“সাইবার ৭১” নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব।

0
518

আসসালামু আলাইকুম,

সময় সুযোগের অভাবে সচরাচর ব্লগে লেখা লেখি করতে পারি না। আর এই সুযোগে এক মানসিক প্রতিবন্ধীকে দেখলাম টিউনার পেজে বাংলাদেশী হ্যাকার গ্রুপ “সাইবার ৭১” কে নিয়ে মিথ্যাচার তথ্য সংবলিত টিউন দিয়েছে। তাই ই আমার এই টিউন দেওয়া, আশা করি টিউনে উল্লেখিত প্রমান সহ সকল তথ্য গুলো পরলেই বুঝে যাবেন কারা সত্যিকার হ্যাকার আর স্ব ঘোষিত।

আপনারা অনেকেই জানেন “সাইবার ৭১” এর কার্যক্রম সম্পর্কে। কিছুদিন আগেও মানুষদের  হ্যাকার সম্পর্কে বাজে ধারনা ছিলো। ভাবতো এদের দ্বারা শুধু ক্ষতি ই হয়। কিন্তু আমরা সাইবার স্পেসে এসে নিয়মিত আমাদের কার্যক্রমের মাধ্যমে মানুষের মনে এই বাজে ধারনা কিছুটা দূর করতে সক্ষম হয়েছি। যার প্রমান হিসেবে প্রথম এবং একমাত্র সিকিউরিটি স্পেশালিষ্ট গ্রুপ হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছে এই “সাইবার ৭১”। লিঙ্কঃ যুগান্তরমানব কণ্ঠ, টেকশহর। +++

 

এই বিষয়ে এলআইসিটি প্রকল্পের কম্পোনেন্ট টিম লিডার ফখরুজ জামান সহ উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে সংবাদ লিঙ্ক – See more at: http://www.jugantor.com/it-technology/2015/03/10/232517

ডিবি পুলিশ, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই) সহ এদের ও অনলাইন ভিত্তিক কেস গুলোর সহায়তা করে “সাইবার ৭১”…  হ্যাকারদের জন্য যারা ১৫ বছরের জেল জরিমানার আইন করে তারাই আমাদের কাজে মুগ্ধ হয়ে আমাদেরকেই অনুপ্রেরনা যোগায়।
"সাইবার ৭১" নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব।

 

 

এর কারন হিসেবে যদি ব্যাখ্যা করি তাহলে একটাই উত্তর আসবে, তা হলো… আমাদের প্রতিটা কাজই দেশের জন্য এবং সবার কাছে গ্রহন যোগ্য।

ইদানিং কালে একটা কথা বেশিই প্রচলিত যে, বাংলাদেশে কাউয়ার চাইতে ফেসবুকে দাবীকৃত হ্যাকারদের সংখ্যা বেশি। এইবার আসি এমন ই এক দাবীকৃত হ্যাকার এর টিউন সম্পর্কে যেখানে তিনি দাবী করেছেন “সাইবার ৭১” কিছুই পারে না এবং তিনি একজন হ্যাকার। :roll:  :-D

প্রথমেই দেখে নেই আমাকে দেওয়া তার কিছু মেসেজের স্ক্রিনশট…
১…  আমি হ্যাকিং শিখানোর জন্য কোন কোর্স করাই কিনা সেটার জন্য উনার অনুরোধ।

"সাইবার ৭১" নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব।

২… “সাইবার ৭১” এ জয়েনের জন্য উনার অনেক অনুরোধ। আমার সরাসরি উত্তর ছিলো, যারা হ্যাকিং পারে না তাদের নেওয়া হয় না। সেখানে তবুও তার ক্রমাগত অনুরোধ।

"সাইবার ৭১" নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব।

 

৩… আমার নাম্বার সংগ্রহ করে ক্রমাগত হ্যাকিং শিখানোর জন্য অনুরোধ এবং ম্যাসেজর সামান্য একটি নমুনা।

"সাইবার ৭১" নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব।

 

৪… বাংলাদেশে একমাত্র হ্যাকার গ্রুপ হিসেবে “সাইবার ৭১” তাদের স্কিলডের মাধ্যমে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অন্যায় এর প্রতিবাদে শুধু টার্গেট সাইট হ্যাক করেই যোগ্যতা প্রমান করেছে যা অন্য কারো পক্ষে সম্ভব হয় নি। আর সেটা কিভাবে করে  সেটা আমাদের থেকে জন্যও উনাদের গ্রুপের আমাকে কতো তেল মালিশ। :(

 

"সাইবার ৭১" নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব।

 

ইয়েস, এই হচ্ছে সেই Rizwan bin sulaiman যিনি কিনা দাবী করে বসলেন “সাইবার ৭১” কিছুই জানে না অথচ এতোদিন তিনিই ক্রমাগত হ্যাকিং শিখার জন্য আমাকে মেসেজ দিয়ে যাচ্ছেন। উনার প্রধান লক্ষ্যই ছিলো নাকি হ্যাকিং শিখে মানুষের ক্রেডিট কার্ড চুরি করবেন এবং যেটা তিনি তার টিউনেই জানিয়েছিলেন। যে মানুষের ক্ষতি করার জন্য হ্যাকিং শিখতে চায় তাকে কেনো হ্যাকিং শিখাবো?

 

দুই দিন আগে যে কিনা গ্রুপে জয়েন করার জন্য পা চাটাচাটি করা শুরু করেছিলো বাপ পর্যন্ত ডাকাডাকি সহ তারে দেখলাম কয়েকটা পয়েন্ট নাকি বের করেছে যেটা “সাইবার ৭১” মিথ্যাচার করেছে বলে দাবী করা হয়েছে।
আসেন, সময় করে দেখে নেই কোনটা সঠিক আর কোনটা মিথ্যা…

তার প্রথম পয়েন্টে দাবী করা হয়েছে “সাইবার ৭১” নাকি ফেক ভাবে এক্সপায়ারের ওয়েবসাইট হ্যাক করেছে। অথচ এটা “সাইবার ৭১” থেকে কেউ কখনোই দাবী করে নি যে ওয়েবসাইটটি হ্যাক করা হয়েছে। তারা নিজেরাই ভিডিও তৈরি করেছে এবং নিজেরাই আপলোড করে মিথ্যাচার করে যাচ্ছে। [ যদি প্রমান দেখাতে পারে আমাদের কেউ নিজ থেকে দাবী করেছে যে ওয়েবসাইটটি হ্যাক করা হয়েছে তাহলে নিজেই সাইবার স্পেস থেকে চলে যাবো। আর যদি প্রমান দেখাতে না পারে তাহলেই বুঝে নিতে পারবেন কারা সত্যিকার লেমার]

পয়েন্ট দুই এবং তিনে তিনি টাইগার ম্যাটকে আর আমাকে প্রতিদন্ধী হিসেবে তুলে ধরেন এবং কে সেরা সেটা প্রমান করার চেষ্টা করেন।
আমি নিজেও টাইগার ম্যাটের স্কিলড নিয়ে কখনোই কোন প্রশ্ন তুলি নি এবং তিনি বিশ্ব সেরাদের লেভেলে একজন। কিন্তু উক্ত মানসিক প্রতিবন্ধী বালক টাইগার ম্যাট এর সাথে আমার প্রতিদন্ধীতা কোন হিসেবে সেটাই বোধগম্য নয়। কারন, টাইগার ম্যাট একজন ব্ল্যাক হ্যাট পার্সন আর আমি হ্যাকিংকে ব্যবহার করি সম্পুর্ন দেশের স্বার্থে। এবং হ্যাকিংকে খারাপ ভাবে ব্যবহার না করে  আমি দেশের জন্য কাজ করেই আনন্দিত এবং নিজেকে সফল বলে মনে করি।   :oops:
তার টিউনের সারমর্ম ছিলো “সাইবার ৭১” হ্যাকিং পারে না। অথচ গত দুই বছরে বাংলাদেশের জন্য যতো গুলো হ্যাকিং কার্যক্রম ছিলো সব গুলোই আমাদের ই। অপর দিকে তাদের একটা কাজ ও আপনার কখনোই নজরে আসবে না শুধু ফেসবুকের টিউন আর ব্লগের লেখা ছাড়া। তাহলে আপনি ই   নিজেই বুঝে নিন কারা সত্যিকার হ্যাকার আর কারা শুধু ফেসবুক আর ব্লগে স্ব ঘোষিত দাবীকৃত।

পয়েন্ট ৪ এবং ৫ এ তিনি দাবী করেছিলেন, “সাইবার ৭১” নাকি ফেক সাবডোমেইন নিয়ে ডিফেস দেয়।  আমরা কখনো দাবী না করলেও তারা বলে বেড়াচ্ছিলো “সাইবার ৭১” live.com.bd থেকে ফ্রি সাবডোমেইন বানিয়ে হ্যাক করে।  তাদের এই কথার পরিপ্রেক্ষিতে তাদের কানের নিচে থাপ্পড় মেরে আমাদের যোগ্যতা প্রমানের জন্য সরাসরি live.com.bd ই হ্যাক করা হয়েছিলো সাইট অক্ষত রেখেই। মিরর… http://www.zone-h.org/mirror/id/24383996  8-)
নিজেই বুঝে নিন কারা হ্যাকার আর কারা শুধু ফেসবুকেই চিল্লাচিল্লি করে যায়। :v

 
তিনি দাবী করেছেন আমাদের মেম্বার নাকি বলেছে জোন এইচ হ্যাক করেছে। একটা ফেক্ স্কিনশট ছাড়া আর কিছুই দেখাতে পারলো না। ফটোশপ দিয়ে এরকম স্ক্রিনশট নিয়ে যে কেউ ই দাবী করতে পারে যে, ছাগলটা ও ফেসবুক হ্যাক করছে বস্তুত এটা সবার ই জানা যে একজন সাধারন মস্তিষ্কের মানুষ কখনোই এটা দাবী করবে না। তবুও তার প্রতি ই উন্মুক্ত চ্যালেঞ্জ রইলো, পারলে এটা তারাই প্রমান করে দেখাক যে আমাদের মেম্বাররা বলেছে। যদি করতে না পারে তাহলে নিজেরাই বুঝে নেন কারা হ্যাকার আর কারা লেমার। :v

আমি ব্যাক্তিগত ছবি আপলোড দিলে সেখানে ও তাদের জ্বলে। :P আচ্ছা, সিকিউরিটি স্পেশালিষ্টরা কি ওদের মতো চোর নাকি যে ফেসবুকে ছবি আপলোড দিতে পারবে না? নাকি সৎ সাহস নাই “সাইবার ৭১” এর মেম্বারদের মতো? :D

 

আমি ঢাকা ইউনিভার্সিটি কর্তিপক্ষ এর থেকে অফার পেয়েছি সাইবার সিকিউরিটি বিষয়ক ক্লাস নেবার এটাতেও তাদের কতো জ্বলে যে, ক্যানো ক্লাস নিচ্ছি না। :D অথচ মুর্খদের কাছে এই সামান্য বিষয়টা জানা নেই যে্, এখন DU বন্ধ। এছাড়া এদের জন্য আরেকটি কষ্টকর সংবাদ দেই যে, বুয়েট কর্তিপক্ষ এর সাথেও আমাদের মেম্বারদের কথা হয়েছে এবং ঈদের পরবর্তী সময়েই সেখানে ইনশাল্লাহ আমাদের মেম্বাররা গিয়ে সেমিনার এবং ক্লাস নিবে। :v

এছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন আইটি ফার্ম এবং প্রতিষ্ঠানে আমরা জন সাধারনকে সাইবার সিকিউরিটির উপরে আগ্রহী করার লক্ষ্যে  নিয়মিত সেমিনার এবং ক্লাস নিয়ে যাচ্ছি সেটা হয়তো কারোই অজানা না। :) আর এই সকল সফলতা গুলোই মানসিক প্রতিবন্ধী গুলার জ্বলার কারন। 

 

 

এছাড়া তিনি আমাকে সহ “সাইবার ৭১” এর বাকী সকল মেম্বারদেরকেই এরকম ভাবে প্রতিনিয়ত বিরক্ত করে যাচ্ছিলো। বিভিন্ন প্রজেক্ট সহ কাজের মধ্যে ব্যাস্ত থাকার মধ্যে মেসেজ গুলো সরাসরি বিরক্তকর ছিলো যে কিনা হ্যাকিং শিখেই লক্ষ্য মানুষের টাকা চুরি করা। বাধ্য হয়ে আনফ্রেন্ড ই করলাম এবং সেটার জন্যও বার বার মেসেজ দিয়ে যাচ্ছিলো।

"সাইবার ৭১" নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব।

 

আপনারাই আশা করি বুঝে গেছেন এবার কেনো এর কাছে “সাইবার ৭১” কে ভালো লাগে না। :-(  :twisted:  আমাদের ক্লিয়ার কাট কথা হচ্ছে, যারা হ্যাকিংকে মানুষের ক্ষতির জন্য ব্যবহার করবে  আমাদের কাছে তেল তুলসি মালিস বাধ্য হয়ে তথাকথিত একটি হ্যাকার গ্রুপে জয়েন করে যাদের কাজ ই নিজেদের মধ্যে বকাবকি আর কামড়া কামড়ি করা।

 

তার টিউনের সারমর্ম ছিলো “সাইবার ৭১” হ্যাকিং পারে না। অথচ গত দুই বছরে বাংলাদেশের জন্য যতো গুলো হ্যাকিং কার্যক্রম ছিলো সব গুলোই আমাদের ই। অপর দিকে তাদের একটা কাজ ও আপনার কখনোই নজরে আসবে না শুধু ফেসবুকের টিউন আর ব্লগের লেখা ছাড়া। তাহলে আপনি ই   নিজেই বুঝে নিন কারা সত্যিকার হ্যাকার আর কারা শুধু ফেসবুক আর ব্লগে স্ব ঘোষিত দাবীকৃত। তিনি তার টিউনের শেষে লিখেছেন যেভাবে হ্যাকার হওয়া যাবে। :D আফসোসের ব্যাপার হচ্ছে, যেই ছেলে এখনো “সাইবার ৭১” এর মেম্বারদের কাছে হ্যাকিং শিখার জন্য নিয়মিত অনুরোধ করে যায় তারা কিভাবে হ্যাকিং শিখায়? :v

 

 


আর টিউনার পেজ এর সম্মানিত মডারেটরদের দৃষ্টি আকর্ষন পুর্বক বলা, ফেসবুককে নষ্ট করেছে এদের মতো কিছু ছাগল যাদের কারনে বাংলাদেশের হয়ে লড়াই করে যাওয়া জাতীয় বীর ক্রিকেটার গুলো তাদের পেজ বন্ধ করে দিতেও বাধ্য হয়েছে। আশা করবো টেকটিউনসের ক্ষেত্রেও যাতে এমনটা না হয়। এরকম ভিত্তিহীন টিউন গুলো আর টিউনদাতা  সেই মানসিক রোগী গুলোর ব্যাপারে কঠোর সিদ্ধান্ত না নিলে এখানের পরিবেশ ও তারা নষ্ট করে ছাড়বে।

আজকে সকল কিছুর উত্তর দিলাম কিন্তু ব্যাস্ততা এবং কাজের দরুন হয়তো পরবর্তীতে উত্তর নাও দিতে পারি। তাই এসব স্ব ঘোষিত দাবীকৃতদের  যে কোন কথায় বিভ্রান্ত হবার আগে নিজের কমন সেন্স ব্যবহার করলেই উত্তর নিজেই পেয়ে যাবেন।

বাংলাদেশে ইন্টারনেট সহজলভ্য হবার কারনে যেমন উন্নতি হয়েছে ঠিক তেমনি অবনতি ও হয়েছে। এরকম কিছু ফেসবুক আর ব্লগে দাবীকৃত মানসিক প্রতিবন্ধীদের বকাবকি আর ছাগ্লামির কারনেই আজকে নাসির, মাশরাফিদের পর্যন্ত পেজ বন্ধ করে রাখতে হয়েছিলো। এরা না পারবে নিজে কিছু করতে কিন্তু অন্যরা ভালো কিছু করলেও ছাগ্লামি শুরু করে দিবে। আমাদের উচিৎ এগুলোকে নিজেদের ই প্রতিহত করা।

ভালো কাজের সমর্থন দিতে হলেও ভালো মানুষ হওয়া লাগে, অভদ্র চটিবাজ ফেসবুক / ব্লগাররা পারে শুধু অসভ্যতামী ই করে যেতে। এদের দ্বারা ভালো কাজ তো দূরের কথা, ভালো কাজের সমর্থন দেওয়া ও সম্ভব হয় না।

যোগ্যতা কখনোই ব্লগ  কিংবা ফেসবুক পোষ্টে প্রকাশ পায় না। কাজের মাধ্যমেই দিতে হয় যা একমাত্র হ্যাকার গ্রুপ হিসেবে “সাইবার ৭১” প্রতিনিয়ত প্রমান করে যাচ্ছে।  বাংলাদেশ সাইবার জগত তরুণ মেধাবীদের হাত ধরে এগিয়ে যাক আরো বহুদূর। এই প্রত্যাশায়,

“সাইবার ৭১” এর পক্ষে…
Tanjim Al Fahim

একটি উত্তর ত্যাগ