নিউটনের তৃতীয় গতিসূত্র

0
293

নিউটনের গতিসূত্র -৩

নিউটনের তৃতীয় সূত্র সম্পর্কে আমরা সবাই জানি ।আজকে আমরা এর মৌলিক বিষয় সম্পর্কে জানবো ।

Advertisement

তৃতীয় সুত্রঃ প্রত্যেক ক্রিয়ার একটা সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে ।

ক্রিয়া বল F1 এবং প্রতিক্রিয়া বল F2 হলে,

F1 = –F2………………………………(১)

ক্রিয়া- প্রতিক্রিয়া কি ?

ক্রিয়া- প্রতিক্রিয়া বলতে এখানে প্রয়োগ কৃত দুইটি বলের কথা বলা হয়েছে।বল দুইটি অবশ্যই সমান কিন্তু বিপরীতমুখী ।যতক্ষণ ক্রিয়া বল থাকবে ততক্ষণ প্রতিক্রিয়া বল থাকবে । ক্রিয়া বল থেমে গেলে প্রতিক্রিয়া বল ও থেমে যাবে ।যেখানেই বল প্রয়োগ করা হবে সেখানেই প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হবে ।আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ক্রিয়া- প্রতিক্রিয়ার প্রয়োগ অসংখ্য । রাস্তা দিয়ে হেঁটে যায় এখানে ক্রিয়া প্রতিক্রিয়া ।নৌকা থেকে লাফ দিয়ে পাড়ে নামা , মাটির ওপর দাড়িয়ে থাকা ইত্যাদি আরো অসংখ্য উদাহরণ আমাদের চোখের সামনে বিদ্যমান ।প্রশ্ন হচ্ছে টেবিলের উপর রাখা একটি বইকে পৃথিবী মহাকর্ষ বলে টানছে আবার টেবিল বইকে উপরের দিকে বল প্রয়োগ ।এখানে কি নিউটনের তৃতীয় সূত্রের প্রয়োগ হয়েছে ??

এখানে নিউটনের তৃতীয় সূত্রের প্রয়োগ হয়নি । কারণ হলো আমরা জানি নিউটনের ১ম ও ২য় সূত্র একটি বস্তু সম্পর্কিত কিন্তু ৩য় সূত্র দুইটি বিষয় সম্পর্কে ।এখানে টেবিল, বই এবং পৃথিবীর মহাকর্ষ বলের মধ্যে ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া বল ঠিকই হয়েছে । কিন্তু এখানে নিউটনের তৃতীয় সূত্রের প্রয়োগ হয়নি ।সূত্র অনুসারে যদি দুইটি বস্তুর ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া বল কাজ করতো তাহলে ৩য় সূত্র প্রয়োগ হতো ।উপরিউক্ত প্রশ্নে তিনটি বস্তু বিদ্যমান ।যদি মহাকর্ষ বল ও বইয়ের মাঝখানে অথবা টেবিল ও বই এর মাঝখানে ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া বল কাজ করলে তৃতীয় সূত্রের প্রয়োগ হতো ।

 

ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ার উদাহরণ

  • রাস্তা দিয়ে হাঁটার সময়, পা দিয়ে মাটিতে আঘাত করি ক্রিয়া বল ।আবার মাটি পা কে বল প্রয়োগ করে প্রতিক্রিয়া বল ।ফলে এভাবেই সামনের দিকে এগিয়ে যায় ।
  • ভূমির উপর দাড়িয়ে থাকার সময় শরীরের সমস্ত ওজন মাটিতে ক্রিয়া বল প্রয়োগ করে অপর দিকে মাটি শরীরকে প্রতিক্রিয়া বল প্রয়োগ করে ।ফলে আমরা মাটতে দাড়িয়ে থাকি ।
  • টেবিলের উপর বইয়ের অবস্থান, টেবিলের উপর বই যখন ক্রিয়া বল প্রয়োগ করে তখন টেবিল বইকে প্রতিক্রিয়া বল প্রয়োগ করে ।তাই বই টেবিলের উপর স্থির থাকে ।

 

ভরবেগের সংরক্ষণশীলতা নীতি

 

ভরবেগের সংরক্ষণশীলতা নীতি হচ্ছে সংঘর্ষের পূর্বে ভরবেগ এবং সংঘর্ষের পরে ভরবেগ অপরিবর্তনশীল । এ ব্যাবস্থার মোট ভরবেগের কোন পরিবর্তন হয় না ।ভরবেগের এ সংরক্ষণ সূত্র কে কাজে লাগিয়ে রকেটের উড্ডয়ন সম্ভব হয়েছে । নিউটনের ৩য় সূত্রের সাথে এর গভীর সম্পর্ক ।একটি ছাড়া আরেকটি অর্থহীন ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

two × two =