ব্যবসা হিসাবে গড়তে পারেন ই-কর্মাস

0
249
ব্যবসা হিসাবে গড়তে পারেন ই-কর্মাস

TAJUL

আমি তাজুল ইসালম একজন পার্ট টাইম ব্লগার।তাছাড়া আমার সবচেয়ে ভাল লাগার বিষয় হল তথ্য-প্রযুক্তি।
ব্যবসা হিসাবে গড়তে পারেন ই-কর্মাস

ব্যবসা করবেন? সহস্রাধিক ব্যবসা রয়েছে যা কিনা আপনি বাসায় বসেই করতে পারবেন। আর তাছাড়া যারা পেশাজীবি তারাও চায় চাকুরীর পাশাপাশি বাড়তি একটু ইনকাম। বাংলাদেশে এই মুর্হুতে সবচেয়ে মজার এবং লাভজনক ব্যবসা হল ই-কর্মাস। ইলেকট্রনিক ই-কর্মাস বা ই-কর্মাস একটি বানিজ্য ক্ষেত্র যেখানে কোন ইলেকট্রনিক সিস্টেম এর মাধ্যমে পণ্য বা সেবা ক্রয়/ বিক্রয় হয়ে থাকে। আধুনিক ইলেকট্রনিক কমার্স সাধারণত ওয়েবসাইট কিংবা সোস্যাল প্লাটর্ফম (ফেইসবুক, টুইটার ইত্যাদি) এর মাধ্যমে বানিজ্য কাজ পরিচালনা করে। এছাড়াও আরো অনেক ধরনের ব্যাখ্যা রয়েছে।ecomchallenges ব্যবসা হিসাবে গড়তে পারেন ই-কর্মাস

আসুন এবার আমরা ব্যবসা হিসাবে ই-কর্মাসের একটি বিশেষ ক্ষেত্র দেখি। আপনি ইচ্ছা করলে পণ্য ও সেবা ক্রয়-বিক্রয় করতে পারেন। ধরুন আপনার কিছু উৎপাদিত পণ্য রয়েছে যেমন প্যান্ট, থ্রি-পিছ, ওড়না, শাড়িসহ পোশাকাদি। সেগুলো ছবি তুলে ওয়েবসাইট কিংবা ফেইসবুকের মাধ্যমে বিক্রি করতে পারনে। এজন্য আপনার প্রয়োজন হবে একটি ওয়েবসাইট এবং হোষ্টিং। বাংলাদেশে প্রচুর ওয়েবসাইট ডেভেলপার রয়েছে তাদের সাথে যোগাযোগ করে একটি সুন্দর ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারেন।

এছাড়া আপনি চাইলে আপনার পণ্যগুলোর অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেও অনলাইনে বিক্রি করতে পারেন। যেমন ধরুন আপনার কিছু পণ্য রয়েছে যা আপনার পক্ষে সেগুলোর ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিক্রি করা সম্ভব নয়। তাই আপনি চাইলে অন্যদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমেও আপনার পণ্য গুলো বিক্রি করতে পারবেন। এমন কিছু ওয়েবসাইট হল – দারাজ বাংলাদেশ, কেইমু বাংলাদেশ, আজকের ডিল, আপগ্রেড রিটেইল

যেহেতু ইলেকট্রনিক কমার্স গ্রাহকদের বিভিন্ন পণ্য সহজে খুঁজে পাওয়া এবং তুলনামূলক বিশ্লেষনের একটি ক্ষেত্র তৈরি করে দিয়েছে, তাই এটি প্রতিযোগীতামূলক বাজার তৈরীতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করছে। এছাড়া ফেইসবুকে পণ্য বিক্রি করতে হলে আপনার দরকার হবে একটি ফেইসবুক বিজনেস পেইজ। তারপর সেগুলোকে ফেইসবুকের মাধ্যমে প্রমোট করে পেতে পারেন আশানুরুপ ফলাফল। কনসালটেশন পেতে চাইলে নিচে মন্তব্য করুন।

LEAVE A REPLY

two + 1 =