স্মার্টফোন যেসকল কাজে বেশি লাগে

0
252

স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা নানা কাজেই ব্যবহার করেন তাঁদের প্রিয় যন্ত্রটিকে। তবে স্মার্টফোনে যত অ্যাপ থাকে তার মধ্যে যোগাযোগের অ্যাপই বেশি ব্যবহার করেন তাঁরা। গতকাল বৃহস্পতিবার প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এরিকসন প্রকাশিত একটি গবেষণা প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে। খবর আইএএনএসের।
এরিকসেনর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্মার্টফোনে ব্যয় করা সময়ের ৩০ শতাংশই যোগাযোগের অ্যাপ্লিকেশনগুলো ব্যবহার করে পার করেন ব্যবহারকারীরা। স্মার্টফোনে বিনোদন, গেম কিংবা ছবি তোলার মতো নানা ফাংশান থাকলেও স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের একটি বড় অংশই তাতে কথা বলে, বার্তা পাঠিয়ে বা সামাজিক যোগাযোগে বা ইন্টারনেট ব্রাউজিং করে সময় কাটান।

Honor-6-white-710x310 স্মার্টফোন যেসকল কাজে বেশি লাগে

এরিকসন কনজুমার ল্যাবের জ্যেষ্ঠ পরামর্শক সোয়েতলেনা সোয়াইন বলেন, গবেষণায় দেখা গেছে মোবাইল ব্রডব্যান্ডের ব্যবহারের দিক থেকে যোগাযোগের অ্যাপ্লিকেশনগুলোর পেছনে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ ডেটা খরচ হয়।
প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, যোগাযোগের ধরন ও যোগাযোগের অ্যাপ্লিকেশনগুলো বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে সংস্কৃতি ও ভাষা। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা স্মার্টফোন কথা বলার জন্যই বেশি কাজে লাগান। জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকেরা স্থানীয়ভাবে তৈরি যোগাযোগের অ্যাপ ব্যবহার করে বার্তা আদান প্রদান বেশি করেন।
এরিকসন কনজুমার ল্যাব-এর ওই গবেষণায় ৪০টি দেশের ১৫টি বড় শহরের এক লাখ মানুষের স্মার্টফোন ব্যবহারের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করা হয়েছে।
গবেষণায় দেখা গেছে, ভারতীয়রা ৪৭ শতাংশ ক্ষেত্রেই যোগাযোগের জন্য স্মার্টফোন ব্যবহার করেন। এর মধ্যে বেশির ভাগ সময় যায় মোবাইলে কথা বলে। ১৪ শতাংশ সময় পার হয় স্মার্টফোনের অন্য দরকারি অ্যাপগুলো ব্যবহার করে। বিনোদন অ্যাপে ১১ শতাংশ ও গেম অ্যাপে ১০ শতাংশ সময় ব্যয় করেন ভারতীয়রা।
আর স্মার্টফোনে ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন হিসেবে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ, হাইক, ফেসবুক মেসেঞ্জার, গুগল হ্যাংআউটস ও উইচ্যাট।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

17 − thirteen =