ফ্রিলেন্সার হিসেবে অর্থ আয় করার ৫টি ধাপ

1
215

ফ্রিলেন্সার হিসেবে অর্থ আয়ের ৫টি ধাপ

ফ্রিলেন্সিং অবশ্যই কেউ সখ করে করেনা এর প্রধান উদ্দেশ্য অর্থ আয়। আপনাকে জানতে হবে আপনি কি কি পন্থা অবলম্বন করলে একজন ভালো ফ্রিলেন্সার হতে পারবেন এবং ফ্রিলেন্সিং করে অর্থ আয় করতে পারবেন। যারা আগে থেকে ফ্রিলেন্সিং এর সাথে যুক্ত তাঁরা জানেন কিভাবে কি কি পদ্ধতি অবলম্বন করলে কাজ পাওয়া যাবে এবং ভালো মূল্য পাওয়া যাবে তাঁর পরও ফ্রিলেন্সিং সেক্টর প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে এখানে বর্তমান ফ্রিলেন্সাররা নতুন নতুন টেকনিক প্রয়োগ করার মাধ্যমে কাজ পাচ্ছেন সহজে। যারা নতুন ফ্রিলেন্সিং শুরু করতে যাচ্ছেন তাঁরা এ ক্ষেত্রে বিষয় সমূহের সাথে পরিচিত না থাকায় সুবিধা করতে পারেন না তাই ফ্রিলেন্সিং পেশায় যারা নতুন তাঁদের জন্য আমাদের আজকের পরতিবেদনঃ

freelancer-make-money ফ্রিলেন্সার হিসেবে অর্থ আয় করার ৫টি ধাপ

ফ্রিলেন্সিং পেশায় সাফল্য পেতে আপনাকে যা যা করতে হবে

১। ওয়েব ডেভেলপমেন্টের কাজ করার চেষ্টা করুনঃ আপনি যদি বড় বড় ফ্রিলেন্সিং সাইট সমূহ যেমন Freelancer.com, Elance.com, Guru.com and UpWork.com ইত্যাদির কাজ অফার দেখেন তবে দেখবেন সেখানে বেশীরভাগ কাজ হচ্ছে ওয়েভ ডেভেলপমেন্টের কাজ। অতএব আপনি যদি ওয়েব ডেভেলপমেন্টের কাজ জানে ফ্রিলেন্সিং পেশায় আসেন তবে ভালো আয় করতে পারবেন।

২। প্রোগ্রামিং এর কাজঃ ফ্রিলেন্সিং পেশায় ২য় বেস্ততম পেশা হচ্ছে প্রোগ্রামিং। নানান রকম প্রোগ্রামিং এর কাজের জন্য নানান ইস্কিলের লোক প্রয়োজন হয় প্রোগ্রামিং এর কাজে। আপনি যদি প্রোগ্রামিং জানেন এবং প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের সাথে ভালভাবে পরিচিত হন তবে ফ্রিলেন্সিং করে আপনার পক্ষে ভালো অর্থ আয় সময়ের ব্যাপার মাত্র। আপনাকে প্রোগ্রামিং এর যে সব ল্যাংগুয়েজ এর উপর গুরুত্ব দিতে হবে তা হচ্ছেঃ Java programming, Visual Basic programming, .Net programming, C++ programming।

৩। গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজঃ আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ জানেন তবে ফ্রিলেন্সিং এ আপনি প্রচুর কাজ পাবেন। পৃথিবী জুড়ে মানুষ গ্রাফিক্স সম্পর্কিত নানান কাজ করাছে যেমন লোগো ডিজাইন, ব্যানার ডিজাইন, টি- শার্ট ডিজাইন ইত্যাদি। আপনার যদি ভালো গ্রাফিক্স ডিজাইনের দক্ষতা থাকে তবে আপনি ফ্রিলেন্সিং করে ভালো আয় করতে পারবেন।

৪। লেখা লিখির কাজঃ ফ্রিলেন্সিং জগতে নানান কাজের মাঝে লেখা লিখি যেমন ব্লগে আর্টিকেল লিখা, এসইও ডাইরেক্টরি আর্টিকেল লিখা, ক্রিয়েটিভ আর্টিকেল, একাডেমিক আর্টিকেল লিখা ইত্যাদি। আপনার যদি লেখালিখিতে ভালো আয়ত্ত থাকে তবে আপনি এর থেকেও ভালো উপার্জন করতে পারবেন।

৫। ডেটা এন্ট্রি কাজঃ বাংলাদেশ বর্তমানে ফ্রিলেন্স ডেটা এন্ট্রি সেক্টরে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। বর্তমানে বাংলাদেশের অনেক ফ্রিলেন্সার বিদেশীদের সাথে তাল মিলিয়ে ভাল আয় করে নিচ্ছেন। এখনও এই সেক্টরে প্রচুর কাজ পাওয়া যাচ্ছে। আপনি যদি সফল ভাবে বিড করতে পারেন তবে আপনি ভালো ভালো কাজ পাবেন এবং নিজে স্বাবলম্বী হয়ে উঠতে পারবেন।

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ