন আছেন আপনি? আশা করি ভাল আছেন। আমি তথ্য প্রযুক্তিকে ভালবাসি। তাই দীর্ঘ
দিন যাবত এখানে আছি। https://www.facebook.com/amidorunto
৯৫ ভাগ তরুণই ভুল চিকিত্সার শিকার !!!

“ওষুধের প্রয়োজন নেই, তবুও রোগী বানানো হচ্ছে”

লেখক: ডা: মোড়ল নজরুল ইসলাম

 

আমি দীর্ঘদিন ধরে দেশের বৃহত্তর তরুণ সমাজকে একটি ভ্রান্ত ধারণা থেকে মুক্তির লক্ষে সমস্যা সমাধানে ডাক্তার-চিকিত্সার প্রয়োজন নেই এমন প্রচারণা চালিয়ে আসছি। বিশেষ করে যেসব তরুণ এবং যুবসমাজ যারা মনে করে তারা নি:শেষ হয়ে গেছে, জীবনে বেঁচে থাকা প্রায় অর্থহীন, ভবিষ্যতে ঘর-সংসার পরিত্যাগ ছাড়া আর কোন গত্যন্তর নেই আমি এমন সব ভ্রান্ত মানসিকতার তরুণদের কথা বলছি। ২০০৪ সালে প্রথম আমি ইত্তেফাকের স্বাস্থ্য পাতায় পুরুষের সমস্যা নামে ধারাবাহিক রচনা শুরু করি। প্রায় ৮ বছর পার হতে চললো তরুণদের একটি বিশেষ স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে লিখে আসছি। এখন আর ধারাবাহিক রচনা নয়, মাঝে মধ্যে লিখি। বিষয় বস্তু অত্যন্ত সোজা-নানা কুসংস্কার আর অপপ্রচারে বিভ্রান্ত বিশাল তরুণ সমাজের একটি বড় অংশ অকারণে মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়ছে। এদের ধারণা শরীরের প্রতি সুবিচার না করায় এরা ধ্বংশ হয়ে গেছে, নষ্ট হয়ে গেছে এদের অনেকের জীবনী শক্তি। অথচ সাইন্টিফিক্যালি এরা সম্পূর্ণ সুস্থ এবং প্রকৃত অর্থে এদের কোন প্রকার শারীরিক সমস্যা নেই। তবুও প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে শতকরা ৯৫ থেকে ৯৮ ভাগ তরুণদের কোন প্রকার শারীরিক সমস্যা নেই। তবে আমাদের মত কিছু কিছু চিকিত্সক (সব নয়) যারা বিশেষজ্ঞ দাবী করে আসছি তাদের অনেকের অতিমাত্রায় বাণিজ্যিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং আক্রান্ত তরুণদের সমস্যা যথাযথভাবে না শুনে নানা উত্তেজক ওষুধের ব্যবস্থাপত্র দেয়ায় পরিস্থিতির আরও অবনতি হচ্ছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে কখনও তরুণদের উত্তেজক ওষুধের ব্যবস্থাপত্র দেইনা তা বলবো না। তবে কখনও কোন অবিবাহিত তরুণদের অপ্রয়োজনে উত্তেজক ওষুধের ব্যবস্থাপত্র দিয়েছি এমন মনে পড়েনা। বরং আমি তরুণ ও যুব সমাজকে সব সময় সব ধরণের উত্তেজক ওষুধ সেবন থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করে থাকি। অথচ ওষুধ দেয়া হচ্ছে, অকারণে বানানো হচ্ছে রোগী। কোন ডাক্তার যদি উত্তেজক ওষুধ ব্যবস্থাপত্রে দিয়ে থাকেন তবে অবশ্যই কেন এ ধরণের ওষুধ দেয়া হলো এবং ওষুধটি শরীরের জন্য ক্ষতিকর কিনা তা জানার অধিকার রোগীর রয়েছে। মনে রাখবেন রোগী মানে কোন গিনিপিগ নয়, ডাক্তার সাহেব যা ইচ্ছে আপনার ওপর চাপিয়ে দেবেন। রোগী হিসাবে প্রয়োজনীয় সময় আপনাকে সংশ্লিষ্ট ডাক্তার দিচ্ছেন কিনা এবং আপনার মনে বিদ্যমান সব প্রশ্নের উত্তর ডাক্তার সাহেব দিয়েছেন কিনা তা দেখার অধিকার রোগীদের রয়েছে। রোগীদের অধিকার আদায়ে অবশ্যই সচেতন হতে হবে।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

যে কথাটি বলতে চাচ্ছিলাম গত কয়েকদিন ধরে বেশ কয়েকজন তরুণ ও বিবাহিত যুবককে পেলাম তারা ভ্রান্ত ধারণার বশে একের পর এক চিকিত্সক পরিবর্তন করেছেন। ব্যবস্থাপত্র দেখলে যে কোন বিবেকবান মানুষের মনে সন্দেহ হওয়া মোটেই অস্বাভাবিক নয়, ডাক্তার সহেবরা কি জেনে শুনেই এসব ওষুধ দিয়েছেন। হারবাল থেকে শুরু করে সব ধরণের দেশী বিদেশী উত্তেজক ওষুধ দিয়েছেন। এসব তরুণদের অভিযোগ যখন ওষুধ বেসন করেন তারা ভালো থাকেন। আর ওষুধ বন্ধ করলে  আগের চেয়েও খারাপ অবস্থা। ডাক্তার সাহেবরা তরুণদের সমস্যা শুনতে চাননা। অথচ খানিকটা ধৈর্যধরে তাদের সমস্যা শুনে কাউন্সিলিং করলে এসব তরুণরা উত্তেজক ওষুধের ক্ষতিকর অবস্থা থেকে রেহাই পেতো। তরুণদেরই বা দোষ দেবো কি করে। আমাদের মত অনেক চিকিত্সক রোগীদের সময় দেননা। প্রয়োজনীয় কাউন্সিলিং তো সোনার হরিণ। যত সময় স্বনামধন্য চিকিত্সক কাউন্সিলিং করবেন তত সময়ে ৪/৫ টি রোগী দেখলে ২/৩ হাজার টাকা আয় হবে। নৈতিকতা, আদর্শ, এথিকস এসব পুস্তকিভাষা। পাঠক আমি সব সময় বলে থাকি আমাদের দেশে অনেক ভালো ডাক্তার আছেন যারা রোগীদের প্রচুর সময় দেন। রোগীদের কথা শোনেন এবং অপ্রয়োজনীয় ওষুধ ও প্যাথলজি পরীক্ষা থেকে বিরত থাকেন। থাক এসব কথা। আমার এবারের লেখার বিষয় বস্তু খানিকটা ভিন্ন ধরণের। হতাশাগ্রস্ত তরুণ যুবকরা একের পর এক ডাক্তার পরিবর্তন ও উত্তেজক ওষুধের স্থায়ী সুফল না পেয়ে অনেকে শেষ ভরসা হিসেবে ইয়াবার মত ধ্বংশাত্মক মাদক সেবন করছেন। সাময়িক ক্ষমতা বাড়লেও দীর্ঘ মেয়াদে এসব তরুণ নিজেদের সর্বনাশ ডেকে আনছেন। মনে রাখতে হবে ইয়াবা, ফেনসিডিল, উত্তেজক ড্রিংক কখনও সুফল আনতে পারেনা। বরং এসব উত্তেজক উপাদান শারীরিক অবশিষ্ট ক্ষমতাও ধ্বংশ করে দেয়। তাই তরুণদের বলবো কোন অবস্থাতেই উত্তেজক ওষুধ, মাদক, ইয়াবার মত সর্বনাশা ড্রাগ সেবন করা চলবেনা। আর পুজনীয় চিকিত্সদের আমার মত অতিসামান্য একজন স্বাস্থ্য লেখকের কি বা বলার আছে। নিজের সন্তানের মমত্ব দিয়ে তরুণদের বুঝতে চেষ্টা করলে এবং তাদের যথেষ্ঠ সময় দিয়ে প্রয়োজনীয় উপদেশ দিলে তারা অবশ্যই আবার স্বাভাবিক চিন্তায় ফিরে আসবে। আমাদের সকলের শ্লোগান হোক আর নয় উত্তেজক ওষুধ। তরুণদের সুন্দর বর্তমান ও আগামী দিনের সুন্দর দাম্পত্যের জন্য আজই নিয়মানুবর্তিতা, ধর্মীয় অনুশাসন ও সুশৃংঙ্খল জীবনের প্রত্যাশায় অঙ্গীকারাবদ্ধ হওয়া জরুরী। কোন ভাবেই অপ্রয়োজনীয় ক্ষতিকর ওষুধ সেবন বাঞ্জনীয় নয়। তবে নিতান্তই যদি কোন ক্ষেত্রে ওষুধের প্রয়োজন হয় তবে অবশ্যই কোন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞের যৌক্তিক পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবন করবেন না। মনে রাখবেন উত্তেজক ওষুধ, ইয়াবা অথবা যে কোন ধরণের মাদকের সবচেয়ে খারাপ দিক হচ্ছে এসব ওষুধের কারণে শরীরের স্বাভাবিক সামর্থ নষ্ট হয় এবং ওষুধের প্রতি নির্ভরশীলতা তৈরী হয় যা বেশীরভাগ ক্ষেত্রে পরবর্তীতে পারিবারিক সংকট তৈরী করে। তাই ওষুধ সেবনের পূর্বে অবশ্যই ভালো ভাবে চিন্তা ভাবনা করতে হবে।

চুলপড়া, চর্মরোগ ও এলার্জি এবং  যৌন সমস্যা বিশেষজ্ঞ

লেজার এন্ড কসমেটিক সার্জন

বাংলাদেশ লেজার স্কিন সেন্টার

বাড়ী-৩৯ (আম্বালা কমপ্লেক্স),

রোড-২ ধানমন্ডি, ঢাকা।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

4 মন্তব্য

  1. হায়রে বাংলাদেশ,
    আপনার কথা গুলুর সাথে আমি একমত,
    কিছু দিন আগেই এই রকম একটা অভিজ্ঞতা আমার নিজের হয়েছিল কিছু কিছু ডাক্তার আছে যারা কসাইর থেকেও আরো নিকৃষ্ট।
    আমার রোগ ধরতে না পেরেও শুধু রোগী হারারনোর ভয়ে আমাকে ভুল চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছিল,তারপর আমি বিষয়টা নিজের বুঝতে পেরে এক রকম পালিয়ে এলাম ডাক্তার সাহেবের কাছ থেকে।
    এখন আর এই পেশাটা সেবা মুলুক ভাবে নেই সম্পুর্ন ব্যাবসায়ি ধ্যান ধারনায় চলে গেছে।
    তারপর আপনি নেশার কথা বললেন মাঝে মাঝে খবরে দেখি আমাদের দেশের অনেক ডাক্তার সাহেব গনই এই সমস্ত নেশার সাথে জরিত।
    কি আর বলব শুধু দোয়া করি আল্লাহ যেন সবাইকে হেদায়েত করেন,
    আর বান্দা_ ইখতিয়!র ভাইকে অশেষ ধন্যবাদ ভাল একটা বিষয়কে এখানে উপস্থাপন করার জন্য।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

4 × 3 =