স্বাস্থ্যকর জীবনের পাঁচটি রহস্য

0
161

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন সবার জন্যই উপকারী, তবে চাইলেই সেই মাফিক চলাফেরা করা যায় না। অনেক সময় দেখা যায়, স্বাস্থ্যের দিকে নজর রাখতে গিয়ে কাজ হচ্ছে না, আবার কাজের দিকে নজর রাখতে গিয়ে স্বাস্থ্যের দশা নাজেহাল। সব মিলিয়ে ব্যস্ততায় শেষটায় কোনোদিকই সামলে চলা হয়ে ওঠে না।

তবুও নিজের জন্য তো একটু আলাদা করে ভাবার ফুরসত রাখা চাই। স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের জন্য বোল্ডস্কাই ওয়েবসাইটের রয়েছে কিছু পরামর্শ, একেবারে গোপন রহস্য বলতে পারেন! মেনে চললে আখেরে আপনারই লাভ।

main_home1_770x350 স্বাস্থ্যকর জীবনের পাঁচটি রহস্য

১. নিজেকে একটু প্রশ্রয় দিন

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের অন্যতম শর্ত হলো চাপ সামলানোর উপায় জানা। চাপ মানসিক ও শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে আমাদের। চাপ তো থাকবেই। তবে একে সামলানোর উপায়ও জানা চাই।

চাপ সামলাতে মাঝে মাঝে নিজেকে একটু প্রশ্রয় দিন। মনের খুশিতে ঘরে একটু মোমের বাতি জ্বালান। সেই আলোর দিকে তাকিয়ে থাকুন। দেখবেন ধীরে ধীরে শান্ত লাগছে। পাশাপাশি গোসলের সময় বাথরুমেও রাখতে পারেন মোমবাতি। বা আরো সোজা করে বললে, মনে চেয়েছে তাই একটা মোমবাতি জ্বালিয়ে দিলেন, ব্যস!

এ ছাড়া বই পড়ুন, পছন্দের গান শুনুন, সম্ভব হলে পার্লারে গিয়ে একটু বডি ম্যাসাজও করাতে পারেন। আরাম বোধ হবে।

২. ধূমপান ছাড়ুন

বহুবার শুনেছেন এই কথাটি, তাই না? শুনতে শুনতে কী বিরক্ত? কী আর করা বলুন, এমন অভ্যাস করে ফেলেছেন যা আপনার শরীরকে ভীষণ ভোগাবেই কেবল; তাই ধূমপান ছাড়ুন কথাটি বলতেই হয়। চাইলে তো অসম্ভবও কখনো কখনো সম্ভব হয়ে ওঠে, তাই না? তাই দেখুন চেষ্টা করে ছাড়তে পারেন কি না এই বদভ্যাসটি!

৩. খাবারের দিকে রাখুন খেয়াল

স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস করুন। বার বার পরিমিত খান। তিন বেলা বড় খাবারের পাশাপাশি তিন বেলা ছোট খাবারও খান। দুধ, ডিম, সবজি, সালাদ খাদ্য তালিকায় রাখুন। পর্যাপ্ত পানি পান করুন। চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন।

৪. ব্যায়াম বাদ দেবেন না

প্রতিদিন অন্তত আধা ঘণ্টা হাঁটুন। চাইলে গানের তালে তালে একটু নেচেও নিতে পারেন কিছুক্ষণ। স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করতে ব্যায়াম বাদ দেওয়া যাবে না। ব্যায়াম মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করবে, হৃৎপিণ্ডকে ভালো রাখবে, ওজনও কমাবে।

৫. স্বাস্থ্য সম্বন্ধে জানুন

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের আরেকটি রহস্য হলো স্বা্স্থ্য সম্বন্ধে জ্ঞান; রোগব্যাধি সম্বন্ধে সচেতন থাকা। টেলিভিশনের স্বাস্থ্যবিষয়ক অনুষ্ঠানগুলো দেখুন। পত্রিকায় বা অনলাইনে স্বাস্থ্য পাতা পড়ুন। এগুলো স্বাস্থ্য সম্বন্ধে সচেতন হতে আপনাকে সাহায্য করবে।

একটি উত্তর ত্যাগ