ফেসবুক ব্যবহারকারীদের সুবিধার্থে নতুন নিরাপত্তা সফটওয়্যার

0
334

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের সুবিধার্থে নতুন নিরাপত্তা সফটওয়্যার ব্যবহার শুরু করেছে ফেসবুক। আজ বুধবার ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দিয়েছে। এক প্রতিবেদনে এএফপি জানিয়েছে, ব্যবহারকারীদের ক্ষতি করে এমন ক্ষতিকর সফটওয়্যার শনাক্ত ও দূর করতে নতুন সফটওয়্যার ব্যবহার করা শুরু করছে ফেসবুক।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তারা ক্যাসপারস্কি ল্যাবের সঙ্গে নতুন নিরাপত্তা সফটওয়্যার নিয়ে কাজ শুরু করেছে। ক্যাসপারস্কি ছাড়াও ফেসবুকের সঙ্গে কাজ করছে ইসেট, এফ-সিকিউর ও ট্রেন্ড মাইক্রো।

ফেসবুকের নিরাপত্তা প্রকৌশলী ট্রেভর পটিংগার বলেন, ‘ক্যাসপারস্কির সঙ্গে যৌথভাবে অন্য কোম্পানিগুলোর কাজ করার জন্য ধন্যবাদ। গত তিন মাসে আমরা ২০ লাখ কম্পিউটারকে ভাইরাসমুক্ত করতে পেরেছি। যখন ওই কম্পিউটারগুলো থেকে ফেসবুকে ঢোকা হতো তখন আমরা তাতে ম্যালওয়্যার পেয়েছিলাম।’

ট্রেভর আরও বলেন, ‘ফেসবুক চালানো হয় এমন কোনো কম্পিউটারে ম্যালওয়্যার থাকলে আমরা একটি ম্যালওয়্যার দূর করার সফটওয়্যার বা টুল দেব যা ফেসবুক ব্যবহার করার সময় ব্যাকগ্রাউন্ডে কাজ চালাতে সক্ষম হবে। যখন কম্পিউটার স্ক্যান শেষ হবে তখন ব্যবহারকারী একটি নোটিফিকেশন পাবেন এবং তাতে কম্পিউটারে কী ধরনের ম্যালওয়্যার ছিল তা জানতে পারবেন ফেসবুক ব্যবহারকারী।’

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলেছে, ম্যালওয়্যার যদি কম্পিউটার নিষ্ক্রিয় হয়ে থাকে তারপরও তা খুঁজে বের করে তা চিরতরে নির্মূল করার প্রচেষ্টা চালাবে ফেসবুক।

ক্যাসপারস্কি ল্যাবের গবেষক কেট কোচেতকোভা এক ব্লগ পোস্টে লিখেছেন, ফেসবুক ব্যবহারকারীরা ফিশিং নামের বিভিন্ন অনলাইন প্রতারণার শিকার হন। ফেসবুক ব্যবহারকারীর মেইলে ভুয়া মেইল পাঠিয়ে ক্ষতিকর ভাইরাস বা ম্যালওয়্যার ডাউনলোড করার জন্য প্রলুব্ধ করা হয়।

কোচেতকোভা বলেন, ফিশিং আক্রমণ চালানো দুর্বৃত্তদের প্রধান লক্ষ্য এখন ফেসবুক। প্রতি পাঁচটির মধ্যে অন্তত একটি ফিশিং স্ক্যাম ফেসবুক নোটিফিকেশন আকারে আসে। ফেসবুকের ছদ্মবেশে আসা মেইল সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে কারণ এই মেইলগুলো ভুয়া। এ ছাড়াও ফেসবুক ব্যবহারকারীদের লক্ষ্য করে অনেক ট্রোজান বা ক্ষতিকর ভাইরাস ছড়ানো হয়।
কোচেতকোভা বলেন, প্রতারকেরাও ফেসবুক ব্যবহার করে। ম্যালওয়্যার ব্যবহার করে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য হাতিয়ে নিয়ে ভুয়া লাইক দেওয়া, অবৈধ পণ্য বিক্রি করার মতো কাজ চালায় তারা।

একটি উত্তর ত্যাগ