জেনে নিন পেপাল এবং পেওনিয়ারের বিকল্প পদ্ধতি। সেরা অনলাইন পেমেন্ট সলিউশন।

0
337

বিভিন্ন অনলাইন মার্কেটে যেমন- আমাজন, ইবে, আলীবাবা ইত্যাদি থেকে পণ্য কিনতে এবং ফেসবুকের মত সোশাল মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন দেবার জন্য কিংবা ডোমেন হোস্টিং কিনতে আপনার লাগবে মাস্টার কার্ড। বাংলাদেশে পেপাল এবং পেওনিয়ার তাই খুবই প্রচলিত। তবে পেপাল কিংবা মাস্টার কার্ড পেতে অনলাইনে আবেদন করতে হয়। যা আনেকের কাছেই ঝামেলা মনে হতে পারে। এখানেই শেষ নয়, বাংলাদেশ থেকে পেপাল এপ্রুভ হয় না। তাই অনেকে বেশী ফি ব্যবহার করে পেওনিয়ার ব্যবহার করে। তাই অনলাইন লেনদেনে কেউই তেমন সন্তুষ্ট নন। তবে এখন আর চিন্তার কোন কারণ নেই। কেননা বাংলাদেশে পেপাল এবং পেওনিয়ারের বিকল্প সলিউশন এসে গেছে।

 

পেপাল এবং পেওনিয়ারের বিকল্প পদ্ধতি:

পেপাল এবং পেওনিয়ারের ব্যবহার আমরা করে থাকি সাধারণত –

১) অনলাইন রিটেইল শপ থেকে কেনাকাটা করতে

২) সোশ্যাল মিডিয়া ও অন্যান্য গ্লোবাল অবেবসাইটে বিজ্ঞাপন দিতে

৩) দেশের বাইরে পেমেন্ট পাঠাতে

৪) অনলাইন স্টোর থেকে সফটওয়্যার, অ্যাপ ও গেইম কিনতে

৫) ডোমেইন হোস্টিং কিনতে

 

এখন, এসবের সবকিছুই আপনি করতে পারবেন পেপাল এবং পেওনিয়ার ছাড়া। বিশ্বের প্রায় মিলিয়নেরও বেশি মার্চেন্ট ওয়েবসাইটে লেনদেন এখন আপনার হাতের মুঠোয়। MasterCard  আপনাকে অফার করছে বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ ও অনন্য ভার্চুয়াল প্রিপেইড কার্ড। এটির দ্বারা এমন কোন কাজ নেই যা করা যাবে না। ভার্চুয়াল কার্ড ব্যবহার করা সবচেয়ে নিরাপদ এবং সবচেয়ে সহজ। বাংলাদেশী টাকা দিয়ে এখন আপনি সবধরনের অনলাইন লেনদেন করতে পারবেন।

 

ভার্চুয়াল কার্ড আসলে কি ?

ভার্চুয়াল কার্ড এমন একটি কার্ড যেখানে কোন ব্যাংক একাউন্ট ছাড়াই যে কেউ রেজিস্ট্রেশন করতে পারে, সহজ ভেরিফিকেশন শেষে অল্প সময়ের মধ্যে কার্ড হাতে পাওয়া যায়, বিশ্বের যেকোনো স্থান থেকে অনলাইনে পেমেন্ট করা যায়, কোন প্রকার মাসিক বা বাৎসরিক ফি দিতে হয় না।

দ্রুত রেজিস্ট্রেশন ব্যবস্থা এবং সহজ পেমেন্ট প্রসেস এর কারণে ভার্চুয়াল কার্ডকে বিশ্বব্যাপী গ্রাহকরা সেরা অনলাইন পেমেন্ট মাধ্যম হিসেবে গ্রহন করেছেন। কিছু ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছাড়া ভার্চুয়াল প্রিপেইড কার্ড যে কেউ নিতে পারবেন, এবং যেকোনো কাজে পেমেন্ট করতে পারবে যখন খুশি তখনই! পেমেন্ট করে বসে থাকতে হবে না কতক্ষনে পৌঁছায় তা দেখার জন্য।

আপনি আপনার কার্ডে যে পরিমান টাকা লোড করবেন, তার সমই ব্যয় করতে পারবেন কোন প্রকার বাড়তি ফিস ছাড়াই। তাছাড়া এখানে আপনার সমস্ত তথ্য সম্পূর্ণ নিরাপদ, বাইরে প্রকাশ পাওয়ার কোন সুযোগ নেই। আপনার প্রত্তেকটি লেনদেনের তথ্যও গোপন রাখা হবে। শুধু তাই নয়,  বিশ্বসেরা সিকিউরিটি প্রযুক্তি ও এনক্রিপসন সিস্টেম ব্যবহার করে ভার্চুয়াল কার্ড তৈরি হয়। ফলে আপনার টাকা হ্যাক হওয়ার বিন্দুমাত্র সম্ভাবনা নেই।

 

কি কি করতে পারবেন ??

১) বিশ্বের এক মিলিয়নের বেশি সাইট থেকে অনলাইনে কেনাকাটা করতে পারবেন (যেমনঃ Amazon, E-Bay, Ali express, Rakuten, Overstock etc.)

২) আপনার অনলাইন বিজ্ঞাপন ক্যাম্পেইন এর জন্য পেমেন্ট করতে পারবেন  ( যেমনঃ Facebook, Google, Youtube, Twitter, Instagram etc.)

৩) আপনার স্মার্টফোন কিংবা কম্পিউটারে অনলাইন থেকে গেমস, অ্যাপ, টুলস, গান, সিরিজ, মুভি সহ প্রয়োজনীয় যেকোনো জিনিস কিনতে পারবেন।

৪) বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে আপনার ইম্পোর্ট -এক্সপোর্ট বিজনেস এর জন্য অনায়াসে পেমেন্ট করুন নিরাপদে।

৫) অনলাইনে কোর্স ফি প্রদান এবং GRE, TOFEL, GMAT, SAT ইত্যাদি প্রতিযোগিতামূলক পরিক্ষার ফি প্রদান করতে পারবেন।

৬) আপনার বিদেশের মাটিতে যাওয়া, প্লেনের টিকেট কাটা, হোটেল বিল, গাড়ি ভাড়া সহ সমস্ত খরচ এখন ভার্চুয়াল কার্ড দিয়ে পরিশোধ করতে পারবেন।

৭) টপ র‍্যাংকিং সাইট থেকে আপনার ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে পারবেন। (যেমনঃ bluehost, Name.com, web.com, hostgator, Godaddy, namecheap)

৮) আপনার প্রিয় মানুষদের সারপ্রাইজ দিন দারুণ সব ভার্চুয়াল গিফট কার্ড দিয়ে। এই গিফট কার্ড ব্যবহার করে অনলাইনে কেনাকাটা করা যাবে ইচ্ছে মত।

 

প্রযুক্তি আপনাকে দিচ্ছে সবচেয়ে সহজ ও নিরাপদ লেনদেন ব্যবস্থা। সেদিন আর বেশী দূরে নাই যখন মানুষ মানিব্যগ কিংবা ওয়ালেট বাদ দিয়ে ব্যবহার করবে ভার্চুয়াল কার্ড।