গ্রে হ্যাট অ্যাডমিন এর সুইস ব্যাংক হ্যাকিং এর দাবী – কতোটুকু সত্যি ?

0
228

সুইস ব্যাংক নিয়ে যে এতো মাতামাতি হয়, হচ্ছে, অনেকেই কি জানে সুইস ব্যাংক আসলে কী ?

বিস্তারিত বলার ইচ্ছা নাই, ইন্টারনেটের সহজলভ্যতার এই যুগে চাইলেই খোঁজ নিয়ে জানা যায় । সুইস ব্যাংক একটি একক ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৫৪ সালে, আর এটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয় ১৯৯৮ সালে । কিন্তু এখন Swiss Financial Market Supervisory Authority (FINMA) (https://www.finma.ch/) এর অধীনস্ত ব্যাংকগুলো সুইস ব্যাংক হিসেবে পরিচিত, অর্থাৎ সুইস ব্যাংক বর্তমানে একক কোনো ব্যাংক নয় ।

সুইজারল্যান্ড কেন্দ্রিক মোট কতোগুলো ও কী কী ব্যাংক সেই দেশসহ অন্যান্য দেশে আছে, তার তালিকা পাবেন এখানে –https://en.wikipedia.org/wiki/List_of_banks_in_Switzerland

২০১২ সালে হঠাত বাংলাদেশ গ্রে হ্যাট হ্যাকার্সের অ্যাডমিন রোটেটিং রোটর দাবি করে, সে সুইস ব্যাংকের ইউজার ইনফরমেশান লিক করে এবং তাকে অফিশিয়াল অ্যানোমিনাসের(!) পক্ষ থেকে লাইসেন্স(!) করা একটি গাই ফক্স মাস্ক উপহার দেওয়া হয় । যেহেতু সে ইনফরমেশানের ব্যাপারটা নিজে ক্লেইম করেছে, সেই হিসেবে তার বক্তব্য নিজেকেই প্রমাণ করতে হবে । প্রমাণ হিসেবে সে ঐ ব্যাংকের ওয়েবসাইটের অ্যাডমিন কন্টোল প্যানেলের একটি স্ক্রিনশট আর তাকে মেনশান করে একটি টুইটার অ্যাকাউন্টের টুইটের স্ক্রিনশট দেখায় ।

প্রথমে আসি ব্যাংকের কথায় । এই হলো সেই স্ক্রিনশট –

LammerRotor গ্রে হ্যাট অ্যাডমিন এর সুইস ব্যাংক হ্যাকিং এর দাবী - কতোটুকু সত্যি ?

(কোনো কারণে ছবিটি দেখা না গেলে এই লিঙ্কে গিয়ে দেখুন – http://s10.postimg.org/kz6wi9hqf/Lammer_Rotor.jpg)

ছবি থেকে দেখা যাচ্ছে এই ব্যাংকের ওয়েবসাইট হলো – http://www.bankofswissltm.com/ । উৎসুক জনতা সাইটের লিঙ্কে গিয়ে দেখে আসতে পারেন; সাইটের কোনো অস্তিত্বই নাই । এটা এমনই এক নামসর্বস্ব ব্যাংক, যাদের ওয়েবসাইটের কোনো ক্যাশ পর্যন্ত ওয়েবে নাই !! স্ক্রিনশট থেকে দেখা যাচ্ছে, এই তথাকথিত সুইস ব্যাংকের ক্লায়েন্ট মাত্র ৩ জন ! আপনি বিশ্বাস করবেন এটা ? আরও একটু ভালোভাবে অ্যাকাউন্ট নাম্বারগুলো খেয়াল করুন । সাধারণত যে কোনো ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট নাম্বারগুলো ব্যাংক ভেদে ইউনিক প্যাটার্নের হয় । আর এখানে যে ৩ টি অ্যাকাউন্ট দেখা যাচ্ছে, তার একটি ৯ ডিজিটের, একটি ১০ এবং আরেকটি ১৫ ডিজিটের ।

সত্য কথা হচ্ছে, এটা কোনো সুইস ব্যাংকের ওয়েবসাইট না !

 

দ্বিতীয়ত, অফিশিয়াল অ্যানোনিমাসের(!) টুইট । টুইটটির স্ক্রিনশট দেখুন ।

ReTweet গ্রে হ্যাট অ্যাডমিন এর সুইস ব্যাংক হ্যাকিং এর দাবী - কতোটুকু সত্যি ?

 

এই হলো সেই বি-ক্ষ্যাত(!) টুইটের লিঙ্ক – https://twitter.com/oppinkpower/status/244576693371686912 ।

(টুইটারের পোস্টটি যদি দেখা না যায়, তাহলে http://webcache.googleusercontent.com/search?q=cache:https://twitter.com/oppinkpower/status/244576693371686912 এই লিঙ্কে গিয়ে ক্যাশড ভিউ দেখে আসতে পারেন)

একে তো এই টুইটার অ্যাকাউন্টের ইউজার নেম OpPinkPower ! আমাকে বিশ্বাস করতে হবে যে এইটা অ্যানোনিমাসের অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট ? অর্থাৎ কেউ একজন Anonymous নাম দিয়ে একটা টুইটার অ্যাকাউন্ট খুলে ফেললো আর ঐটা অফিশিয়াল অ্যানোনিমাস হয়ে গেলো ? সিরিয়াসলি ?

তাছাড়া কেউ একজন সুইস ব্যাংকের ইনফরমেশান লিক করলো, সেই নিউজ অফিশিয়াল অ্যানোনিমাস টুইট করলো আর সেই টুইট রি-টুইট হয়েছে মাত্র ২ বার । সিরিয়াসলি ??

আসল কথা হচ্ছে, অ্যানোনিমাসের কোনো অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টই নাই !

 

আমার বক্তব্যের মূল কথা হচ্ছে, ল্যামিং শুধুমাত্র অপরাধ না, এটা একটা রোগ । সাইবার ৭১ এর তানজিম আল ফাহিম যেমন এই রোগে আক্রান্ত, তেমনি গ্রে হ্যাটের কাজি মিনহার এর ব্যতিক্রম না । পার্থক্য হচ্ছে, তানজিম ধরা খেয়ে ডলা খাচ্ছে, আর মিনহার এখনো গায়ে হাওয়া লাগিয়ে বাতাস খাচ্ছে এবং তার ল্যামিং অ্যাক্টিভিটিগুলোকে মিডিয়ার শক্তি কাজে লাগিয়ে অতিরঞ্জিত করে সহজ-সরল মানুষদেরকে বোকা বানাচ্ছে ।

আমজনতা যতোদিন পর্যন্ত সচেতন না হচ্ছে, ততোদিন পর্যন্ত বাংলাদেশের সাইবার স্পেস ল্যামার মুক্ত হবে না । আপনারা সচেতন হোন, কোনো খবর বিশ্বাস করার আগে সত্যতা যাচাই করুন ।

মনে রাখবেন, আপনাদের এই অন্ধ বিশ্বাসই কিন্তু এই সব ল্যামারদের মূল শক্তি । যেদিন আপনারা চোখ খুলতে শুরু করবেন, সেদিনই এসব ল্যামারদের পতন ঘটবে ।

বাংলার সাইবার স্পেস,
রাখিব ল্যামার মুক্ত ।

একটি উত্তর ত্যাগ