উইন্ডোজ ১০ এর কিছু বিনামূল্য তথ্য  FavoriteLoadingবুকমার্ক

ফ্রি-তে এ দুনিয়ায় কিছুই মেলে না। যেমনটি মেলেনি উইন্ডোজ ১০-এর ক্ষেত্রেও। যদিও উইন্ডোজ ১০ বিনামূল্যে ছাড়ার ঘোষণা হয়েছিল। তবুও এতে ঠিকই লুকানো খরচ রয়েছে। এগুলোর কতা জানাচ্ছেন ফোর্বসের বিশেষজ্ঞ গর্ডন কেলি।
index উইন্ডোজ ১০ এর কিছু বিনামূল্য তথ্য

১. যদি মনে করেন উইন্ডোজ ১০ বিনামূল্যে দিতে মাইক্রোসফট প্রচুর অর্থ ভর্তুকি দিচ্ছে, তবে ভুল করছেন। এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে মাইক্রোসফট। এ সময়ের মধ্যে ১.৫ বিলিয়ন ডলারের রেভিনিউয়ের হিসাব দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এর আগেও মাইক্রোসফট উইন্ডোজ সংস্করণ ছাড়ার পর প্রায় একই ধরনের রেভিনিউ ঘরে তোলে।

২. আসল কথা হলো, উইন্ডোজ ১০ সব সময়ের জন্যে ফ্রি নয়। উইন্ডোজ ১০ ছাড়ার সময় তাদের ঘোষণা ছিল, উইন্ডোজ ৭ ও ৮-এর আপগ্রেড বিনামূল্যে দেবে তারা। একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর উইন্ডোজ ১০ হোম-এর জন্যে ১১৯ ডলার এবং উইন্ডোজ ১০ প্রো-এর জন্যে ১৯৯ ডলার গুনতে হবে। এই আপগ্রেডের পন্থা থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থের সুযোগ সৃষ্টি হয়। ডিফল্ট সেটিংসয়ের মাধ্যমে উইন্ডোজ ১০ এত বেশি ক্রেতা পায় যা চিন্তাই করা যায় না। আপগ্রেডের পেছনে মাইক্রোসফটের শতভাগ নিয়্ন্ত্রণ ছিল। এর মাধ্যমে নতুন নতুন সব ফিচার এবং সেবা প্রদান করে প্রতিষ্ঠানটি। এ ছাড়া ফ্রি অপশনের মাধ্যমে উইন্ডোজ ধীরে ধীরে তাদের নিজেদের পণ্যগুলোর ব্যবহার অভ্যাস করিয়েছে ব্যবহারকারীদের। গত বছরের আগস্টে কিছু আপডেটের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের ডিফল্ট ব্রাউজারের মতো ফিচার দেওয়া হয়। আবার নভেম্বরে আবারো আপডেটের মাধ্যমে অটোমেটিক থার্য পার্টি অ্যাপগুলো মুছে ফেল হয়। সম্প্রতি উইন্ডোজ ১০-এর সার্চ বারে অন্য প্রতিষ্ঠানের সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করা হলে তা ব্লক করে দেওয়া হবে বলে জানায় মাইক্রোসফট। ব্যবহারকারীর ডিফল্ড ব্রাউজার যাই হোক না কেন, সব ফলাফল এজ-এ লোড করতে হবে।

এ ধরনের ব্যবস্থায় অনেকেই উইন্ডোজ ১০ নেবেন না বলে মনস্থির করেন। কিন্তু তারা ম্যাক ওএস এক্স-এ না গেলে আপগ্রেড করতেই হবে।

উইন্ডোজের ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো ঘোষণা দেওয়া হয় যে, নতুন উইন্ডোজ আসার পর পুরনো উইন্ডোজগুলো আর নতুন হার্ডওয়্যারে চলবে না। যেমন- উইন্ডোজ ৭ এবং উইন্ডোজ ৮ কখনো আধুনিক মডেলের ইন্টেল, এএমডি এবং কোয়ালকম চিপসেট চলবে না।

এ ছাড়া উইন্ডোজ ১০-এর অ্যাপ স্টোর যথেষ্ট পরিমাণ রেভিনিউ আনতে সক্ষম। এই অ্যাপগুলো কম্পিউটার, ট্যাব এবং মোবাইলে চলে।

অ্যাপলের মতো প্রতিযোগীর চেয়ে মাইক্রোসফটের কৌশল ভিন্ন। তবে এমন লুকানো খরচের কারণে মাইক্রোসফটের সমালোচনা করছেন খোদ ব্যবহারকারীরাই। তবে ফ্রি ঘোষণা দিয়েও মাইক্রোসফট ঠিকই তাদের লাভ ঘরে তুলেছে।

এই জাতীয় আরো টিউন

আপনিও লিখুন মতামতের উত্তর

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

15 − 1 =