ফরেক্স ট্রেডিং বেসিক পার্ট-২

6
462

 

গত পর্বে ফরেক্সের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেছি।আজকে আরও নতুন বিষয় নিয়ে আলোচনা করব ।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

ফান্ডামেনটাল এনালাইসিস করে কিভাবে ট্রেড বসাবেন সেই বিষয়ে আলোচনা করছি।ফান্ডামেনটাল এনালাইসিসের এটা বেসিক ধারণা। এটি অনেক বড় বিষয়।

ইউরো/ডলারঃ যদি আপনার মনে হয় US অর্থনীতি দুর্বল হতে থাকবে তখন ইউরো/ডলার বাই দিতে হবে। অর্থাৎ আপনাকে ইউরো কিনতে হবে এবং রেট যত উপরে উঠবে তত আপনার প্রফিট হবে। তেমনি যদি আপনার মনে হয় ইউএস অর্থনীতি শক্তিশালী হবে তবে সেল দিতে হবে। এক্ষেত্রে মার্কেট নামলে আপনার প্রফিট হবে।

অন্যান্য কারেন্সি পেয়ারের ক্ষেত্রেও একই জিনিস দেখতে হবে। যেমনঃ Yen র ক্ষেত্রে জাপানী অর্থনীতি সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকতে হবে।

পিপস এবং পিপেটসঃ

ফরেক্স মার্কেটে কারেন্সি পেয়ারের দশমিকের পরের চতুর্থ সংখ্যার প্রতি একক পরিবর্তনকে ১ পিপ বলে। যেমনঃ ইউরো/ডলার  ১.৩২৩০ রেটে কিনলেন ।এখন মার্কেট ১.৩২৫০ পর্যন্ত উঠলো এতে আপনার ৩০ পিপ প্রফিট হল।আবার যদি ১.৩২২০ রেটে সেল দিলেন এরপর মার্কেট নেমে ১.৩২০০ পর্যন্ত গেল তখন আপনার প্রফিট হবে ২০ পিপ।

একইভাবে ৫ বা ৩ ডিজিটের ক্ষেত্রে একে পিপেটস বলে। যেমনঃ ইউরো/ডলার রেট ১.৩২২০৫ কিনলেন ।মার্কেট ১.`৩২৫১০ পর্যন্ত উঠলো।তাহলে মার্কেট মুভমেন্ট হয়েছে ৩০ পিপ ৫ পিপেটস অর্থাৎ ।৩০৫ পিপেটস মুভমেন্ট হয়েছে।

লট /ভলিউমঃ

ফরেক্স মার্কেটে আমরা প্রতি পিপস মুভমেন্টে লাভ করতে পারি। অর্থাৎ প্রাইস ১.১৭১০ থেকে ১.১৭২০ এ গেলে আমাদের ১০ পিপস লাভ বা লস হবে। লট/ভলিউমের মাধ্যমে আমরা নির্ধারণ করে দিবো যে প্রতি পিপস আমাদের অনুকূলে বা প্রতিকূলে গেলে আমাদের কি পরিমান লাভ বা লস হবে।

ফরেক্স ব্রোকারে তিন ধরনের লট থাকে।

১।স্ট্যান্ডার্ড লট; ২।মিনি লট; ৩। মাইক্রো লট।

স্ট্যান্ডার্ড লটের ক্ষেত্রে ১ লট =১০$/পিপস, ০.`১ লট=১$/লট ; ০.০১=০.১$/লট । যেমনঃ আপনি ১.`৩২২০ তে ১ লট কিনে বাই দিলেন।মার্কেট ১.`৩২৫০ উঠার পর বিক্রি করলেন। এক্ষেত্রে আপনার লাভ হয়েছে ৩০ পিপ।তাহলে আপনার প্রফিট হয়েছে=৩০*১০$=৩০০$।কারন ১ লট=১০$।তেমনি ০.১লট কিনলে প্রফিট হবে ৩০*১$=৩০$।

০.০১ লট কিনলে প্রফিট হবে=৩০*০.১=৩$।সব কারেন্সির ক্ষেত্রে একই হিসাব।

মিনি লটের ক্ষেত্রে ১ মিনি লট=১$/পিপ্স ;০.১লট=০.`১$/পিপস;০.০১লট =০.`০১$/পিপস।প্রফিট হিসাব স্ট্যান্ডার্ড লটের মত।

মাইক্রো লটের ক্ষেত্রে ১ মাইক্রো লট=০.১$/পিপস; ০.১=০.০১$/পিপস; ০.০১লট=০.`০০১$/পিপস।

 

স্প্রেডঃ

স্প্রেডঃ ফরেক্স ব্রোকারে ট্রেড ওপেন করলে দেখবেন ট্রেড কিছু লসে শুরু হয়েছে। কারন ব্রোকারগুলো প্রতি ট্রেডে কিছু  ফি কেটে নেয়। এই ফি কেই স্প্রেড বলে। যেমনঃ ইউরো/ডলার ক্ষেত্রে বাই/ সেল রেট =১.৩২২২/১.৩২২০। এখন আপনি বাই দিলে ট্রেড ওপেন হবে ১.৩২২২ রেটে ,কিন্তু ট্রেডে পিপ গননা শুরু করতে হবে ১.৩২২০ থেকে ।অর্থাৎ ৩২২০ যত উপরে উঠবে তত পিপ আপনার প্রফিট হবে এবং এই রেটগুলোর মধ্যে যে ২ পিপ পার্থক্য দেখতে পাচ্ছেন তাই স্প্রেড। স্প্রেড কারেন্সি ভেদে ভিন্ন হয়ে থাকে।

লেভারেজঃ

লেভারেজ সুবিধা হচ্ছে আপনি বিভিন্ন ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে ট্রেড করতে পারবেন। কারন ১ স্ট্যান্ডার্ড লট কিনতে ১ লক্ষ ডলার লাগবে ,যা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয় ।সেক্ষেত্রে লেভারেজ সুবিধা নিয়ে অল্প ডলার দিয়েই ট্রেড করতে পারবেন। লেভারেজ ১:১ থেকে ১:৫০০ পর্যন্ত নেয়া যাবে। এটা সব ব্রোকারে গেলেই দেখতে পারবেন। আপনার ডিপোসিট আছে ১০০$ ।কিন্তু এই ডলার দিয়ে আপনি বেশী বড় লট ওপেন করতে পারবেন না। তাই আপনি যদি ১:৫০০ লেভারেজ সুবিধা নেন তবে আপনার ব্যালেন্স হবে =১০০*৫০০=৫০০০০$। সুতরাং আপনি এই পরিমান অর্থ সুবিধা নিয়ে বড় লট ওপেন করতে পারবেন।

ব্রোকার লোন আপনাকে ঠিকই দিবে। লাভ হলে তো ভালোই, লস এর ক্ষেত্রে আপনার লস যদি কোন সময় আপনার ক্যাপিটাল এর সমান হয়, তাহলে সাথে সাথে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার ট্রেড ক্লোজ হয়ে যাবে। ব্রোকার কোন অবস্থাতেই আপনার যা ক্যাপিটাল আছে, তার থেকে বেশি লসে আপনার ট্রেড চলতে দিবে না। এইটাকে ফরেক্সে মার্জিন কল বলে, বাংলাদেশের শেয়ার মার্কেটে বলে ফোর্সড সেল।ভয় পাবার বিষয় । ফরেক্স যেমন খুব লাভজনক বেবসা তেমনি রিস্কও বেশী। তাই একটু পড়াশুনা করে ফরেক্স মার্কেটে নামলে ভালো।

অর্ডার টাইপঃ

স্টপ লস/টেক প্রফিটঃ

ধরুন, আপনি ১.৩৫৪০ তে একটি বাই ট্রেড ওপেন করলেন। আপনি চাচ্ছেন ৫০ পিপস লাভ করবেন এবং ৫০ পিপসের বেশি লস করবেন না। তাহলে আপনি ৫০ পিপস স্টপ লস এবং ৫০ পিপস টেক প্রফিট সেট করে রাখতে পারেন। আপনার কম্পিউটার বন্ধ থাকলে বা হঠাৎ প্রাইস বেড়ে বা কমে গেলে, স্টপ লস বা টেক প্রফিটের প্রাইসে অটোমেটিক ভাবে আপনার ট্রেড ক্লোজ হয়ে যাবে।

মার্কেট অর্ডারঃ

ফরেক্স ট্রেডিং বেসিক পার্ট-২

 

চিত্রে , বিড রেট মানে সেল, আস্ক রেট মানে বাই।বিড এবং আস্কের পার্থক্য হল ৩ স্প্রেড। এখন আপনি বাই দিতে হবে আস্ক রেটে বাই দিতে হবে অর্থাৎ ১.`৭৪৪৮ রেটে। তেমনি সেল দিতে হলে ১.`৭৪৪৫ রেটে সেল দিতে হবে।

ট্রেইলিং অর্ডারঃ

আপনি ১.৩১১০ তে ট্রেড বাই ওপেন করলেন ।টেক প্রফিট দিলেন ১.৩১৬০,স্টপ লস দিলেন ১.`৩০৫০। এখন আপনি ১৫ পিপ ট্রেইলিং চালু করলেন।তাহলে মার্কেট উপরে উঠে ১.৩১২৫ রেটে উঠলে আপনার স্টপ লস হবে ১.৩১১০। এরপর প্রতি পিপ বাড়ার সাথে সাথে ১পিপ করে স্টপ লস বারতে থাকবে। তখন স্টপ লস হবে ১.৩১১১।ট্রেইলিং যদি ২০ পিপ সেট করেন তবে আপনার বাই রেট থেকে ২০ পিপ উঠলে আপনার ঐ ট্রেড আর লসে বন্ধ হবে না। ট্রেইলিং অর্ডার স্টপ লস কমাতে ব্যবহার করা হয়।

সামনের পর্বে ইনডিকেটর , ট্রেডিং প্লাটফর্ম ,এক্সপার্ট এডভাইসর নিয়ে আলোচনা করব।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

6 মন্তব্য

  1. ভাই আপনাকে অনেক ধন্যবাদ কিন্তু ফান্ডামেনটাল এনালাইসিছ কিভাবে করবো তাতো জানালেন না আশা করবো কিছু সাইট এর নাম দিয়ে আরো সাহায্য করবেন

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

7 − 4 =