এখন থেকে পর্নোগ্রাফি রুখতে ডোমেইন নিয়ন্ত্রণ করবে সরকার

0
170

সাইবার নিরাপত্তা জোরদারে ও ইন্টারনেট ব্যবহারে শৃঙ্খলা আনতে ডোমেইন ব্যবহারের নীতিমালা করতে যাচ্ছে সরকার। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডোমেইন পরিচালনার দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল) ইতোমধ্যে ১২ পৃষ্ঠার একটি খসড়া নীতিমালা তৈরি করে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। খসড়া প্রস্তুতে ভারতের ডোমেইন নীতিমালা অনুসরণ করা হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

images15 এখন থেকে পর্নোগ্রাফি রুখতে ডোমেইন নিয়ন্ত্রণ করবে সরকার

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের একজন ঊধ্বর্তন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, নীতিমালা না থাকায় দেশীয় ডোমেইনের প্রচলন কম। নীতিমালা হলে ডোমেইন ব্যবহারে একটা শৃঙ্খলা আসবে। সাইবার সন্ত্রাস ও হয়রানি বন্ধে এটি কার্যকর ভূমিকা রাখবে। বিশেষ করে পর্নোগ্রাফি সমৃদ্ধ সাইটগুলো নিয়ন্ত্রণ করা সহজ হবে। ডোমেইন নিবন্ধন পদ্ধতিও সহজ হবে।

ডোমেইন নিবন্ধন পদ্ধতি, ডোমেইনের বিক্রয় মূল্য, ব্যবহারের শর্তাবলীসহ বিভিন্ন দিক উঠে এসেছে খসড়ায়।

এই খসড়ার ওপর খাত সংশ্লিষ্টদের মতামত নেয়া হবে। এজন্য সব স্টেক হোল্ডারদের সঙ্গে বসবে টেলিযোগাযোগ বিভাগ। সর্বসাধারণের মতামত নিতে এটি ওয়েব সাইটে দেয়া হবে। সবার পরামর্শ অনুসারে খসড়া চূড়ান্ত করে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নিয়ে মন্ত্রিসভায় পাঠানো হবে।

বাংলাদেশের প্রথম নিজস্ব ওয়েব ঠিকানা হলো ডটবিডি। দেশের পরিচয়বাহী কান্ট্রি কোড টপ-লেভেল ডোমেইনটি (সিসি-টিএলডি) ২০০৩ সালে নিবন্ধিত হয়। এরপর প্রায় এক যুগ পেরিয়ে গেলেও বিটিসিএলের উদাসীনতায় এর (ডটবিডি) নিবন্ধন প্রত্যাশিত গতি পায়নি। এখনো পর্যন্ত মাত্র ২৫ হাজার ওয়েবসাইট ডট বিডি ঠিকানাটি ব্যবহার করছে ।

বিটিসিএল জানিয়েছে, শিগগিরই অনলাইনের মাধ্যমে ডটবিডির নিবন্ধন প্রক্রিয়া চালু হবে। এর ফলে এ ডোমেনের ব্যবহার বাড়বে বলে সংস্থাটির আশা।

এছাড়া বাংলা ভাষার স্বকীয়তাযুক্ত ডটবাংলা নামের আরেকটি ডোমেইন ব্যবহারের অনুমতি পেয়েছিল বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের আবেদনের প্রেক্ষিতে ডোমেইন নেম সিস্টেম পরিচালনাকারী সংস্থা ইন্টারনেট করপোরেশন ফর অ্যাসাইনড নেমস অ্যান্ড নাম্বারস (আইসিএএনএন) ২০১১ সালের মার্চে ডট বাংলার অনুমোদন দেয়। কিন্তু সংশ্লিষ্টদের অবহেলায় এটি চালু করা সম্ভব হয়নি।

গত বছরের মাঝ থেকে ডোমেইনটি (ডটবাংলা) কার্যকর করতে নতুনভাবে উদ্যোগ নেয় সরকার। গত জুনে অনুষ্ঠিত ডমেস্টিক নেটওয়ার্ক কো-অর্ডিনেশন কমিটির (ডিএনসিসি) সভায় বিটিসিএলকে এ বিষয়ে দায়িত্ব দেয়া হয়। এরপর ডোমেইনটির সার্বিক অবস্থা জানতে আইসিএএনএনকে চিঠি দেয় বিটিসিএল। প্রত্যুত্তরে আইসিএএনএন জানায়, ডোমেইনটি এখনো বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দ রয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আনুষঙ্গিক কার্যক্রম সম্পন্নের কাজ শুরু করে বিটিসিএল।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম গত ৬ জানুয়ারি জানিয়েছিলেন, ২১ ফ্রেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ডট বাংলা ডোমেইন চালু হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

six − 2 =