“ইন্টারনেটের প্রটোকল স্যুট”

9
398
"ইন্টারনেটের প্রটোকল স্যুট"

অস্পৃশ্য বন্ধু

বর্তমান যুগ বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তির যুগ...
আমি বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি প্রেমী একজন অতি সাধারণ মানুষ...
ইন্টারনেট, কম্পিউটার এবং প্রযুক্তি সম্পর্কে আবার প্রবল আগ্রহ...
আমার এই ইচ্ছাই আমার শক্তি...
তাই চেষ্টা করবো আপনাদের সাথে টিজনার পেজে থাকতে...
আপনাদের একান্ত সহযোগিতা আমার কাম্য...

ধন্যবাদ
"ইন্টারনেটের প্রটোকল স্যুট"

“আসসালামু আলাইকুম”

কেমন আছেন আপনারা ?
আশা করি আল্লাহর রহমতে সবাই ভালোই আছেন।
সবাইকে আমার নতুন এই পোস্টে স্বাগতম।

আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদেরকে “ইন্টারনেটের প্রটোকল স্যুট” সম্পর্কে জানাবো… :)

টিসিপি/আইপি হলো ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য প্রটোকল স্যুট। এটি তৈরি হয়েছিল ARPANet তৈরির সময়। সে কারণে এই প্রটোকল স্যুটকে DoD কিংবা ARPANet প্রটোকল স্যুটও বলা হয়। এই স্ট্যাকের দুটি প্রটোকলের নামানুসারে প্রটোকল স্যুটের নাম দেওয়া হয়েছে। এই প্রটোকল দুটি হলো : ট্রান্সমিশন কন্ট্রোল প্রটোকল (TCP) ও ইন্টারনেট প্রটোকল (IP)। TCP ব্যবহৃত হয় কানেকশন-অরিয়েন্টেড নির্ভরযোগ্য ট্রান্সমিশন সার্ভিসের জন্য, আর IP ব্যবহৃত হয় ওই নেটওয়ার্কের প্রতিটি হোস্টের এড্রেস নির্ধারণের জন্য।

TCP/IP প্রটোকল স্যুট ইন্টারনেটে ব্যবহারের জন্য তৈরি হলেও এটি লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক মেট্রোপলিটন এরিয়া নেটওয়ার্ক ও ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্কে ব্যাপকভাবে ব্যবহার হয়ে আসছে। এটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত প্রটোকল স্যুট এবং বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেম, যেমন উইন্ডোজ, ইউনিক্স, লিনাক্স, ম্যাকিন্টশ ইত্যাদিতে ব্যবহার করা যেতে পারে। TCP/IP’র গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্যসমূহ নিম্নে আলোচনা করা হলো-

ইন্টার অপারেবিলিটি : একটি নেটওয়ার্ক যদি আরেকটি নেটওয়ার্কের সঙ্গে যোগাযোগ গড়ে তুলতে পারে তাহলে তাকে বলা হয় ইন্টার অপারেবল নেটওয়ার্ক। ইন্টার অপারেবল নেটওয়ার্ক গড়তে হলে চাই ইন্টার অপারেবল প্রটোকল। TCP/IP প্রটোকল স্যুটের বড় গুণ হলো এটি বিভিন্ন প্লাটফর্মে ব্যবহার করা যায়। ইউনিক্স মেশিনে TCP/IPচ অন্য উইন্ডোজ কিংবা ম্যাকিন্টশ TCP/IP হোস্টের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে অনায়াসে। TCP/IP প্লাটফর্মের ওপর নির্ভরশীল নয়।

ব্যবহার যোগ্যতা : TCP/IP প্রটোকল স্যুটকে আমরা বিভিন্ন নেটওয়ার্ক এনভায়রনমেন্টে, LAN, MAN, WAN এ ব্যবহার করতে পারি। এটির এডমিনিস্ট্রেশন সহজ করার জন্য আছে বিভিন্ন পদ্ধতি। যেমন নেটওয়ার্কে প্রতিটি হোস্টের একটি ইউনিক এড্রেস দেওয়া এবং প্রয়োজনে তা পরিবর্তন করা বেশ কঠিন কাজ। TCP/IP তে আমরা এই কাজটি করতে পারি স্বয়ংক্রিয়ভাবে।

রাউটযোগ্য : TCP/IP রাউটিংযোগ্য। অর্থাৎ একটি TCP/IP নেটওয়ার্ককে আপনি আরেকটি TCP/IP নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত করতে পারেন। ইচ্ছামতো

সেক্ষেত্রে প্রথম নেটওয়ার্ক ডাটাকে দ্বিতীয় নেটওয়ার্কে পাঠাতে সক্ষম হবে। এক নেটওয়ার্ককে আরেক নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত করার এই পদ্ধতিকে বলা হয় ইন্টারনেটওয়ার্কিং। কেবল রাউটযোগ্য প্রটোকল দিয়েই ইন্টারনেটওয়ার্কিং সম্ভব।

ভেন্ডর সমর্থন : TCP/IP ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণ বিভিন্ন কম্পিউটার ও নেটওয়ার্ক প্রডাক্ট ভেন্ডরদের সমর্থন। প্রায় সব ভেন্ডরই এই প্রটোকল সাপোর্ট করে এবং এটি একটি ওপেন স্ট্যান্ডার্ড। কোনো নির্দিষ্ট কোম্পানির অধীন না হওয়ায় TCP/IP সবাই ব্যবহার করতে পারে এবং নিজ নিজ প্রডাক্টের সঙ্গে জুড়ে দিতে পারে।

বিশেষ ধন্যবাদ, আলভী আফসাল মাহীম কে… :)

লেখাটি সংগৃহীত হয়েছে নিচের এই ফেসবুক পেজ থেকে, চাইলে লাইক করতে পারেন… :)

“জানার আছে অনেক কিছু”


আজকের মত এই পর্যন্তই…
সবাই ভালো থাকবেন এবং আমার জন্য দোয়া করবেন।

“আল্লাহ হাফেজ” :)

9 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ