অনলাইন সাংবাদিকতায় সহযোগিতা করতে গুগলের ১৬৩ মিলিয়ন ডলার

0
422
অনলাইন সাংবাদিকতা এগুবেই। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জায়ান্ট অনলাইন পোর্টাল গুগল যখন ইউরোপীয় সংবাদমাধ্যম গুলোর সঙ্গে একাট্টা হয়ে কাজ শুরু করে, আর তাতে ১৬৩ মিলিয়ন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১২ হাজার ৯৩০ কোটি টাকা) লগ্নি করে, তখন সে কথা একবাক্যেই বলা যায়।
 
মঙ্গলবারই এই প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছে গুগল। বলেছে অনলাইন সাংবাদিকতায় সহযোগিতা করতে ইউরোপের অন্তত আটটি প্রকাশনার সঙ্গে কাজ করবে তারা।
 
অনলাইন সংস্থাগুলোর উদ্যোগ ডিজিটাল নিউজ ইনিশিয়েটিভ এর মধ্য দিয়ে প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে উচ্চমানের সাংবাদিকতা চর্চা নিশ্চিত করতে চায়।
 
গুগলের এক শীর্ষ কর্তা লন্ডনে এই ঘোষণা দেওয়ার সময় জানান, তারা ডিজিটাল সাংবাদিকতা চর্চাকে গতিশীল করতে প্রযুক্তির আরও ‍উৎকর্ষতা নিশ্চিত করবেন। আর এ সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ, গবেষণা বাড়াবেন। আর ডিজিটাল সাংবাদিকতায় নতুন নতুন উদ্ভাবনীর প্রক্রিয়ায় অর্থায়ন করবেন।
 
‘গুগল বরাবরই সংবাদমাধ্যম শিল্পের বন্ধু হয়ে থাকতে চায়,’ বলেন গুগলের ইউরোপ অঞ্চলের স্ট্রাটেজিক পার্টনারশিপের প্রধান কার্লো ডি’আসারো বিয়োন্দো।
 
‘অনেক দিন ধরে সংবাদ আর সংবাদ শিল্পের সাথে আমাদের সম্পর্ক নিয়ে কিছু ভুলবুঝাবুঝি আছে। কিন্তু এখন তার অবসান ঘটিয়ে ‍আমরা এক সঙ্গে চলতে চাই। যার মধ্য দিয়ে ডিজিটাল সাংবাদিকতার জন্য একটি টেকসই মডেল গড়ে ওঠে,’ ফিন্যান্সিয়াল টাইমস ডিজিটাল মিডিয়া সম্মেলনে সংবাদমাধ্যমগুলোর নির্বাহীদের সামনে একথা বলেন কার্লো ডি’আসরো।
 
সংবাদমাধ্যমগুলোর প্রকাশকদের দীর্ঘ সময়ের অভিযোগ গুগলের নিউজ সার্ভিস মূল ধারার মিডিয়াগুলোর কাছ থেকে পাঠক সরিয়ে নিচ্ছে। এতে কোম্পানিগুলো সংবাদমাধ্যমকে বিজ্ঞাপন না দিয়ে গুগলকে বিজ্ঞাপন দিতে বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছে।
 
ডি’আসারো অবশ্য এর একটা জবাব দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমরাও স্রেফ সার্চ ইঞ্জিন আর নিউজ ফিড থেকে গোটা বিশ্বের অনলাইন প্রকাশকদের সাইটে বিনা অর্থ ব্যয়ে এক হাজার কোটি ভিজিটর দিচ্ছি।
 
এই মাসের গোড়ার দিকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন গুগলের বিরুদ্ধে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আনে। এতে বলা হয় গুগল তার সার্চ ইঞ্জিনের অপব্যবহার করে আধিপত্য ধরে রেখেছে। এছাড়াও গুগলের অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন অপারেটিং সিস্টেমের ওপর তদন্তও শুরু করেছে।
 
তথ্য মতে, ইউরোপের সার্চ ‍মার্কেটের ৯০ ভাগই গুগুলের দখলে।
 
কার্লো ডি’আসরো বিয়োন্দো জানান এই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ইউরোপীয় প্রকাশকদের একটি ওয়ার্কিং গ্রুপ তৈরি করা হবে। যারা অর্থ আয়, পাঠক বৃদ্ধি, আর পাঠকের অংশগ্রহণ বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণ করবেন। এছাড়াও প্রশিক্ষণ ও গবেষণায় উল্লেখযোগ্য হারে বিনিয়োগ বাড়বে।

একটি উত্তর ত্যাগ