কর্মক্ষেত্রে সাফল্য নিশ্চিত করুন

0
132

অনেককিছুরমতোকর্মজীবনেরসাফল্যআপনারকাছেনিজেথেকেইএসে ধরা দিবেনা।আপনাকেসাফল্যঅর্জনকরতেহলেকঠিনপরিশ্রমকরতেহবে।একজন পেশাজীবিকর্মক্ষেত্রেযোগদানের পরেই তারউর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সন্তুষ্টির জন্যসেই কোম্পানির নিজস্বপদ্ধতি, কাজওদায়িত্ব সম্পর্কেকিছুকাউন্সিলিংবাপ্রশিক্ষণেরআশাকরে। আপনি যখন শুরু করবেন তখন আপনাকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে, তবে বাস্তবতা হচ্ছে পরবর্তীতে প্রত্যেকটি বাঁধা এড়ানোর জন্যে সবসময় আপনি পরামর্শ এবং নির্দেশাবলী পাবেন না। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় একজন কর্মীর দক্ষতা এবং যোগ্যতা যখন তার কর্মজীবনের সাফল্য, অভ্যাস এবং রুটিন এর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তখন কোম্পানির উৎপাদনশীলতা এবং উন্নয়নের উপরও একটি বড় প্রভাব পরে। তাই কর্মীদের অধিকাংশ সাফল্যকে একটি বড় পে-চেক কিংবা পদোন্নতির মাধ্যমে পুরস্কৃত করা হয়।

index কর্মক্ষেত্রে সাফল্য নিশ্চিত করুন

সাফল্যনিশ্চিতকরারজন্যসহজকিছুঅভ্যাস নিয়ে নিম্নে আলোচনা করা হলোঃ

  • সহযোগীতা এবং একই সাথে স্বাধীনতা থাকতে হবেঃ

আপনার ব্যক্তিগত প্রতিভা ও আপনার অবদানগুলোকে সময়মতো তুলে ধরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু এর পাশাপাশি সকলের সাথে একটি ভালো সম্পর্ক ও কর্মক্ষেত্র গড়ে তোলার প্রতিও আপনাকে আপনার দক্ষতা দেখাতে হবে। এর ফলে আপনার পদোন্নতির সময় আপনার সহকর্মীদের সমর্থন পাবেন, যা আপনাকে পরবর্তী ধাপে পৌঁছাতে সাহায্য করবে। কিছু ক্ষেত্রে  আপনাকে সৃজনশীল হতে হবেঃ

সবসময় উন্নতমানের, সুলভ এবং দ্রুত গতিতে কাজের অভ্যাস থাকতে হবে, কাজকে কঠিনভাবে না করে বরং দক্ষতা সহকারে করা উচিৎ। নিয়মিত কাজগুলোর প্রতি সৃজনশীল হতে হবে।কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে সঠিক কাজগুলোকে যাচাই করে নেয়া উচিৎ। ইতিবাচক পরিবর্তন নিশ্চিত করতে হলে আপনার উদ্ভাবনী মানসিকতা থাকতে হবে।

  • সমালোচনামূলক হতে হবেঃ

যদিও ভুল সংশোধন করে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া জরুরী তবে এর পাশাপাশি আপনাকে মাঝে মাঝে নিজের কাজটি পর্যালোচনা করা উচিৎ। আপনার কাজটি সঠিক হয়েছে কিনা তার ধারনা পেতে হলে নিজের কাজটিকে যাচাই করে দেখতে হবে যাতে ভুল হলে তা সংশোধন করে নিতে পারেন। আপনার নিজের কাজটি পর্যবেক্ষনের মাধ্যমে আপনি আরো সৃজনশীল হয়ে উঠবেন, প্রয়োজনবোধে আপনি আপনার গ্রুপের সদস্যদের কাছ থেকে সাহায্য বা মতামত নিতে পারেন।

  • ঝুঁকি নিনঃ

আপনার একটি ঝুঁকি নেয়ার ফলে আপনার নির্দিষ্ট ক্ষেত্রের বাহিরেও চিন্তাভাবনা করার ক্ষমতা বাড়ে এবং আপনার কাজের প্রতি আত্মবিশ্বাস ও দক্ষতা প্রমাণিত হয়। আমরা প্রত্যেকেই এটা জানি যে, যখন আপনি আপনার বর্তমান কার্যক্ষেত্রের নির্ধারিত সব কাজ ও দায়িত্ব সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ ওপরিচালনা করতে পারবেন তখন আপনাকে কর্মক্ষেত্রের পরবর্তী চ্যালেঞ্জ এর জন্য এগিয়ে যেতে হবে।

 

এই টিপসগুলো ব্যবহার করে আমরা আমাদের কর্মক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য চেষ্টা করতে পারি। যদিও এই টিপসগুলো খুব ছোট এবং সহজ কিন্তু এর ফলে আপনার সহকর্মী ও উর্ধস্থন কর্মকর্তাদের আপনার প্রতি দৃষ্টিভঙ্গীর উপর একটি বড় প্রভাব পরবে। আপনি যদি  নিম্নপদস্থপর্যায়ে আপনার সাফল্য প্রমাণ করতে পারেন তবে ভবিষ্যতে উচ্চ পর্যায়ে আপনার যোগ্যতা প্রমান করতেও কোনো কোন সমস্যা হবে না।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here