যেসব প্রোগ্রাম উইন্ডোজ ১০-এ ইনস্টল করা উচিত  FavoriteLoadingবুকমার্ক

সম্প্রতি উইন্ডোজ ঘরণার নতুন অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজ ১০ অবমুক্ত হয় এবং ইতোমধ্যে উইন্ডোজ পরিবারের আগের সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজ ৭-এর মার্কেট শেয়ার ধীরে ধীরে দখল করে নিতে শুরু করেছে।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে, নতুন এ অপারেটিং সিস্টেমে আপনি কী ধরনের কাজ করতে চাচ্ছেন। এর সাথে আরও প্রশ্ন হলো, কেনো এতে নতুন সফটওয়্যার ইনস্টল করবেন। অবশ্য এ লেখায় গেম সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়নি, বরং প্রয়োজনীয় টুল সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে, যেগুলো সিস্টেমে নতুনভাবে ইনস্টল করা হয়েছে, যাতে সিস্টেম থেকে সেরা পারফরম্যান্স পাওয়া যায়। তাদের জন্য এ টুলের লিস্ট হলো আদর্শ, যারা ইনস্টল করেন স্ক্র্যাচ থেকে ফরম্যাটেট এবং ইনস্টল করা উইন্ডোজ ১০। এ লিস্টে যেসব টুল সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়েছে, সেগুলা ফ্রি। এবং এসব টুল ব্যবহার করলে ব্যবসায়িক দৃষ্টিকোণ থেকে কোনো ঝুঁকি নেই।

index যেসব প্রোগ্রাম উইন্ডোজ ১০-এ ইনস্টল করা উচিত

ব্রাউজার
আমরা অনেকেই জানি এবং বিশ্বাস করি, আমাদের ডাউনলোড ও ইনস্টল করা প্রথম আইটেম হলো ওয়েব ব্রাউজার। অবশ্য এখানে মাইক্রোসফটের নতুন বিল্ট-ইন ওয়েব ব্রাউজার এজ-কে এড়িয়ে যাওয়ার কথা বলা হচ্ছে না মোটেও। তবে ব্রাউজিং সলিউশন্স যেমন- গুগল ক্রোম এবং মজিলা ফায়ারফক্স দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার হয়ে আসছে এবং এদের অনেক বুকমার্ক লোড হয়ে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।
এ কারণেই এসব ব্রাউজার আপনার কাছে খুব পরিচিত এবং আপনি এদের কার্যকর ক্ষমতা সম্পর্কে খুব ভালো ধারণা রাখেন। সম্ভবত আপনি ডেস্কটপ ব্রাউজারকে মোবাইল ভার্সনের সাথে যুক্ত করতে পারেন, যাতে আপনার বুকমার্ক যেকোনো ডিভাইস থেকে অ্যাক্সেসযোগ্য হয়। ইনস্টল করুন আপনার প্রিয় ব্রাউজার, যখন মাইক্রোসফট এজের কথা জানতে পারছেন। এতে যদিও আপনি পাবেন না মাল্টি-ডিভাইসের এক্সপেরিয়েন্স, কেননা এজ শুধু উইন্ডোজ ১০-এ অফার করা হয় এবং খুব শিগগিরই এক্সবক্সে অফার করা হবে।
ডেয়মন টুলস
আপনার ল্যাপটপ বা রিগে অপটিক্যাল ড্রাইভ ইনস্টল করেছেন কী? যদি না করে থাকেন, তাহলেও কোনো সমস্যা নেই। এমন অবস্থায় সহায়তা দেবে ডেয়মন টুল। ডেয়মন টুলস (Daemon Tools) দিয়ে আপনার ফিজিক্যাল সিডি/ডিভিডি/এইচডি ডিভিডি/ব্লুরে ডিস্ক ইত্যাদির ‘ভার্চুয়াল ডিস্ক’ বা ‘ডিস্ক ইমেজ’ ফাইল ব্যাকআপ করতে পারবেন, যা সরাসরি আপনার হার্ডডিস্কে রান করে। এই টুল একটি ভার্চুয়াল ড্রাইভ তৈরি করে এবং ব্যবহারকারীকে ইমেজ ফাইলে যেমন- আইএসও বা এমডিএসে ‘মাউন্ট’ করার সুযোগ দেয়। অন্যান্য বার্নিং প্রোগ্রামের মাধ্যমে তৈরি ইমেজ দিয়ে আপনি কাজ করতে পারবেন। ডেয়মন টুলস বিভিন্ন ধরনের ইমেজ সাপোর্ট করে। সিডি/ডিভিডি ইমেজ কনভার্টার ব্যবহার করুন, যাতে আপনার ইমেজ ক্যাটালগে একটি ইমেজ ফরম্যাট থাকে।
ডেয়মন টুলস ওয়েবসাইটে সম্পৃক্ত রয়েছে ডেয়মন টুলস লাইট ১০, যা ফ্রি ব্যবহার করা যায়। আপনি ইমেজ তৈরি, স্টোর, মাউন্ট করার জন্য বেছে নিতে পারেন একটি ফ্রি অ্যাপ এবং বাড়তি প্রো ফিচারের জন্য পে করতে পারেন, যা সত্যিকার অর্থে আপনার দরকার অথবা অর্ধেক খরচায় একটি সম্পূর্ণ প্যাকেজ পেতে পারেন।
সিক্লিনার
সিক্লিনার হলো সিস্টেম অপটিমাইজেশন, প্রাইভেসি ক্লিনিং টুল। পিসি অপটিমাইজেশনের এ টুলটি ডেভেলপ করে পিরিফরম, যা মোটামুটিভাবে বেশ ভালোভাবে ব্যবহার হচ্ছে। এ টুলের রয়েছে একটি ফ্রি, একটি প্রোফেশনাল (২৫ ডলার) এবং একটি প্রোফেশনাল প্লাস (৪০ ডলার) ভার্সন।
সিক্লিনার টুলের ফ্রি ভার্সন ইন্টারনেটে আপনার প্রাইভেসি চেক করার পাশাপাশি কমপিউটারের গতি বাড়ায় অপ্রয়োজনীয় ফাইল মুছে ফেলার মাধ্যমে। এ টুল ব্যবহারকারীর অনলাইন অ্যাক্টিভিটির চিহ্ন যেমন- ইন্টারনেট হিস্ট্রি মুছে ফেলে। যদি আপনি প্রফেশনাল ভার্সন বেছে নেন, তাহলে পাবেন প্রিমিয়াম টেকনিক্যাল সাপোর্ট, অটোমেটিক আপডেট এবং রিয়েল-টাইম মনিটরিং। আর প্রফেশনাল প্লাস সম্পৃক্ত করে একটি ফ্র্যাগমেন্টেশন টুল ও ফাইল রিকোভারি।
সিক্লিনারের কোন ভার্সন বেছে নিয়েছেন, তা বিবেচ্য বিষয় নয়। কেননা, এ টুলকে এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে আপনার পিসি টেম্পোরারি ইন্টারনেট ফাইল থেকে অব্যাহতি পায়, উইন্ডোজ রেজিস্ট্রির অকার্যকর এন্ট্রি ডিলিট করে, স্টার্টআপ থেকে অনাকাঙিক্ষত প্রোগ্রাম অপসারণ করাসহ আরও অনেক কাজ করে থাকে যেমন- টেম্পোরারি ফাইল, হিস্ট্রি, কুকিজ, সুপার কুকিজ, অটোকমপ্লিট ফরম হিস্ট্রি, ইনডেক্স ডট ড্যাট, ডাউনলোড হিস্ট্রি মুছে ফেলে।
অ্যাপাচি ওপেনঅফিস
অ্যাপাচি ওপেনঅফিস হলো ওয়ার্ড প্রসেসিং, স্প্রেডশিট, প্রেজেন্টেশন, গ্রাফিক্স, ডাটাবেজ ইত্যাদি ওপেনসোর্স অফিস সফটওয়্যার স্যুটের নেতৃত্বদানকারী। অ্যাপাচি ওপেনঅফিস হলো অ্যাপাচি ২.০ লাইসেন্সের অন্তর্গত একটি ওপেনসোর্স অফিস স্যুট, যা ফ্রি দেয়া হয়। অ্যাপাচির পক্ষ থেকে উল্লেখ করা হয়, ওপেনঅফিস স্টোর করে আন্তর্জাতিক ওপেন স্ট্যান্ডার্ডের সব ফরম্যাট এবং ওপেনঅফিস স্যুটে সম্পন্ন করা ফাইল ফরম্যাট সেভ ও রিড করতে সক্ষম। এ স্যুট অনেক ভাষায় পাওয়া যায় এবং কমন কমপিউটারে কাজ করতে পারে। এটি ফ্রি ডাউনলোড করতে পারবেন এবং যেকোনো উদ্দেশ্যে বিনা খরচে ব্যবহার করতে পারবেন।
এই অফিস স্যুটে ফোকাস করা বান্ডেলে সম্পৃক্ত রয়েছে রাইটার (ওয়ার্ড প্রসেসর), ক্যালক (স্প্রেডশিট এডিটর), ইম্প্রেস (সস্নাইড শো), ড্র (আর্ট ওয়ার্ক), বেজ (ডাটাবেজ) এবং ম্যাথ (ইক্যুয়েশন এডিটর) ইত্যাদি।
যদি আপনি মাইক্রোসফটের সর্বাধুনিক অফিস স্যুট কেনার জন্য অর্থ খরচ করতে না চান, তাহলে বিকল্প হিসেবে চৎকার এক অফিস স্যুট ওপেনঅফিস ব্যবহার করতে পারেন। এ অফিস স্যুট খুব সহজে ব্যবহার করা যায়। এ অফিস স্যুটের সর্বাধুনিক ভার্সন ওপেনঅফিস ৪.১.১, যা গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা সমাধানের জন্য অবমুক্ত হয়।
স্কাইপে
ভিওআইপি কল, ইনস্ট্যান্ট মেসেজিংয়ের সাথে মিলে স্কাইপে নামের কমিউনিকেশন টুল চালু করা হয় ২০০৩। সবচেয়ে বড় সেলিং পয়েন্ট হলো অন্যান্য স্কাইপে ব্যবহারকারীরা বিনা খরচে স্কাইপে কল করতে পারেন। এটি এক বিশাল ব্যাপার, যদিও একটি টিমের সদস্যরা বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে কাজ করে থাকেন। এর ফলে সবাইকে অফিসে এসে দেখা-সাক্ষাৎ করার দরকার হয় না।
স্কাইপে দিয়ে আপনি শেয়ার করতে পারেন গল্প, জন্মদিনের উৎসব, ভাষা, অফিসের সহকর্মীদের মিটিং করাসহ আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে যা কিছু দরকার সব কিছুই। স্কাইপেকে ব্যবহার কারতে পারেন ফোন বা কমপিউটারে বা টিভিতে।
অপারেটিং সিস্টেমের একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তারকারী মাইক্রোসফট ২০১১ সালে তার আধিপত্যকে আরও সুদৃঢ় করতে জনপ্রিয় কমিউনিকেশন টুল স্কাইপেকে ৮৫০ কোটি ডলার দিয়ে কিনে নেয়, যা ছিল এক দুঃসাহসিক পদক্ষেপ এবং প্রযুক্তিবিশ্বের অনেকে এতে বিস্মিত হন। বর্তমানে আমরা দেখছি, এ সার্ভিস আপাতদৃষ্টিতে এক্সবক্স ওয়ান কন্সোল এবং আউটলুক ডটকমসহ সর্বত্রই পপআপ করছে। যেসব কাস্টোমার অফিস ৩৬৫-এর জন্য গ্রাহক হন, তারা স্কাইপেতে পান ৬০ মিনিট ফ্রি কলিং অর্থাৎ মোবাইল এবং ল্যান্ডলাইনের নন-স্কাইপের সদস্যার কল করতে পারেন। স্কাইপে ব্যবহারকারীরা শেয়ার করতে পারেন ফাইল, স্ক্রিনসহ অনেক কিছু।
জিআইএমপি
জিএনইউ ইমেজ ম্যানিপুলেশন প্রোগ্রামের সংক্ষিপ্ত রূপ হলো জিআইএমপি। জিআইএমপি তৈরি করে স্পেন্সার কিম্বাল (Spencer Kimball)। প্রকৃত অর্থে জিআইএমপি অবমুক্ত হয় জেনারেল ইমেজ ম্যানিপুলেশন প্রোগ্রাম হিসেবে এবং এর ডেভেলপমেন্ট প্রসেস শুরু হয় ১৯৯৫ সালে ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার একটি প্রজেক্ট হিসেবে।
গ্রাফিক ইমেজ তৈরি এবং ম্যানিপুলেশনের জন্য জিআইএমপি হলো ওপেনসোর্স অ্যাপ্লিকেশন, যা লিনআক্স, অন্যান্য ইউনিক্সভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেমসহ উইন্ডোজ এবং ম্যাক ওএস এক্সে রান করে। জিএনইউ প্রজেক্টের মাধ্যমে লাইসেন্সিংয়ের অন্তর্গত নির্দিষ্ট কিছু শর্তে জিআইএমপি ডিস্ট্রিবিউটেড হয়। আপনি হয়তো জিআইএমপি পেতে পারেন একটি অন্যতম অপশনাল অ্যাপ্লিকেশন হিসেবে, যা যেকোনো বড় লিনআক্স প্যাকেজে পাওয়া যায়, যেগুলো ডিস্ট্রিবিউট হয় ডেবিয়ান এবং পেড হ্যাটের মাধ্যমে।
এটি আপনি সরাসরি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। জিআইএমপি অফার করে ফটো রিটাচিং, ইমেজ কম্পোজিশন এবং ইমেজ অথরিং সুবিধা এবং অ্যাডোবি ফটোশপ ও ইলাস্ট্র্যাটরের সাথে পক্ষপাতমূলকভাবে তুলনাযোগ্য।
স্পাইবট-সার্চ অ্যান্ড ডেস্ট্রয়
স্পাইবট-সার্চ অ্যান্ড ডেস্ট্রয় হলো ম্যালিশাস তথা ক্ষতিকর সফটওয়্যার খুঁজে বের ও অপসারণ করার জন্য এক সেট টুল। এর ‘ইমিউনাইজেশন’ ফিচার অগ্রাধিকারভিত্তিতে ব্রাউজারকে রক্ষা করে থ্রেডের বিরুদ্ধে। এর ম্যালওয়্যার শনাক্তকরণ সলিউশন্স ২০০০ সাল থেকে ব্যবহার হয়ে আসছে, যা মূলত ডেভেলপ করে জার্মান সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার প্যাট্রিক মাইকেল কোলস্না যা পরে কিনে নেয় সেফার নেটওয়ার্কিং লিমিটেড। স্পাইবট-সার্চ অ্যান্ড ডেস্ট্রয় টুলের তিনটি প্রকারভেদ রয়েছে, যার প্রথমটি ফ্রি ভার্সন, দ্বিতীয়টি হোম ভার্সন এবং তৃতীয়টি প্রফেশনাল ভার্সন।
স্পাইবট-সার্চ অ্যান্ড ডেস্ট্রয় টুলের ফ্রি ভার্সন ম্যালিশাস এবং বিপজ্জনক রুটকিটের জন্য স্ক্যান করে এবং ভীতিকর সফটওয়্যার অপসারণ করে। স্পাইবট প্রদান করে স্টার্টআপ টুলস, ব্লক করে ক্ষতিকর ওয়েবসাইট এবং প্রক্সি দেয়ার মাধ্যমে ব্যবহারকারীদেরকে রক্ষা করে তালিকাবিহীন ম্যালিশাস ওয়েবসাইট এবং কুকি থেকে।
হোম ভার্সন সামান্য কিছু বেশি ফিচার-প্যাক সমৃদ্ধ, যুক্ত করে পরিপূর্ণ অ্যান্টিভাইরাস প্রটেকশন, লাইভ প্রটেকশন এবং আরও অনেক কিছু। সেফার নেটওয়ার্কিং যা কিছু অফার করতে পারে, প্রফেশনাল ভার্সন সেসব কিছু অফার করে যেমন- আইফোন অ্যাপ স্ক্যান, রেজিস্ট্রি রিপেয়ার, একটি সিকিউর ফাইল শ্রেডার ইত্যাদি।
ফাইল শ্রেডার
রিকোভার করার সম্ভাবনা নেই, এমন অনাকাঙিক্ষত ফাইল ছেঁটে ফেলার জন্য ফাইল শ্রেডার হলো এক ফ্রি ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন। ফাইল শ্রেডার দিয়ে আপনি হার্ডড্রাইভ থেকে নির্ভয়ে ফাইল অপসারণ করতে পারবেন। উইন্ডোজ ওএসের অন্তর্গত বর্তমানে সামান্য কয়েকটি সফটওয়্যার টুল আছে, যেগুলো ডিলিট করা ফাইল রিট্রাইভ তথা উদ্ধার করতে পারে। এসব টুলকে সচরাচর রেফার করা হয় ‘ফাইল রিকোভার’ সফটওয়্যার হিসেবে।
ফাইল শ্রেডার নামের একটি ফ্রি টুল GNU/GPL General Public License-এর অন্তর্গত অফার করা হয়। ডেভেলপারের তথ্যমতে, এ সফটওয়্যার একটি সিঙ্গেল স্পটে ফাইল একাধিকবার ‘ইরেজ’ করবে ‘random series of binary data’ রাইট করার মাধ্যমে, যাতে অরিজিনাল ফাইলে আর অ্যাক্সেস করা না যায়।
ফাইল শ্রেডারকে ডেভেলপ করা হয় কোম্পানির ফাইলকে দ্রুত, নিরাপদে শ্রেড তথা ছেঁটে ফেলার জন্য বিশ্বস্ত টুল হিসেবে। ফাইল শ্রেডারের পাঁচটি বিভিন্ন ধরনের শ্রেডিং অ্যালগরিদম থেকে আপনি একটি বেছে নিতে পারেন, যা শক্তির দিক থেকে বিভিন্ন হতে পারে। প্রতিটি ফাইল শ্রেডার আগেরটির চেয়ে উন্নত থেকে উন্নততর করে ডেভেলপ করা হয়। এখানে একটি ডিস্ক ওয়াইপার ফিচার আছে, যা অব্যবহৃত ডিস্ক স্পেসকে স্ক্র্যাপে পরিণত করে এবং উইন্ডোজ শেল ইন্টিগ্রেশনের জন্য একটি টোগাল অপশন আছে। ফাইল শ্রেডার একটি খুব ছোট প্রোগ্রাম, যা উইন্ডোজ ১০-এ কাজ করে।
সেভেন-জিপ
জিপ (ZIP) এবং রার (RAR) ফাইলের জন্য আর অর্থ খরচ করতে চান না? তাহলে ফ্রি ওপেনসোর্স আর্কাইভ ফাইল সেভেন-জিপ (7-Zip)-এর কথা ভাবতে পারেন ব্যবহারের জন্য, যা অনেকটা GNU LGPL লাইসেন্সের অন্তর্গত। ওয়েবপেজ থেকে জানা যায়, এটি মিক্সড লাইসেন্সের অন্তর্গত আনরার (unRAR) কোড সাপোর্ট করে।
ডেভেলপারের তথ্যমতে, সেভেন-জিপ দেয় একটি Zip/GZIP তুলনামূলক অনুপাত, যা উইনজিপের (WinZip) চেয়ে ভালো। এটি একটি প্রিমিয়াম আর্কাইভ হ্যান্ডেলার। সেভেন-জিপ উইন্ডোজ শেলে ইন্টিগ্রেট হয়। এর রয়েছে ‘strong’ AES-256 এনক্রিপশন (জিপ এবং সেভেন জেড ফরম্যাট) দেয় একটি ফাইল ম্যানেজার।
ভিএলসি মিডিয়া প্লেয়ার
ভিএলসি মিডিয়া প্লেয়ার উইন্ডোজ, ম্যাক ওএস এক্স, বিভিন্ন ধরনের লিনআক্স বিল্ডসহ মোবাইল প্লাটফরম যেমন- অ্যাপলের আইওএস এবং গুগলের অ্যান্ড্রয়িড সাপোর্ট করে। কোডেক ইনস্টল না করে ভিএলসি MP3, DivX, MPEG-2, H.264সহ আরও কিছু প্লে করতে পারে। এ সফটওয়্যার ডিভিডি, ভিসিডি, অডিও সিডি ইত্যাদিও প্লে করতে পারে এবং বেশ কিছু স্ট্রিমিং প্রটোকল সাপোর্ট করে

এই জাতীয় আরো টিউন

আপনিও লিখুন মতামতের উত্তর

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

twenty − 2 =