কোয়ান্টাম মেথড কি? কেন করবেন? অবশ্যই বিস্তারিত দেখুন

5
2675

কোয়ান্টাম কী?

কোয়ান্টাম মেথড কি? কেন করবেন? অবশ্যই বিস্তারিত দেখুন

আত্মশক্তির জাগরণ ঘটিয়ে মেধা, প্রতিভা ও বিশুদ্ধ সম্ভাবনার পরিপূর্ণ বিকাশের মাধ্যমে নিজেকে অনন্য মানুষে রূপান্তরিত করাই এর লক্ষ্য। আর নিজের মেধাকে সমবেত ও সমন্বিতভাবে মানবতা ও সৃষ্টির সেবায় নিয়োজিত করে বিশ্বকে মানবিক মহাসমাজে রূপান্তরিত করাই কোয়ান্টামের স্বপ্ন।

কোয়ান্টাম মেথড

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

quantum image কোয়ান্টাম মেথড কি? কেন করবেন? অবশ্যই বিস্তারিত দেখুন

কোয়ান্টাম মেথড জীবন যাপনের বিজ্ঞান। এ বিজ্ঞান জীবনকে বদলে দেয়ার, জীবনে ভালো রাখার। শুরু হয় জীবনদৃষ্টি বদলের মধ্য দিয়ে। নতুন দৃষ্টিভঙ্গি মস্তিষ্কের নিউরোনে নতুন ডেনড্রাইট সৃষ্টি করে, সূচিত হয় নিউরোনে নতুন সংযোগায়ন প্রক্রিয়া। ফলে মস্তিষ্ক বদলে যায় ইতিবাচকভাবে। আর এর প্রভাব পড়ে ব্যক্তির আচরণ ও দৈনন্দিন প্রতিটি কাজে। অশান্তি পরিণত হয় প্রশান্তিতে। রোগ সুস্থতায় আর ব্যর্থতা সাফল্যে। তিনি লাভ করেন সুস্থ দেহ, প্রশান্ত মন, কর্মব্যস্ত সুখীজীবন।

কোয়ান্টাম মেথড মেডিটেশন

quantum image কোয়ান্টাম মেথড কি? কেন করবেন? অবশ্যই বিস্তারিত দেখুন

প্রাচ্যের সাধনা আর আধুনিক বিজ্ঞানের নির্যাসে সঞ্জীবিত কোয়ান্টাম মেথড মেডিটেশন প্রক্রিয়া। সাধকদের সাধনা ও মনোবিজ্ঞানের প্রক্রিয়ার সমন্বয়ের ফলে সহজে মেডিটেটিভ লেভেলে পৌছে আত্মনিমগ্ন হওয়া যায়। গভীর আত্মনিমগ্নতা আত্মশক্তির জাগরণ ঘটায় ভেতর থেকেই। আর অন্তরের জাগরণ বদলে দেয় জীবনের বাকি সবকিছু।

 

কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন

quantum image কোয়ান্টাম মেথড কি? কেন করবেন? অবশ্যই বিস্তারিত দেখুন

সৃষ্টির সেবায় স্ব-অর্থায়নেই যেকোনো কাজ করা সম্ভব। এক যুগ নিরলস পরিশ্রমে কোয়ান্টাম গড়ে তুলেছে রক্তদাতাদের সবচেয়ে বড় ডোনার পুল ও আধুনিক ল্যাব, রক্ত দিয়ে বাঁচাতে সাহায্য করেছে আড়াই লাখ মানুষের প্রাণ। ধ্যানচর্চার শত কেন্দ্রসহ বান্দরবানের লামার দুর্গম এলাকায় গড়ে তুলেছে এক আলোকিত জনপদ। বিশুদ্ধ পানির জন্যে নলকূপ স্থাপন, সুন্নতে খতনা, মাতৃমঙ্গল, ত্রাণ ও দাফন কার্যক্রমসহ সেবার যেকোনো সুযোগ গ্রহণ করেছে আন্তরিক মমতায়। স্বনির্ভরায়ন প্রকল্পের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করে তুলেছে অবহেলিত পরিবারগুলোকে। হাজার হাজার মানুষকে সঙ্ঘবদ্ধ করেছে সৎ দানে ও সৎ কাজে।

 

চটজলদি জেনে নিন

  • এক কথায় কোয়ান্টামের মূল উদ্দেশ্য কী?

    কোয়ান্টামের মূল উদ্দেশ্য প্রতিটি মানুষের অন্তর্নিহিত শক্তি এবং সম্ভাবনাকে জাগ্রত করা যাতে সে তার মেধার সর্বোত্তম বিকাশ ঘটিয়ে একজন সফল মানুষে পরিণত হতে পারে। সেই সাথে সঙ্ঘবদ্ধ প্রচেষ্টার মাধ্যমে তার একক কল্যাণশক্তিকে বহুগুণে বৃদ্ধি করা। কারণ একক ব্যক্তির প্রচেষ্টায় বড় কোনো কল্যাণমূলক কাজ করা না গেলেও অনেকে যখন সমবেত হন, তখন এটা দিয়েই সম্ভব দূরপ্রসারি কিছু করা। অবশ্য সবকিছুর আগে প্রয়োজন ব্যক্তির আত্মনির্মাণ, ব্যক্তির সাফল্য। কারণ ব্যক্তি যদি সফল না হয়, তাহলে সমাজ সফল হবে না, রাষ্ট্র সফল হবে না। তাই ব্যক্তির আত্মিক, বৈষয়িক, পারিবারিক স্বাস্থ্যগত উন্নয়নের মধ্য দিয়ে সফল মানুষদের সঙ্ঘশক্তি সৃষ্টি করে বিশ্বকে কল্যাণের পথে নেতৃত্ব দেয়াই কোয়ান্টামের মূল উদ্দেশ্য।

  • কোয়ান্টামের কার্যক্রম মূলত কী?

    কোয়ান্টামের কার্যক্রম মূলত দুটি ধারায় পরিচালিত হচ্ছে: আত্মউন্নয়ন এবং সৃষ্টির সেবামূলক। আত্মউন্নয়নমূলক কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে এর সদস্যদের সফল জীবনের সূত্রের পাশাপাশি একজন মানুষ যাতে নৈতিক ও মানবিক গুণাবলি আয়ত্ত করে অনন্য মানুষ হয়ে উঠতে পারে সেজন্যে সারা মাসজুড়ে পরিচালিত হচ্ছে কোয়ান্টামের নানা ধরনের আত্মউন্নয়নমূলক কাজ।
    এর পাশাপাশি সৃষ্টির সেবার জন্যে ফাউন্ডেশন করছে সৃষ্টির সেবামূলক কার্যক্রম। স্বেচ্ছা রক্তদান কার্যক্রম, বান্দরবানের লামায় বঞ্চিত শিশুদের আলোকিত মানুষরূপে গড়ে তোলার জন্যে কোয়ান্টাম শিশুকানন, রাজশাহীতে অভিভাবকহীন শিশুদের আলোকিত মানুষরূপে গড়ে তোলার জন্যে কোয়ান্টাম শিশুসদন, খতনা কার্যক্রম, বিশুদ্ধ খাবার পানি কার্যক্রম, চিকিৎসাসেবা, এবং দুস্থদের ঋণমুক্তি ও পুনর্বাসন কার্যক্রম।

  • কোয়ান্টামের সৃষ্টির সেবা কাজগুলোর অর্থের উৎস কী?

    কোয়ান্টামের প্রতিটি সৃষ্টির সেবামূলক কার্যক্রমের অর্থায়ন হয় ফাউন্ডেশনের সদস্যদের অর্থায়নে। শুধু অর্থায়নই নয়, পরিকল্পনা এবং উদ্যোগও ফাউন্ডেশনের নিজস্ব।কারণ আমরা বিশ্বাস করি, স্ব-উদ্যোগ, স্ব-পরিকল্পনা ও স্ব-অর্থায়নে সৃষ্টির সেবায় যেকোনো কাজ করা সম্ভব। এক্ষেত্রে আমাদের অর্থায়নের একটি জনপ্রিয় উৎস হলো মাটির ব্যাংক। এছাড়াও রয়েছে সদস্যদের অনুদান ও বিশেষ দান।

  • ‘কোয়ান্টাম’ অর্থ কী? কেন এই নামকরণ করা হলো?

    কোয়ান্টাম ফিজিক্স, নিউরো সাইন্স এবং জেনিটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ শতকে বিজ্ঞানমনস্ক মানুষের বিশ্বদৃষ্টিকেই পাল্টে দেয়। যে বিজ্ঞান ছিলো দীর্ঘদিন বস্তুকেন্দ্রিক, নিউটনিয়ান মেকানিক্সের নিগড়ে বন্দি, কোয়ান্টাম মেকানিক্স আসার পর সে বিজ্ঞান এখন হয়ে উঠেছে চেতনানির্ভর। যেহেতু কোয়ান্টাম মেকানিক্স বিজ্ঞান থেকে নির্বাসিত মনকে বিজ্ঞানে পুনর্বাসিত করেছে, তাই চেতনার শক্তিকে, মনের অসীম ক্ষমতাকে মানবতার কল্যাণে ব্যবহারের সহজ ও পরীক্ষিত এই বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিটির নাম আমরা রেখেছি কোয়ান্টাম মেথড।
    কোয়ান্টাম মেকানিক্স বলে পরমাণুর ভেতরে নিউক্লিয়াসকে ঘিরে একটি ইলেকট্রন যখন তার কক্ষপথে ঘোরে তখন ঘুরতে ঘুরতে কেন্দ্রের দিকে এগুতে থাকে। এরই একপর্যায়ে সে একটা উচ্চতর কক্ষপথে লাফ দেয়। খুব দ্রুত ঘটা এ পরিবর্তনটিকে বলা হয় কোয়ান্টাম লিপ বা কোয়ান্টাম উলম্ফন।
    তেমনি একজন মানুষ যখন ধ্যান করে, আত্মনিমগ্নতার গভীরে হারিয়ে যায়, তখন তার মধ্যেও একটা উপলব্ধির স্ফূরণ ঘটে যা তাকে আগের চেয়ে উন্নততর স্তরে নিয়ে যায়। ধ্যানের স্তরে যখন একজন মানুষ যায় তখন কোয়ান্টাম লিপের মতো তার চেতনার জগতেও একটা উলম্ফন হয়। কোয়ান্টাম মেথড নামকরণের এটাও একটা কারণ।
    আর কোয়ান্টাম শব্দের আভিধানিক অর্থ হলো পরিমিতি। কারণ সুস্থ, সুন্দর ও সার্থক জীবনের জন্যে প্রয়োজন পূর্ণাঙ্গ জীবনদৃষ্টি এবং সবকিছুর মধ্যে একটা পরিমিতি। কোয়ান্টাম হচ্ছে সাইন্স অফ লিভিং বা সাইন্স অব ওয়েল বিয়িং। জীবন যাপনের বিজ্ঞান বা ভালো থাকার বিজ্ঞান যা বলে দেয় জীবনটাকে কীভাবে সুন্দর করা যায়, ভুল থেকে কীভাবে দূরে থাকা যায়, আর ভালো বা কল্যাণ কত বেশি করা যায়। তাই আমরা কোয়ান্টামকে বলি জীবন যাপনের বিজ্ঞান, জীবন আচরণের বিজ্ঞান। কোয়ান্টাম চর্চা করে আমরা ভালো থাকছি, আমরা আলোকিত হচ্ছি এবং আলোকিত করছি সাধারণ মানুষকে। বদলে দিচ্ছি নিজেদের এবং পরিচিতজনদের জীবনকে।

  • আমি কীভাবে কোয়ান্টামের সাথে সম্পৃক্ত হতে পারি?

    আপনি কোর্স করতে পারেন-প্রতিমাসেই ঢাকায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে কোয়ান্টাম মেথড কোর্স। কোর্স করে প্রশান্তি সুস্বাস্থ্য সাফল্যের পথে আপনি হতে পারেন ফাউন্ডেশনের আজীবনের একজন সদস্য। আপনি দান করতে পারেন- কোয়ান্টাম মাটির ব্যাংকসহ ফাউন্ডেশনের শিশুকানন, শিশুসদন, টিউবওয়েল, খতনা, দাফনসহ অন্য যেকোনো খাতে দান করে আপনি এর সাথে সম্পৃক্ত হতে পারেন। আপনি রক্ত দিতে পারেন- ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছা রক্তদান কার্যক্রমে আপনি রক্ত দান করতে পারেন।
    আপনি আলোকায়ন, সাদাকায়ন, কোয়ান্টাম ব্যায়ামসহ উন্মুক্ত কার্যক্রমগুলোতে অংশগ্রহণ করতে পারেন। আপনি মেডিটেশন করতে পারেন- সুযোগ থাকলে এখনই ওয়েবসাইট থেকে মেডিটেশন ডাউনলোড করে আরাম করে বসে যান। ধাপে ধাপে ধীরে ধীরে আপনি প্রবেশ করবেন এক অপার্থিব শান্তির জগতে। আর নিজেকে আবিষ্কার করবেন প্রশান্তি সুস্বাস্থ্য সাফল্যের পথে হাজারো সহযাত্রীর একজন হিসেবে।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

5 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

four × five =