ল্যাপটপের যত্ন নিন

    4
    532

    ল্যাপটপের যত্ন নিন

    একসময় ল্যাপটপের দামের জন্য এই প্রয়োজনীয় যন্ত্র টি ছিল অনেকেরই নাগালের বাইরে। কিন্তু এখন আর এই দিন নেই । ল্যাপটপ যেমন সুবিধা দিতে পারে তেমন অসুবিধার ও সৃষ্টি করতে পারে। ল্যাপটপের কোন  যন্ত্রনাংশ নষ্ট হলে একটু বেশিই অসুবিধায় পড়তে হয় । আর এজন্য ল্যাপটপ যত্ন সহকারে ব্যবহার করা প্রয়োজন। আসুন জেনে নিই কিভাবে আপনার ল্যাপটপের যত্ন নিবেন।

     

    সবসময় ল্যাপটপ কে ঠান্ডা রাখার চেষ্টা করুনঃ

    আপনার ল্যাপটপ যতই গরম হবে ল্যাপটপের ততই সমস্যা হবে। এজন্য চেষ্টা করবেন যতটুকু সম্ভব ল্যাপটপ ঠান্ডা রাখতে । আপনার যদি অভ্যাস থাকে বিছানা, বালিশ কিংবা কুশন টেবিল হিসাবে ব্যবহার করে ল্যাপটপ চালানো তাহলে নিজেই নিজের পায়ে কুড়াল মারছেন। কারন এর ফলে ল্যাপটপটির বাতাস চলার পথ (air vent) বন্ধ হয়ে এটি ক্রমশ্যই গরম হয়ে উঠবে। ল্যাপটপের ভেতরটা গরম বা ঠান্ডা রাখার ব্যাপারে সরাসরি আপনার হাতে না থাকলেও বাইরে থেকে একে ঠান্ডা রাখার উদ্দ্যোগ অবশ্যই আপনি নিতে পারেন। এজন্য ব্যবহার করতে পারেন ঈড়ড়ষরহম ঢ়ধফ. যা দুই বা ততোধিক ইউএসবি পাওয়ার ও ফ্যান এর সাহায্যে ল্যাপটপ থেকে তাপ হটায় । বাজারেAntec, Data stor  কিংবা Targus কোম্পানির Coolinhg pad    পাওয়া যায়। ল্যাপটপ শক্ত মসৃণ স্থানে ব্যবহার করুন।

     

    ল্যাপটপের ব্যাটারির যত্ন নিনঃ

    যতই সময় যাবে, ল্যাপটপের ব্যাটারির আয়ু ততই কমতে থাকবে। কত দ্রুত এটি ঘটবে তা নির্ভর করে আপনার ব্যবহারের উপর। সাধারন ব্যবহারের পর আস্তে আস্তে ব্যাটারির আয়ু ক্ষয় হতে থাকে। যখন মেইন পাওয়ার থেকে চালাবেন না শুধু ব্যাটারি দিয়ে চালাবেন তখন খেয়াল রাখবেন ব্যাটারির প্রায় চার্জ শেষ হওয়া পর্যন্ত চালাবেন। মাঝখানে চার্জ দিতে শুরু করলে ব্যাটারির আয়ু কমে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে । সুযোগ থাকলে মেইন পাওয়ার দিয়ে ল্যাপটপ চালানোই উত্তম। তবে সপ্তাহে কমপক্ষে একবার থেকে দুবার ব্যাটরির চার্জ সম্পূর্ণ শেষ করে নতুন করে চার্জ দেওয়াটা ব্যাটারির জন্য ভাল ।

     

    হার্ড ড্রাইভ কে রিফরম্যাট করুনঃ

    আপনার ল্যাপটপের হার্ড ড্রাইভকে রিফরম্যাট করুন করে পুনরায় অপারেটিং সস্টিমে ইনস্টল করুন। যদিও এটি সময় সাপেক্ষ কাজ তারপর ও ভাল ফল পাবেন। প্রয়োজনীয় ডাটা ও ফাইলের ব্যাকআপ নিতে ভুলবেন না। এই কাজটি বছরে একবার করলেই আপনি অনেক সুবিধা পাবেন।

     

    সাবধানে বহন করুন আপনার ল্যাপটপটিঃ

    গঠনগত দিক থেকেই ডেস্কেটপের চাইতে ল্যাপটপ অনেক বেশি স্পর্শ কাতর । কাজেই ল্যাপটপকে সাবধানে ব্যবহার যেমন করবেন তেমনি সাবধানে এটিকে বহন ও করবে হবে। এটিকে বহন করার জন্য এমন একটি ব্যাগ ব্যবহার যা আপনার ল্যাপটপ কে সর্বোচ্চ সুরক্ষা  দিবে। যানবাহনে আপনার ল্যাপটপকে সাবধানে সাথে নিন যাতে কোথাও ধাক্কা না লাগে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, আপনি ল্যাপটপের প্রতি মনোযোগী হলেই নিজেই বুঝতে পারবেন কি ভাবে আপনার গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রটি ব্যবহার করবেন।

     

    4 মন্তব্য

    একটি উত্তর ত্যাগ