ই-কমার্সে সফল হওয়ার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস…

0
201

সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও জনপ্রিয় হচ্ছে ই-কমার্স। সময় আর ঝামেলা বাঁচিয়ে ক্রেতারা কেনাকাটা করছেন অনলাইনে। উদ্যোক্তা হিসেবে অনেকেই ভাবছেন ই-কমার্স শুরু করবেন।আবার অনেকেই ই-কমার্স সাইট পরিচালনাও শুরু করে দিয়েছেন। ই-কমার্সে সফল হওয়ার টিপস দিয়েছেন বাংলাদেশের তিনটি ই-কমার্স সাইটের উদ্যোক্তারাপ্রতিষ্ঠাতা, এখনই ডটকম ও সভাপতি, বাংলাদেশ সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস

* ই-কমার্সের জন্য তৈরি ওয়েব পোর্টালটি হতে হবে ব্যবহারবান্ধব। বেশি ভালো সাইট বানাতে গিয়ে যেন মূল জিনিসটা হারিয়ে না যায়। অর্থাৎ কেনাবেচার স্থানটা যেন হারিয়ে না যায়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

*নতুন সাইটের বিপণন বা ব্র্যান্ডিং করার জন্য নানা ধরনের সৃজনশীল চিন্তা করা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে বিভিন্ন মাধ্যম (মিডিয়া) বড় ভূমিকা রাখতে পারে।

ecommerce-image ই-কমার্সে সফল হওয়ার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস…

*ব্যবসার শুরুতে নতুন একটি সাইট (মার্কেট) তৈরি না করে বর্তমানে যেসব সাইট (মার্কেট) প্রতিষ্ঠিত বা জনপ্রিয়, সেখানে নিজের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। নতুন ব্যবসায়ীদের জন্য দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কম মূল্যে জায়গা ভাড়া দেয়।

*নিজে যদি একটি নতুন বাজার সৃষ্টি করতে চান, তাহলে কয়েক কোটি টাকা নিয়ে শুরু করতে হবে। নিজের প্রতিষ্ঠান থেকে সরবরাহ করা পণ্যের মান নিশ্চিত করতে হবে। তাহলে ক্রেতা বাড়বে।

*নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পণ্য সরবরাহ করতে পারা বাংলাদেশের ক্ষেত্রে একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তাই এদিকে নজর রাখুন।

* ঠিকমতো পণ্য সরবরাহ করতে নির্ধারিত একটি কুরিয়ার সার্ভিসের সঙ্গে আলাদা চুক্তি করে নিতে পারলে ভালো হয়। এতে সেবার মান বাড়তে পারে।

* যেহেতু এটা প্রযুক্তিনির্ভর বাজার, তাই ইন্টারনেট ব্যবহার করে ক্রেতারা যাতে সহজে সাইটে যেতে পারেন, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। ব্যান্ডউইডথ ভালো থাকাটা তাই জরুরি।

*শুরুতেই বড় আকারে নয়, ছোট পরিসরে নির্দিষ্ট একটা এলাকা বেছে নিয়ে ই-কমার্সের যাত্রা শুরু করা যেতে পারে।

* চাইলে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করতে পারেন ফেসবুকে একটা পেইজের মাধ্যমে; যেখানে নানা রকম ঝুঁকি মোকাবিলা করতে শিখবেন।

* অনেক পণ্য আছে যেগুলো মানুষ ধরে দেখতে চায়, যেমন পোশাক। এদিক কীভাবে সামলানো যায়, সেটার নতুন কোনো পদ্ধতি উদ্ভাবন করতে পারেন।

* পণ্যের দাম কীভাবে নেবেন, সেটা বুঝে নিন আগেভাগে। পণ্য পৌঁছে দিয়ে দাম নেওয়া বা ‘ক্যাশ-অন ডেলিভারি’ হলে এক রকম, আবার কার্ডের সুবিধা দিলে কোনো ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি করে নিতে পারেন।

* যে এলাকায় বা অঞ্চলে ব্যবসা করবেন, সেখানে যেসব ব্যাংকের সুবিধা আছে, তাদের সঙ্গে চুক্তি করতে পারলে ভালো হয়।

*আজকাল অবশ্য এসএসএল কমার্সের মতো অনেক কোম্পানি আছে, যারা আপনার হয়ে ব্যাংক-চুক্তি বা কার্ডের সমাধান করে দেবে।

* যেসব পণ্য নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা আছে সেগুলোতে ঝুঁকি বেশি। তাই ক্ষতির কথাটা মাথায় রেখে পণ্য বেচাকেনা করতে হবে।

* নিজের প্রতিষ্ঠান সম্বন্ধে ক্রেতাদের একটা পরিষ্কার ধারণা দিতে হবে। ওয়েব পোর্টাল থাকলে মনে রাখতে হবে সেখানে ক্রেতা বা ভিজিটর যেটুকু প্রয়োজন সেটুকু দেখবেন। কিন্তু এর বাইরে অফিস ব্যবস্থাপনার নানা তথ্য বা নিয়ম এখানে থাকবে, যা শুধু অফিসের কর্মীদের জন্য।

* যাঁরা ই-কমার্স ব্যবসায় যুক্ত হতে চান, তাঁদের অবশ্যই তথ্যপ্রযুক্তির জ্ঞান থাকাটা জরুরি

* অনেক টাকাপয়সা জোগাড়ের দরকার নেই। অনেক সময় টাকা ছাড়াও এটা শুরু করা যেতে পারে। তবে অবশ্যই আইডিয়া থাকতে হবে।

* প্রাথমিকভাবে অনেক পণ্য নিয়ে যাত্রা না করে অল্প পণ্যে ব্যবসা শুরু করুন।

* শুরুতেই নিজের ই-কমার্সের জন্য আলাদা সাইট না করে কোনো প্রতিষ্ঠিত সাইটের সঙ্গে কাজ করতে পারেন। এতে নিজের পণ্যের প্রচার-পসার হবে। যেমন—আলিবাবা ডটকম।

*নিজের পণ্যের সাইট অবশ্যই দেশের সাধারণ ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখে বানাতে হবে। শুরুতেই যেন ক্রেতা বা দর্শনার্থীকে আকর্ষণ করতে পারে।

*যাতে খুব সহজে ক্রেতা পণ্যটি দেখতে পারেন, সেই ব্যবস্থা রাখতে হবে ওয়েব পোর্টালে।

* ই-কমার্সের ওপর একটা প্রাথমিক প্রশিক্ষণ নিয়ে শুরু করলে সহজেই ওপরে উঠতে পারবেন।

* একটা সাইট হুটহাট শুরু করে আবার বন্ধ করে দিলে ক্রেতাদের মনোযোগ নষ্ট হয়। তাঁরা আস্থা হারিয়ে ফেলতে পারেন। তাই সবদিক ভেবে যাত্রা শুরু করুন।

* অনেক জনবল নিয়ে শুরু না করে, বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষ চার-পাঁচজন দিয়েই শুরু করতে পারেন।

* ক্রেতা যেন কখনো প্রতারিত না হন। এ ছাড়া, শুরু থেকেই ক্রেতাকে ভালো মানের পণ্য দিতে হবে।

* দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ক্রেতা ফোনে বা অনলাইনে অর্ডার দিতে পারেন। তাই তাঁর আর্থিক লেনদেন নিয়ে ঝামেলা যতটা সহজে মেটানো যায়, এদিকে খেয়াল রাখাটা অনেক জরুরি।

উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

15 + 13 =