নতুন একটি DSLR ক্যামেরা কেনার কথা ভাবছেন? তাহলে দেখুন ডিএসএলআর টিপস, ট্রিকস এবং কৌশল

0
592

নতুন ক্যামেরা কেনা একটি চ্যালেঞ্জ হতে পারে। পছন্দ করার মতো বাজারে অনেক ক্যামেরা আছে, যাদের প্রতিটিরই কিছু না কিছু সুবিধা রয়েছে। আপনি পেশাদার ফটোগ্রাফি বা পারিবারিক ছবি তোলার জন্যই হোক, ভালো মানের ছবি তোলার জন্য ডিএসএলআর ক্যামেরা চমৎকার একটি যন্ত্র।

একটি DSLR ক্যামেরা নতুন একটি DSLR ক্যামেরা কেনার কথা ভাবছেন? তাহলে দেখুন ডিএসএলআর টিপস, ট্রিকস এবং কৌশল

ডিএসএলআর ক্যামেরা কী?

ডিএসএলআর বা ডিজিটাল সিঙ্গেল লেন্স রিফ্লেক্স (digital single lens reflex) ক্যামেরা, লেন্সের মধ্য দিয়ে সর্বোচ্চ আলো প্রবেশের জন্য তৈরি করা হয়েছে, যাতে আপনি যা দেখছেন ঠিক একই রকম ছবি পাওয়া যায়। ডিএসএলআর ক্যামেরার ছবি অত্যন্ত স্পষ্ট এবং চমৎকার রঙ বিশিষ্ট। এগুলোতে প্রাণবন্ত ছবি উঠে এবং সূক্ষ বিবরণসহ ছবির জন্য এগুলো বেশ ভালো। পোট্রেট ফটোগ্রাফির জন্যও ডিএসএলআর বেশ ভালো, কারণ এগুলো চোখের রং, মুখের রেখা, গায়ের রং, এবং চুলের বিন্যাসের মত বিষয়গুলো খুব সহজেই ধারণ করতে পারে। ভালো মানসম্পন্ন ছবি তোলার জন্য এগুলোর যে কোনো একটি কিনতে পারেন।

কীভাবে ক্যামেরার ব্র্যান্ড পছন্দ করবেন?

ক্যামেরা কেনার সময় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে ব্র্যান্ড পছন্দ করা। প্রত্যেকটি ব্র্যান্ডেরই তার নিজস্ব কিছু বৈশিষ্ট্য ও আনুষঙ্গিক সরঞ্জাম থাকে, তাই অধিকাংশ মানুষই কেবল কোনো একটি বিশেষ ব্র্যান্ডের প্রতি অনুরক্ত। ব্র্যান্ড পরিবর্তন না করলে তা আপনার টাকা বাঁচাবে, কারণ একটি মাত্র ব্র্যান্ড ব্যবহার করা হলে আপনি লেন্স ও অন্যান্য সরঞ্জাম বারবার ব্যাবহার করতে পারবেন।

ডিএসএলআর জগতে সবচেয়ে জনপ্রিয় দু’টি ব্র্যান্ড হচ্ছে ক্যানন (Canon) ও নিকন (Nikon)। এই দুটি ব্র্যান্ডের রয়েছে অসংখ্য লেন্সের সমাহার, যেগুলোর সাহায্যে আপনি আপনার ক্যামেরা দিয়ে দূরের ছবি তোলা থেকে শুরু করে প্যানারোমিক, বাচ্চাদের ছবি থেকে স্থির দৃশ্যের ছবি তোলা সহ সবকিছু করতে পারবেন। অন্যান্য ব্র্যান্ডের সম্মিলিত মোট বিক্রির চাইতে নিকন ও ক্যাননের মোট বিক্রির পরিমাণ বেশী। যেহেতু এদের বেচাকেনা বেশী তাই এই দু’টি ব্র্যান্ডের ব্যবহৃত ডিএসএলআর ক্যামেরা সহজে পাওয়া যায়।

পেনটেক্স (Pentax) অনেক বছর ধরে বাজারে আছে এবং সব ধরণের ফটোগ্রাফারের জন্য তাদের বিভিন্ন ক্যামেরা মডেল রয়েছে। সব ধরণের আবহাওয়ার জন্য পেনটেক্স (Pentax) বেশ ভালো এবং এটিই একমাত্র ব্র্যান্ড যা বরফ শীতল তাপমাত্রার মত চরম তাপমাত্রায়ও কাজ করতে পারে। এদের লেন্সগুলো আবহাওয়া নির্বিশেষে সুরক্ষিত এবং এদের অনেকগুলোই পানিরোধক। তাই এগুলো দিয়ে পানির নিচে ও উচ্চ তাপমাত্রায় ছবি তোলা সম্ভব।

নিকন ডিএসএলআর (Nikon DSLR) ক্যামেরা বাজারে সবচেয়ে জনপ্রিয় মডেল এবং অন্যান্য প্রতিযোগী প্রতিষ্ঠানের চেয়ে এর অধিক সংখ্যক লেন্স রয়েছে। নতুন ফটোগ্রাফারদের মাঝে নিকন ডিএসএলআর (Nikon DSLR) বেশ জনপ্রিয়, কারণ স্বয়ংক্রিয় সেটিংস থাকাতে এগুলো ব্যবহার করা বেশ সহজ। এছাড়াও এগুলোতে ইমেজ স্টেবিলাইজেশন ব্যবস্থা রয়েছে, যা আপনার হাত স্থির না থাকলেও স্পষ্ট ছবি তুলতে সাহায্য করে।

মূল্য

ডিএসএলআর ক্যামেরা কিনতে গেলে এর দামের কথা ভাবতে হবে। কম দামী থেকে বেশি দামী, অনেক ধরণের দামের ক্যামেরা মডেল রয়েছে। আপনি কী দামের ক্যামেরা কিনবেন তা অনেকগুলো বিষয়ের উপর নির্ভর করে, বিশেষ করে আপনি ক্যামেরা দিয়ে কোন ধরণের কাজ করবেন তার উপর নির্ভর করে। আপনি যদি শুধু আপনার দৈনন্দিন জীবনের, পরিবার বা বন্ধুবান্ধবের ছবি তোলেন তবে কমদামী মডেল হলেই কাজ চলবে।

আপনি যদি ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আয় করতে চান, তবে ভালো ছবির জন্য আপনাকে উন্নত মডেল বেছে নিতে হবে। মনে রাখবেন, বেসিক বা মৌলিক মডেলের ক্যামেরাও আপনাকে অসাধারণ ছবি উপহার দিতে পারে। তাই ভালো ক্যামেরা কেনার জন্য অনেক বেশী টাকা খরচ করার দরকার নেই। দামের ব্যাপারে অনেক বিষয় মাথায় রাখতে হবে:

-লেন্স

বেসিক কিছু ক্যামেরা মডেল “কিট” (“kit”) হিসেবে পাওয়া যায় যাতে ক্যামেরা বডি ও লেন্স থাকে, কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই শুধু ক্যামেরা বডি কিনতে পাওয়া যায়। অর্থাৎ, ক্যামেরা কেনার সময় লেন্সের দামও মাথায় রাখতে হবে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই লেন্সের দাম বডির চেয়ে বেশী। একটি ব্রান্ড নিয়েই থাকুন যাতে আপনি সহজেই লেন্স পরিবর্তন করতে পারেন।

-ব্যাটারি

আপনার ডিএসএলআর-এর সাথে ব্যাটারি থাকবে, কিন্তু নির্বিঘ্নে ব্যবহারের জন্য ব্যাকআপ ব্যাটারি থাকলে ভালো। ব্যাকআপ ব্যাটারি থাকলে সহজেই আপনি প্রয়োজনে আরেকটি ব্যাটারি ব্যাবহার করতে পারেন, যাতে আপনার কোনো গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত হাতছাড়া না হয়ে যায়।

-মেমরি কার্ড

গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তগুলো হাতছাড়া করতে না চাইলে ব্যাটারির মতোই যথেষ্ট মেমরি থাকা প্রয়োজন। কিছু কিছু ডিএসএলআর ক্যামেরার দুইটি মেমরি কার্ডের স্লট থাকে, যাতে একটি পূর্ণ হয়ে গেলে ক্যামেরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যাকআপ মেমরি কার্ড ব্যাবহার করা শুরু করবে। এটা বিভিন্ন শুটিং ইভেন্ট ও ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফির জন্য ভালো। অতিরিক্ত মেমরি কার্ড থাকলে আপনার অসাধারণ কোনো মুহূর্ত আর হাতছাড়া হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না।

-ক্যামেরার ব্যাগ

আপনি যদি পুরনো ক্যামেরা কেনেন তবে তার সাথে ব্যাগ না থাকার সম্ভাবনাই বেশী। ব্যাগ আপনার ক্যামেরাকে পড়ে যাওয়া ও অন্যান্য ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করবে।

অন্যান্য বিবেচ্য বিষয়

অধিকাংশ মানুষ ক্যামেরা কেনার সময় এর আকারের কথা ভাবে না। আপনি যদি আপনার ক্যামেরা পাহাড়ে হাইকিং করতে, বেড়াতে অথবা এমন জায়গায় নিয়ে যেতে চান যেখানে অনেকটা পথ পায়ে হেটে যাওয়া লাগবে তবে আপনার হালকা ক্যামেরা কেনা উচিৎ, যা সহজেই বহন করা যায়। ডিএসএলআর ক্যামেরা ‘পয়েন্ট অ্যান্ড শুট’ ক্যামেরার চাইতে ভারী ও আকারে বড়, তাই ক্যামেরা ব্যাবহারের সময় ভারী ক্যামেরা, ব্যাগ, লেন্স এবং অন্যান্য সরঞ্জাম বহন করার কথা আপনাকে মাথায় রাখতে হবে।

ভালো পুরনো ক্যামেরা খুঁজলে চাহিদা অনুযায়ী আপনি অনেক ক্যামেরা পাবেন। আপনার জন্য সেরা মডেল হচ্ছে সেটি, যেটি আপনার শুটিং-এর ধরণ ও জীবনযাত্রার সাথে মানানসই। আপনি বিয়ের অনুষ্ঠান বা পরিবারের ছবি, যাই তুলুন না কেনো, আপনার জন্য কোনো না কোনো ক্যামেরা রয়েছে। সাধারণভাবে ব্যবহারের জন্য আপনার এন্ট্রি লেভেল মডেল দরকার, এক্ষেত্রে আপনি সনি ডিএসএলআর (Sony DSLR) ব্যবহার করতে পারেন। পেশাদার ছবির জন্য, ক্যানন ডিএসএলআর (Canon DSLR) ভালো। পেনটেক্স (Pentax), অলিম্পাস (Olympus) এবং ফুজি (Fuji) ব্র্যান্ডেরও অনেক মডেল রয়েছে, যেগুলোর সেটিংসে অনেক বৈচিত্র্য রয়েছে। আপনার জন্য সঠিক ক্যামেরাটি কিনতে সেরা ডিএসএলআর রিভিউগুলো পড়ুন।আজই আপনার নতুন বা পুরনো ডিএসএলআর ক্যামেরাটি কিনে ফেলুন।

একটি উত্তর ত্যাগ