ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

14
552
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

গেমওয়ালা

হ্যালো! আমি ফাহাদ! গেমওয়ালা হয়ে টিউনারপেজে রয়েছি অনেকদিন ধরেই। আমি একজন পুরোনো টিউনার এই টিউনারপেজের। গেমস নিয়ে রয়েছি আমি তোমাদেরই সাথে। আশা করি আরো বেশ কিছুদিন থাকতে পারবো।
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

হ্যালো? কেমন আছেন আপনারা? নিয়ে এলাম ফটোশপের বিকল্প সফটওয়্যারগুলো নিয়ে আমার ধারাবাহিক টিউন এর ৩য় পর্বে।

এই ধারাবাহিক টিউন এ আমি আপনাদের সাথে কিছু সফটওয়্যার শেয়ার করবো যাদের কাজ ফটোশপেও করা যায় কিন্তু যারা ভালভাবে ফটোশপ পারেন না তাদের জন্য এইসব ‘রেডিমেট” সফটওয়্যার নিয়ে আমি হাজির হব আপনাদের সামনে।

Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

১ম পর্বে দেখিয়েছিলাম কিভাবে আলগা চুল লাগাতে হয় মাত্র ১০মিনিট এ ।

এবং ২য় পর্বে দেখিয়েছিলাম একজনের মাথা কেটে (!) অন্যজনের মাথায় একদম সত্যিকারের ইফেক্ট সহ বসানো।

আর আজকে দেখাবো কিভাবে GIF এ্যনিমেশন সহজে তৈরি করা যায়।

আমরা জানি যে, ফটোশপ এবং ইলাস্ট্যাকটর এই দুটোর সাহয্যে GIF এ্যনিমেশন তৈরি করা যায় কিন্তু সেটা ব্যাপক কষ্টকর এবং সময় এর ব্যাপার।

আজ যে সফটওয়্যার আপনাদের সাথে শেয়ার করবো তার সাহয্যে খুব সহজেই GIF এ্যনিমেশন তৈরি করতে পারবেন। সফটওয়্যারটির নাম SWF Text.

এটি দিয়ে খুবই সহজে জি.আই.এফ. এ্যনিমেশন তৈরি করতে পারবেন।

তো আসুন শুরু করি।

পোষ্টের শেষের দিকে লিংক থেকে সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে সিরিয়াল দিয়ে ফুল ভার্সন একটিভ করুন। এরপর সফটওয়্যারটি ওপেন করুন।

Steps:

1. সফটওয়্যারটি চালু করার পর দুটি ডায়ালগ বক্স আসবে। একটি হল এ্যানিমেশন মেনু আর আরেকটি হল প্রিভিউ বক্স।
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

২। এখানে দেখতে পাচ্ছেন যে এ্যানিমেশন ডায়ালগ বক্সে কতগুলো মেনু আছে যা দিয়ে আপনি আপনার GIF এ্যনিমেশন টি কনফিগার করে নিতে পারবেন। এ্যানিমেশন তৈরি করার পূর্বে প্রিভিউ ডায়ালগ বক্সে উপরের দুটি বাটনে ক্লিক করে রাখুন।
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

এরপর এ্যানিমেশন ডায়ালগ বক্সে Movie বাটনে ক্লিক করে এ্যানিমেশন তৈরি করা শুরু করুন।

৩। Movie বাটনে ক্লিক করার পর আপনাকে যা যা করতে হবে তা হল,
যেই এ্যানিমেশনটি বানাবেন তার Height & Width নির্বাচন করে দিন। নির্বাচন করার সাথে সাথেই প্রিভিউ ডায়ালগ বক্সে আপনার নির্বাচিত সাইজ এ প্রিভিউ দেখাবে।
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।
এরপর হচ্ছে স্পিড। স্পিড আপনার পছন্দ মত নির্বাচন করুন। জি.আই.এফ. এ্যানিমেশন টি যদি মোবাইলের জন্য তৈরি করেন তবে ১০ এর নিচে স্পিড থাকা ভাল।
আর Misc অপশনগুলো না ধরাই ভাল।

৪। এরপরের মেনু হচ্ছে Background.

এ্যানিমেশনটির পিছনের অংশটি কি রং এর হবে তা আপনি ব্যাকগ্রাউন্ড মেনু থেকে সেট করে নিতে পারেন।

এখানে আপনি ৪টি অপশন পাবেন।
a) Solid Color
b) Gradient Color
c) Image
d) Transparent

ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

প্রথমটি হল সলিড রং। যেকোন একটি রং ব্যাকগ্রাউন্ড হিসেবে নির্বাচন করতে পারবেন। যেমন, লাল,নীল,হলুদ ইত্যাদি।

২য় টির সাহায্যে দুটি রং এর কম্বিনেশন করে নির্বাচন করতে পারবেন।

৩য় টির সাহায্যে আপনার পিসিতে সংরক্ষিত যেকোন ছবি নির্বাচন করতে পারবেন। তবে খেয়াল রাখতে হবে যে যেই ছবিটি এ্যানিমেশন এর ব্যাকগ্রাউন্ড হিসেবে ব্যবহার করবেন তার সাইজ যাতে বেশি না হয় । তাহলে এ্যানিমেশন এর আকার বা সাইজ বেড়ে যাবে।

৪র্থটির সাহায্যে আপনি ঝাপসা ইফেক্ট নির্বাচন করতে পারবেন।

আমি ৩য় অপশন মানে কাষ্টম ইমেজ সিলেক্ট করেছি।

৫। এরপরের মেনু হচ্ছে Background Effect.

ডিফল্ট ভাবে সেট করা ব্যাকগ্রাউন্ডের এ্যানিমেশনটি হচ্ছে কতগুলো তীর চিহ্ন বাম থেকে ডান দিকে যাচ্ছে। এখন ডিফল্টটা বাদ দিয়ে ব্যাকগ্রাউন্ড ইফেক্ট লাইব্রেরীর ৪০টি ইফেক্ট থেকে আপনার পছন্দটি নির্বাচন করুন। নির্বাচন করতে ইফেক্ট এর উপর বাম মাউস বাটন এর ডাবল ক্লিক করতে হবে।
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

ইফেক্টটি নির্বাচন করা হয়ে গেলে Property অপশন থেকে ইফেক্টটির সংখ্যা এবং কালার নির্বাচন করুন।
এরপর Alpha Transparency অপশন থেকে ইফেক্টটির ঝাপসা ইফেক্ট এর % নির্বাচন করুন।

৬। এরপরের মেনু হচ্ছে Text.
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

এখানে দেখতে পাচ্ছেন যে এ্যানিমেশনটির মাঝখানে একটি লেখা ভেসে যাচ্ছে। ডিফল্ট ওই লেখাকে মুছে আপনি আপনার পছন্দের টেক্স এখানে লিখতে পারেন। Press Delete > then Add > Type your Text > Press Ok

৭। এরপরের মেনু হচ্ছে Text Effect.
আপনি যেই টেক্সটি লিখেছেন তার কিরুপ এ্যানিমেশন এ দেখাবে তার ইফেক্ট আপনি এখান থেকে নির্বাচন করতে পারেন।
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।
লাইব্রেরি তে মোট ১৬৮টি টেক্স ইফেক্ট থেকে আপনার পছন্দটি বেছে নিন।

৮। এরপরের মেনু হচ্ছে Font.
আপনি যেই টেক্সটি লিখেছেন তার ফ্রন্ট কি হবে তা এখানে নির্ধারণ করে দিতে পারেন। তবে আপনার পিসিতে যদি চমৎকার সব ফ্রন্ট থাকে তাহলে তো কথাই নেই!
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

এরপর লেআউট অপশন থেকে সবকিছু নিজের মত করে ঠিক করে নিন।

৯। এরপরের মেনু হচ্ছে Interaction.

এখানে বিবিধ কয়েকটি অপশন আছে ।
a) Stop Movie Animation after specified loop times.
b) Open Web Page in Browser if user clicks on the Flash Movies
c) Open Web Page in Browser when Flash Movies finished Running.

ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

১মটির কাজ হলো, এটি যদি একটিভ করেন তাহলে নিদিষ্ট সময় বাদে এ্যানিমেশনটি বন্ধ হয়ে যাবে। (এটি না দেওয়াই ভাল)

২য়টির কাজ হলো, এটি একটিভ থাকলে এ্যানিমেশনটি চলাকালে যদি এ্যানিমেশনটির মাঝে কোথাও ক্লিক করেন তাহলে পিসির ওয়েব ব্রাউজার খুলবে এবং নির্বাচিত ওয়েবসাইট এ ব্রাউজিং করবে।

৩য়টির কাজ হলো ২য়টির মতই। শুধু এ্যানিমেশনটি শেষ হলেই ওয়েবসাইট ব্রাউজিং হবে।

১০। এরপরের মেনু হচ্ছে Sound.
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

এই মেনুর সাহায্যে আপনি এ্যানিমেশন এ আপনার পছন্দে সাউন্ড ফাইল যোগ করতে পারেন।
তবে এটা না দেওয়াই ভাল। দিলে এ্যানিমেশন সাইজ অ-নে-ক বেড়ে যাবে এবং এর ফলে পিসি হ্যাং হয়েও যেতে পারে।

১১। এরপর আর কোনো কাজ নেই। এখন এ্যানিমেশনটি সেভ করার পালা। Publish বাটনে ক্লিক করুন।

ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

সেভ করার জন্য ৩টি অপশন পাবেন।
ফটোশপের বিকল্প (পর্ব ৩) : সহজেই তৈরি করুন GIF এ্যনিমেশন।

প্রথমটি নির্বাচন করুন যদি এ্যানিমেশনটি কোনো ওয়েবসাইট এ রাখতে চান।

দ্বিতীয়টি নির্বাচন করুন যদি এ্যানিমেশনটি GIF ফরমেটে সেভ করতে চান।

৩য় অপশন নির্বাচন করুন যদি এ্যানিমেশনটি AVI ফরমেটে সেভ করতে চান। তবে এই ফরমেটে সেভ করলে এ্যানিমেশনটি মুভিতে পরিণত হবে।

আমি ২য় অপশনে সেভ করলাম।

এরপর আপনার পিসিতে ফাইলটির নাম দিয়ে সেভ করুন। ব্যাস হয়ে গেল একটি GIF এ্যানিমেশন।

ডাউনলোড লিংকঃ (2.20 মেগাবাইট)
http://www.ziddu.com/download/19309823/SWFText1.4TunerFaHaD.zip.html

সফটওয়্যারটি চালাতে হলে আপনার পিসিতে Adobe Flash Player 6 এর উপরের ভার্সন (7,8,9,10,11,12) থাকতে হবে।

আশা করি পোষ্টটি আপনাদের ভাল লেগেছে।

আগামীতে আরো ফটোশপের বিকল্প সফটওয়্যারগুলো নিয়ে আমি হাজির হবো আপনাদের সামনে।

ধন্যবাদ।

টিউনারপেজের নতুন টিউন আপনাকে ইমেইল করব?
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting
Unlimited Web Hosting

14 মন্তব্য

  1. কনেক কষ্ট করে tune টি করেছেন, ছবি গুলো দেওয়াতে বুঝতে সুবিধা হয়েছে
    অনেক অনেক ধন্যবাদ সুন্দর পোস্ট টির জন্য

  2. চমৎকার পোস্ট ভাই। চালিয়ে যান। পরবর্তী আকর্ষণের অপেক্ষায় আছি। ধন্যবাদ।

  3. বস আপনে ত উড়াইয়া দিলেন আমার দরকার এটা কন্টিনিউ করবেন আসা করি প্লিজ।
    আপনার নাম কি বদল হয়েছে নাকি?

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

fourteen + thirteen =