মাইক্রোসফটে ভার্চুয়াল টাকা

0
282

বিট কয়েন। এই ভার্চুয়াল কারেন্সি সিস্টেম উদ্ভাবিত হয়েছে অনেক আগেই। তবে নিরাপত্তা জটিলতাসহ নানা কারণে তা এখনো ব্যাপকভাবে গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। কিন্তু এক্ষেত্রে মাইক্রোসফটের মতো সফটওয়্যার জায়ান্ট অগ্রদূতের ভূমিকা রাখলো বলেই মনে করা হচ্ছে।

মাইক্রোসফটের অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে ফান্ড তৈরি করা যাবে। আর কোম্পানির বিভিন্ন সেবা পেতে সেই ফান্ড থেকে ভার্চুয়াল কারেন্সি পে-মেন্টের ব্যবস্থা করা আছে। ফলে মাস্টার কার্ড বা এমন কোনো ইলেক্ট্রনিক কার্ড ব্যবহার করে পেমেন্টের ঝামেলা থাকবে না।

মাইক্রোসফট জানিয়েছে, এক্সবক্স গেমস কনসোলে ভিডিও ও গেমস পেতে এবং উইন্ডোজ ফোনে অ্যাপস বা কোনো সার্ভিস পেতে এমনকি মাইক্রোসফটের সফটওয়্যার কিনতেও এই বিটকয়েন গ্রহণ করবে কোম্পানি।

বেশক’টি বড় কোম্পানি ইতিমধ্যে বিটকয়েন ব্যবহার করছে। এর মধ্যে মাইক্রোসফটের অন্তর্ভুক্তি এই ভার্চুয়াল কারেন্সির ভবিষ্যৎকে আরো একধাপ এগিয়ে নিয়ে গেল।

এ বিষয়ে মাইক্রোসফট অবশ্য আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণা দেয়নি। এর পরিবর্তে তারা কাস্টমার সাপোর্ট পেজে এই কারেন্সি ব্যবহারের নিয়মকানুন দিয়েছে।

বিটকয়েন বর্তমানে শুধু আমেরিকার মধ্যেই ব্যবহার করা যায়। এছাড়া এর জন্য অবশ্যই একটি ফিক্সড অ্যাকাউন্ট লাগে।

তবে ক্রমেই এটি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ইতিমধ্যে পেপল, ডেল, এক্সপেডিয়া, নিউএগ এবং আরো অনেক কোম্পানি বিটকয়েন দিয়ে পেমেন্ট নিয়ে থাকে।

বিটকয়েন সিস্টেম হচ্ছে একটি অনন্য ভার্চুয়াল অর্থ ব্যবস্থা। এটি জটিল গণিত এবং গোপন কোড ব্যবহার করে অ্যাকাউন্টধারীদের ব্যবহার উপযোগী করা হয়।

এই মুদ্রা ব্যবস্থাটি গত বছরের ডিসেম্বরে মুদ্রাবাজারে সবচেয়ে বেশি মূল্যায়িত হয়েছিল। এক বিটকয়েন ১১শ ডলারের বেশি মূল্যমানে দাঁড়িয়েছিল।

তবে এরপর থেকে দাম পড়ে যেতে থাকে। বর্তমান মুদ্রাবাজারে বিটকয়েনের দাম ৩৫৭ ডলার।

LEAVE A REPLY

19 + 12 =